New femdom story :
Ankush and his dominant sisters: ( Updated).
Hello! I am ankush, now 19 year old, and I want to share how femdom came into my life.
I am from Kolkata, India. My father is a teacher and my mother is a housewife. I have a younger sister, angana, 2 yrs younger than me. Every year we used to visit my uncle’s house for a week, once or twice per year. My uncle and aunt have only one daughter, ahana. She is also 19 yrs old like me. She forced me to call her didi ( elder sister) though she is just 4 days older than me.
My eagerness to serve girls as their servant and my first femdom experiences started just before I touch my teen age. I don’t know why sometimes I liked to think about being a submissive servant to some girls, like my sister or cousin sis or some girl classmates when I cross 10. I didn’t have any idea what that is or why I liked to think in that way. I liked it if I watch a girl is humiliating a boy. Sometimes, when I watch a girl, I dreamed of being trampled by them. But I didn’t try to do anything silly before I touch 12.
I never showed any submissiveness to my sister Angana , cousin Ahana or any other girl before 12. I used to fight with my sis or cousin sometimes like a normal guy and probably they didn’t have any idea how submissive I am to girls, specially to both of them .
That was December, 2009. we went to our uncle’s house in siliguri. We all 7 went to Darjeeling from there. We reached in Darjeeling at evening. We got only 3 double bed rooms to our favourite hotel, so me, my sis and cousin had to sleep on the same bed for that night.
My father asked if we can adjust in one double bed for one night or will we went to some other hotel? My cousin sis smiled and answered ” No need to go to somewhere else. Bhai ( younger brother) can sleep at our foot end for one night.” My sis laughed by hearing that. probably she thought it was a joke.
My uncle asked me if I have any problem in adjusting in that way or by some other way. Any other guy should protest in response to my cousin’s words. but I couldn’t. I didn’t even have any idea why I liked it so much by hearing what my cousin said. I started to hope that both of my sister will really order me to sleep under their feet that night!
I answered we will adjust in someway.
after the dinner at 9 pm we all went to our own room. My sister Angana and cousin sister Ahana straight jump to the bed and make sure that I didn’t have any other space to be laid on except under their feet. What they did not know in that time was I even want it too!
That was winter time and the weather was really cold. both of my beautiful sister was wearing jeans, jacket and sneakers and hit the bed without taking off their sneakers.
My cousin sister threw a pillow near her feet and ordered me ” hey idiot, sleep under girl’s feet tonight.”
My cousin sister and sister both called me an idiot many times before and obviously I protested.But this time I said nothing. My sister Angana laughted hearing what her cousin sister ordered me to do and said ” yes di ( sis), girls are the best”.
I said nothing and immediately laid under both of their feet without protest.
My cousin sister immediately kicked my head lightly and ordered me, ” who will turn off the light, idiot?”
I had no idea why I was enjoying my humiliation to both of my sisters. My cousin sister kicked my head without any reason with her sneakered foot and I did not even try to protest. I actually wanted to kiss her sneaker sole and thank her for kicking my face. But I did not go that far, but said ” I am sorry” and wake up to turn off the light.
I came back again immediately after turn off the light. My pillow was just under my cousin Ahana’s sneakered feet and she placed both her really near to the pillow. I went to the bed and turn towards both of my sisters. They were talking to each other. My head was just 3-4 inches away from the sneaker sole of my cousin sister. My 12 year old heart was hoping that my 12 year old cousin sister Ahana and my 10 year old sister Angana will dominate me someway or other very soon. But that does not happen that night.They were busy in talikng to each other about some childish topic.
I waited for 10 to 15 minutes. then I slowly started to move towards Ahana’s sneaker sole. after a few minutes I feel my lips made a contact with her sneaker sole. My heart was beating very fast in excitement. I was hoping for some reaction but did not get any from her or my sister. Slowly I kissed her both sneaker soles deeply and murmured ” this is my right place. Under both of your shoes. This is the right place for all the boys, under girls shoed feet”.
Ahana or Angana probably did not noticed it and continued their childish talk. I was really feeling inferior to both of them by then and actually enjoying this idea that I am inferior to the girls.I waited for a minute and kissed Ahana’s right sneaker sole again. I touched my lips to her dirty sneaker sole and waited for half minute. They couldn’t see it clearly what I am doing because the room was mostly dark. They continued their talk and changed it after a while. They started to talk about what they will do tomorrow and how they will use me for their benefit tomorrow, like a servant.
I really started to enjoy their talking, I really started to feel submissive to them by then. I was kissing both of Ahana’s sneaker sole one by one and praying to god that please let it be true. Please let both of my sister’s use me as their servant.
Suddenly I feel another kick over my face. – wont you serve us tomorrow like a servant? My cousin sister Ahana asked me by kicking my face with her sneakered right foot.
– yes, I will. I replied and kissed the sneaker sole which was just kicked me.
– di, we will walk a lot tomorrow, and when we got back in the evening, we will take a nice foot massage from our servant. My sister Angana said to my cousin sister Ahana, and I feel a light kick over my chest from My younger sister Angana.
– Yes, nice idea! but why just tomorrow? He is already under our feet now. We can start that foot massage from now. hey servant, massage your owner’s feet. I got another kick, this time from Ahana’s left sneakered foot.
Both of my sister was referring me as their servant and them as my owner! I did not have any idea why I was liking it so much. I kissed Ahana’s sneaker sole deeply again and replied – yes mam. Then I started to massage her both feet one by one while kissing her both sneaker sole alternatively.
Both of my sister’s were laughing above me and chatting about how they will use me in the future. It makes me more submissive to them and practically I was massaging Ahana’s feet like a slave. Yes, like a slave! I wanted them to use and abuse me like a slave from that time.
after 5 minutes, I got a hard kick over my chest. Why are you not massaging my feet idiot? you are not just di’s servant. you are my servant too! so, massage both of our feet one by one.
I was really liking the way both of my sister was treating me. I got a little lower and kissed both of my sister Angana’s sneaker sole deeply.
– I am sorry my owner. please forgive me, I said while still kissing her sneaker sole.
I got a hard kick over my face this time from my younger sister Angana.
-kiss my shoes and ask for forgiveness, you idiot!
I can hear she was loughing above me. I touched both of her feet with my hands and started to kiss her sneaker soles again and again and asked her to forgive me.
After a minute, My sister said – OK. I forgive you for this time. Now give me a nice foot massage.
– Yes my owner, I replied. I started to massage her both feet simultaneously while kissing her both sneaker sole one by one. I was really enjoying my humiliation to both of my sister’s. after a minute, I started to lick my sister Angana’s sneaker soles. I was massaging her feet while licking her sneaker soles like a slave. I was engulfing all the dirt’s from the very bottom of my own younger sister. I was enjoying my humiliation to more than anything!
after few minutes my sister kicked my face really hard with her right sneakered foot and ordered, – massage our feet simultaneously in this way all night. this is your duty as our servant. If I see you sleeping by forgetting your duty, I will broke your nose by kicking over it.
My younger sister become really dominant over me within less than an hour! My young heart was really enjoying that. I was praying to god that please let her treat me like this even when we go back to our house.
I kissed my sister’s both sneaker sole one by one, and replied – yes my owner. if I forget my duty you can punish me any way you want.
Both of my sister’s loughed out loudly by hearing my submissive reply. Then both of them said Good Night to each other and went for sleep.
I continued to do what my owner asked me for. I massaged both of my sister’s feet all night while kissing and licking their sneaker soles. I engulf all the dirts from under Angana and Ahana’s sneaker sole. Their shoe sole was probably shining like a new one after a couple of hours but I kept licking and kissing their shoe soles like a slave while massaing their feet all night. I massage their feet with submissive devotion towards them and dreamed that they will treat me more harshly, abuse me in front of everyone from tomorrow!
(part 2)
I massaged both of my sister’s feet while licking their shoe soles clean atleast till 3 am. Then, I didn’t know when I feel asleep, or better to say half asleep. I was still massaging their sneakered feet irregularly in half sleep half awake state and getting kicked over my face and chest, frequently from both of my sisters.
I fully awake when I got a sharp kick over my forehead from my cousin sister’s left sneaker sole. It was almost 6.30 am then. She kicked me again, this time with her right sneakered feet, over my lips. who told you to stop massaging our feet servant? she tried to ask angrily, but her expressions proves that she was trying her best to stop smiling. She was really enjoying my humiliation.
I instantly kissed both of the sneaker soles that kicked my face. I am sorry mam. please forgive me. I started to massage her feet again while saying this. I was really feeling like I was their servant, or rather like their slave by then. I just want to make them happy in exchange of my humiliation and servitude, only god knows why. I was feeling like they are my owner, my goddess. I started to massage Ahana’s feet with all the devotions I had.
” You forget your duty as a servant at night. so, we will punish you now. but, first, call the room service and order for our tea and breakfast.
I wake up immediately and call the room service. Both of my sis also wake up and brush their teeth. Then, they sat down on the sofa and call me.
I immediately run towards them and sat on the floor in front of them, on my knees.
My sister Angana slapped me really hard twice in both of my cheek.
I said, ” sorry mam for my mistake.”
Then she kicked three times hardly on my face with her sneakered foot. In response I kissed the top of both of her sneakers and thank her.
My sister Angana started to laugh by watching my submissive devotion to both of them.
” Di, he is behaving like our loyal servant. I think he enjoyed it if we ordered him around or beat him up”
My cousin sister Ahana kicked the side of my face and asked to me, ” Is it right servant?”
I kissed the sneaker just kicked me, ” Yes mam. You both are my owner, my goddess. I am your servant, slave, devotee. I am really greatful that you are let me serve you in this way.thank you mam.” I kissed the top of her and Angana’s sneaker again by saying this.
I was feeling really submissive to them and was really greatful to both of my sisters because they were treating me harshly like a slave. But both of my sister started to laugh by hearing my reply and watching my extreme submissive attitude towards them. I continued to kiss the top of both of their sneakers with submissive devotion towards them. After a couple of minutes, my younger sister Angana placed her right sneakered foot on the top of my head and rub the sole of her sneaker for half minutes. Then she kicked the top of my head again and ordered me, ” hey slave, lay down under our feet and continue your duty of massaging our feet.”
I kissed her both sneakers in response and replied, ” yes mam, I will do whatever you say, forever”. My younger sister was calling me her slave and I was really happy because of it.
I lay under the feet of both of my sister’s and my younger sister Angana immediately put her sneakered feet over my chest and kicked me. ” Hey slave, massage my feet now”.
I immediately followed her order and started to massage her both sneakered feet like her loyal servant. My cousin sister Ahana smiled by watching my submissiveness towards my younger sister, then she placed her both sneakered feet over my face and started to rub her both sneaker soles all over my face.
I was laying happily on the floor while massaging Angana’s sneakered feet like a servant. Angana was using my chest as her footrest while Ahana was using my face as her footstool.
suddenly,, someone knocked on the door. Ahana replied, ” come in “.
An waiter, around the age of 25, came inside with breakfast and tea. He probably didn’t notice me under my sister’s feet at first, came inside and put the tray on the table. Then his eye caught me under the shoed feet of my sister’s serving them as a loyal servant or rather like a slave. he watched us with total disbelieve. ” what are you guys doing? ” He asked with shocked look.
” Just playing slave and owner. he is playing the slave part and we are his owner. so he is serving us in this way. isn’t it a cute game?” My sister Angana asked him with a cute smile in her face.
She was only 10 year old then, and me and my cousin sister were 12. as we were all child back then, the waiter thought it was some kind of childish game. That shocked look from his face were gone, and he was looking towards us with curiosity. I was massaging my sister Angana’s sneakered feet with submissive devotion while my cousin sister Ahana was rubbing her both sneaker sole all over my face.
” who is he? It is really humiliating for him, why is he agreed to play such a humiliating game?”
He is our brother, and he likes his sisters very much. He will do anything we asked him to do. He always want to serve us anyway and make us happy. Just have a look.” My cousin sister Ahana replied while playing with my lips with her right sneaker sole.
Then Ahana kicked over my nose with her left sneaker sole and ordered, ” hey servant boy, stuck your tongue out as far as you can”.
I knew why she was asking for it. I was really exited and happy because both of my sisters were humiliating me in this way in front of a stranger. I didn’t hasitate at all and stuck out my tongue as far as I could.
My cousin sister Ahana started to wipe the soles of her right sneaker in my outstretched tongue in front of my sister and a stranger waiter. That waiter was watching us with total disbelieve again. He had no idea why will a brother let his sisters clean their shoe soles on his tongue!
Just after 30 seconds My younger sister Angana put her left sneakereed feet towards my outstetched tongue and said ” now its my turn”.
Ahana let it happen and put her sneakered right foot over my nose while my younger sister Angana started to wipe her left sneaker sole on my outstretched tongue in front of that waiter.
The waiter watched us with disbelieve for another couple of minutes. Angana already completely cleaned her left sole on my tongue and was wiping her right sneaker sole on my tongue in that moment. The waiter said, ” nice game mam. keep playing, have fun. let me go now please.”
I noticed that his reply also become a little submissive towards two pre teen age girl. Ahana gave him permissions to leave and he wished them again before leaving.
Angana kicked over my lips and asked me, ” how did you feel when you are serving us in front of that waiter?”
I kissed her sneaker sole with submissive devotion and replied, ” excellent mam, please let me serve both of you in front of everyone, forever.
” Yes slave, we will. this is just the begining. Just wait and watch how will we humiliate you in front of our parents and everyone else.”
I was really happy by hearing her reply. I kissed her sneaker sole again and thank her. Then Ahana kicked over my nose and ordered me to stuck my tongue out again. I did, and my cousin sister started to wipe her both sneaker sole over it while having their breakfast and tea.
Part 3…….
After 15 minutes, both of my sisters completed their breakfast. Then Ahana threw my sandwitch to the floor and both of them stepped over it with their sneakered feet. Then Angana ordered me to eat it like a dog from the floor while she was still stepping on it. My sisters were now treating me like a dog now and I was really happy for this. Yes, I am their obedient pet dog, they are my owner. They had every right to treat me any way they want. I went on to all fours and started to eat the sandwitch from under my younger sister Angana’s sneakered feet while both of them were ggiggling.
After that I remove their sneaker and socks and help them to wear room slippers. Then, we all bathed one by one, dressed and get ready. We had decided the day before that we will start our journey at 9.00 am sharp. First, we will visit some nearest tourist spot by walking, then we will book a car after that.
It was still 8.40 when we all get ready. I kneeled in front of them, then put fresh pair of socks with the same sneakers again on their feet. I kissed their sneakers and thank them when I completed.
Angana took both of their old socks and put them in my mouth and ordered me, ” be our horse now. We will ride you.”
I did it immediately. I was on my all fours again with two pairs of my sisters socks were stuffed in my mouth. Ahana stepped on my palm first with her left sneakered feet, then sat on my back and started to ride me like a horse. Obviously, I was enjoying this humiliation too!
Then my younger sister Angana also ride me for 5 minutes. I went from one side of the room to the other while my sis was grabbing my hair and controlling the ride.
After 5 minutes, my cousin sis Ahana kicked hardly over my face with her right sneakered feet from the front. It was really painful to me. I couldn’t see anything for a few seconds. I feel a few drops of blood woozing out of my nose. But just after a few seconds, when my eyes were become clear again, I immediately bowed down to the floor and started to kiss the right sneaker of my cousin sister Ahana, which just kicked my face brutally.
” Di (elder sis), I think if we kill him by kicking his face in this way, still he will never protest against us. He is not just a servant , but acting like our slave now.” – Angana said to Ahana.
Ahana replied, ” You are right sis. Now lets ride him together”.
By saying this, Ahana also sat on my back. It was little heavy now. I couldn’t take that much of weight on my back while walking on all fours. So, both of my sisters started to kick my hands, slap my cheek while pulling my hairs roughly.
After 20 minutes, my mom, dad, uncle and aunt came to our room. Both of my sisters were still riding me like a horse. All of them were laughing by watching us playing this rediculous game where my sisters were humiliating me. None of them tried to protest what they were doing to me. I was really enjoying my own humiliation to my sisters in front of our parents.
I thought, they will let me go now. But they ride me outside the room too. I took them upto the lift while they were on my back and I was walking like a horse in my all fours. Atleast 3-4 people watch me in this way, but I had no pproblem with this. I enjoyed it also. I want my sisters to humilate me more in front of public.
For the next 3 hours, we were visit some near by tourist spot by walking. Then we went to a restaurant and complete our dinner. It was 12.30 pm then. We booked a car then for the rest of the day.
My cousin sister Ahana declared me and my sisters will seat on the middle row. Both of my sisters having leg pain after walking for 3 hours, so they will take foot massage from me in the car.
Again, our parents were agreed without any objection. My dad seat on the front row with the driver. My mom, uncle and aunt took their seat on the back row. My younger sister then ordered me to lay down on the floor of the car. I was really exited by hearing this. I was badly want my sisters to treat me like a slave in front of our parents and this unknown driver.
I follow my beautiful younger sister Angana’s order immediately and lay on floor of the car. Both of my sisters then took their seat above me. My younger sister Angana immediately put her sneakered feet on my face. She started to rub her sneaker soles all over my face while my cousin sister Ahana placed her sneakered feet on my chest. They were doing this in front of both of our parents and none of them tried to stop them for a single time. Will they think, sisters can humiliate their brother in this way in public? I was in heaven, and started to massage both of my sisters feet one by one. Both of my sisters were kicking my chest and face frequently while I was massaging their feet like their loyal servant in front of our parents and the driver while the car went through the city.
Both of my sisters were hardly kicking my face and chest frequently while I was massaging both of their shoed feet very submissively, with all the devotion I had. The more my sisters were humiliating me, the more I became submissive to them and want to serve them like a slave. I like the humiliation my sisters were now giving me in fron of the public, I enjoyed the pain they inflict upon me. They were not just my sisters anymore, they were my complete owner, my goddess from now on!
after 10 or 15 minutes, my younger sister angana kicked over my nose with her right sneakered feet harshly and ordered loudly, ” stick your tongue out slave boy, so that I can use it like a doormar and clean my sneaker sole over it.”
I still can’t believe it. is it only a beautiful dream or really happening with me? Both of my sisters were treating me really like a slave in front of my parents, uncle, aunt and one unknown driver and noone even try to stop them for a single time? may be the driver was careless about it, we paid him a good amount for a single day trip and he was happy with it. may be he was surprised by watching how my sisters were treating me like a slave, but he did not want to get involved in our ‘family matter’. But what about our parents? how they can take it like the most normal thing in the world? Yes, I found many times my uncle was sat on the floor next to her daughters feet and massaging her feet with a little submissive attitude towards his own pre-teen age daughter in the past couple of years, but still how could he think that there is nothing wrong if two sisters were treating their brother like a slave? And why even my own parents were not reacting at all? were they all totally careless. or they too enjoying my humiliation to my sisters just like me and my sisters?
I obeyed immediately and stuck my tongue out as far as I can. My sister Angana immediately placed her right sneaker sole over it and started to wipe it across my outstetched tongue. It was full with mud and she was using her own elder brothers tongue in front of her parents to wipe it off! I was in heaven. I engulf all the mud and dirts that were coming off from the very bottom of my own younger sisters sneaker sole. She was totally careless to how I am feeling, Or may be she was careful to put more pain and humiliation to her own brother. She was wiping her sneaker sole really harshly over my tongue, which results a few cut marks over my tongue. But Angana was toyally careless about my pain and use my tongue to clean her right sneaker sole at first, then also clean her left sneaker sole over it. It took almost 15-20 minutes to clean both of her sneaker sole by using my tongue as her doormat. This whole time I was massaging my cousin sister Ahana’s feet submissively.
After that Ahana said ” now its my time sis”. Angana agreed, and they switched place. My younger sister Angana placed her both clean sneaker sole over my chest and my cousin sister Ahana placed her still dirty sneaker soles over my face. Ahana then kicked over my forehead with her left sneaker sole and ordered me to stuck my tongue out.
Obviusly I did it happily. The only thing I was wanting then was more humiliation and cruelty towards me from my sisters. I stuck out my tongue and Ahana started to wipe her snealer sole just like Angana, first her right sneaker sole, then the left one. I engulf all the dirts that were coming from the sneaker sole of my cousin sister Ahana while massaging my own younger sister Angana’s both sneakered feet very submissively.
Part Four….
I served both of my sister in this way for atleast 1 hour. I was feeling really submissive to them and want to make both of my sisters happy in any way. After 1 hour, my cousin sister Ahana kicked my face hardly and said, ” we arrived in a park idiot, stop serving me for now and get out”. Then immediately she open the door of the car and stepped on my face with her sneakers and get out. My younger sister Angana also followed her path and stepped on my chest at first, then stepped on my face as well while getting out of the car. I also followed them and came out.
It was a small park. Other than us, only 5-6 people were there, most of them were old. I did not have any idea why they choose to visit a small park instead of some famous and beautiful tourist spot. But I got the answer very soon.
I found both of my sisters were already sat on a bench. I also tried to sit there because I thought my sisters will not dominate mw in front of those strange old men. But I was wrong. Immediately after I sat beside my younger sister Angana, she slapped me very hard twice on my both cheek and ordered. ” Dogs did not sit on the bench. be on all fours.”
I was in total shock. My own younger sister was treating me just like a pet dog in front of our parents and some unknown old men! I was in shock but enjoying my humiliation like hell!
I saw that all those old men and women sit a few feet away from us was staring at us. I eas too much exited because of this public humiliation by my sisters. I went on all fours immediately near both of my sisters feet.
Angana started to laugh while kicking my face lightly with her sneakered right feet. ” now bark like a good doggy”.
I started to bark immediately like a pet dog.
Both of mu sisters were started to laugh hillariuously. They forced me to bark like a doggy for 5 minutes. Then Ahana ordered, ” now be our horse. we will ride you now.”
By saying this she immediately sat on my back. ” hey horsey, lets run!” she ordered while grabbing my hair and kicking my hands with her both sneakered feet simultaneously.
I hear one of the old men asked my uncle, ” were they your child”?
” Yes”, he said.
” You should stop them then. This is may be a childish game, but still its too much humiliating for him”.
” I did not think so. And this game will teach him how to resopect girls, so it is indeed good for him”.
” You are crazy, and your children too”, he replied.
between this time I tried to walk in all fours with Ahana seating on my back. My sister Angana thought she needs some fun as well. So she stood up and walked in front of us, then out of no where kicked my face with her left sneakered feet, in public! It hurts like hell as her shoed feet hits straight over my nose. She did not stop and continued to kick my face with both of her sneakered feet, and preventing me to walk forward. My cousin sister Ahana also started to kick my both arms while grabbing my hairs tightly and occationally slapping my both cheeks. She was forcing me to go forward while my younger sister was preventing me from going forward by kicking my face with her sneakered feet. What a game, I thought!
” It is too much man. you should stop them. This is not a childish game, but child abuse. They are hurting and abusing him, please stop them, for god’s sake.” one man around the age of our uncle plead to him.
“I don’t think so. it is a nice game. and…”, my uncle want to continue but his daughter stopped him. come here daddy, Ahana ordered his father.
My uncle immediately followed his daughters order, just like her obedient servant.
when he reached near her, she ordered, ” please tie both of my shoe laces little tightly daddy.”
He immediately went on all fours just like me. He took his own daughters sneakered feet over his palm by placing its sole over it. Then he very carefully tied the shoe laces again like her servant.
He did not stood up for going to the opposite side. She walk just like me like a horse on all fours and went to the opposite side. meanwhile my sister Angana was still kicking my face continuously with her snealered feet.
Reaching to the opposite side, my uncle submissively tide his daughters right sneaker’s shoe lace. Then he asked his daughter, ” did I need to do something else for you?”
Ahana smiled and said, ” no thank you”. Then out of nowhere she kicked his dad’s face really hard with her right sneakered feet.
Both of my sisters started to laughing out loudly again. My uncle did not expect a face kick like that from his own daughter. He fell to the ground, but within a few seconds he was again on his knees, like a poor slave, infront of his own daughter!
” thank you mam for kicking my face.” He said and kissed his daughter’s right sneakered feet publicly to show his submissive affection to her.
Just stay like that daddy, like my servant. I will kick your face for a few more times while Angana will kick her brother’s face. lets she who can kick boys’ face more hardly.
Everyone else of that was become totally silent because noone can believe what was happening. It is really hard to believe that one pre teen age girl can kick her dad’s face like a football in public just for fun and her dad was taking it happily!
The face kicking saga continued. My 10 year old beautiful younger sister continued to kick my face with her sneakered feet from the front, while My 12 year old cousin sister Ahana was kicking his dad’s face while seating on my back like a queen. Both of me and my uncle was still on all fours while taking hard kicks to our face one by one.
( To be continued).

Advertisements

Alia….
Hello! I am Akash, 19. I have a beautiful younger sister, Alia, 17 yrs old. Till I reach my teen age, my relationship with my younger sis was like a typical bro-sis one. We often fight for small reasons. We often complaints in each others name to our mother, who really did not like to see us fighting. Our father was working in a different city, and visit our home only once in a couple of months. So, it was just me, my Sis and mom in the house most of the time.
When I reached 13, I found, due to some unknown reasons, If Alia was trying to dominate me, I started to like it. I liked to follow her any order unlike before. Still sometimes she was angry to me, and when she tried to beat me, I hardly try to stop her and enjoy her beatings. I didn’t know exactly what happened to me but I liked to be dominated by my beautiful younger sister Alia, loved to beaten up by her!
I started to lay down on the ground very often while watching the TV. My sis took full advantage of that most of the time, and started to trample some of my body parts while walking through the room. My mom obviously tried to stop her if she watch her to trample me, but I said nothing, as if nothing happened at all. Actually I enjoyed it like hell, but I don’t have the guts to tell it.
At first she started by trample the fingers of my hand. Soon she found that I was not trying to stop her at all. She really enjoyed my change, she really liked the idea of totally dominate and control her elder brother like this way. Slowly she started to trample my palm, hand, stomach and chest as well. Her smile proves that she liked to trample and dominate her elder brother this way!
Most of the time she was wearing one of her home slippers. some times she also had school shoes or other shoes on her feet, or her feet even bare or sock covered. That really doesn’t matter, She really loved to trample and dominate me, even in front of our mother. Our mom obviously tried many times to stop her, but she really didn’t care. She replied, ” floor is for walking and bed is for sleeping. Tell him to lay on his bed. I will trample him if he lay on the floor in my path.”, and continue to trample me. My mom though didn’t like that idea at least she was relieved that we stop fighting like before.
at least for 6 months she regularly trampled my chest and stomach, mostly with her slippered feet. When she was 12 and I just turned 14, she trampled my face for the 1st time. I was sleeping on the floor in a Sunday afternoon on our room. She was not at that room that time. I woke up from the sleep by feeling painful sensation over my face. I saw she just entered the room by trampling my chest and face with her blue slippered feet! She reached to her bed, take her mobile in her hand and then exit the room again by trampling again my chest and face while I was awake!
This time, my beautiful 12 year old younger sister Alia placed her left sandalled feet on my chest, then her right sandalled feet straight on my upturned face while looking to my eyes and smiling! She placed her full body weight over my upturned face and trampled my face under her right sandalled foot!
Just after 30 minutes, she came back to our room, took a chair and sat down, while placing her both slippered feet over my chest and ordering me to massage her both feet. obviously I started to follow her order without any objection. Just after 5 minutes, she placed her left sandalled foot over my face, and within the next minute, her right sandalled foot too. My beautiful younger sister Alia was playing games on her mobile while using my face as her footstool!
I was masmarized by her dominating attitude and was massaging both of her feet like a servant, or better to say like a slave. I was frequently kissing her sandal sole and thanking her for let me serve her like this way, though I didn’t have any idea of why was I doing this at that time .
Our relation completely changed from that day. she was really bossy to me and ordered me all the day in front of our mom. I was happily follow each and every order happily while mom had no idea why was I doing this for Alia. Soon mom found that Alia even trample my face with her shoed feet, order me to massage her feet while using my face as her footstool. Our mom also found out that for smallest reasons, she slapped my cheek or kicked my face hardly. She was little angry this time. But I cried a lot this time and request her to please let us continue our life like this way, this is what both of us wanted. She was confused at first but let us go on when she understand that we both liked it and it is not really harmful to anyone of us.
Though Our mom has no idea till now that Alia force me to lick clean all her shoes and sandals , including the bottom! She even don’t know How much Alia enjoyed to kick my face very hardly with her sandalled or sneakered feet! It is painful like hell, but still I enjoyed it. Alia is my younger sister, but my mistress and goddess as well. I liked to serve her like a slave in this way forever.
Don’t know how will our mom react when she will know the complete picture between us.

Shraddha…..
When I was a child my parents always favoured my younger sister Shraddha more than me. She was 3 yrs younger than me, and very cute and good looking. I was always feel jealous because my parents show more love to her than me. She clearly enjoyed it. If I ever had fight with her my parents always took her side and I had to beg to her for forgiveness in the end. She was our father’s little angel. He always did whatever she said, gave her whatever she wants. Everyday in the evening, he sat near her feet and massage her feet for hours. My little sis always enjoyed this pampering from her father.
When she was 10 year old, she also start to force me to massage her feet. obviously at start, I tried to protest, but my parents supports her like always. I have no other way than to follow my cute little sister’s order and massage her feet for hours everyday.
I figured within a months, that some part of me actually enjoyed it! I did not know why, I started to enjoy being submissive to my beautiful younger sister. I enjoyed it when she force me to beg to her for forgiveness or force me to kneel in front of her and massage her feet for hours or ordered me around. I also enjoy to watch our father massage her own daughter’s feet with real submissiveness towards her.
At first, though I liked it, still I fight and disobeyed my sister shraddha’s order’s because of my ego. But whenever I started to go against her she came near to me, pull my hairs and started to slap my cheeks again and again. or if I was sitting on the floor, she simply kicked my face with her shoed or sandalled feet, even in front of my parents. They never try to stop her while she was treating me this way. All of my protests also washed out when she slapped or kicked me in this way, nor because of I couldn’t over power her physically. I never even try to did it. It is because I enjoyed it so much that all my ego washed away when she beats me up. I liked the way my younger sister shraddha was dominating me, even kicked my face with her shoed feet. I liked the way my parents support her domination over me. I also liked the way our dad served his own daughter like her servant.
Within one year all my protest washed away by my sister’s dominating attitude. When I turned 15 and she was 12, I started to always serve her like a servant by my own. I was always eager to serve my goddess younger sister Shraddha like her servant.
My sister also took full advantage of it. In the morning or evening or night, whenever I massaged her feet, she ordered me to lay down under her feet. I did, and she placed her both sandalled feet always in my face. I massaged my younger sister Shraddha’s feet like her layal servant while she kept rubbing her sandal soles all over my face. I feel really submissive to her while serving her in this way in front of my parents. I kissed her sandal sole frequently while she laugh on me by watching my submissiveness towards her.
When she came back from outside or school, I ran towards her and kneeled in front of her while she sat like a queen in the sofa. Normally she slapped on my cheek twice, then kicked my face with her sneakered feet for 4-5 times and ordered me to lay under her feet. I did and she placed her feet over my face. she kept rubbing them all over my face while I was massaging her feet like a servant with all the devotions I had while usually our mom was watching.
After some time, Shraddha kicked my face and order me to stuck out my tongue. I did, and she started to wipe the dirty soles of her sneakers off across my eager outstretched tongue. I engulf all the dirts off from under her sneaker soles with devotion. May be they are dirt to anyone else, but for me they are better than any heavenly food, because they were coming from the bottom of my goddess younger sister Shraddha’s shoe. Yes, I started to respect my younger sister shraddha more than a goddess from then on.
obviously, I was not the only one who serve her in the house. Our dad also serve her like her servant everyday. In every evening, my sister watched TV for an hour while resting her sandalled foot on her dad’s face. Our father massaged her feet with the same devotion that I show to her while she kept rubbing her sandal soles all over her father’s face.

Introduction ;

( This is a fantasy story site containing female domination stories .

THIS IS A STRICTLY ADULT BLOG ONLY FOR ADULT (18+) PEOPLE though there is no sex related subject present in this blog . Minor male nudity may be present in some stories with warning .

This blog is a femdom fantasy blog for those adult people who can differentiate between fantasy and reality . we neither encouraging nor discouraging anyone about femdom relationship between consentual adult but strongly discouraging any type of femdom / sexual relation with any minor .

Each and every stories and comment of this site/ blog is a reflection of our femdom fantasy . we are not encouraging anyone in any kind of femdom / Violent activities.

We will be not responsible for your action. )

ভূমিকা ;

( ভূমিকা না পরে কেউ ব্লগে ঢুকবেন না । সম্পুর্ন ভূমিকা পড়ে তবেই গল্প, কমেন্ট পড়বেন বা নিজে কমেন্ট করবেন । অন্যথায় , আপনার কোন ভুল ধারনার জন্য আমি/ আমরা দায়ী থাকব না । )

শুধুমাত্র প্রাপ্তবয়স্ক ( ১৮ +) ও প্রাপ্তমনস্ক ব্যক্তিদের জন্য , যদিও এই ব্লগের কোন গল্পই যৌনতামূলক নয় ।

অপ্রাপ্তবয়স্ক ( ১৮ বছরের কম বয়সী ), অপ্রাপ্তমনস্ক ( যারা প্রাপ্ত বয়স্ক হয়েও ফ্যান্টাসি আর বাস্তবের পার্থক্য বোঝেন না ) ও  যাদের শুধুমাত্র ফ্যান্টাসি হিসাবে লেখা ফেমডম গল্প নিয়েও সিরিয়াস সমস্যা আছে তাদের প্রবেশ সম্পুর্ন নিষেধ ।

এই সাইটের যেকোন গল্পের উপর বা কমেন্টে তাকে  আকর্ষনীয় করে তুলতে যতবার খুশী তাকে সত্যি বলে দাবী করা হতে পারে । সেটাকে সিরিয়াসলি নেওয়ার কিছু নেই । ভূতের গল্পের শুরুতে লেখক যেমন গল্পকে আকর্ষনীয় করে তুলতে সেটাকে সত্যি বলে দাবী করেন এখানেও ঠিক তাই করা হয়েছে । এই ব্লগের এডমিন ও অন্যান্য নিয়মিত পাঠকেরা অনেক গল্পেই গল্প ও পরবর্তী কমেন্ট এমনভাবে করেছে যাতে সেটা অনেকটা সত্যি মনে করানো যায় , যেটা ফ্যান্টাসির মাত্রা বাড়াতেই শুধু করা হয়েছে ।

আপনি যদি এই সাইটের যাবতীয় গল্প ও প্রতিটি কমেন্টকে শুধু ফ্যান্টাসি হিসাবে নিতে পারেন শুধুমাত্র তাহলেই সাইটে প্রবেশ করবেন ।

আমরা পারস্পরিক সম্মতিতে হওয়া প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে ফেমডম সম্পর্কে উতসাহিত বা নিরুতসাহিত কোনটাই করছি না । আপনি প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি হিসাবে , আরেকজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির সম্মতিতে যা করবেন নিজেদের ইচ্ছায়, নিজেদের বুদ্ধিতে করবেন ।

বাস্তব জীবনে যে কোন অপ্রাপ্তবয়স্কর ( ১৮ বছরের কম বয়সী )  সাথে কোনরকম ফেমডম / যৌনতামুলক সম্পর্ককে আমরা চুড়ান্ত ঘৃনা করি । কোন সুস্থ সমাজেই তা গ্রহনযোগ্য না । আমাদের সাইটে ফ্যান্টাসি গল্প হিসাবে টিন এজ ছেলে / মেয়েদের মধ্যে ফেমডম কিছু ক্ষেত্রে রয়েছে । ফ্যান্টাসি আর বাস্তবের পার্থক্য না জানলে আপনি এই ব্লগ এখনই পরিত্যাগ করুন । আপনি কোন অপ্রাপ্তবয়স্ক /  সম্মতি না নিয়ে কোন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির সাথে বিকৃত কোন আচরন করলে আমরা কোনভাবেই দায়ী হব না ।

১। এই ব্লগে খুব সামান্য কিছু গল্পে মেল নুডিটি / পুরুষের নগ্নতা রয়েছে ( CFNM ) , যা শুধু ছেলেদের হিউমিলিয়েশনের জন্য ব্যবহার করা হয়েছে , সরাসরি যৌনতামুলক কিছুর জন্য না । CFNM যুক্ত গল্পের শুরুতেই ওয়ার্নিং ও দেওয়া আছে । ফিমেল নুডিটি ( নারী – নগ্নতা )কোন গল্পেই নেই ।  নারীদের যৌনভাবে উপস্থাপনও কোন গল্পেই করা হয়নি ।

২। কোন গল্পেই স্টুল ফেটিশ, ইউরিন ফেটিশ ইত্যাদি এক্সট্রিম কিছু নেই ।

৩। এই ব্লগের বেশিরভাগ গল্পের মুল চরিত্ররা বন্ধু-বান্ধবী , স্কুল কলেজের সিনিয়র জুনিয়র অথবা এক পরিবারের সদস্য ( দিদি- ভাই , দাদা- বোন, বাবা – মেয়ে,  দেওর- বৌদি  ইত্যাদি ) ।

৪। বেশিরভাগ গল্পে ফিমেল ডমিনেশন হিসাবে উঠে এসেছে মেয়েটির মানসিকভাবে ছেলেটিকে সম্পুর্ন নিয়ন্ত্রন, তাকে দিয়ে নিজের যাবতীয় কাজ করানো , তার টাকায় ফুর্তি করা । ছেলেটিকে দিয়ে দেবী হিসাবে নিজের পুজো করানো , মুখে থাপ্পর মারা ,  মুখে লাথি মারা , মুখের উপর পা রেখে বসে পা টেপানো, জিভে জুতোর তলা মোছা ইত্যাদি আচরন । নায়িকার পায়ে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে জুতো বা চটি পরা আছে । মেয়েদের প্রায় সব জায়গায় সুন্দরী বলে বর্ননা করা হয়েছে । বেশিরভাগ গল্পে নায়িকা মেক আপ হীন ।  বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ছেলেরা স্বেচ্ছায় মেয়েটির কাছে নিজেকে সাবমিট করেছে ও মেয়েটিকে অনেক সুপিরিয়র ভেবে স্বেচ্ছায় তার সেবা করেছে, তার হাতে অত্যাচারিত হয়েছে ।

বাংলার সবচেয়ে বড় ফেমডম্ সাইটে আপনাকে স্বাগত । এই সাইটের গল্পগুলো সবই কাল্পনিক । পড়ুন , আর উপভোগ করুন ।
বাস্তবে কেউ এর প্রয়োগ করতে যাবেন না ।

এই সাইটে female superiority আর female domination নিয়ে অনেক গল্প পাবেন। ফ্যামিলি ফেমডম গল্প  ও পাবেন অনেক। কার কাছে ভাল কোন টপিক থাকলে জানাতে পারেন,আমি গল্প লিখে পোস্ট করব। আর কেউ নিজে গল্প লিখতে চাইলে আমাকে etaami11@gmail.com  এ গল্প পাঠিয়ে দেবেন।

এখানকার অনেক গল্প অনেকের হাস্যকর বা কুরুচিকর মনে হতে পারে। তাদের বলব, প্লিজ আ্পনার ভাল না লাগলে পড়বেন না ।গল্পগুলো ফ্যান্টাসি ছাড়া আর কিছুই না । আমরা কেউ বাস্তব জগতে এর প্রয়োগ করতে যাচ্ছি না। কোন গল্পকে আকর্ষণীয় করতে সত্যি ঘটনা বলে দাবি করা হতে পারে, তাই ভুমিকাতেই বলে রাখি এখানে পোস্ট করা সব গল্পই ফ্যান্টাসি ।

বাংলায় দুর্দান্ত ফেমডম গল্প পড়ার অভিজ্ঞতার জন্য ভিজিট করতে থাকুন,

http://www.banglafemdom.wordpress.com ( হিন্দি, ইংরেজি গল্প সহ বাংলা ও ইংরেজি হরফে বাংলা গল্পের জন্য)
and
http://www.banglafemdoms.blogspot.com ( শুধু বাংলা হরফে বাংলা গল্পের জন্য । )
http://www.facebook.com/familyfemdom ( for family femdom stories in english )

 

Thank you .

( ডিটেইলসে কিছু কথা বলছি শেষে । এটা আপনি নাও পড়তে পারেন ।  ধরুন আমি , এই ব্লগের এডমিন, নিজের জীবনে খুব বেশি চাপ না থাকলে গড়ে সপ্তাহে ৩ থেকে ৪ ঘন্টা সময় আমার একমাত্র ফ্যান্টাসি ফেমডমের কাল্পনিক দুনিয়ায় কাটাই । ধরুন , প্রতি সপ্তাহে শনিবার রাত ৯ টা থেকে ১ টা আমি ফেমডম ফ্যান্টাসি জগতে কাটাই । আমার ফেমডম গল্প পড়া , লেখা, কমেন্ট করা , ফেমডম ছবি ও ভিডিও দেখা সবই এই সময়ে । এই সময় টুকু নিজের ফ্যান্টাসি, ও কিছুটা ইরোটিক ফিলিং বাড়াতে বেশ কিছু গল্পকে আমি (ও আমরা, এই ব্লগের অন্যান্য নিয়মিত পাঠকেরা ) সত্যি হিসাবে ভাবার চেষ্টা করি। যদিও এই ফ্যান্টাসির জগতে ঢুকি এটাকে মাত্র কয়েক ঘন্টা স্থায়ী করার উদ্দেশ্যেই ।  কয়েক ঘন্টার ইরোটিক ফ্যান্টাসির জগতে কাটিয়ে আমি পরদিন সকালে দেহ – মনে সম্পুর্ন সুস্থতা নিয়ে বাস্তব জগতে ফিরে আসি , যেখানে এই হাস্যকর ফ্যান্টাসি কে কখনই বাস্তবের সাথে গুলিয়ে ফেলি না । এই পার্থক্যটা বুঝে নেওয়া খুব জরুরি । ফেমডম ফ্যান্টাসি আমাদের সপ্তাহের শেষে কয়েক ঘন্টা ইরোটিক দুনিয়ায় কাটাতে সাহায্য করে , টেস্টোস্টেরন লেভেল বাড়িয়ে দেহে এক অসাধারন অনুভুতি এনে দেয় । সঠিক মাত্রায় খাদ্য গ্রহন , শরীরচর্চা, ঘুম  ইত্যাদির সাথে পরিমিত মাত্রায়  ফেমডম ফ্যান্টাসি কখনই ক্ষতিকর নয়, বরং সুস্থ্য দেহ ও মনে বেঁচে থাকার পক্ষে খুবই জরুরি । আর আমার মতো যাদের ছোটবেলা থেকেই জীবনের চাপ কমাতে ডিফেন্স মেকানিসম ফেমডম ফ্যান্টাসির সাহায্য নিয়ে আসছে, তাদের জন্য সপ্তাহ শেষে মানসিক চাপ কাটিয়ে স্বাভাবিক হয়ে ওঠার জন্যও খুবই প্রয়োজনীয় এই ফেমডম ফ্যান্টাসি ।

শুধু একটা কথাই বলছি ফেমডম ফ্যান্টাসির জন্য মনে অকারনে কোন পাপ বোধ নেবেন না । আপনার যদি এই ফ্যান্টাসি থেকে বেড়িয়ে আসার ক্ষমতা থাকে তাহলে খুবই ভাল । নাহলেও অকারনে মনে চাপ নেবেন না । পরিমিত মাত্রায় বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে নিজের মানসিকতা ও চাহিদা বুঝে, অন্যের কোন ক্ষতি না করে দিব্যি আপনি নিজের জীবনের আর পাঁচটা গুরুত্বপুর্ন বিষয়ের সঙ্গে মিশিয়ে নিরাপদেই এই ফ্যান্টাসি প্র্যাক্টিস করতে পারেন । তবে চেষ্টা করবেন সম্পুর্ন একা থাকার সময়ে  এই ফ্যান্টাসি জগতে কাটানোর জন্য । আর প্রতি সপ্তাহে সর্বোচ্চ কতটা সময় এর পিছনে দেবেন , সেটাও ঠিক করে রাখা খুব গুরুত্বপুর্ন । এটা পারলেই আপনার ফেমডম ফ্যান্টাসি কখনই নিয়ন্ত্রনহীন নেশায় পরিনত হবে না ।

কষ্ট করে ভূমিকা সম্পুর্ন পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ । ফেমডম ফ্যান্টাসি কোন সমস্যা না, হোক নির্মল আনন্দের উৎস ।  )

রাই আর রাজা…. ( পার্ট ২ )

আমি যেন নিজের কানকেই বিশ্বাস করতে পারছিলাম না। রাইয়ের মুখে বহুদিন পর চওড়া হাসি দেখে আমার মনটা অসম্ভব ভাল হয়ে যাচ্ছিল। উফ, তাহলে রাজার অবচেতন মনও চায় ওর যমজ বোনের ক্রীতদাস হতে? তাহলে আমি আর কার জন্য এত লড়ে আমার আদরের মেয়েটাকে কষ্ট দিচ্ছি এত , সেই সাথে নিজেকেও বঞ্চিত করছি এক আদিম সর্বগ্রাসী নেশা থেকে?
সীমা ভিডিওটা শেষ করে আমার মুখের দিকে তাকিয়ে বলল, “ এটাই ওর ভিতরের অবচেতন মনের কথা, যেটা এখনও ও লজ্জায় বলতে পারে না। কিন্তু এটাই ওর অবচেতন মনের ইচ্ছা, যেটা সাধারন অবস্থায় ওর চেতন মনও জানে না। আর যাদের মধ্যে এরকম চেতন ও অবচেতন মনের লড়াই চলে, তারা ভয়ানক কষ্টে থাকে, জীবন হয় উদ্দেশ্যহীন, কষ্টকর। ওকে এরথেকে মুক্তি দেওয়ার একমাত্র উপায়, যেটা ওর অবচেতন মনে আছে, যেটা রাজার চেতন মন এখনও জানে না, সেটাকে সত্যি করার ব্যাবস্থা করা। আমার মতে আমাদের উচিত এখন রাজাকে রাইয়ের হাতে তুলে দেওয়া ওর সম্পত্তির মতো, ওর ক্রীতদাস হিসাবে। সেটা রাইতো চায়ই, রাজার অবচেতন মনও তাই চায়। রাই রাজাকে নিয়ে কি করবে সেটা ওর সিদ্ধান্ত হওয়া উচিত। এমনকি রাই রাজার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারতে মারতে ওকে আজকেই মেরে ফেললেও আমি ওর পাশে আছি, ডাক্তার ও সাইকোলজিস্ট হিসাবে কি করে অন্য ব্যাখ্যা করে ওকে বাঁচাব সেটা আমার দায়িত্ব। তবে রাই বুদ্ধিমতী, ও এতটা করবে বলে মনে হয় না। রাজা তো ও চাইলেই ওর সারাজীবনের স্লেভ হবে। সারাজীবন নিজে খেটে নিজের রোজকার প্রভু যমজ বোনের হাতে তুলে দেবে রাজা, আর রাই তার বদলে ওর উপরে নিজের ইচ্ছামত অকথ্য অত্যাচার করতে পারবে সবার সামনে। আর টিনা, তুমিও আর রাজার ভাল মন্দ নিয়ে মাথা ঘামিও না। এতে রাই খুশি, রাজাও আসলে এতেই খুশি হবে। তুমিও মনে মনে সিদ্ধান্ত নাও, এখন থেকে তোমার একটাই সন্তান, তোমার মেয়ে রাই। রাজা শুধু তোমার মেয়ের ক্রীতদাস, আর কিছু না। আর এই চিন্তা তোমার দেহের কোষে কোষে যে সুখের ঝড় তোলে সেটাকে এখন থেকে এঞ্জয় কর”।
“আমারও অনেকবার মনে হয়েছে রাজার ভিতর থেকে একটা অংশ যেন চায় আমার হাতে মার খেতে, আমার সেবা করতে। ওর ভিতরে যেন একটা লড়াই চলে। আচ্ছা আন্টি, ওর ওই চেতন মন কি কখনও ওর ওই অবচেতন মনের কথা বুঝতে পারবে? ও কি কখন চেতন মন দিয়ে একইভাবে আমার স্লেভ হয়ে আমার সেবা করতে চাইবে? উফ , দারুন হবে তাহলে!” রাইকে এতক্ষন পরে কথা বলতে শুনলাম।
রাইয়ের দিকে তাকিয়ে মিষ্টি করে হাসল সীমা, তারপর বলল, “ সম্ভবত পারবে। তার জন্য টিনার সাহায্য দরকার। বাড়িতে ওকে প্রতি মুহুর্তে বুঝিয়ে দিতে হবে পুরুষ জাতির সৃষ্টিই হয়েছে মেয়েদের সেবা করার জন্য। ওর জীবনের একমাত্র লক্ষ্য যে তোর সেবা করা, বোনের লাথি খেয়ে মরে গেলেও যে ভাইদের পুন্য হয় সেটা ওর মাথায় গেঁথে দিতে হবে। তুই ইচ্ছা করলে আজ থেকেই আবার রাজার উপর অকথ্য অত্যাচার করা শুরু করতে পারিস। ”।
“হঠাত করে আবার ভয়ানক অত্যাচার শুরু করলে কি রাজা মানসিকভাবে ভেঙ্গে পরবে না?” , রাই জিজ্ঞাসা করল।
“ ও আজ হোক বা কাল ঠিকই বুঝবে ওর জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য তোর সেবা করা। ততদিন তোর ইচ্ছা হলে অল্প , বেশি বাঁ ভয়ানক বেশি, যেরকম খুশি ডমিনেট করতে পারিস ওকে। ও এখন তোর ক্রীতদাস, তোর সম্পত্তি। ও সারা জীবন তোর ক্রীতদাস হয়ে থাকবে, চাকরি করে অর্থ রোজকার করে তোর পায়ে সমর্পন করবে। তাই ওকে যত খুশি মার, তবে একটু খেয়াল রেখে। যাতে তোর এই দামী সম্পত্তিটা পার্মানেন্টলি ড্যামেজ না হয়ে যায়”।
আমার মনটা ভয়ানক খুশি হয়ে উঠলো সীমার কথায়, আমি যেন হাফ ছেড়ে বাঁচলাম রাইকে আর রাজার উপর অত্যাচার করা থেকে আটকাতে হবে না ভেবে। সেই সাথে নিজের ছেলেকে নিজেরই মেয়ের হাতে ক্রীতদাস হতে দেখব, এই উত্তেজনায় আমি যেন ভিতরে ভিতরে ফুটছিলাম।
“ আজ তাহলে আসি সীমা, তুমি পারলে এই সপ্তাহে একবার যেও আমাদের বাড়ি”, আমি বললাম।
“ হ্যাঁ, অবশ্যই যাব। আর একটু দাঁড়াও, ড্রাইভারকে বলছি গাড়ি করে পৌঁছে দেবে। আমাদের রাই তো এখন একজন দেবী, স্লেভ অউনার। ওকে কি সাধারন বাসে যেতে দেওয়া যায়?”
ড্রাইভার গাড়ি নিয়েও আসতে আমরা উঠে পরলাম গাড়িতে। সীমা হেসে বলল, “ রাই, এরপরের রবিবার তোরা সবাই আসিস দুপুরে, নিমন্ত্রন রইল”।
গাড়িতে উঠতেই রাই আমাকে জড়িয়ে ধরে বলল, “ মা, কি আনন্দ হচ্ছে আমার তুমি বিশ্বাস করতে পারবে না। আমি কিন্তু সত্যিই রাজাকে স্লেভ বানাবো এবার। এটা তো আসলে রাজাও চায়। তুমি এবার আর বাধা দেবে না কিন্তু”।
আমি আমার আদরের মেয়ের কপালে চুম্বন এঁকে দিয়ে বললাম, “ না রে, সীমা যা বলল আমি সেভাবেই চলব। এখন থেকে রাজাকে রোজ বুঝিয়ে দেব তুই ওর চেয়ে অনেক সুপিরিয়ার। তারপর আসতে আসতে একদিন ও তোর পুরো স্লেভই হয়ে যাবে”।
উফ, রাইকে কি করে বোঝাই আমি রাজাকে ওর স্লেভ হতে দেখব ভাবলেই যেই নেশায় আচ্ছন্ন হই আমি তার সাথে ড্রাগেরও তুলনা চলে না। সে নেশা তুলনাহীন, অদম্য!!
সাত……
“ মা!!!”, রাই আমাকে জড়িয়ে ধরে আদুরে গলায় বলল।
“ কি রে?”, আমিও আমার ১৩ বছর বয়সী ফর্শা, সুন্দরী, মিষ্টি মেয়ের কপালে হাত বুলিয়ে দিতে দিতে বললাম।
“ চল না, বাড়ি ফেরার আগে একটু শপিং এ যাই। আজ মন খুব খুশি। একটু শপিং এ যেতে ইচ্ছা করছে”।
আমি মনে মনে ভাবছিলাম রাই আর রাজার ভবিষ্যত সম্পর্কের কথা। রাজা সারাজীবনের জন্য নিজের যমজ বোনের ক্রীতদাস হতে যাচ্ছে আজ থেকে। মা হয়েও এতে আমার দুঃখ তো নেই, বরং মন উথলে উঠছে আনন্দে। আর আমি মনে মনে ভাবছি রাই যাতে আরও সুখ স্বাচ্ছন্দে দিন কাটাতে পারে সেটা নিশ্চিত করতে হবে। ওর মতো একটা দেবী, ক্রীতদাসের মালিক পাবলিক ট্রান্সপোর্টে ঘুরবে এটা সত্যিই মানা যায় না। এখন যেরকম এসি গাড়ির নরম গদিতে হেলান দিয়ে বসে যাচ্ছে, এটাই মানায় ওকে। আমি ঠিক করলাম, এই মাসেই রাইকে একটা গাড়ি গিফট দিতে হবে। আমি ড্রাইভিং জানি, তাই অসুবিধা হবে না। আর ওরা বড় হলে রাইয়ের ক্রীতদাস রাজা তো থাকবেই ওকে ড্রাইভ করে নিয়ে যাওয়ার জন্য।
আমি নিজের ভাবনায় হারিয়ে গিয়েছিলাম। রাইয়ের প্রতি প্রবল ভালবাসায় মন ভরে উঠেছিল আমার। রাই আমার মেয়ে, আমার নিজের রক্ত। ওকে আমি কিছুতেই জীবনে আমার মতো কষ্ট করতে দেব না। ও রাজকন্যার মতো আরামে বড় হবে। তার জন্য নিজের ছেলে রাজাকে ক্রীতদাসের কষ্টকর জীবনে ঠেলে দিতে আমার একটুও কষ্ট হবে না। অবশ্য কষ্টই বা কিসের? রাজার অবদমিত মনই যেখানে চায় নিজের সুন্দরী যমজ বোন রাইয়ের ক্রীতদাস হতে!
“ কি হল মা, যাবে না? তুমি আমাকে এইটুকুও ভালবাস না?” মুখে মিষ্টি হাসি ঝুলিয়ে রাই জিজ্ঞাসা করল।
“ নিশ্চয়ই যাব, সেটা আবার জিজ্ঞাসা করতে হয় নাকি?”
ড্রাইভারকে রাইয়ের প্রিয় শপিং মলের সামনে দাঁড়াতে বললাম। রাই প্রথমে জামা- প্যান্ট কিনল কয়েক জোড়া। আমিও দুটো চুড়িদার কিনলাম। তারপর জুতোর দোকানে ঢুকল। ঘরে পরার ৩-৪ টে চটি, দু জোড়া স্নিকারের সাথে একটা কালো চামড়ার মোটা সোলওয়ালা জুতোও কিনল রাই। এটা পরে রাই যখন রাজার মুখে জোরে জোরে লাথি মারবে তখন কত ভাল লাগবে দেখতে সেটা ভাবতেও ভাল লাগছিল আমার। এরপর সে শপিং মলের যেদিকে ঢুকল সেদিকে আগে কখনও যাইনি আমি। প্রথমে দুটো চামড়ার দামী চাবুক কিনল রাই, তারপর দুটো সুন্দর ডগ কলার। রাই কি ওর ভাইকে এখন থেকে গলায় ডগ কলার পরিয়ে রাখবে? মুখে বুট জুতো পরা পায়ে লাথি মারার সাথে সাথে ওর পিঠে যখন খুশি বেল্টের বারি মারবে? এই ১৩ বছর বয়সেই রাইয়ের ডমিনেটিং চিন্তা দেখে আমি মোহিত হয়ে গেলাম।
শপিং সেরে আমরা একটা ভাল রেস্টুরেন্টে খেতে ঢুকলাম। রাই অনেক আইটেম অর্ডার করল। বহুদিন পর রাইকে এত আগ্রহ নিয়ে ডিনার সারতে দেখে দারুন ভাল লাগছিল আমার।
কেনাকাটা আর খাওয়া সেরে আবার গাড়িতে এসে বসলাম আমরা। ড্রাইভার গাড়ি চালাতে শুরু করল। থাক, এখন আর জিজ্ঞাসা করে লাভ নেই রাইকে, একটু সাস্পেন্স থাকা ভাল। বাড়ি ফিরে রাই ঠিক কি ব্যবহার করবে রাজার সাথে জানার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতে লাগলাম গাড়িতে।



বাড়িতে পৌঁছলাম ঠিক রাত সাড়ে দশটায় । ড্রাইভার আমাদের নামিয়ে দিয়ে চলে গেল। আমি ঘরের সামনে দাঁড়িয়ে বেল বাজালাম।
রাজা প্রায় সাথে সাথেই দরজা খুলে দিল। রাই রাজার হাতে শপিঙের ব্যাগ গুলো ধরিয়ে বলল, “ যা, ভিতরে রেখে আয়”।
রাজা বিনা তর্কে সেগুলো হাতে নিয়ে ভিতরের ঘরে রাখতে গেল। রাই ওর সাথে স্বাভাবিকভাবে কথা বলায় ওকে বেশ খুশি দেখাচ্ছিল। ও যখন জানবে রাই এখন থেকে ওর সাথে কিরকম ব্যবহার করবে , তখন এই হাসি কিভাবে মিলিয়ে যাবে ভেবে এক তীব্র উত্তেজনায় আমি ভাসতে লাগলাম।
রাই ভিতরে ঢুকে টিভির ঘরে নরম সোফায় গা এলিয়ে দিয়ে বসল। আমিও ওর পাশে এসে বসলাম। রাজা টিভির ঘরে এসে টিভির রিমোট দুটো এনে রাইয়ের হাতে দিল। তারপর রাইয়ের ঠিক পায়ের কাছে মেঝেতে বসে পরে উতসুক দৃষ্টিতে আমাকে জিজ্ঞাসা করল, “ সীমা আন্টি ফাইনালি কি ডিশিসন নিল মা?”
আমি মুখ খোলার আগেই রাই রাজার বাঁ গালে বেশ জোরে একটা থাপ্পর মেরে বলল, “ যখন সময় হবে ঠিকই বুঝতে পারবি কি ডিশিসন নিয়েছে। এখন আমার পা ধোয়ার জল আর ঘরে পরার চটিটা নিয়ে আয় যা। আমার জুতো খুলে পা ধুয়ে দিবি”।
রাজা অবাক হয়ে একবার রাইয়ের দিকে আর একবার আমার দিকে তাকালো। তারপর আর কোন প্রশ্ন না করেই রাইয়ের হুকুম পালন করার জন্য উঠে চলে গেল।
একটু পরেই রাজা ফিরে এল আবার। সাথে গামলায় জল, তোয়ালে আর রাইয়ের ঘরে পরার নীল চটিটা। রাজা ঠিক রাইয়ের পায়ের কাছে বসল এসে, গামলা আর তোয়ালেটা পাশে রেখে রাইয়ের পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে ওর পা থেকে জুতো খুলতে গেল। আর সঙ্গে সঙ্গেই রাইয়ের সাদা স্নিকার পরা ডান পায়ের তলা প্রবল জোরে আছড়ে পরল রাজার নাক আর ঠোঁটের উপরে। রাজা একেবারেই প্রস্তুত ছিল না মুখে লাথি খাওয়ার জন্য, তাই টাল সামলাতে না পেরে উল্টে পরে গেল। আর আমি অনুভব করলাম আমার দেহের সর্বত্র যেন বিদ্যুতের স্রোত খেলে বেড়াচ্ছে!
রাজা মেঝেতে চিত হয়ে উল্টে পরেছিল, ওর চোখদুটো ছিল ছাদের দিকে । রাই সোফা থেকে উঠে ঠিক রাজার মাথার কাছে দাঁড়াল, তারপর জুতো পরা ডান পা টা তুলে দিল রাজার মুখের উপর । নিজের সাদা স্নিকারের তলাটা রাজার ঠোঁট আর নাকের উপর ঘষতে ঘষতে বলল “আমি তোর কে হই?”
“ দ্দিদি!!!!!!!!”, রাইয়ের জুতোর তলায় চাপা পরা রাজার ঠোঁটের ফাঁক থেকে অস্ফুট স্বরে কথাটা বেরিয়ে এল।
“ জন্মসুত্রে আমি তোর যমজ বোন । আর মনে রাখিস, বোন মানেই ভাইদের কাছে প্রভু। আমি তোর প্রভু হই এই কথা যেন জীবনে কখনও না ভুলিস তুই”, রাজার নাক আর ঠোঁটের উপর জুতো পরা ডান পায়ে আরেকটা লাথি মেরে বলল রাই।
রাজা অবিশ্বাস্য চোখে রাইয়ের জুতোর তলা থেকে আমার দিকে চাইছিল। ওর চোখ বলছিল ও কিছুতেই বিশ্বাস করতে পারছে না রাই আবার ওকে এইভাবে ক্রীতদাসের মতো ব্যবহার করছে, তাও ওদের মায়ের সামনেই। ওর কাতর চোখ আমাকে অনুরোধ করছিল যেন রাইকে আমি ওর উপরে অত্যাচার করা বন্ধ করতে বলি। কিন্তু যাবতীয় সংশয় আমি অনেক আগেই ঝেড়ে ফেলেছি মন থেকে, নিজের ছেলেকে মেয়ের কাছে দাসত্ব করতে দেখে তাই এক সুখময় উত্তেজনা আমার দেহের কোষে কোষে ছড়িয়ে পরতে লাগল। আর আমি রাজার উদ্দেশ্যে ঘোষনা করলাম, “ এখন থেকে তুই রাইয়ের ক্রীতদাস, রাই তোর প্রভু। রাই তোর মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারতে মারতে তোকে মেরে ফেললেও যেন তোকে বাধা দিতে না দেখি কোনদিন। বাধা দিলে ফল ভয়ংকর হবে মনে রাখিস”।
রাজা আর কোন বাধা দেওয়ার সাহস পেল না আমার কথা শোনার পর। শুধু ওর চোখে মুখে এক ভয়ানক আতঙ্কের আভাস ফুটে উঠল আমার কথা শুনে। য়ার রাই ওর সুন্দর মুখে আরো সুন্দর একটা মিষ্টি হাসি ফুটিয়ে রাইয়্বের মুখের উপর নিজের ডান জুতোর তলাটা ঘষতে লাগল। এই স্নিকার পরে ও বাইরে থেকে ফিরেছে এখনই , ফলে তলাটায় বেশ নোংরা লেগে আছে আন্দাজ করতে পারছিলাম। রাই সেই নোংরা স্নিকারের তলা রাজার মুখের সর্বত্র ঘষতে লাগল মুখে হাসি ঝুলিয়ে। রাজার ফর্শা মুখটা কালো হয়ে গেল নিজের সুন্দরী যমজ বোন রাইয়ের জুতোর তলার ময়লায়। একটু পরে রাজার ঠিক নাকের উপরে জুতো পরা ডান পা দিয়ে একটা লাথি মেরে রাই অর্ডার দিল, “ জিভটা বার করে দে কুত্তা। তোর প্রভু জুতোর তলা মুছবে”।
রাজা একবারের জন্যও আপত্তি জানানোর সাহস পেল না । নিজের সুন্দরী যমজ বোন রাইয়ের জুতোর তলা মোছার জন্য লম্বা করে বার করে দিল নিজের জিভটা। চোখের সামনে আমার আদরের মেয়ে নিজের নোংরা জুতোর তলা নিজের যমজ ভাইয়ের জিভের উপরে মুছে পরিষ্কার করবে ভাবতেই আমার দেহের প্রতিটা কোষে এড্রিনালিনের স্রোত উন্মত্তের মতো দাপাদাপি করতে লাগল। আমার সীমার কথা মনে পরে গেল। আমার দায়িত্ব প্রতি মুহুর্তে রাজাকে স্মরন করিয়ে দেওয়া ছেলে মাত্রই মেয়েদের ক্রীতদাস, বোন মানেই ভাইদের প্রভু। রাজা যে রাইয়ের সম্পত্তি ছাড়া আর কিছু না সেটা ভাবতেই প্রবল সুখের নেশায় আমি আচ্ছন্ন হয়ে পরতে লাগলাম।
“ সীমা আন্টি কি ডিশিসন নিয়েছে তুই জানতে চাইছিলি না রাজা? ও সেই ডিশিসনই নিয়েছে যেটা ঠিক, যেটা আমার নিজেরই নেওয়া উচিত ছিল। ছেলেদের জন্মই হয়ে যাতে তারা মেয়েদের সেবা করে তাদের জীবন সহজ করে তুলতে পারে। তারা মেয়েদের সম্পত্তি , ক্রীতদাস আর কিছু না। ভাই মাত্রেই তার বোনের ক্রীতদাস। আজ থেকে তুই রাইয়ের সম্পত্তি, রাই তোর প্রভু, মালকিন। তোর জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য রাইকে খুশি রাখা। রাইয়ের লাথি খেয়ে তোর নাক মুখ ভাঙ্গুক , আর তুই মরেই যা, যেন কখনও তোকে বাধা দিতে না দেখি। রাইয়ের প্রতি তোর ভক্তিতে যেন অভাব না হয় কখনো। রাইয়ের সব জুতো জিভ দিয়ে পালিশ করতে যদি ভুলে যাস কখনও, তোর জন্য কি ভয়ানক শাস্তি অপেক্ষা করছে, তুই কল্পনাও করতে পারবি না”।
আমার কথা শেষ করার অনেক আগেই রাই রাজার বার করে দেওয়া জিভের উপরে নিজের ডান জুতোর তলা নামিয়ে দিয়েছে। নিজের নোংরা জুতোর তলা এমন স্বাভাবিক ভঙ্গিতে যমজ ভাইয়ের জিভের উপরে ঘষছে অতি সুন্দরী রাই, যেন ও পাপোষের উপরে ঘষে জুতোর তলা পরিষ্কার করছে! রাজার জিভটা বারবার কালো হয়ে যাচ্ছে রাইয়ের জুতোর তলার ময়লায়, রাজা জিভটা মুখের ভিতরে ঢুকিয়ে রাইয়ের জুতোর তলার ময়লাটা গিলে আবার জিভটা বার করে দিচ্ছে রাইয়ের জুতোর তলা মোছার জন্য! উফ, আদর্শ ভাই বোনের সম্পর্ক তো এরকমই হওয়া উচিত! যেখানে ভাই ক্রীতদাস আর বোন তার প্রভু!!
রাই মুখে হাসি ঝুলিয়ে প্রায় ৫ মিনিট নিজের নোংরা জুতোর তলাটা রাজার জিভের উপরে ঘষে নিজের জুতোর তলা নতুনের মতো চকচকে করে নিল। তারপর রাজার নাকের উপর জুতো পরা ডান পা দিয়ে একটা প্রবল জোরে লাথি মেরে বলল, “ আমি তোর প্রভু, পুজনীয় দেবী। আমার জুতোর তলার ময়লা মানে তোর কাছে পুজোর প্রসাদ। প্রসাদ পুরোটা গিলে খাবি, বাইরে ফেলতে দেখলে আজকেই লাথি মারতে মারতে তোকে মেরে ফেলব”।
রাজার চোখে মুখে আতঙ্কের ছায়া ভাসছিল। রাইয়ের কথা শেষ হওয়ার আগেই ও রাইয়ের ডান জুতোর তলায় গাঢ় চুম্বন করতে করতে বলতে লাগল, “ না প্রভু, তুমি আমার জিভে জুতোর তলা মুছেছ এ তো আমার সৌভাগ্য। আমার সৌভাগ্য যে আমি দেবী রাইয়ের জুতোর তলার ময়লা গিলে খাওয়ার সুযোগ পাচ্ছি”।
রাজার আতঙ্কিত হাবভাব রাইয়ের মুখে দারুন একটা হাসি ফুটিয়ে তুলল। রাই এবার ডান পা নামিয়ে জুতো পরা বাঁ পায়ের তলাটা রাজার বার করা জিভের উপরে নামিয়ে দিল। তারপর একইভাবে রাজার জিভের উপরে নিজের বাঁ জুতোর তলা মুছে যেতে লাগল রাই। আর রাজা মাঝে মাঝেই জিভটা মুখের ভিতরে ঢুকিয়ে ওর প্রভু রাইয়ের জুতোর তলার ময়লাটা গিলে ফেলে আবার পরিষ্কার জিভটা বার করে দিতে লাগল রাইয়ের জুতোর তলা মোছার জন্য।
রাই প্রায় ৫ মিনিট ধরে ওর বাঁ জুতোর তলাটা রাজার জিভে ঘষে পরিষ্কার করে ফেলল। তারপর হঠাতই জুতো পরা বাঁ পা টা তুলে রাজার কপালের উপরে প্রবল জোরে একটা লাথি মারল রাই। রাজাকে সামলে নেওয়ার কোন সুযোগ না দিয়েই রাজার মুখ আর মাথার সর্বত্র জুতো পরা দুই পায়ে রাই একের পর এক সজোরে লাথি মারতে লাগল। উফ, কি যে অকল্পনীয় সুখ মেয়ের হাতে ছেলেকে অত্যাচারিত হতে দেখে! আমি রাইকে বাধা দেওয়া তো দূর, পাশের ঘর থেকে নতুন কেনা চাবুক আর ডগ কলারটা নিয়ে এলাম রাইয়ের জন্য। রাজার মুখের সর্বত্র তখনও একইভাবে লাথি মেরে চলেছে রাই, ওর সুন্দর মুখে ফুটে উঠেছে এক নিষ্ঠুর হাসি। রাজার নাক দিয়ে রক্ত পরছে, চোখ দিয়ে জল ঝরছে। তবু ও সাহস পাচ্ছে না রাইকে ওর মুখে লাথি মারা থামানোর অনুরোধ করতে। শুধু অসহায় মুখে রাইয়ের দিকে হাতজোড় করে শুয়ে মুখে একের পর এক রাইয়ের জুতো পরা পায়ের লাথি খেয়ে চলেছে রাজা!
আমি এগিয়ে গিয়ে চাবুক আর ডগ কলারটা রাইয়ের হাতে দিলাম। রাই আমাকে জড়িয়ে ধরে “ থ্যাংক ইউ মা” বলে আমার হাত থেকে জিনিস দুটো নিল। তারপর ডান হাতে চামড়ার চাবুকটা নিয়ে জুতো পরা ডান পা টা ভাইয়ের মুখের উপরে তুলে দিয়ে ভাইয়ের বুকে একের পর এক চাবুকের বারি মারতে লাগল। রাজার জামা চিড়ে গিয়ে ওর বুকে একের পর এক বেল্টের লাল দাগ বসে যেতে লাগল। আর রাইয়ের ভয়ানক অত্যাচারী রুপ দেখে এক অনিয়ন্ত্রিত নেশার জগতে আমি নিজেকে হারিয়ে ফেলতে লাগলাম।
প্রায় ৫ মিনিট রাজার বুকে চাবুক মেরে রাই রাজার মুখের উপরে জুতো পরা দুই পায়ে উঠে দাড়ালো। আমি পাশে দাঁড়িয়ে ওর হাত দুটো ধরলাম যাতে ওর ব্যালেন্সে সুবিধা হয়। আর রাই আমার হাত ধরে জুতো পরা পায়ে রাজার মুখের উপরে দাঁড়িয়ে লাফাতে শুরু করল! ও যতটা পারে উঁচুতে লাফাচ্ছিল, আর জুতো পরা পায়ে ল্যান্ড করছিল ভাইয়ের মুখে। আর আমি ওদের মা হয়ে আমার মেয়ের হাত ধরে সাহায্য করছিলাম যাতে ও আমারই ছেলের মুখের উপর এইভাবে জুতো পরা পায়ে লাফাতে পারে! উফ, কি যে আনন্দ এতে! রাজা যদি আজ রাইয়ের কাছে মার খেতে খেতে মরেই যায় তাহলেই যেন আমি সবচেয়ে খুশি হব!!
প্রায় ১০ মিনিট রাজার মুখের উপরে জুতো পরা পায়ে লাফালো রাই। আর রাজার মুখ থেকে অব্যক্ত এক গোঙ্গানীর শব্দ ভেসে আসতে লাগল শুধু। শেষে রাই যখন নেমে দাড়ালো তখন রাজার নাক আর ঠোঁট দিয়ে গলদল করে রক্ত বেরোচ্ছে, মুখ ফুলে আর রাইয়ের জুতোর তলার কাদায় এমন চেহারা হয়েছে যে চেনা তো দূর , ও মানুষ না অন্য প্রানী সেটাই সন্দেহ হচ্ছে! রাই নেমে দাড়াতেও রাজা লাশের মতো নিঃসাড় হয়ে পরে রইল। সত্যিই কি রাজা মরে গেল নাকি?
আমি সাথে সাথে রাজার নাকের কাছে হাত দিয়ে দেখলাম। হালকা নিঃশ্বাস অনুভব করতে পারলাম। যাক, তাহলে শুধু অচেতন হয়ে পরেছে! এখনও বেঁচে আছে আমার মেয়ের ক্রীতদাস!
আমার মনে একটুও মায়া জাগল না নিজের ছেলেকে এই অবস্থায় দেখে। বরং মনে মনে বললাম, আমার কোন ছেলে নেই, শুধু একটা আদরের মেয়ে আছে, রাই। আর রাজা হল সেই আদরের মিষ্টি মেয়ের ক্রীতদাস। রাইয়ের লাথি খেয়ে সে যদি মরেও যায় সেটা আমার কাছে উপভোগের বিষয়!
রাই সেই অবস্থাতেই রাজার গায়ে লাথি মারতে মারতে ওকে সোফার পায়ের কাছে নিয়ে এল। তারপর রাজার গলায় ডগ কলারটা পরিয়ে দিয়ে সেটা ধরে সোফায় বসল রাজার মুখের উপরে জুতো পরা পা দুটো তুলে দিয়ে। রাজার অচেতন দেহের উপরে জুতোর তলা ঘষতে ঘসতে ও টিভির চ্যানেল সার্ফ করতে লাগল। আমিও রাইয়ের পাশে সোফায় বসে টিভি দেখতে দেখতে আড়চোখে মেয়ের মুখের হাসি লক্ষ্য করে আনন্দে ভাসতে লাগলাম।
“ মা, তুমিও ক্রীতদাসের গায়ের উপরে পা তুলে দাওনা আমার মতো প্লিজ?”
আমার আদরের মেয়ের অনুরোধ উপেক্ষা করতে পারলাম না আমি। আমার চটি পরা পা দুটো অচেতন রাজার বুকের উপরে তুলে দিয়ে বসলাম আমিও। রাই আমাকে জড়িয়ে ধরে আমার কাঁধে মাথা রেখে ওর যমজ ভাই, ওর ক্রীতদাস রাজার মুখের উপর জুতোর তলা ঘষতে ঘষতে টিভি দেখতে লাগল। আর আমি রাইয়ের প্রতি প্রবল ভালবাসায় ওর কপালে এঁকে দিলাম স্নেহচুম্বন।

রঞ্জনবাবুর অভিজ্ঞতা।

আমার ছেলে রানার বয়স ১৫। আমি অনেকবার লক্ষ্য করেছি ও নিজের ৩ বছরের ছোট বোন রিমির পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করে। মেয়েও দাদার মাথার উপর চটি পরা পা রেখে আশির্বাদ করে। জিজ্ঞাসা করলে ছেলে বলে ছোট বোনকে ভক্তিভরে প্রনাম করলে ওর পড়াশোনায় মন বসে। আমি বা ওদের মা তাই বাধা দিই না।
ছোটবেলায় ওরা ভাই বোনে মাঝে মাঝে ঝগড়া করত ঠিকই। কিন্তু একটা জিনিস দেখেছি, মেয়ে দোষ করলেও ছেলে সবসময় বোনের কাছে ক্ষমা চেয়ে নিত। ছেলের বয়স বাড়তে থাকলে ও আসতে আসতে বোনের সব কথাই মেনে নিতে থাকে। ছেলের বয়স ১১-১২ হওয়ার পর ওকে আর বোনের সাথে কখনও ঝগড়া করতে দেখিনি। বোন যা বলত, তাই মেনে নিত ও। ওর বোন আসতে আসতে কথায় কথায় ওকে হুকুম করা শুরু করে। ও সেটাও হাসিমুখে মেনে নিতে থাকে। ছেলের বয়স যখন ১৩ আর মেয়ের ১০, তখন প্রথম দেখি ছেলে ওর বোনকে প্রনাম করছে। এখন রোজ সকালে বিকালে রাতে নিয়ম করে বোনের পায়ে মাথা রেখে প্রনাম করে ও। আর মেয়ে ওর মাথায় চটি পরা পা রেখে আশির্বাদ করে ওকে। আরো অনেক ভাবে বোনের সেবা করে ও।
প্রথম প্রথম আমাদের অবাক লাগত। ছেলেকে অবাক হয়ে জিজ্ঞাসা করেছি ছোট বোনকে প্রনাম করে কেন? ও বলত বোনকে দেখলে ওর মনে ভক্তি জাগে, ওকে প্রনাম করলে প্রানে শান্তি পায়। এখন বুঝি কোন কারনে সত্যিই ও নিজের ছোট বোনকে ভিশন ভক্তি করে। মেয়ে মাঝে মাঝেই কারনে অকারনে ওর দাদাকে মারে, ছেলে কখনো বাধা দেয় না। আমার মনে হয় ওদের কাছে যদি এটাই স্বাভাবিক সম্পর্ক হয় তো তাই থাক। ওরা দুজনেই যখন এতে খুশি আমরা কেন বাধা দিতে যাব? তাই ছেলেকে বলেছি তোর যেভাবে খুশি ছোট বোনের সেবা কর, আমরা কিছু বলব না।
.
.
.

আজ অফিস থেকে ফিরে যেমন দেখলাম আমার ১২ বছর বয়সী মেয়ে রিমা তার দাদা রানাকে দিয়ে পা টেপাচ্ছে। রানা বোনের পায়ের তলায় শুয়ে মন দিয়ে বোনের পা দুটো ভক্তিভরে টিপে যাচ্ছে।
.
.
.
মাঝে মাঝেই দাদাকে দিয়ে পা টেপানোর সময় আমার মেয়ে নিজের চটি বা জুতো পরা পা দাদার মুখের উপর রেখে বসে। ১২ বছরের একটা মেয়ে নিজের চটি বা জুতো পরা পা ৩ বছরের বড় দাদার মুখের উপরে রেখে দাদাকে দিয়ে পা টেপাচ্ছে, আর দাদা সেই অবস্থায় ভক্তিভরে ছোট বোনের পা টিপে যাচ্ছে, দেখতেও অবাক লাগে আমাদের।
.
.
.

আমার মেয়ে ওর দাদার মুখের উপর চটি পরা পা রেখে বসে কখনও ১ বা ২ঘন্টা, কখনও টানা ৩,৪ বা ৫ ঘন্টা ধরে পা টেপায়। ওর দাদা ওর পা টিপে দেয় ভক্তিভরে, আর ও যখন খুশি ইচ্ছামত দাদার মুখে চটি পরা পায়ে লাথি মারে দাদার সেবা নিতে নিতে। জবাবে ছেলে ওর বোনের চটির তলায় চুম্বন করে ওকে ধন্যবাদ দেয় ওর মুখে লাথি মারার জন্য। মেয়ে সারাদিন চাকরের মত অর্ডার করে ওর দাদাকে। আর ছেলে বাধ্য চাকরের মত ছোট বোনের সব অর্ডার পালন করে।

কালকে আমার চোখের সামনে আমার মেয়ে ওর দাদাকে ভিশন মারল।

আমার ছেলে প্রায় চাকরের মতো সেবা করে ওর ছোট বোনের। রোজ সকালে আমার মেয়ে রিমি ৮ টার দিকে ঘুম থেকে ওঠে। রানা বোনের ব্রেকফাস্ট আর চা বা কফি রেডি করে ওর পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে বোনের পায়ে হাত দিয়ে নরম স্বরে ডেকে ওকে ঘুম থেকে তোলে। তবে মাসে ২-৩ বার আমার মেয়ে সকাল ৫.৩০-৬.০০ টায় মর্নিং ওয়াকে যায়। কবে ওর যাওয়ার ইচ্ছা হবে কেউ জানে না। আমার মেয়ে শোয় দোতলার বড় ঘরের খাটে। আর ওর দাদা রানা এখন রাতে ওই ঘরের মেঝেতে বিছানা করে শোয়, যাতে রাতে বোন কিছু অর্ডার করলে সাথে সাথে ও এনে দিতে পারে।
কাল রাতেও রানা বোনের ঘরের মেঝেতে তোষক পেতে শুয়েছিল। ভোর ৬ টার একটু আগে রিমিকে উঁচু স্বরে
চিৎকার করতে শুনে আমি ওদের ঘরে ঢুকে দেখি রিমি ওর লাল চটি পরা ডান পা টা দাদার মুখের উপর রেখে দাঁড়িয়ে আছে আর দাদার মুখের উপর একটানা চটি পরা পায়ে বেশ জোরে জোরে লাথি মারতে মারতে বলছে, ” তোর হুঁশ থাকে না চাকর যে তোর প্রভু সকালে মর্নিং ওয়াকে যাবে? তুই কি আশা করিস প্রভু নিজে হাতে পায়ে জুতো পরবে আর ফিরে এসে নিজে জুতো মোজা খুলে চা আর টিফিন বানিয়ে খাবে? তোর মতো চাকর থাকার চেয়ে না থাকা ভাল।”
রিমি কথা গুলো বলছিল আর টানা চটি পরা পায়ে দাদার মুখে লাথি মেরে যাচ্ছিল। আমি অবাক হয়ে গেলাম রিমি নিজের দাদাকে চাকর বলছে আর নিজেকে দাদার প্রভু বলছে। রানা কিন্তু এমনভাবে মুখে বোনের চটি পরা পায়ের লাথি খেতে খেতে বোনের চটির তলায় চুম্বন করে ওর কাছে ক্ষমা চাইছিল যেন রিমি সত্যিই ওর প্রভু। আর আরো আশ্চর্য লাগল যখন পরে শুনলাম রিমি যে সেদিন মর্নিং ওয়াকে যাবে সেটাও আগে বলেনি রানাকে। অকারনে ও শুধু মজা নেওয়ার জন্য দাদার মুখে ওইভাবে চটি পরা পায়ে লাথি মারছিল।

অঙ্কুশের কাহিনী…
আমি ক্লাস ১০ এ পড়ি। আমার বোন অন্মেষা পড়ে ৮ এ। কখনও কখনও বোনের সাথে ঝগড়া হয় আমার। ও ছোট, মেয়ে আর দেখতে ভাল বলে বাবা মা ওকে আমার চেয়ে বেশি ভালবাসে। আমার সেটা খারাপ লাগে। আবার যেন ভিতরে ভিতরে একটু ভালও লাগে। আমি ঠিক বুঝতে পারি না কেন এরকম হয়। বোন আমাকে কিছু অর্ডার করলে আমি চিৎকার করি, করতে পারব না বলি, তবু প্রায় সবসময়ই সেটা করে দিই। দেখাতে না চাইলেও কিরকম যেন ভাল লাগে ভিতরে ভিতরে। গত কিছু দিন হল একটা ছোট্ট ঘটনার পর এটা আরো বেশি হচ্ছে।
আমি এবছর মাধ্যমিক দেব। আমি ২ সপ্তাহ আগে আমার টেস্ট পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর বাবা মাকে বলেছিলাম- মাধ্যমিকের পর কোথাও বেড়াতে গেলে হয় না?
বাবা -মা গম্ভীর মুখে বলেছিল – এখন ওসব ভাবতে হবে না। এখন শুধু মন দিয়ে পড়, পরে দেখা যাবে।
অথচ পরের সপ্তাহেই আমার বোন অন্মেষা আর আমার কাজিন বোন অনামিকা মিলে যেই দার্জিলিং ঘুরতে যাওয়ার কথা বলল, বাবা মা এক কথায় রাজি হয়ে গেল।
অনামিকা আমার ডবল কাজিন, আমার কাকু আর মাসির মেয়ে, আমার চেয়ে মাত্র ৪ দিনের বড়। তবু ও আর বাবা মা জোর করে ওকে দিদি বলে ডাকতে বাধ্য করে। আগে আমাদের জয়েন্ট ফ্যামিলি ছিল। ছোটবেলায় আমরা একসাথে থাকতাম। দিদি একটু ডমিনেন্ট টাইপ ছিল, আমাকে হুকুম করতে ভালবাসত। ওকে দেখে বোনও একই জিনিস করার চেষ্টা করত। বাবা মা কাকু মাসি সবাই দিদি আর বোনকে আমার চেয়ে বেশি ভালবাসে ওরা সুন্দরী আর মেয়ে বলে। তাই আমাকে প্রায়ই বাধ্য করত বোন আর দিদির কথা মানতে। আমি বেশিরভাগ সময় মানতে চাইতাম না, রেগে যেতাম। তবু মাঝে মাঝে সেই হুকুম করাটাই কেন জানি না ভাল লাগত বেশ। যত বড় হতে লাগলাম এটা বাড়তে লাগল। তবু ইগোর জন্য ভাব দেখাতাম যে ভাল লাগছে না ওদের হুকুম।
আমি আর দিদি যখন ক্লাস ৬ এ পড়ি তখন কাকুর শিলিগুড়িতে বদলি হওয়ায় সেখানে চলে যায়। কিন্ত বোন আগের মত হুকুম চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে থাকে। আমি যদিও পাত্তা দিতাম না ইগোর জন্য, সে যতই সেটা ভাল লাগুক কিছুটা। তবে মা বাবা মাঝে মাঝে ওর কথা শুনতে বাধ্য করত। ওকে অনেক বেশি আদর আর গিফট দিত আমার থেকে। আমার অল্প হিংসা হত, তবু কেন জানিনা তারচেয়ে বেশি ভাল লাগত আমার সুন্দরী বোন আমার চেয়ে বেশি আদর আর সুযোগ পাচ্ছে বলে, যেটা আমি চেপে যেতাম।
বোন আর দিদি মিলে চ্যাটে ঠিক করল দার্জিলিং যাবে আর যে বাবা মা আমার ঘুরতে যাওয়ার কথা উড়িয়ে দিয়েছিল সেই বাবা মাই সাথে সাথে রাজি হয়ে গেল! কাকুর কাজের চাপ থাকায় যেতে পারবে না, দিদি আমাদের সাথে যাবে। কবে যাব, কোথায় থাকব ঠিক করার জন্য দিদির সাথে ভিডিও চ্যাটে বাবা মা কথা বলতে গেল। বাকি ডিটেইলসের সাথে কথা উঠল কটা রুম ভাড়া নিতে হবে আমাদের ৫ জনের জন্য। দিদি বলে দিল দুটো ডবল রুমের ঘর ভাড়া নিলেই হবে। মা বলল, একটায় তো আমরা দুজন থাকব, বাকি রুমে তোদের ৩ জনের হবে? দিদি বলে দিল- হ্যাঁ হয়ে যাবে। অংকুশ ঠিক মেঝেতে শুয়ে পরবে।
বোন আর দিদি খাটের নরম গদিতে লেপ মুড়ি দিয়ে শোবে আর আমি ঠান্ডা মেঝেতে শুনেও কিরকম একটা ভাল লাগছিল আমার। কিন্তু আমি প্রতিবাদ করে সাথে সাথে বললাম- দার্জিলিং এর ঠান্ডায় আমি মেঝেতে শুতে পারব না।
শুনে বোন পাশ থেকে বলল, – তাতেও অসুবিধা নেই। দাদা ঠিক আমাদের পায়ের নিচে শুয়ে পরবে।
দিদি শুনে লাফিয়ে বলল- ব্যাস, সমস্যা মিটে গেল! মা বাবাও শুনে আপত্তি করা তো দূর, হাসিমুখে রাজি হয়ে গেল এতে। আর আমার ইগো বলছিল যে আবার প্রতিবাদ করতে, কিন্তু এক দারুন ভাললাগায় যেন আমার মুখ আটকে দিল। বোন আর দিদির কাছে অপমানে, ওদের তুলনায় আমাকে ছোট করলে আমার রাগের থেকে ভাল লাগা কেন বেশি হয় এটা আমিও ঠিক বুঝি না। আমি চুপ করে রইলাম এই ভাললাগার কারনে।
বোন উতসাহ পেয়ে পাশ থেকে আবার বলল, – ভালই হবে। সারাদিন হেঁটে হেঁটে ঘুরে পায়ে ব্যাথা হয়ে যাবে। দাদা পায়ের তলায় শুলে দাদাকে দিয়ে আমরা পা টেপাতে পারব। কি রে দাদা, আমাদের পা টিপে দিবি না তুই?
আমার লজ্জায় যেন কান লাল হয়ে যাচ্ছিল। শুধু কোনরকমে বললাম, – সে তখন দেখা যাবে।
বাবা মা সত্যিই দুটো রুমই রিজার্ভ করে রাখবে নেক্সট মাসে। আমাকে বোন আর দিদির পায়ের তলায় শুতে হবে প্রায় ১০ দিন!
এই ঘটনার পর থেকে বোন বা দিদি হুকুম করবে ভাবলে কোন ইগোই প্রায় কাজ করছে না। ওরা আমাকে যা খুশি হুকুম করবে, চাকরের মত কাজ করাবে, পা টেপাবে ভাবতে এক অদ্ভুত ভাল লাগছে। বোন তারপর থেকে হুকুম করা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। প্রায়ই অর্ডার করে – জলের বোতল এনে দে, খাট ঝেড়ে দে, এটা এনে দে, ওটা এনে দে। আমি সেগুলো সবই করে দিই, কি অদ্ভুত একটা ভাল লাগে। ও মাঝে মাঝে পা টিপতেও বলছে মজা করে। আমি সেটা এড়িয়ে যাচ্ছি এখনো, যদিও জানি বাবা মার সামনে চাকরের মত ছোট বোনের পা টিপতে দারুন ভাল লাগবে। তখন বোন বলছে- ঠিক আছে, মাধ্যমিক আছে সামনে, তাই এখন ছেড়ে দিলাম। কিন্তু মনে রাখিস, পরীক্ষার পর দার্জিলিং যাওয়ার পর থেকেই রোজ আমার পা টিপতে হবে তোকে। মা শুনে বোনকে বাধা না দিয়ে বরং একদিন বলল, – একদম ঠিক।
সত্যি বলতে আমার মনে হয় ওরা সত্যিই আমাকে রাতে পায়ের তলায় শুইয়ে আমাকে দিয়ে পা টেপাবে ওই সময়ে। আমার ভাবতে এখন আর খারাপই লাগে না প্রায়, কোন ইগো এসে বাধাও দেয় না তেমন। মাধ্যমিকের পর ১০ দিন বোন আর দিদির চাকরের মত সেবা করতে হবে, সারারাত ওদের পায়ের তলায় শুয়ে পা টিপে দিতে হবে ভেবে কেন জানিনা দারুন ভাল লাগছে। আমি এত সুন্দরী বোন আর দিদির চাকর হওয়ারও যোগ্য নই ভেবে আনন্দ লাগছে বরং।
সামনে মাধ্যমিক। তাই বেশি অনুভুতি শেয়ার করতে পারব না এখন। তবে মাধ্যমিকের পর মার্চ মাসের শুরুতে দার্জিলিং যাচ্ছি। তারপর কি হল এখানে এসে শেয়ার করব। ততদিন সবাই নিজেদের অভিজ্ঞতা লেখ প্লিজ। সবার কথা শুনলে আমাদের পরিস্কার হবে কেন আমরা সুন্দরী ছোটবোনের চাকরের মত হয়ে ওদের সেবা করতে ভালবাসি।
( লেখক অঙ্কুশ, ছোট বোনের সেবা করা ফোরাম থেকে কপি করা)।