সজল

রিমার সাথে শুটিং করতে এসে এরকম অভিজ্ঞতা হবে ভাবতে পারেনি সজল ।
ইংল্যান্ডে পড়তে এসে খরচ চালাতে খুব অসুবিধা হচ্ছিল সজলের । বাড়ি থেকে পাঠান টাকায় এখানে পাউন্ডে খরচ চালান খুবি মুস্কিল । অনেক কষ্টে ওয়ারক পারমিট যোগাড় করার পর রিমাই বলেছিল অর সাথে শর্ট ফিল্ম এ অভিনয় করতে নেমে পড়তে । ওদের ক্লাস্ মেট সারাও ওদের সাথে অভিনয় করবে । কিন্তু সে শর্ট ফিল্ম যে ফেমডম শর্ট ফিল্ম সেটা ও কি করে বুঝবে ?
শুটিং করতে তারা একটা পুরন বাড়িতে ঢুকল ঠিক সকাল ১০ টায় । পরিচালক তাকে গল্প বুঝিয়ে দিল , সে গল্পে রিমার দাদা আর সারা রিমার ক্লাস মেট । সে একটা খেলায় হেরে যাবে রিমার কাছে । আর খেলার শর্ত মত রিমা আর সারা তাকে যা বলবে তাই করতে হবে সারাদিন ।
রিমা হাসিমুখে ওকে বলল , – দাদা, আজ সারাদিন তুই আমার চাকর, আমি তোর মনিব । আমার পায়ের তলায় শুয়ে পর । ব্যাপারটা অপমানজনক বোঝার পর ও সজল ২০০ পাউন্ডের লোভ ছাড়তে পারল না । সে রিমার কথা মত ওর পায়ের তলায় শুয়ে পরল । রিমা ওর পাম্প সু পরা পা দুটো সজলের মুখের ওপর রেখে বলল , এবার ভাল দাদার মত বোনের পা টেপ । সজলের কেন যেন ভাল লাগতে শুরু করেছিল সুন্দরী বান্ধবীর কাছে অপমান । সে আসতে আসতে রিমার পা টিপতে লাগল আর রিমা ওর মুখে জুতোর তলা ঘষতে লাগল । তখনি ঘরে ঢুকল সারা । সজলের মুখের ওপর নিজের সাদা জুতো পরা ডান পা রেখে দাঁড়াল । সোনালি চুলের শ্বেতাঙ্গ বান্ধবীর কাছে এই অপমান দারুন ভাল লাগতে শুরু করেছিল সজলের । সে নিজে থেকেই চুমু খেল সারার জুতোর তলায় । সারা হেসে বলল তোকে আমাদের পায়ের তলাতে থাকলেই মানায় । নিজের বাঁ পা সজলের বুকের ওপর রেখে জুতো পরা ডান পা সজলের মুখের ওপর রেখে সে মাথার সুন্দর সোনালী চুলে হাত দিয়ে ফ্যাশন শো করার কায়দায় দাঁড়াল । রিমার জুতো পরা ডান পা তখন সজলের কপালের ওপর আর বা পা ওর বুকে ।
এবার আমরা একটা খেলা খেলব । তুই চোখ বন্ধ করে জিভ বার করে শুয়ে থাকবি আর আমরা একজন তোর বের করা জিভে আমাদের এক পায়ের জুতোর তলা মুছবো । কে, কোন জুতোর তলা মুচেছে ঠিক করে বলতে পারলে তোকে সেই জুতোর তলায় চুমু খেতে দেব । আর না পারলে সেই জুতো পরা পায়ের লাথি খেতে হবে মুখে ।
সজল এমন ভাবে মাথা নেড়ে রাজি হয়ে গেল যেন এটা খুব স্বাভাবিক খেলা । সে জিভ বার করে চোখ বন্ধ করে শুয়ে পরল দুই বান্ধবীর পায়ের তলায় । রিমা আর সারা হাসিমুখে সজলের বের করা জিভে ওদের জুতোর তলা বলাতে লাগল । সজল আন্দাজে বলার চেস্টা করতে লাগল কার কোন পা তার জিভ স্পর্শ করেছে । বেশীরভাগ সময়ে তার উত্তর ভুল হচ্ছিল । ফলে হাসিমুখে তার মুখে লাথি মারছিল তার দুই বান্ধবী । আর তার উত্তর ঠিক হলে সে গাঢ় চুম্বন করছিল বান্ধবীদের জুতোর তলায় । সবার সামনে এভাবে বান্ধবীদের পায়ের তলায় অপমানিত হতে খুব ভাল লাগছিল তার । এখন থেকে কলেজেও সে এভাবে সবার সামনে সারা আর রিমার সেবা করবে , ওদের লাথি মুখে খেতে খেতে এই স্বপ্নই দেখতে লাগল সজল ।