(অনেকদিন গল্প পোস্ট করা হয়না টাইমের অভাবে । একটা ছোট ইংরেজি ফেমডম গল্প তাই অনুবাদ করে পোস্ট করলাম । প্রথম কমেন্টে অরিজিনাল গল্প টা দিলাম ।
original english – jay.
translated by khoka. )

আমরা যখন ছোট , তখন থেকেই আমার দিদি আমার মুখটাকে ওর পা রাখার জন্যে ব্যাবহার করে । আমার দিদি আমার থেকে ২ বছরের বড় , আর খুব সুন্দরী । যেহেতু খুব ছোট থেকেই দিদি আমার মুখে পা রাখে , বাড়ির কেউ এতে কিছু মনে করে না । দিদি সবসময় আমার মুখের উপর পা রাখতে পছন্দ করে । দিদির পায়ে জুতো বা চটি পরা থাক , মোজা পরা থাক বা খালি পা থাক , দিদি সবসময় ওর পা রাখে আমার মুখের ঊপর , সবার সামনেই ।

দিদি বাইরে থেকে ফিরলে চেয়ারে বসে আমাকে

ডাকে , আমি দিদিকে এক গ্লাস জুস দিই , টিভি খুলে রিমোট টা দিদির হাতে দিই । তারপর নিজের মাথা দিদির জুতো পরা পায়ে ঠেকিয়ে দিদিকে প্রনাম করি । দিদি তখন সবার সামনে আমার মাথার উপর জুতো পরা পা রেখে আমাকে আশীর্বাদ করে । এটা আমার খুব ভাল লাগে । আমি দিদির জুতোর উপর চুম্বন করে দিদিকে ধন্যবাদ দিই , তারপর শুয়ে পরি দিদির জুতো পরা পায়ের তলায় । দিদি ওর জুতো পরা পা দুটো রাখে ঠিক আমার মুখের উপর । আমার মুখটা জুতোর তলা দিয়ে ঘষতে ঘষতে টিভি দেখতে থাকে । আমি দিদির জুতোর তলায় চুম্বন করতে করতে দিদির পা দুটো টিপতে থাকি । শুধু সবার সামনে কোনদিন দিদির  জুতোর তলা জিভ দিয়ে চেটে পরিষ্কার করিনি । ওটা করি যখন শুধু আমরা দুজন থাকি । তবে আমার ইচ্ছা করে খুব সবার সামনে দিদির জুতোর তলা জিভ দিয়ে চেটে পরিষ্কার করে দিতে । আমার কেন যে দিদির সেবা করতে এত ভাল লাগে আমি জানিনা । আমার বয়েস এখন ১৫ , দিদির ১৭ ।
গত ১০ বছর ধরে আমি এভাবেই দিদির সেবা করে আসছি ।

 সকাল হলেই আমি দিদির জন্যে টিফিন বানিয়ে দিদির পায়ে চুমু খেয়ে দিদির ঘুম ভাঙ্গাই । তারপর দিদি ফ্রেশ হয়ে এসে আমার মুখে চটি পরা পা দুটো রেখে তিফিন খায় আর আমি ওর পা টিপতে থাকি । এরপর আমি দিদির জামা কাচি , জুতো পরিষ্কার করি । ঘর ঝাঁট দিয়ে দিই । তারপর বই খাতা নিয়ে দিদির পায়ে কাছে পড়তে বসি । দিদি চেয়ারে বসে পড়ে । আমি ওর পায়ের কাছে বসে পড়তে পড়তে ওর পা টিপে দিই । আমার নিজেকে দিদির চাকর ভাবতে খুব ভাল লাগে । আশা করি , সারাজীবন এভাবেই দিদির সেবা করতে পারব আমি ।