Archives for category: Uncategorized

A foot slave forever ( by Footslave, edited version )
My first introduction to the femdom occurred when I was about 11. My parents were off on a “second honeymoon” and I was staying at my Aunt’s house for a three-day weekend. She had two girls who were close to my age. Patty was two years older, blonde and very attractive; Janice was a year younger, dark haired and very aggressive. They didn’t have a guest room and I was given the choice of sleeping downstairs on the couch or in the girl’s room. The girls shared one bed in one room. I chose the girl’s room because I knew I’d be up at the crack of dawn if I stayed on the couch. It was Friday night but Uncle John always rose early and started working, even on Saturday. It’s amazing to think now that nothing unusual was made of the fact that I would be sleeping in the girl’s room. Those were different days!
Everything was fine and “normal” from when my parents dropped me off just before supper until bedtime. I played paper dolls with Janice and Patty. I know that sounds like sissy play, and I suppose it was, but, that’s what they wanted to do. There wasn’t anyone else to play with, and they did let me use the boy dolls. Finally, we put on pajamas and went to bed about eleven. The girls slept at one end of the bed and I slept at the other, at their feet.
obviously they took advantage of it and asked me to massage their feet. I want to do it also, but somehow I said no. In response, Patty kicked my face with her slippered right foot and force me to massage her feet. I massaged her feet for an hour while she rest both of her slippered feet on my face and janice placed both of her feet on my chest.
One hour later, they switched their positions. This time Janice puts her both slippered feet on my face and kicked me over my nose and ordered me to massage her feet.
I was really enjoying my situation by now. I kissed my 10 year old cousin sister’s slipper sole and started to massage her both feet one by one while she was rubbing her both slipper sole all over my face for 1 hour. They asked me to polish all their shoes in the morning and I agreed.
My sleep was really light that night since I got many kicks to my face and chest by my cousin sisters that night.
Next morning, when I wake up, I did not find any of my cousins in the house. I got ready within 30 minutes and polished all shoes of both of my cousin sister’s at first. Then I walked out into the backyard but saw no one. I wondered where they had gone, but I thought it would be best if I didn’t hang around here in their own yard, so I headed for the playground two blocks away. Bertram’s Park was an old playground and not a lot of its equipment was in very good repair. It did have a lot of trees so I figured that I could hide out until supper. No sooner did I enter the Park when I heard Janice. “Hey Larry come over here; I want to talk to you,” she yelled and I could see she was standing with three other girls, none of them Patty. I cursed myself for my stupidity in coming to the park and slowly walked over to her and her friends.
“Did you get my shoes all polished for church?” she asked with that same sneering smile.
I answered, “yes I did Janice.” The other girls were now snickering. I knew one of them. It was Roberta Smith who was in my class at school. Janice introduced me to the two other girls, who were sisters.
“Larry, this is Brigitte and Becky Katzen, and you already know Roberta,” she said. “I told them how nice you were cleaning and polishing my shoes for me; Roberta said she’d like to have her shoes polished too.”
I looked down at Roberta’s feet and saw she was wearing a pair of brown leather loafers. Brigitte and Becky each had sneakers on, and so did Janice.
“You’d polish her shoes for her if I told you to, wouldn’t you?” asked Janice, “after all you’re my slave, aren’t you?”
I couldn’t believe it! She had promised not to tell if I did everything she said. Here she was, telling Roberta and two girls I’d never seen before, Brigitte and Becky, that I was her slave.
“You said you wouldn’t tell if I did what you wanted,” I stammered not knowing what else to say, and not wanting to admit that I was a slave. The minute I said it I knew the secret was out. Only her slave would say that she had promised not to tell such a thing.
“I didn’t tell; you did; now you are going to polish Roberta’s shoes or are we going to have to punish you?” Janice seemed almost to snarl as she threw this challenge in my face.
I whimpered and again felt a tear in my eye, “I’ll polish your shoes for you, Roberta.”
The girls led me to a picnic table, which they sat on, they sat on the table and their feet on the seat. Janice said, “do everything Roberta tells you to do and maybe I’ll let you serve Brigitte, and Becky too.”
Roberta was a known bitch. She yelled at boys all the time and called us dirty names. She had kicked Ron Carr in the balls because he bumped into her in the hall at school, and made her drop her books one time. Now I was going to polish her shoes; the shoes that had crippled Ron for hours at school. She looked at me, standing before her.
“Get down on your knees, at my feet and tell me what you are,” she said.
I looked at the other girls, searching for some sympathy, but there was none. I dropped to my knees before her and said, “I am your slave Mistress Roberta.”
“Polish my shoes, slave” and, as she said this, she tossed a white handkerchief on the ground. I picked it up and began rubbing the dust from her loafers. They really weren’t too dirty, but I rubbed them hard, wanting to do a good job so that she would let me stop. While I rubbed her shoes, Brigitte and Becky, who were on each side of Roberta, scooted closer to her and began putting their shoes in my face.
“Now he’s blind!” said Becky as she covered my eyes with her dirty sneaker. She wiped it on my forehead then pulled back, giggling. Brigitte pushed the toe of her sneaker against my lips and kept saying over and over again, “kiss my shoes, kiss my foot, kiss my shoes, kiss my foot.” I finally kissed it just to get her to stop. She just laughed and shoved the other shoe against my face and started over again, “kiss my foot, kiss my shoe” until I kissed that one too.
Finally Roberta’s shoes were cleaned and polished to her satisfaction. She made me kiss each one and thank her for the privilege of polishing her shoes. While I’d been busy with this task, I hadn’t noticed Patty coming up behind me with two of her friends, Maureen and Candy. Maureen was a very attractive brunette, and Candy was a little fat redhead. I shuddered when I saw them standing there while I knelt there before the four girls on the picnic table.
Patty said, “so now everyone knows that our cousin Larry is our slave; he kisses our feet whenever we tell him too, isn’t that right Larry?”
I turned on my knees to face Patty and I could see the sneer on Candy’s face and the look of disbelief on Maureen’s. “Yes Mistress Patty,” I mumbled.
“Kiss my foot, Larry the slave,” said Patty and I crawled over to her and kissed each of her feet. I remained in front of her, on my knees, head pressed to the ground.
Seven girls, Patty, Maureen, Candy, Janice, Brigitte, Becky and Roberta, heard me say I was a slave and had seen me kissing shoes. My awful secret would never remain a secret now. Soon seventy, seven hundred, girls, boys, parents, teachers! I thought the whole world would know but, in fact, I was wrong. A few other kids found out at school but, to my knowledge, no parents ever found out.
Candy said, “we came here to play soccer; do you girls want to play?”
Janice answered, “sure, we four against you three, since you’re older. Larry will be your goalie and we’ll use Scotty Hanson as our’s.” Scotty was over on the field already.
They all started jogging over, and Janice walked over in front of me, and told me to get up and follow her. I did and ran behind her to the field. Maybe I would be spared more humiliation!
Scotty and I were placed at each end of the field, in front of a very small goal area. I could see the four younger girls at the other end with Scotty, who just kept nodding his head. Patty instructed me to not let Janice and her team score, or I would be “in for it.” Candy emphasized the “in for it” and said she might clean her shoes on my face if I didn’t play “tough.” I swore to do my best, and the girls all went to the center of the field to begin playing.
Scotty and I didn’t have much to do for a while. The ball kept going back and fourth between the two teams at the center of the field, until Brigitte let fly with a long kick toward our goal. Roberta was there and heading right toward me. I could hear Patty yelling “stop her” and I got ready to block her kick. She kicked the ball hard toward me when she was only about ten feet away and I knocked it away with my hands. Before I could turn around, she was on me, kicking her polished loafer into my balls. I fell to the ground, moaning in agony, with my hands between my legs. She just laughed and said, “let that be a lesson to you, boy; don’t ever block my shots!” All the girls were laughing like it was one of the funniest things they’d ever seen.
Patty, Maureen, and Candy called time-out and came over to me. I didn’t think I could stand up for a while, so they told me to just stay on the ground while they took care of Scotty Hanson. I thought to myself, why would they take care of poor Scotty? I was the one who got kicked by Roberta!
The girls took the ball back in bounds and started heading down field. I saw Patty whisper something to Janice. Janice pulled her team aside. No one was blocking the three bigger girls as they took the ball down to Scotty. What happened next brought on one of the most horrible sights I have ever seen! Scotty Hanson was to wind up in the hospital for a week, but he never blamed the girls for this.
All three girls ran at him as hard as they could. They just left the ball in the grass. They ran right into him, and big Candy knocked him flat on the ground. I heard him scream in pain “hey, you can’t do that!” The women kicked and kicked and kicked him. Finally, they stopped, and he just lay on his stomach crying. Patty walked back to the ball and kicked it into his face. She asked, “do you think you can block my kick, Scotty?” I couldn’t hear if he answered. She kicked the ball into the goal, and she, and her teammates, walked away. Scotty tried to get up, but as he did, he could see his own team, Janice, Brigitte, Becky, and Roberta, walking towards him.
“You let them score!” yelled Janice, “now you’re in for it!” She kicked him right in the face, and the other girls joined in. Down on the ground he went! Becky and Roberta used their feet to roll him over on his back, and Brigitte planted her foot on his chest so he couldn’t move. They began kicking and he began screaming and begging them to stop.
Becky grabbed one of his arms and pinned his wrist to the ground with her foot. Janice put her foot on his other wrist, and they all stood there, watching him pinned to the ground, crying. I could see Brigitte as she moved her foot from his chest to his face, and I suppose, she was making him kiss it. Roberta walked up between his legs and stepped up on him. She appeared to be standing on his belly and balls from where I sat. Then she slowly walked up his body and stood on his chest, looking down on him. Brigitte took her foot off of his face and ran between his legs, while Roberta placed one of her feet on his face. Brigitte stepped up on him and stood on his belly and balls, while Roberta trampled his chest and face. Janice and Becky held him in place with their feet on his wrists. He was crushed beneath the feet of four girls. They just stood on him, calling him names and making him beg forgiveness while he kissed the bottom of Roberta’s shoe.
Finally, Roberta stepped off and Brigitte walked up him and placed one of her feet on his bruised face. I’m sure he was busy kissing the bottom of her shoe when she stepped off him and Janice and Becky released his wrists. They all moved around him and I could see lift their feet and tramp down on his balls and on his face. His arms and legs waved wildly, trying to shield himself, but it was all to no avail. They kicked the crap out of him and kept kicking even when he laid still. Then they began walking back toward Patty and me. Maureen and candy joined them. I found out, later, that old man Dobbins found him early that evening and called the ambulance. He had bloody cuts all over. His clothes were torn; two ribs, his right arm, and his jaw were broken. He had discovered the power of the female and was afraid of the girls (and women) for the rest of his life.
I was still on the ground holding my crotch, when all seven girls stood around me. Patty gave the orders, “you are a lowly slave to girls; you saw what we did to Scotty and we will do the same to you if you ever disobey us or if you ever think of disobeying; you are to kneel before each of us in turn, tell us what you are, and bow down before us and then lick clean our shoes. ; do you understand slave boy?”
I was overpowered. I had seen them destroy Scotty and I knew they had the power to do what ever they wanted. Another part of me actually enjoyed this; I now wanted to be their slave. I crawled on my knees to Patty and said, “yes Mistress Patty; I am your slave Mistress Patty” and I bowed down and started to lick clean the top of her shoes. Then I also lick clean both of her shoe soles with respect.. She said, “we rule the earth and this little boy is the first of thousands of slaves who will lay their lives at our feet.” I thought she must be crazy but, of course, she was right. When I complete my task, she just kicked my face twice with both of her shoed feet.
I then went to Janice and said, “I am your slave Mistress Janice” and bowed down and started to lick clean her shoe tops. Then, I show the same respect to her shoe bottoms and lick them clean while all the girls are loughing at me. When I finished, Janice kicked my face twice with her right sneakered foot and once with her left sneakered foot.
Around the circle I went. To Brigitte who moved back a baby step every time I tried to kiss her feet until she made me crawl several yards. When I lick clean her both shoes including the bottom, she kicked my face too. To Becky, who insisted on sticking the toes of her dirty sneakers inside my mouth to be sucked before I licked clean all her shoes.
To Maureen who insisted that I call her Goddess Supreme Maureen and beg to kiss her shoes before actually lick them clean. When I got to Roberta, I again said, “I am your slave Mistress Roberta” and bowed to kiss her shoes. She spat on me while I was licking clean her shoes and said by kicking my face , “and you will be my slave for the rest of your life; when we get back to school you will serve me everyday.” I shuddered, wondering what she meant by that.
Candy was last. As I knelt before her little overweight body, I could feel my own inferiority. All these girls, in fact all girls, were my superiors and I would spend the rest of my life, just as Roberta had said, as a slave. “I am your slave Mistress Candy,” I whispered and bowed down to kiss her dirty sneakers. She said, “lay on your back; I want you to just kiss and lick the bottoms of my shoes, not the tops. You are not worthy to lick clean the top of my shoes..” I did as she said and saw her foot descent to my kissing mouth. She pushed on my lips with her shoe, and I thought she might try to crush me, but she didn’t; she just pushed her shoe into my face. I kissed each dirty sneaker while looking up at her; she was obviously enjoying this. After I kissed and llicked clean every square inch of her shoe soles both shoes she, spat right in my face and walked away. “I have to go home now; see you later” and off she, and all but Patty and Janice, went.
“C’mon wimp, let’s head home,” said Patty, and I got up off the ground. My shirt and pants were stained from the grass, and I had dirt all over. They walked home ahead of me while I followed like a slave.
…to be continued…..
( Edited Version).

Advertisements

Mitch and April

( writer – unknown, hugely edited version.)

Mitch was in 12 th grade that time and this was probably going
to be the last summer that the 17-year-old would be living with his parents
because the next year he’d be went to some other city for graduation. He
planned on doing plenty of partying over the summer knowing that it would be
his last one where he just had a part time job.
His 15-year-old sister, April, was in 10 th grade
but she went to a local community school and had lived with her parents the
entire time. Mitch and April had never really gotten along – well that wasn’t
completely true. They just never really talked at all.
Mitch was your typical loud guy that loved to talk and had as many friends as
he could handle. He was out partying almost every night and he was quite the
preppy guy always wearing expensive clothes that he got from the mall. Only
things that were on his mind were drinking and meeting women,
April was nothing like him. She was a beautifull girl but was extremely quiet,
kept to herself, and did most things on her own. He was in the living room one
day watching a baseball game when he saw April walk through the room. It was
close to ninety degrees out that day but April was still wearing a tight pair
of jeans and a jean jacket.
The grungy way that April dressed really got on Mitch’s nerves. She had blond
hair that was actually nice long hair but she seemed to have it dyed with dark brown colour most of the time. She always wore one Converse sneaker in her feet with socks. She was a petite girl overall but her body was
always covered by blue jeans, hooded sweatshirts, and jean jackets.
Being a preppy, cocky guy, Mitch could not stand April’s style. Why dress in
warm clothes like that on a hot day? Why dye your hair weird colors? Why
Converse sneakers? Why spend most of the day locked in your room doing God
knows what on a nice summer day? Mitch wanted to beat some sense into April
sometimes but since she was a girl he wouldn’t do that. So he just didn’t talk
to her and she didn’t talk to him. She walked through the room without either
of them saying a word to each other.
One evening, Mitch was thinking about throughing a party for his friends. His parents were out of the town for a couple of days. So that was a perfect day for partying. But when he was calling one of his friend his sister suddenly came and said, ” there will be no party in this house anymore, or you will be in trouble. do u understand?”
As april was not that social, she hates party. Mitch knew that. But still, he did not listen to his younger sister and willing to continue what he wants to do. so, he called 2 of his friends and then switch on the TV.

He wasn’t watching TV for long at all when April walked into the room and sat
on the other end of the couch. It was very unlike her to do that and it made
Mitch extremely uncomfortable thinking about what she might have been up to.
She had blue highlights in her hair that day while she wore a dark zip up
sweatshirt, dark blue jeans that were a bit looser than the ones she normally
wore, and a pair of her Converse sneakers like usual.
Thinking that April might try to take the remote control from him to further
get back at him for the other day, Mitch brought it closer to his body to
protect it. April looked at him like she knew why he was doing it which made
April chuckle. It made Mitch blush a little bit.
Instead of making any kind of move towards Mitch, April put both of her white sneakered feet
on the table. He gave her a dirty look which she completely ignored.

What she did next completely shocked Mitch and he was completely not ready for
it. She rotated herself on the couch and then put her both sneakered feet right in Mitch’s
face. It made him furious that his brat of a little sister thought it was OK
to do that to him and he immediately grabbed her ankles.
“April, what the … ”
He began to speak but the second he started to speak April actually just
shoved her sneakered foot right in his mouth. He looked at the bratty smile of
satisfaction that was on her face and he wanted to wipe that off of her face
immediately. He grabbed at her ankles as he attempted to push her sneakered feet away.
“What am I doing?” she said to him. “Is that what you were going to ask me?
I’m going to dominate the fuck out of you.”
Mitch could feel the dirt of her sneaker soles which was now covered all of his face.
.
Determined to get her feet away from his face and not allow her to degrade him
the way she was doing, he pushed at her ankles with all of his strength. It
wasn’t that April was stronger than he was but her legs were stronger than his
arms and he couldn’t push her legs or feet away.
He definitely was trying his hardest to but he was having no luck. Meanwhile,
April started to giggle a little bit as she started to kick his face hardly over
his mouth with her right sneakered foot and just rubbed his face with the other one. She poked his forehead
with her left sneaker and then covered his nose shut with it , using
her sneakered feet to humiliate him however she could.

Mitch just continued to try to push her feet away and he could not do it no
matter how hard he tried. His frustration that he wasn’t strong enough to do
so was really getting to him. He started to slap her sneakered feet with his hands and
when he did that she slapped and kicked him in the face with her sneakered foot.
“Don’t fucking hit me” she said with a threatening smile. “If I hit you in the
nose with my shoes it’s going to hurt a lot more than if you hit my feet with
your hands so I wouldn’t recommend doing that again.”

She was definitely correct as just that one slap with her foot was enough to
make his eyes water up. He definitely realized by now that he wasn’t strong
enough to push her feet away but when he looked at her feet he realized he
definitely did not want to be smacked by them again. So April just continued
to have her way with him rubbing her sneaker soles on his face, sticking him in his
mouth, and using them to play with his face while he couldn’t do anything to
stop her.
Mitch let out a little bit of a whine of frustration that he was being
degraded to this level by his younger sister and the evil girl didn’t show any
sympathy for him whatsoever. She playfully slapped his face with her one sneakered foot
a couple of more times, not enough to hurt, but certainly enough to embarrass
him even worse.
Then she ordered him to took her shoes off of her feet. He thought it will be less painful if she kicked his face without her shoes on. So he obliged and untied her both shoes. Immediately the smell of both her blue socks hit his nose. She smiled and immediately puts her right socked foot into her elder brothers mouth!

He looked at the satisfied look on her face as she pushed her one foot in and
out of his mouth like it was totally OK to do so and he felt so extremely
helpless. He wanted to punch her leg but he saw that other foot just waiting
to smack his face hard and he didn’t want that to happen.
He did the last thing he could think of which was give her socked foot that was in
his mouth a little warning bite like he was going to bite harder if she didn’t
take it out. April didn’t look like she felt threatened by that and it looked
like it just made her angrier. She took the heel of her other foot and pushed
it right into his nose. His eyes really started watering up immediately as she
pushed her foot in there good.
“Don’t fucking bite me” she said with an extremely threatening tone that also
sounded so cool that it really frightened him. “Bite me again and I’ll kick
you in the nose as hard as I can.”
She took her foot away from his nose and it took all of his strength to not
start crying right there. Her weird younger sister was able to completely
humiliate him with her feet and there wasn’t a thing that he could do about
it. No matter what he tried to do to stop her she had an answer for it. She
was completely getting the better of him.
“Heh-heh-heh” she chuckled with satisfaction.

Now Mitch could do nothing but sit there and take it as his sister dominated
and humiliated him far worse than he ever could have imagined possible. He had
to smell and taste her socked feet as she rubbed them across his face and stuck them
in and out of his mouth. Then she kicked his face again and ordered him to take of her both socks and he did it.Now, he could feel their soft, girly texture as they
rubbed across his face and that just made it even more embarrassing.
“Kiss it” she said with an evil smile as she held the bottom of her foot right
in front of his mouth right around the highest part of the arch.
“No” he said and speaking without crying was proving to be an extremely
difficult task for him.
“Mitchell, kiss it or I’m going to do something really bad to you” she said
and he felt a tear roll down his face since he was so afraid of that
threatening voice of hers. She didn’t even have to say what the threat was
anymore. She was completely in his head and a threat that simple was enough to
scare him to do exactly what she wanted. He kissed the bottom of her foot and
she chuckled with satisfaction.
“Now lick it” she said to him and he thought about how pathetic she looked as
she just held the bottom of her foot in his face while she called out these
orders. “Start your tongue at my heel then move it all the way up until you
get to my toes.”
Mitch hesitated and April immediately pushed the bottom of that girly bare
foot of hers right in his face to show him the control she had over him. After
Mitch made some moans of displeasure April pulled her foot back away a few
inches and just held it there like she knew Mitch knew he had to do it.
And she was right. He touched his tongue right to her heel and started moving
it up her foot. He couldn’t see himself right then but he could imagine what
he looked like. He could see April looking so incredibly arrogant and he just
thought about how pathetic he looked and how in-charge she looked as he moved
his tongue up her foot tasting that bitter taste of her foot the entire time.
“Heh-heh-heh” April chuckled when he was done.
But she wasn’t done. She put the soles of both of her feet right on his face
so she had one of them on each cheek. She continued to rub them in his face
and then she stuck her toes on her right foot in his mouth again. The
experience had become too much for Mitch to handle and he just outright
started crying.
“Yeah that’s right, cry you little bitch” April said as she kept rubbing her
one foot in his face and showed no compassion for her older brother
whatsoever. “Get on the floor in front of me and lie on your back. You don’t
even deserve to sit on the same couch that I do.”
After what April had done to him already it seemed ridiculous to try to argue
with her so he got on the floor in front of the couch and lied on his back
exactly like she said. April grabbed the remote, sat comfortably on the couch,
and started flipping through the TV stations. As she did this, she put her
bare feet right on Mitch’s face. Then she took her sneakers and socks from the table and put them over her elder brother’s chest and ordered him, ‘ put my shoes back on my feet. ‘
Mitch did exactly what he was told for. He did not want to fight anymore with his sister. He took the socks and sneakers from his chest, and put them on her little sister’s feet while she watching TV .He put the socks on april’s both feet, which were still on his face. He figured that april’s sneaker sole is somewhat dirty, but he didn’t even try to protest. He put the sneaker back on his little sister’s feet , first on left foot then on the right. But he even dont try to put her shoed feet away from his face. She was sitting with her left sneakered foot on mitch’s forehead and right sneakered foot over his mouth, like a queen.
So there he lay on the ground with his sister’s sneakered feet in his face while she sat
up above him comfortably watching whatever she wanted to on TV. She didn’t pay
much attention to him although her feet did as she would gradually move them
around on his face at her leisure. At some points she would just rest them
there, other points she would rub her shoe sole in his face fairly aggressively, and
then at some points she would just randomly do things like use her sneaker sole to play with mitch’s lips. Mitch was totally helpless and after sometime, he started to crying.
April just kicked over his elder brother’s nose with her right sneakered foot, and ordered, ‘ hey slave, stop crying and stick your toungue out. ‘
mitch did that without even thinking and april immidiately start to rub her right sneaker sole over his outstreched toungue. Mitch did not even try to protest . He was lying there helplessly under his little sister’s shoed feet and swallowed all the dirt from her sneaker sole. At the same time he started to massage her left foot slowly ,which april didn’t ordered. But somehow mitch think its the right thing to do to make her happy. Though he did not have any idea why he wants her to be happy while she tourtured him.
april cleaned both of her snraker sole on her brother’s outstreched toungue, while he was massaging her feet and swallowing all the dirt from her shoe sole, like a real slave. She was very happy to see him serve her willingly.
April’s cell phone suddenly rang and she answered it. He hoped that would make her
leave him alone but although she lowered the volume on the TV when she
answered the phone she did not pull her sneakered feet away from his face. She continued
to rub them in his face as she talked to her friend. She didn’t mention what
she was doing on the phone and Mitch was at least thankful that she did not.
Mitch remained under his sister’s shoed feet as she just talked to her friend on the
phone and flipped through the TV stations for hours even though the volume was almost
all of the way down. Even though she wasn’t paying full attention to him, he
had a feeling that if he grabbed at her ankles and tried to push her feet away
that she’d slap his face with her foot again which might even draw attention
to her friend on the phone which he definitely didn’t want. So he just
continued to quietly lay there under his sister’s shoed feet while she dominated him
with them.
“Alright, I’ll talk to you later” she said to her friend on the phone and then
hung up. “And you, get up” she said to Mitch.
She slapped him in the face with her sneakered foot one more time before she pulled it
away and Mitch sat up with tear marks still on his face. The two of them
looked at each other. Mitch looked upset and humiliated. And April had a smile
on her face that looked as wicked as could be. She had dominated him beyond
belief and their summer together was just beginning.
“Get out of here” she said and she slapped him in the face with her shoed foot one
more time. Mitch did what he was told. But before that he bowed down to her sister’s shoed feet. In his knees, he touched his forehead to the toecap of her sneaker , then kissed both of her sneaker with full of respect, fear and devotion.
” You will treat me like a queen from now on, just like this way. You will do whatever I say, no matter what or in public or private. I am your owner, your queen, your goddess. You will do all of my daily tasks and clean my feet and all shoes in this way, everyday! If I kick your face hard just the way I did a little ago, you will touch your forehead to my shoed feet and thank me. Understood?”
He kissed her both sneakered feet again, ” Yes my queen. I am your servant, your slave from now on. I will treat you like a queen in front of our parents or anyone. I will do whatever you say, lick clean all your shoes. please forgive me that I don’t treat yiu like this before. But I will never do that mistake again”.
She kicked her elder brother’s face twice in response, with her sneakered feet, ” Get lost”.

Again he touched his forehead to his younger sister April’s sneakered feet and thank her for all the humiliations. .then he stood up to his feet and went to his bedroom to try to process what had just happened.
He knew that from now on he has to treat his sister like a queen and he has to serve her like this everyday, may be in front of parents or others. But, though he was humiliated, he was not in a mood of revenge! He started to believe that whatever his younger sisiter just did to him is completely right! Due to some unknown reason he started to enjoy all of his humiliation. slowly he enters his room and laid down on his bed while thinking it will be an honour to serve her younger sister April in this way everyday, even in front of their parents!

My elder sister used to treat my face as her footstool since we were child . she is 2 year elder than me and very good looking . she do it in front of everyone and as she did it since childhood it seems like normal to everyone in our house. she used to place her feet always in my face . she may wear boot, shoe , sandal, sneaker, socks or her feet may be bare. it doesn’t a matter . she placed them on my face infront of everyone. when she come back from outside she call me and sat down on a chair . i gave her a drink , open the tv for her then touch my forehead to her shoed feet .
she usually bless me by placing her shoed feet on my head . then i laid under her shoed feet and she placed her both shoe sole on my face. i started to massage her feet while she was kept rubbing her shoe sole all over my face . i kissed her shoe sole while massage her feet . i don’t know why i enjoyed to worship her like a goddess since my childhood. I loved to serve her always like a good servant . I liked to clean her cloths , clean her shoes, clean her room . I liked to prepare breakfast for her and let her use my face as her footstool while she ate.
She is my princess . Though by birth I am her brother , I always loved to think myself as her servant . my family never mind in our relationship . the only thing we do in private is licking her shoes clean , which is my favourite way to serve her .

দিদি থেকে দেবী…

১…

রবিবার দুপুরে বাবা আর মা বেড়িয়ে পরল হরিদ্বারে গুরুর আশ্রমের উদ্দেশ্যে, ফিরবে সেই শুক্রবার সকালে।  গুরু, ভক্তি এইসব আমার একদম ভাল না লাগলেও আমার যাওয়ার ইচ্ছা ছিল। বাইরে ঘোরা, নতুন জায়গা দেখা এইসব আমার বয়সে সবারই ভাল লাগে। তাই যেতে না পারায় মন খারাপ হয়ে গেল। এই কয়েকটা দিন বাড়িতে আমার দুই বছরের বড় ক্লাস ১১ এ পড়া দিদির সাথে বাড়িতেই কাটাতে হবে, আর বাবা মা বাইরে ঘুরে আসবে।

যাওয়ার আগে মা বলে গেল আমাকে , “ বাবু, দিদি যা বলে শুনবি এই কয়দিন, কোন ঝামেলা করবি না। দিদি যদি ফোন করে কোন কমপ্লেন করে আমি কার দোষ শুনব না, এসে প্রথমেই তোকে শাস্তি দেব। মনে থাকে যেন”।

তারপর দিদিকে বলল, “ তিথি, যা যা লাগার এমনিতে সবই ঘরে আছে। প্রায় এক সপ্তাহের বাজারও করা আছে। তবে কোন কারনে টাকা লাগলে আলমারির লকারে প্রায় কুড়ি হাজার টাকা আছে। তোকে আমার বিশ্বাস আছে, কোন প্রয়োজন হলে খরচ করিস। আমরা আসি তাহলে”।

এই বলে মা আর বাবা বেড়িয়ে গেল। দিদি বাবা আর মা কে এগিয়ে দিতে গেল। আমি বসার ঘরে দুঃখী মনে বসে রইলাম। দোষটা আসলে দিদির। কাল অব্দি ঠিক ছিল আমরাও যাচ্ছি। দিদি আজ সকালে মা কে ডেকে বলল ওর অনেক পড়া আছে, ও যেতে পারবে না। একটা মেয়ে একা থেকে যাবে এটা হতে পারে না, মা তাই আমাকেও যেতে দিল না। লাভের মধ্যে , আমরা থাকছি না বলে যে কাজের মাসি ঘর ঝাঁট দেয় আর বাসন মাজে তাকে এই কয়দিন আসতে বারন করেছে। ফলে এই কয়দিন এই সব কাজই আমাকেই করতে হবে। দিদি এমনিতেই কিছু কাজ করে না ঘরের, তার উপর এই কয়দিন মা ওকে ক্ষমতা দিয়ে গেছে। আমার কপাল খারাপ বুঝতে পারছিলাম।

দিদি মিনিট কুড়ির মধ্যেই ফিরে এল। নিজের স্বভাব মতো পায়ে জুতো পরেই বসার ঘরে ঢুকে আমার পাশে সোফায় বসে পরল। তারপর আমার চুলের মুঠি ধরে ঝাকিয়ে বলল, “ বসে আছিস কেন? সোমা মাসি বাসন মাজতে আসবে না এই কয়দিন জানিস তো। যা গিয়ে বাসন মেজে ফেল। তারপর উপর নিচের সব ঘর ভাল করে ঝাঁট দিয়ে মুছে ফেল”। কয়েক মাস আগে মাধ্যমিকের রেজাল্ট বেরনোর পর থেকে দিদির হম্বিতম্বি আর আমাকে শাসন করা অনেক বেড়েছে, যদিও চিরদিনই অল্প সল্প করতে ভালবাসত। আসলে দিদি মাধ্যমিকে অসাধারন রেজাল্ট করেছে, আমাদের শহরে হায়েস্ট পেয়েছে। আমাদের পরিবার ব্যাবসায়ী পরিবার, কয়েক পুরুষ ধরে আমাদের কাপড়ের ব্যবসা, পরিবারে কেউ কখনও ভাল রেজাল্ট করেনি। একেই আমার দিদিকে দেখতে ভিশন সুন্দরী, সেই নিয়ে দিদির মতো বাবা মায়েরও গর্ব আছে। তার উপর পরিবারে প্রথম কারও এত ভাল রেজাল্ট। বাবা মা দিদিকে প্রায় মাথায় করে রেখেছে এরপর থেকে। ওদিকে আমি চিরদিনই খারাপ পড়াশোনায় , ক্লাস নাইনে ওঠার পর আরও হাল খারাপ হয়েছে। দিদি সেই সুযোগে আরও শাসন বাড়িয়েছে আমার উপরে। নিজের অনেক কাজ আমার উপরে চাপিয়ে দেয়। এতদিন আমাদের উপর বাবা মায়ের হুকুম ছিল যাতে আমরা নিজেদের জামা কাচা, ইস্ত্রি করা , নিজেদের ঘর পরিষ্কার সহ নিজেদের যাবতীয় কাজ নিজেদের হাতে করি। এই আদেশের উদ্দেশ্য ছিল যাতে আমরা নিজেদের কাজ নিজে হাতে করতে শিখি। দিদি চিরদিনই নিজের কাজ আমার ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা করত। মাধ্যমিকে ভাল রেজাল্ট করার পর বাবা মায়ের অতিরিক্ত ভালবাসার সুযোগ নিয়ে দিদি এর পুরোটাই আমার ঘাড়ে চাপিয়ে দিয়েছে।  আমি প্রতিবাদ করলেও লাভ হয়নি। বাবা মা দিদির পাশেই থেকেছে।

আমি দিদির দিকে তাকিয়ে বললাম, “ আমি একা সব কাজ করব, আর তুই কি বসে আনন্দ করবি? সব একা আমি করতে পারব না”।

দিদি আমার পেটে কনুই দিয়ে একটা খোঁচা দিয়ে বলল, “ আমি যে বাবা মা কে ছেড়ে এলাম স্টেশানে, তুই গিয়েছিলি?মা যাওয়ার সময় কি বলে গিয়েছিল মনে নেই? আবার অবাধ্য হলে মা কে ফোন করে বলব কিন্তু। যা গিয়ে কাজ কর”।

আমি কি আর করি, উঠে ডাঁই করে রাখা বাসনের স্তুপ মাজতে লাগলাম এক এক করে। প্রায় ৩০-৪০ মিনিট পরে বাসন মাজা শেষ করে বসার ঘরে গিয়ে চমকে উঠলাম। দেখি দিদি আমার স্কুলে যাওয়ার ব্যাগ খুলে আমার পরীক্ষার খাতাগুলো এক এক করে দেখছে। আমাকে দেখে দিদি হাসিমুখে জোরে জোরে নাম্বার গুলো পড়তে লাগল, “ বাংলায় ১০০ তে ৩৫, ইংরেজিতে ০৯, ইতিহাসে ১২, ভূগোলে ১৫, জীবন বিজ্ঞানে ২১, ভৌতবিজ্ঞানে ১০, অংকে ০৪ ! বাহ, দারুন রেজাল্ট!! আমাদের বলিস নি কেন?”

আমি সোফায় বসা দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে হাতজোড় করে বললাম, “ প্লিজ দিদি, বাবা মা কে বল না এখন। এক সপ্তাহ পরেই তো স্কুলে পুজোর ছুটি পরে যাচ্ছে, আমি ছুটি শেষ হলে বলব। নাহলে পূজোর সময়ে বাবা মা আমাকে বাড়ি থেকে বেরোতে দেবে না। প্লিজ দিদি”।

দিদির মুখে হাসিটা চওড়া হল। এই কয়দিন সব কাজ তুই একা করবি, আমি যা বলব মেনে চলবি। নাহলে সাথে সাথে মা কে ফোন করে তার গুনধর ছেলের রেজাল্ট জানিয়ে দেব”।

“ আমি সত্যি খুব ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। আমি আলতো কর নিজের হাতের পাতা দুটো দিদির সাদা স্নিকার পরা পায়ের উপরে রেখে বললাম, “ তোমার সব কথা শুনব দিদি, প্লিজ বল না”।

আমাকে এভাবে পায়ের কাছে বসে ওকে তুমি সম্বোধন করে অনুরোধ করতে দেখে দিদি বলল, “ ঠিক আছে। তুই আমাকে মেনে চললে আমিও বলব না। নে, আমার পা থেকে জুতোটা খুলে দিয়ে রেখে আয় আর আমার ঘরে পরার একটা চটি নিয়ে আয়। তারপর উপর নিচের সব ঘর ঝাঁট দিয়ে মুছে ফেল”।

আমি কি আর করি, দিদির পায়ের কাছে বসে থাকা অবস্থায় ওর পা থেকে সাদা মোজা আর স্নিকার খুলে জুতোর র‍্যাকে রেখে এলাম। তারপর দিদির ঘরে পরার চটিটা এনে আবার দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে  বসে দিদির পায়ে নীল চটিটা পরিয়ে দিলাম।

“ টিভির রিমোটটা এনে আমার হাতে দে। তারপর কাজে লেগে পর বসে না থেকে”, দিদি হুকুম করল আমাকে। আমি টিভির রিমোট এনে দিদির হাতে দিয়ে ঝাঁটা হাতে উপর তলায় চলে এলাম। এই কটা দিন যে আমার কপালে শনি নাচছে ভাল করেই বুঝতে পারলাম।

উপর তলায় এখন টয়লেট ছাড়া মোট তিনটে ঘর। একটা আমাদের দুজনের স্টাডি রুম, অনেক বড় হলঘর এটা। দিদি ভাল রেজাল্ট করার পর বাবা কম্পিউটার বসিয়ে দিয়েছে। ঘরটা এসি। পাশের দিদির ঘরটাও অনেক বড় । এই রুমে দিদির নিজের টিভি, ল্যাপটপ সবই আছে। নিজের দামী মোবাইল ও আছে দিদির। এই ঘরটাতে দামী খাট, চেয়ারও আছে, এই ঘরটাও এসি। এর পাশে নিচের গ্যারেজের উপরের ছোট্টো ঘরটা আমার । মেঝে থেকে আমার ঘরের ছাদের উচ্চতা  মাত্র ৭ ফুট, ঘরটাও মাত্র ১০ ফুট বাই ৮ ফুট, দিদির ঘরের মাত্র ৩ ভাগের একভাগ আয়তনে। এসি তো দূর ঘরে একটা চেয়ারও নেই। ছাদ নিচু হওয়ায় সিলিং ফ্যানও নেই। মেঝেতে বিছানা করে টেবিল ফ্যান চালিয়ে শুতে হয় এই গুমোট ঘরে। দিদি আরামার সৌভাগ্যের এত পার্থক্যের কারন সেই পড়াশোনা। বাবা বলে তুইও ভাল রেজাল্ট কর, তোকেও দিদির মতো সব দেব। না করলে এরকম কষ্টেই থাকতে হবে তোকে।

এমনিতেও উপরে সোমা মাসি ঝাঁট দিতে আসে না। দায়িত্বটা আমার আর দিদির ভাগ করার কথা ছিল। কিন্তু ভাল ছাত্রী হওয়াতে দিদি নিজের ঘাড় থেকে দায়িত্বটা আমার ঘাড়ে চাপিয়ে দিতে পেরেছে। আর এই কয়দিন তো ঘরের সব কাজের দায়িত্বই আমার। আমি এক এক করে সব ঘরে ঝাঁট দিয়ে নিচে এলাম। নিচে এসে দেখি দিদি তখনও মন দিয়ে টিভি দেখছে। আমাকে কাজ করতে দেখে আমার দিকে তাকিয়ে দিদি মিটিমিট হাসতে লাগল।

দুতলা অসম্পুর্ন হওয়ায় ঘর কম, একতলায় মোট ৫ টা ঘর, সাথে রান্নাঘর ও টয়লেট তো আছেই। আমি এক এক করে সব ঘরে ঝাঁট দিতে লাগলাম। ঝাঁট দেওয়া শেষ করে দিদিকে জিজ্ঞাসা করলাম , “ রোজ সব ঘর না মুছলে হয়না দিদি? অনেক কাজ তো করলাম আজ”।

দিদি মুখে হাসি ঝুলিয়ে বলল, “ ঠিক আছে মুছিস না। আমি বরং মা কে একটা ফোন করি”।

দিদি আমাকে ডমিনেট করে আনন্দ পাচ্ছে বুঝতে পারছিলাম। আমি সাথে সাথে বললাম, “ সরি দিদি, আমি এখুনি মুছছি”।

উপর নিচের সব ঘর মোছা শেষ করে আমি নিচে এসে দেখি দিদি টিভি দেখতে দেখতে কার সাথে ফোনে গল্প করছে। ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখি বিকেল চারটে বাজে। আমি গত দুই ঘন্টা ধরে খাটছি আর দিদি নিজের ক্ষমতা ব্যবহার করে আরামজ করছে ভাবতে দিদিকে একটু ঈর্শা হতে লাগল। আমি দিদির দিকে তাকালাম। দিদি নিজের দামী আইফোনটা কানে ধরে কোন বন্ধুর সাথে গল্প করছে। দিদির পরনে নীল-সবুজ চুড়িদার, পায়ে নীল চটি। আমার ফর্শা দিদি তিথিকে সব সময়ের মতই অপরুপা সুন্দরী লাগছে। তার উপর দিদি পড়াশোনাতেও এত ভাল! দিদির উপর সত্যিই কি হিংসা করা উচিত আমার? দিদি সব দিক থেকেই আমার চেয়ে অনেক উপরে। এইটুকু আরাম করার অধিকার তো থাকতেই পারে দিদির!

কিরকম ঘোরের মধ্যে চলে গিয়েছিলাম আমি। একটু পরেই ঘোর কাটতে নিজেই অবাক হয়ে গেলাম আমি। দিদি নিজের ক্ষমতা কাজে লাগিয়ে আমাকে খাটাচ্ছে সে এক ব্যাপার। কিন্তু আমি সেটাকে স্বাভাবিক বলে ব্যাখ্যা করতে চাইছি কেন? হল কি আমার?

“ওই ছেলে, চুপ করে দাঁড়িয়ে থাকলে চলবে? উপরে গিওয়ে আমার রুম আর স্টাডি রুমটা ভাল করে গুছিয়ে ফেল। তারপর বিকালের টিফিন বানিয়ে পরতে বস। সময় মতো উঠে রাতের রান্না করে নিস তোর জন্য। আমি বাইরে খাবার অর্ডার দেব নিজের”।

আমি আর তর্ক করলাম না। দিদির রুমে উঠে দিদির অগোছাল রুম গোছাতে শুরু করলাম। তারপর স্টাডি রুম গোছাতে গোছাতে প্রায় সাড়ে পাঁচটা বাজল। আমি নিচে গিয়ে টিফিন বানিয়ে নিজে খেলাম, দিদিকেও দিলাম। দিদি তারপর নিজের রুমে বসে ল্যাপটপ খুলে বন্ধুদের সাথে চ্যাট করতে লাগল। আর আমি স্টাডি রুমে বসে পড়তে লাগলাম। পড়াশোনা না করার জন্যই আজ বাবা মা দিদিকে আমার থেকে এত বেশি অধিকার দিয়েছে আর দিদি আমাকে ইচ্ছামত খাটাতে পারছে। ঠিক করলাম এবার থেকে ভাল করে পড়তে হবে। রাত সাড়ে নটায় উঠে নিজের জন্য সিদ্ধ ভাত বসালাম। একটু পরে দিদির জন্য রেস্টুরেন্ট থেকে প্যাকেট করা খাবার দিয়ে গেল। আমি যখন রাতে সিদ্ধ ভাত নিয়ে বসলাম, দিদি আমার উল্টোদিকে বসে আমাকে দেখিয়ে দেখিয়ে ফ্রায়েড রাইস আর চিলি চিকেন খেতে লাগল। খাওয়া শেষ করে আমি আবার সব বাসন মেজে রাখলাম। তারপর নিজের ঘরে গিয়ে গুমোট ছোট্টো নিচু ঘরে গিয়ে মেঝেতে পাতা বিছানায় টেবিল ফ্যান চালিয়ে শুয়ে পড়লাম। দিদি তখন নিজের ঘরে এসি চালিয়ে আরাম করে শুয়ে বক্সে হাই ভলিউমে গান শুনছে।

পরের তিনদিন আমার ভয়ানক কষ্টে কাটল। সারাদিনে এক মিনিটও ফ্রি টাইম পেতাম না। সকালে উঠে ঘর ঝাঁট দেওয়া, মোছা, বাসন মাজা, রান্না করা সামলে স্কুলে যেতে হত। বিকালে স্কুল থেকে ফেরার পর দিদি কিছু না কিছু কাজ বার করে আমাকে ধরিয়ে দিত। দিদি মা কে আমার রেজাল্টের কথা বলে দেবে বলার পর আমি এতটাই ভয় পেয়েছিলাম, তারপর থেকে আমাকে আর ভয়ও দেখাতে হত না দিদিকে। আমি স্বেচ্ছায় সব কাজ করে দিতাম প্রায়। ঘর গোছানো থেকে জামা কাচা সবই দিদি আমাকে দিয়ে করাত।

দিদি ক্রমে নিজের সব কাজই আমার ঘাড়ে চাপাতে লাগল। প্র্যাকটিক্যল খাতা কপি করানো থেকে দিদিকে খাবার সার্ভ করা সবই আমি বিনা প্রতিবাদে করতে লাগলাম। এমনকি দিদি বাইরে যাওয়ার সময় দিদির পায়ে মোজা জুতো পরিয়ে দেওয়া আর বাইরে থেকে ফিরলে পা থেকে মোজা জুতো খুলে দেওয়ার দায়িত্বও আমার উপরে পরল। এমনকি দিদির প্রতিটা জুতো পালিশ করে চকচকে করে রাখার দায়িত্বও দিদি স্বচ্ছন্দে আমার ঘাড়ে চাপিয়ে দিল। আমি কিরকম অবাক হয়ে যাচ্ছিলাম নিজেকে দেখেই, সব কাজ এমনভাবে করছিলাম যেন আমি দিদির চাকর।

 

২…

 

বৃহস্পতিবার সকালে উঠেই দিদি আমাকে বলল ,” আজ স্কুল যেতে হবে না, আমি বাড়িতে পার্টি দিয়েছি। পৃথা, সোহিনী আর সুনন্দা আসবে। তুই বাড়িতে থেকে আমাদের সার্ভ করবি সারাদিন।

দিদি আমাকে চাকরের মতো ব্যবহার করছে বুঝেও আমার ভিতর থেকে কোন প্রতিবাদ এল না। আমি ঘাড় নেড়ে বললাম, “ ঠিক আছে দিদি। তুমি যা বলবে তাই করব”। দিদির মুখের মুচকি হাসি বুঝিয়ে দিচ্ছিল ভাইয়ের এই চাকরের মতো আচরন ও খুব এঞ্জয় করছে”।

সারাদিন তুমুল পার্টি চালাল ওরা। বক্স থাকা সত্বেও আরও ভাল সাউন্ড বক্স ভাড়া করল। রেস্টুরেন্ট থেকে ভাল খাবার এল। ওরা সবাই জুতো পরা পায়েই তুমুল হুল্লোর করল স্টাডি রুম ফাকা করে। আমি দরজার সামনে দাঁড়িয়ে ছিলাম পুরো সময়। মাঝে মাঝেই ওরা কেউ স্ন্যাক বা কোল্ড ড্রিংক্স চাইছিল। আমি ঠিক চাকরের মতো ছুটে গিয়ে সেটা এনে ওদের হাতে দিচ্ছিলাম। দুপুরে ওদের জন্য রেস্টুরেন্টের দামী খাবার সার্ভ করলাম। অথচ আমাকে তা থেকে একটুও ভাগ দিল না। আমাকে সেই তাড়াতাড়ি সেদ্ধভাত করে খেতে হল। সন্ধ্যায় ওদের অর্ডার মতো এক প্যাকেট সিগারেট আর কয়েকটা বিয়ারের বোতলও আনতে হল। সারা সন্ধ্যা ওদের ফাই ফরমাশ মত এটা ওটা এনে দিতে হচ্ছিল। সন্ধ্যার পর ওদের সবার পা থেকে জুতো খুলে ঘরে পরার চটি পরিয়ে দিলাম ওদের পায়ে। রাত একটা অব্দি ওদের পার্টি চলল। ততক্ষন চাকরের মতো ওদের ফাই ফরমাশ খাটার পর নিচে গিয়ে সকালের করা সিদ্ধভাত খেয়ে নিজের ছোট্ট গুমোট ঘরে ঢুকে মনে পরল আমার টেবিল ফ্যানটাও দিদির আদেশে স্টাডি রুমে দিয়ে এসেছিলাম।  নিচে গিয়ে শুতে সাহস হল না। কি জানি, রাতে যদি দিদিদের কিছু প্রয়োজন হয়! আমি গুমোট গরমে নিজের মেঝেতে পাতা বিছানায় এসে শুলাম। দিদি আর তার বান্ধবীরা তখন সারাদিন পার্টিতে হৈ হুল্লোর করে পাশের দুটো ঘরে এসি চালিয়ে নরম গদিতে শুয়ে ঘুমাচ্ছে। আর আমি? গুমোট গরম ঘরে একটা ফ্যানও জোটেনি আমার !! গুমোট গরমে রাতে আমার ঘুম বারবার ভেঙ্গে যাচ্ছিল। আধো ঘুমের মধ্যে বারবার সারাদিন দিদিদের চাকরের মতো খাটার কথা মনে পরে যাচ্ছিল। যত ভাবছিলাম দিদির আমাকে চাকরের মতো ব্যবহারের কথা, দিদির আরামে থাকা আর আমার ভয়ানক কষ্টে থাকা, কিরকম এক নেশাচ্ছন্ন হয়ে পড়ছিলাম আমি। মনকে বারবার যেন বোঝাতে চাইছিলাম আমাকে এইভাবে ব্যবহার করার সম্পুর্ন অধিকার দিদির আছে। আমি কি সত্যিই দিদির হাতে এইভাবে ব্যবহৃত হওয়া এঞ্জয় করতে শুরু করেছি?

সকালের দিকে একটা অদ্ভুত স্বপ্ন দেখলাম। দিদি বসার ঘরের মেঝেতে ফেলে আমার মুখের উপর পা রেখে দাঁড়িয়ে আছে। দিদির পরনে স্কুলের সাদা জামা, সবুজ স্কার্ট। পায়ে সাদা মোজা আর স্নিকার। মা বলছে, লাথি মার ভাইকে, মেরে মেরে ওর মুখ ভেঙ্গে দে। দিদিও তাই শুনে আমার মুখের উপর জুতো পরা দুই পা দিয়ে একের পর এক লাথি মারতে লাগল। আমার মুখে অবশ্য যন্ত্রনা হচ্ছে, মনে হচ্ছে নাকটা ভেঙ্গে যাবে দিদির লাথি খেয়ে। আমি দিদির জুতো পরা পা জড়িয়ে ধরে ক্ষমা চাইতে লাগলাম দিদির কাছে। কিন্তু দিদি বা মা কেউই আমাকে ক্ষমা করছে না, দিদি একের পর এক লাথি মেরেই যাচ্ছে আমার মুখের উপরে জুতো পরা পা দিয়ে।

“ এই ছেলে, ওঠ । আরাম করে ঘুমাচ্ছিস নিজে, আমাদের টিফিন বানাতে হবে খেয়াল নেই?” দিদির গলার আওয়াজ শুনে স্বপ্ন ভেঙ্গে চোখ মেললাম। তাকিয়ে দেখি দিদি আমার মাথার কাছে এসে দাড়িয়েছে। মেঝেতে শোয়া আমার গালটার উপরে চটি পরা ডান পা দিয়ে টোকা দিয়ে আমাকে ডাকছে দিদি।

“ সরি দিদি, আমি এখুনি গিয়ে টিফিন বানিয়ে দিচ্ছি তোমাদের”। আমি দিদি ডান পা টা দুই হাত দিয়ে ধরে বললাম, তারপর উঠে বসলাম।

দিদি কোমরে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে বলল, “ তাড়াতাড়ি। তোর জন্য আমরা খালি পেটে বসে থাকতে পারব না”। দিদি এমনভাবে বলছিল যেন আমি সত্যিই ওর ভাই না, চাকর। দিদির মুখের হাসি বুঝিয়ে দিচ্ছিল ছোট ভাইকে চাকরের মতো ব্যবহার করা ও কতটা এঞ্জয় করছে।

আমি বোধহয় তারচেয়েও বেশি এঞ্জয় করছি দিদির হাতে এই ডমিনেশন। কেন আমি নিজেও জানিনা। আমার সত্যিই মনে হচ্ছে যেন আমার সুন্দরী মেধাবী দিদিকে বাবা মায়ের সামনে চাকরের মতো সেবা করতে পারলে আমি আর কিছু চাই না। আর যে স্বপ্নটা দেখলাম সেটা যদি সত্যি হয়? মায়ের সামনে যদি কোনদিন  দিদি ওইভাবে জুতো পরা পায়ে লাথি মারে আমার মুখে? কি যে হয়েছে আমার নিজেও জানি না। দিদির সেবা করার চিন্তা, দিদির হাতে অত্যাচারিত হওয়ার চিন্তা এত আনন্দ দিচ্ছে কেন আমাকে?

আর দিদি তো সত্যিই আজ চটি পরা পা দিয়ে মেঝেতে শোয়া আমার গালে টোকা দিচ্ছিল। ভাবতেই যেন নিজের দেহের কোষে কোষে কি এক অনাবিল সুখের স্রোত টের পাচ্ছিলাম যেন।

আমি বেসিনের আয়নার সামনে এসে দাঁড়ালাম মুখ ধোওয়ার জন্য। কিন্তু একি দেখছি আমি? নিজের চোখকেও বিশ্বাস হচ্ছে না আমার। আমার ঠোঁট, নাক আর কপালের উপর দিদির চটির তলার ছাপ স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে যে! দিদি কি তাহলে আমার গালে শুধু চটি পরা পা দিয়ে টোকাই মারে নি, ভোররাতের পর গাঢ় ঘুমে আচ্ছন্ন হওয়া আমার ঘুমের সুযোগ নিয়ে মুখের উপর এত জোরে নিজের চটির তলা ঘসেছে যে আমার মুখের উপর দিদির চটির তলার ছাপ পরে গেছে? নাকি দেয়াল ধরে আমার মুখের উপর চটি পরা পায়ে উঠে দাড়িয়েই পড়েছিল দিদি? সেরকমই তো মনে হচ্ছে। দুটো আলাদা চটির তলা দাগ  স্পস্টই দেখা যাচ্ছে আমার মুখের উপরে, একটা নাক আর ঠোঁটের উপরে, অন্যটা কপালের উপরে। দিদি তাহলে সত্যিই গাঢ় ঘুমে আচ্ছন্ন আমার মুখের উপর চটি পরা পায়ে উঠে দাঁড়িয়েছিলো আমার ঘুমের সুযোগ নিয়ে। আর ঘুমে আচ্ছন্ন অবস্থায় মুখের উপর সেই ব্যথার অনুভুতিকে স্বপ্ন অন্যভাবে ব্যখ্যা করিয়ে আমাকে দেখাচ্ছিল দিদি মায়ের সামনেই আমার মুখের উপরে জুতো পরা পায়ে জোরে জোরে লাথি মারছে। উফ, দিদি আমার মুখের উপর চটির তলা ঘসছিল, আমার মুখের উপর চটি পরা পায়ে আমার মুখের উপর উঠে দাঁড়িয়েছিলো  ভাবতেই আমার কোষে কোষে আনন্দের ঢেউ উঠতে লাগল যেন। ঠিকই তো করেছিল দিদি। আমার জায়গা তো আমার দিদির জুতোর তলাতেই! কিন্তু আমার ঘুম ভাংতেই দিদি আমার মুখ থেকে নেমে দাড়াল কেন? জেগে থাকা অবস্থায় সবার সামনেই আমার সাথে এরকম করতে পারে তো দিদি। দিদি কি ভাবে আমি বাধা দেব? ছি, দিদি আমার প্রভু হয়, আমাকে নিয়ে যা খুশি করতে পারে দিদি। আমার মনে আর কোন দ্বন্দও কাজ করছিল না যেন। আমি যেন শুধু দিদির চাকর না, মনে মনে দিদির দাস হয়ে গিয়েছিলাম। আমি মনে মনে শুধু ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনা করতে লাগলাম যাতে ঘুমের মধ্যে দিদি যেভাবে আমার মুখের উপর চটি পরা পায়ে উঠে দাঁড়িয়েছিলো, সেরকম যেন সবার সামনেই করে আমার জেগে থাকা অবস্থাতেই।

আমি দিদিদের জন্য টিফিন প্রস্তুত করে স্টাডি রুমে গিয়ে ওদের হাতে টিফিন তুলে দিলাম। তারপর ফ্রেশ হয়ে রান্না বসালাম। দিদির বান্ধবীরা টিফিন করে বাড়ি চলে গেল। দিদি খেয়ে নিয়ে স্কুলে চলে গেল। আমিই দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে দিদির পায়ে জুতো মোজা পরিয়ে দিলাম। দিদি বেরিয়ে যাওয়ার পরই ল্যান্ডলাইনে ফোন এল। মা ,বাবা গুরুকে নিয়ে আধ ঘন্টার মধ্যে স্টেশনে পৌছাবে। আমি যেন আনতে যাই। আমার খেয়াল হল স্টাডি রুমের অবস্থা দিদিরা ভিশন খারাপ করে রেখেছে। কিন্তু তখন আর গোছানোর সময় নেই। আমি শুধু বিয়ারের বোতল তিনটে ফেলে দিয়ে রেডি হয়ে স্টেশনের দিকে চললাম মা বাবা আর গুরুকে নিয়ে আসতে।

 

৩…

 

স্টেশান থেকে যখন বাবা মা আর গুরুকে নিয়ে ফিরলাম তখন বেলা প্রায় ১২ টা। এতদিন যে বয়স্ক গুরুকে বাড়িতে আসতে দেখেছি তিনি নাকি বয়সজনিত কারনে খুব অসুস্থ। যিনি এসেছেন তিনি তার ছেলে, দেখে মনে হয় বছর ৩৫ বয়স। পারিবারিক ঐতিহ্যে ইনিই এখন আমাদের বাড়ির গুরু হবেন, পরামর্শ দেবেন বাবাকে। ইনাকে আমার আগের গুরুর মতো খারাপ লাগল না। ইনি অনেক হাসিখুশি স্বাভাবিক মানুষ।

বাড়ি পৌছেই মা বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত হয়ে পরল, বাবা একটু বেরলো ব্যবসার কাজে। দুপুরে মা গুরুর কাছে অভিযোগ করল, “ আমার ছেলেটা দিন দিন খারাপ হয়ে যাচ্ছে গুরুদেব। আমার মেয়েটা এত ভাল, অথচ ছেলেটা ওর দিদিকে দেখে কিছুই শিখল না। পড়াশোনা করে না, বদ্মাইশি করে বেড়ায়। দেব-দেবীতে ভক্তি নেই। সরস্বতী পুজোর সময় বলে দেবীর মুর্তি দেখে ওর প্রানে ভক্তি জাগে না। আপনি এঁকে মানুষ করার উপায় বলুন গুরুদেব, বড় চিন্তায় আছি”।

গুরু হেসে বলল, “ চিন্তা কোর না। আমি আছি, ঠিক একটা ব্যবস্থা করব। এই বয়সে এরকম হয়। আর মুর্তি দেখেই ভক্তি জাগতে হবে এরকম কোন নিয়ম নেই। দেবীর উপস্থিতি উপলব্ধি করার জন্যই তো দেবী মুর্তির কল্পনা। দেখতে হবে  কি বা কাকে দেখে ওর প্রানে ভক্তি জাগে। তারপর সেটাকে সঠিকভাবে ব্যবহার করলেই ও দেবী সরস্বতীর মাহাত্ম অনুভব করতে পারবে, পড়াশোনায় মন বসবে, স্বভাবও শান্ত হবে। আমি তো আছি, ওর সাথে ভাল করে পরে কথা বলে দেখব ওর সমস্যা কি”।

গুরুর কথা শুনেই আমার দেহের মধ্যে যেন বিদ্যুৎ খেলে গেল। সত্যি, দেবী সরস্বতীর মুর্তি দেখে আমার প্রানে ভক্তি জাগে না, কিন্তু আমার সুন্দরী দিদিকে দেখে জাগে। দিদিকে কোন দেবী আর নিজেকে দিদির ভক্ত মনে হয়। মনে হয় সবার সামনে দিদির পায়ের উপর মাথা রেখে শুয়ে থাকি, দিদির নরম পায়ের পাতায় চুম্বন করে আশির্বাদ প্রার্থনা করি”।

বাকি দিনটা স্বাভাবিক নিয়মেই কাটল। দিদি বিকালে স্কুল থেকে ফিরল, তারপর আবার আগের মতো টিফিন করেই পড়তে বসে গেল। আমিও একটু পড়ার চেষ্টা করলাম। রাতে গুরু কিসের একটা যজ্ঞ করবে, তার প্রস্তুতিতে মা কে সাহায্য করলাম।

ঝামেলা বাধল রাত ৯ টার দিকে। কি একটা আনার জন্য টাকা বের করতে গিয়ে মা দেখল লকারে মাত্র ৩০০ টাকা পরে আছে। রবিবার আমাদের দুজনকে রেখে বেড়াতে যাওয়ার আগে লকারে মা ২০০০০ টাকা রেখে গিয়েছিল। মা আকাশ থেকে পরল তাই দেখে। আমাকে আগে সামনে পেয়ে  জিজ্ঞাসা করল,” ৫ দিনে তোরা ২০০০০ টাকা খরচ করলি কি করে? কি করেছিস টাকা দিয়ে?”

আমি দিদিকে দোষ দিতে চাইনি, কিন্তু নর্মাল রিফ্লেক্সে আমার মুখ দিয়ে বেড়িয়ে গেল, “ আমি তো এক টাকাও ধরিনি মা। আলমারির চাবি কোথায় রেখেছিলে তুমি তাই জানি না আমি”।

মা ভুরু কুঁচকে বলল, “ চল উপরে তোর দিদিকে জিজ্ঞাসা করি”।

ভয়ে আমার বুক ধুকধুক করছিল। দিদির এই কয়দিন রোজ রেস্টুরেন্টে দামীদামী খাওয়া, পার্টি করার টাকা কোথা থেকে এসেছে আমি বুঝতে পারছিলাম। বুধবার দিন দিদি তো অনেক কিছু শপিং ও করে এনেছিল।

মা দিদিকে টাকার কথা জিজ্ঞাসা করতেই দিদি ঠোঁট উলটে এমন ভাব করল যেন মা কি বলছে কিছুই বুঝতে পারছে না। তারপর দিদি বলল, “ ঘরে তো সব বাজারই করা ছিল। আমি একবারও আলমারি খুলিনি। তবে ভাইকে রোজই দেখেছি ঘরের খাবার না খেয়ে বাইরের রেস্টুরেন্ট থেকে খাবার আনিয়ে খেতে। ভাই তো কাল অনেক বন্ধু এনে ঘরে পার্টিও দিয়েছিল। ওই বলতে পারবে, কত টাকা সরিয়েছে আলমারি থেকে”।

দিদির এই কথায় আমি হতভম্ব হয়ে গেলাম। দিদিকে আমি মনে প্রানে দেবীর মতো শ্রদ্ধা করি এখন, দিদি আমার উপর নিজের অপরাধের দায় নিশ্চয়ই চাপাতে পারে, সেই অধিকার দিদির আছে। কিন্তু মায়ের প্রশ্নের জবাবে কি বলব, কিভাবে পরিস্থিতে সামলাব বুঝতে পারছিলাম না। মা- বাবা- দিদি এরপর একসাথে যখন আক্রমন করবে তখন কি করব বুঝতে না পেরে বলে ফেললাম, “ না মা, আমি এসব কিছু করিনি”।

“ দিদি খাট থেকে নেমে মায়ের সামনেই আমার বাঁ গালে ডাব হাত দিয়ে বেশ জোরে একটা থাপ্পর মেরে বলল, “ কি , আমি মিথ্যা বলছি? ঠিক আছে মা, তাহলে তোমার গুনধর ছেলের কির্তী নিজেই দেখে যাও” এই বলে মাকে নিয়ে স্টাডি রুমে আসল। আমিও মা আর দিদির পিছু পিছু এলাম।

এই দেখ মা, কাল এই ঘরে ভাই পার্টি করেছিল। এখনও মেঝেতে খাবারের টুকর পরে আছে দেখ। এই দেখ, সিগারেটের ছাই আর ফিল্টারও আছে। আর এই গ্লাস গুলো দেখ, শুঁকলেই বুঝতে পারবে এতে করে কি খেয়েছে। তোমার গুনধর ছেলে এই বয়সেই বন্ধুদের নিয়ে পার্টি করছে, মদ সিগারেট খাচ্ছে। এবার ওর ঘরে আস, আরেকটা জিনিস দেখাই”।

এই বলে দিদি মা কে নিয়ে আমার ঘরে এল। আমার স্কুল ব্যাগ খুলে পরীক্ষার খাতাগুলো বের করে মা কে বলল,” ওর যে রেজাল্ট বেড়িয়েছে স্কুলে সেটা কাউকে বলেনি। স্বভাব তো গেছেই, এবার কিরকম নাম্বার পেয়েছে দেখ। বাংলায় ১০০ তে ৩৫, ইংরেজিতে ০৯, ইতিহাসে ১২, ভূগোলে ১৫, জীবন বিজ্ঞানে ২১, ভৌতবিজ্ঞানে ১০, অংকে ০৪ । এবার টাকা কে কেন সরিয়েছে বুঝতে পারছ নিশ্চয়ই। এই বয়সেই যত অধঃপতনে যাওয়া সম্ভব ও চলে গিয়েছে। কি করে সামলাবে ওকে এখনই ভাব মা। আমাকে দায়িত্ব দিলে চাবকে সোজা করে দেব ভাইকে”।

দিদির কথায় আমি চমকে উঠছিলাম। পরীক্ষার নম্বর এখন মা বাবাকে বলবে না সেই শর্তে এই কয়দিন সম্পুর্ন চাকরের মতো আমি দিদির সেবা করলাম। আর তার পরও সেটা মা কে বলে দিল দিদি! এমনকি , নিজে আলমারি থেকে টাকা সরিয়ে যা যা করেছে সব দোষ আমার ঘাড়ে চাপিয়ে দিল। আমি বুঝতে পারছিলাম ভয়ানক শাস্তির খাড়া নেমে আসতে চলেছে আমার উপরে। কিন্তু আমার উপরে আমার সুন্দরী ২ বছরের বড় দিদির নিষ্ঠুরতা কোন এক অজ্ঞাত কারনে ভয়ানক ভাল লাগছিল আমার। মনে মনে নিজেকে ধিক্কার দিলাম প্রথমে দোষ অস্বীকার করায়। ঠিক করলাম আমার যাই শাস্তি হোক, সব শাস্তি আমি মাথা পেতে নেব। দিদির করা অপরাধের শাস্তি আমি পাব ভাবতেও কেন যেন অদ্ভুত আনন্দ হচ্ছিল।

মার মুখ থমথমে হয়ে গিয়েছিল রাগে, বুঝতে পারছিলাম ভয়ানক কিছু আসতে চলেছে প্রতিক্রিয়ায়। তখনই বাবা নিচ থেকে ডাক দিল। যজ্ঞের সময় হয়ে এসেছে প্রায়। আয়োজন সম্পুর্ন করতে হবে।

মা আমার দিকে তাকিয়ে গম্ভীর গলায় বলল, “ তোর শাস্তি পরে হবে। এখন চল, যজ্ঞের কাজ সাহায্য করবি”।

যজ্ঞ শেষ হতে রাত প্রায় দেড়টা বাজল। ফলে তখন আর আমার শাস্তি নিয়ে আলোচনা হল না বেশি, শুধু বাবা মাকে বলল কাল সকালে গুরুর সাথে কথা বলতে কি করে আমাকে ঠিক পথে আনা যায়। আমি ভয়ে ভয়ে উপরে এসে আমার ঘরে শুয়ে পরলাম। আজও টেবিল ফ্যানটা আনা হয়নি পাশের ঘর থেকে। আমি সেই ভ্যাবসা গরমেই মনে ভয়ানক ভয় নিয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করতে লাগলাম। আর আমার সুন্দরী দিদি নিজের সব অপরাধের দায় আমার উপরে চাপিয়ে এসি ঘরে তার অনেক আগে থেকেই আরাম করে ঘুমাচ্ছিল।

ভোররাতে স্বপ্নে দেখলাম গুরু আমাকে জিজ্ঞাসা করছেন , “ সরস্বতী্ মূর্তি দেখলে তোমার মনে ভক্তি জাগে না?”

“না”, আমি বললাম।

“ কি দেখলে ভক্তি জাগে তাহলে”।

আমি বললাম, “ আমার দিদি তিথিকে । দিদিকে দেখলেই মনে হয় স্বয়ং দেবী সরস্বতী। তাই দিদির এত রুপ, এত ভাল পড়াশোনায়। দিদিকে দেখলেই ভক্তিতে দিদির পায়ের উপর মাথা নামিয়ে দিতে ইচ্ছা করে”।

“ তাহলে তোমার দিদিকেই দেবী রুপে ভক্তিভরে পুজা কর এখন থেকে, এতেই তোমার উন্নতি হবে”।

তারপর দেখলাম দিদি শাড়ি পরে খালি পায়ে একটা চেয়ারে বসে আছে দেবী সরস্বতী রুপে। আমি মন্ত্র পরে দিদিকে পুজা করছি দেবী সরস্বতী রুপে মা বাবার সামনেই। তারপর দিদির পা দুটো হাতের পাতায় রেখে তার উপর নিজের মাথাটা নামিয়ে দিলাম আমি। সুন্দরী দিদির নরম ফর্শা পায়ের পাতায় কপালটা ঘসতে লাগলাম , বারবার দিদির পায়ের পাতায় চুম্বন করতে লাগলাম ভক্তিভরে। জবাবে দিদি নিজের পা দুটো আমার মাথার উপরে রেখে আমাকে আশির্বাদ করল দেবীর মতো।

উফ, কি অদ্ভুত নেশা এই স্বপ্নে। আমি আরও গভীর ঘুমে তলিয়ে গেলাম স্বন দেখতে দেখতে।

ঘুমা ভাঙল মুখের উপর শক্ত কোন কিছুর স্পর্শে । চোখ খুলে দেখি কালকের মতো দিদি আমার মাথার পাশে দাঁড়িয়ে আছে। দিদির পরনে কাল টি শার্ট আর ধুসর বারমুডা, পায়ে নীল চটি। দিদি চটি পরা ডান পায়ের তলাটা আমার মুখের উপর ঘসছিল বেশ জোরে। আমি জাগার পরেও কয়েক সেকেন্ড আমার মুখের উপর চটির তলাটা ঘসা চালিয়ে গেল দিদি। তারপর, আমি জেগে চোখ খুলেছি বুঝতে পেরে আমার মুখের উপর থেকে চটি পরা ডান পা টা সরিয়ে দিদি বলল, “ কাল তুই মাকে বললি কেন টাকা তুই নিসনি? এখন থেকে আমার সব অপরাধের দায় নিজে থেকে মাথা পেতে নিবি তুই। আর কাল আমি যা বলেছি মা কে তুইও সেটাই বলবি। সত্যিটা মা জানতে পারলে তোর বিপদ আছে কিন্তু। মনে রাখিস, মা বাবা তোর মতো অপদার্থ ছেলের কথা বিশ্বাস করবে না, আমি যেটা বলব সেটাই মেনে নেবে। তারপর তোকে আমি দেখে নেব”। দিদি চটি পরা পা দিয়ে আমার গালে টোকা দিয়ে বলল।

দিদির উপর একটুও রাগ হচ্ছিল না আমার, সত্যিই তো আমি অপদার্থ ছেলে, স্বপ্নের মতো দিদিকে সবার সামনে পুজো করতে পারলে আমার জীবনটা ধন্য হয়ে যেত। কিন্তু আমাকে জাগতে দেখে দিদি আমার মুখের উপর থেকে নিজের চটি পরা পা টা সরিয়ে নিল কেন? আমার জায়গা তো ওখানেই, দিদির চটির তলায়। দিদির প্রতি প্রবল ভক্তি উথলে উঠল আমার মনে। নিজে থেকে দুই হাতে দিদির চটি পরা ডান পা টা টেনে এনে আমার ঠোঁটের উপরে রাখলাম। দিদির চটির তলায় একটা গাঢ় চুম্বন করে বলল, “ সরি দিদি। কাল ভুল করে মা কে বলে ফেলেছি ওই কথা। এখন থেকে তুমি যা বলবে আমি তাই করব, তুমি তোমার যত অপরাধের দায় আমার উপরে চাপাবে সব আমি মাথা পেতে নেব। আমার জায়গা এখন থেকে তোমার এই চটির তলায়”।

এই বলে আমি একের পর চুম্বনে ভরিয়ে দিতে লাগলাম দিদির চটির তলা। দিদি একটু অবাক চোখে দেখছিল আমার দিকে। দিদির প্রতি আমার এই অসহায় আত্মসম্পর্পনের কারনটা বুঝতে পারছিল না বোধহয়। আমি দিদি চটির তলায় একের পর এক গাঢ় চুম্বন চালিয়ে যাচ্ছিলাম, হঠাত দিদি চটি পরা ডান পা টা তুলে আমার মুখের উপর বেশ জোরেই একটা লাথি মারল। “ আমার সাথে চালাকি করার চেষ্টা করবি না কিন্তু, ফল ভাল হবে না। মা , বাবা আর ওই গুরু আজ তোর বিচারে বসবে, তুই তাই বলবি যা আমি বলতে বললাম। নাহলে আর এত আসতে লাথি মারব না, জুতো পরা পায়ে সপাতে তোর মুখে লাথি মারতে মারতে তোর নাক মুখ দাঁত সব ভেঙ্গে দেব আমি”। দিদি আমার মুখের উপর আরও কয়েকটা লাথি মারতে মারতে বলল।

আমি দিদির লাথি খেতে খেতেই দিদির চটির তলায় আরেকটা গাঢ় চুম্বন করে বললাম, “ আমাকে তুমি ইচ্ছা করলেই যত খুশি লাথি মারতে পার দিদি, সেই অধিকার তোমার আছে। তুমি এত মেধাবী, এত সুন্দরী দিদি আর আমি তোমার অপদার্থ ভাই একটা। মুখে তোমার লাথি খেলেও আমার উন্নতি হবে দিদি।

দিদি বোধহয় ওর প্রতি আমার ভক্তিটা বুঝতে পারছিল না, ভাবছিল আমি কোন চালাকি করার চেষ্টায় আছি। দিদি আমার মুখের উপর রাখা চটি পরা ডান পাটায় ভর দিয়ে উঠে দাঁড়াল, দিদির চটি পরা পায়ের তলার চাপে আমার নাকটা ফ্ল্যাট হয়ে মুখের সাথে লেগে গেল। দিদি ওর চটি পরা বাঁ পা টা আমার ঠিক গলার উপর রেখে দাঁড়াল। দিদির চটি পরা বাঁ পা টা আমার গলার উপরে রাখা, আর চটি পরা ডান পা টা আমার ঠোঁট আর নাকের উপরে। আমি নিশ্বাস নিতে পারছিলাম না, একটু বাতাসের জন্য বুকটা পাগলের মতো ওঠা নামা করছিল। ভিশন কষ্ট হচ্ছিল আমার। কিন্তু এই কষ্ট আমার সুন্দরী দিদি দিচ্ছে এই চিন্তা সেই প্রবল কষ্টকেও উপভোগ্য করে তুলেছিল। আমি সেই অবস্থাতেই দুই হাত বাড়িয়ে ক্রীতদাসের মতো দিদির পা দুটো টিপে দিতে লাগলাম।

দিদি একটু পরে বাঁ পা টা বাড়িয়ে আমার কপালের উপরে রাখল। আমার মুখের উপর চটি পরা পায়ে পায়ে প্রায় ১০ মিনিট দাঁড়িয়ে রইল দিদি, দেয়ালটা ধরে রইল ব্যালেন্সের জন্য। আমি এই পুরো সময়টা প্রভুজ্ঞানে ভক্তিভরে দিদির পা দুটো পালা করে টিপে চললাম। দিদি নিজে থেকে এইভাবে আমার উপর অত্যাচার করছে ভাবতেই প্রবল আনন্দে আচ্ছন্ন হয়ে পরছিলাম আমি।

প্রায় ১০ মিনিট পর দিদি আমার মুখের উপর থেকে নেমে দাঁড়াল। আমার দিকে তাকিয়ে গম্ভীর গলায় বলল, “ যা বললাম সেটা মনে থাকে যেন”। তারপর আমার উত্তরের অপেক্ষায় না থেকেই মুখ ঘুরিয়ে ঘর থেকে বেরনোর জন্য পা বাড়াল।

আমি উঠে মেঝেতে বসে পরেছিলাম ততক্ষনে, দিদির কথার উত্তরে স্বতস্ফুর্তভাবে আমার মুখ থেকে বেরিয়ে গেল, “ নিশ্চয়ই প্রভু, তুমি যা বলবে আমি তাই করব এখন থেকে। এখন থেকে তুমি আমার আরাধ্যা দেবী, তোমার জুতোর তলায় আমার স্থান”।

দিদি ঘুরে দাঁড়াল হঠাত, তারপর চটি পরা ডান পা দিয়ে প্রবল জোরে একটা লাথি মারল আমার চোয়ালের উপরে। আমি সহ্য করতে পারলাম না, দিদির লাথি খেয়ে উল্টে পরলাম, আমার মাথাটা দেয়ালে ঠুকে গেল ভিশন জোরে।

“ তোর কি মনে হচ্ছে আমি ইয়ার্কির মুডে আছি? আমার সাথে তুই ইয়ার্কি মারার চেষ্টা করছিস? আমার কথা না শুনলে ফল ভাল হবে না, শেষবার বলে দিলাম তোকে।”

দিদির লাথি খেয়ে আমি উল্টে পরেছিলাম কিছুটা, আমার পিঠ আর মুখ দেয়ালে লেগেছিল ধাক্কা খাওয়ার পর। সেই অবস্থায় আমার মুখের উপর দুই চটি পরা পা দিয়েই একের পর এক লাথি মারতে লাগল দিদি। দিদির প্রতি আমার স্বাভাবিক অতি ভক্তিকে দিদি ইয়ার্কি বলে ভেবে ভিশন রেগে গেছে বুঝতে পারছিলাম। আমি হাতজোড় করে বসে মুখে দিদির লাথি খেতে লাগলাম, কি বলব বুঝতে পারছিলাম না। দিদি ওর চটি পরা দুই পা দিয়ে আমার মুখের সর্বত্র জোরে জোরে লাথি মারা চালিয়ে গেল। আমার মুখের উপর চটি পরা পায়ে অন্তত ৩০ টা লাথি মেরে থামল দিদি। তারপর আমার মুখের উপর চটি পরা ডান পায়ের তলা ঘসতে ঘসতে বলল, “ কথাটা মনে থাকে যেন”। তারপর আগের মতো আমার উত্তরের অপেক্ষা না করে মুখ ঘুরিয়ে চলে গেল। এবার আর আমি কিছু বলার চেষ্টা করলাম না আমার দিদিকে।

দিদি ওর প্রতি আমার স্বাভাবিক অতি ভক্তিকে ইয়ার্কি করছি ভাবায় আমার খারপ লেগেছিল। সেই সাথে আমারে প্রতি দিদির এই ভয়ানক নিষ্ঠুরতা ভিশন খুশি করে দিয়েছিল আমার মনকে। দিদি এইভাবে এত জোরে জোরে আমার মুখে চটি পরা পায়ে কোনদিন লাথি মারবে তা আমি স্বপ্নেও ভাবিনি কোনদিন। এক অদ্ভুত খুশিতে মন আচ্ছন্ন হয়ে পরেছিল আমার । আমি চভাইছিলাম এখন থেকে দিদি আমার সাথে এরকমই ব্যবহার করুক। আমাকে ক্রীতদাসের মতো ব্যবহার করুক আমার সুন্দরী দিদি, সবার সামনে জুতো পরা পায়ে আমার মুখের উপর যত জোরে খুশি লাথি মারুক।

আমি বিছানা ছেড়ে উঠে মুখ ধোব বলে বেসিনের সামনে এলাম, আয়নায় মুখ দেখলাম। আমার মুখের উপর দিদির চটির তলার দাগ আজও স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। খেয়াল করিনি, দিদির লাথি খেয়ে আমার নাক দিয়ে অল্প অল্প রক্ত পরছে। আমার ফর্শা মুখটা লাল হয়ে গেছে দিদির অত্যাচারে, দিদির দুই পায়ের এত গুলো লাথি খেয়ে। আমার মনটা আনন্দে ভরে গেল এই দেখে। আমি আয়নার সামনে হাতজোড় করে দাঁড়িয়ে মনে মনে প্রতিজ্ঞা করলাম, দিদি , আমি যেভাবেই হোক আজকে তোমাকে বিশ্বাস করাবোই আমি এখন তোমাকে সত্যিই দেবী সরস্বতীর মতো শ্রদ্ধা করি, দেবী সরস্বতীর মুর্তীর বদলে তোমাকেই পুজো করতে চাই দেবীজ্ঞানে। সারাদিন তোমার সেবা করতে চাই প্রভুজ্ঞানে , সব্র সামনে। এটাই আমার জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য দিদি, তোমার সেবা করা, তোমার ভক্ত ক্রীতদাস হওয়া”।

মুখ ধুয়ে নিচে যেতেই মা একগাদা কাজ ধরিয়ে দিল। সব শেষ করতে সাড়ে দশটা বেজে গেল। তারপরই দিদি হাঁক দিল সামনের ঘর থেকে, “ ভাই, এদিকে আয়”।

আমি গিয়ে দেখি দিদি স্কুল ইউনিফর্ম পরে সামনের ঘরের সোফায় বসে বই খুলে পড়ছিল। আমাকে দেখে দিদি বলল, “ নে, আমার পায়ে জুতো পরিয়ে দে”।

মা, বাবা, গুরু প্রায়ই আশে পাশে ঘুরছে। আমি দিদির মোজা জুতো নিয়ে এসে দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসলাম। দিদির পায়ে সাদা মোজা আর সাদা স্নিকার পরিয়ে দিলাম চাকরের মতো। তারপর দিদির আদেশের অপেক্ষায় না থেকেই দিদির পায়ে পরা জুতো দুটো পালিশ করে দিতে লাগলাম, মাও তখন কি একটা দরকারে এই ঘরে এসেছে লক্ষ্য করলাম। আমার এই অতি সেবা আবার দিদি সন্দেহের চোখে দেখল। আমার মুখের উপর জুতো পরা ডান পা দিয়ে মায়ের সামনেই একটা লাথি মেরে দিদি বলল, “ স্কুল থেকে এসে যেন শুনি তুই সব অপরাধ স্বীকার করেছিস। নাহলে তোর কপালে দুঃখ আছে মনে  রাখিস”। এই বলে দিদি বেরিয়ে চলে গেল স্কুলের উদ্দেশ্যে। মা দিদিকে আমার মুখের উপর জুতো পরা পায়ে লাথি মারতে দেখেও কিছু বলল না। অবশ্য আমি যা অপরাধ করেছি বলে মায়ের ধারনা, এই শাস্তি সেই তুলনায় কিছুই না।

মায়ের সারা সকাল রান্নাবান্না, পুজোর যোগাড় সহ নানা ব্যস্ততায় কাটল, বাবাও বেড়িয়ে গিয়েছিল ব্যবসার কাজে। নিচের বিশাল হলঘরটায় গুরুজির থাকার ব্যবস্থা হয়েছিল। দুপুরে খাওয়ার পর সেই ঘরে আমাকে নিয়ে ঢুকল মা- বাবা। গুরুকে মা বলল, “ গুরুদেব, এই ছেলেকে নিয়ে আমি আর পারছি না”। এই বলে দিদির মুখে আমার অপরাধের যেই গল্প মা শুনেছিল তা গুরুদেবের কাছে হতাশ গলায় উগড়ে দিল। তার মধ্যে আমার অতি খারাপ রেজাল্টের সত্যি ঘটনাও অবশ্য ছিল।

সব শুনেও গুরুর মুখের হাসি মুছল না। মা কে বলল, “ তোমরা এত চিন্তা কর না। সব ঠিক হয়ে যাবে, আমি আছি তো। তোমরা দুজন একটু বাইরে যাও, আমি আগে খোকার সাথে একটু কথা বলি একা”।

গুরুর কথায় মা আর বাবা ঘর থেকে বেরিয়ে চলে গেল। বিশাল হলঘরের মেঝেতে বসে গুরুর মুখের দিকে অসহায় দৃষ্টিতে তাকালাম আমি”।

 

৪…

গুরুদেবের ঘর থেকে হতাশ হয়ে বেড়িয়ে এলাম আধঘন্টা পরে। নিজের উপর কিরকম একটা রাগ হচ্ছিল আমার। এত করে ভেবে রেখেছিলাম যে গুরু্র কাছে অসহায়ের মতো নিজের সব অপরাধ স্বীকার করে নেব। সেই সাথে বলব আমি খুব খারাপ, খারাপ কাজ করতে ইচ্ছা হয় আমার প্রায়ই, পড়াশোনা করতে ভাল লাগে না, দেবী সরস্বতীর মূর্তি দেখলেও প্রানে ভক্তি জাগে না। কিন্তু আমার মেধাবী সুন্দরী দিদিকে দেখলে সেই খারাপ আমার প্রানেও ভক্তি জাগে, কেন জানি না মনে হয় দিদিই দেবী সরস্বতী। আমার মনে হয় যদি আমি দিদিকে দেবী সরস্বতী রুপে পুজো করতে পারতাম, দিদি যদি আমার মাথার উপর চটি পরা পা রেখে আশীর্বাদ করে দিত , তাহলে আমারও পড়ায় মন বসত, স্বভাবও ভাল হয়ে যেত ধীরে ধীরে।

কিন্তু আফশোষ, এত করে গুছিয়ে রাখা কথা গুলো কি করে যেন মুখ থেকে বেরলই না গুরুর সামনে। কিরকম এক লজ্জায় আড়ষ্ট হয়ে গেলাম কথাগুলো বলার আগেই। নিজের দোষ স্বীকার করলাম, কিন্তু তার প্রতিকার যে দিদির পুজো করলে হতে পারে, সেইদিকে কথা ঘোরানোর সাহস হল না। গুরু সব শুনে বলল, “অশুভ চিন্তা তোকে ভর করেছে, তোর প্রায়শ্চিত্ত আর চিত্তশুদ্ধি দরকার। কি করে তোকে করা যায় ঠিক করার আগে এই নিয়ে তোর বাবা, মা আর দিদির সাথে কথা বলা দরকার”।

 

আমি গুরুর ঘর থেকে বেরনোর মাত্র ১৫-২০ মিনিট পরেই আমার দিদি তিথি ( ভাল নাম অন্মেষা ) স্কুল থেকে বাড়ি ঢুকল। বসার ঘরে ঢুকেই দিদি  ডাক দিল আমাকে, “ এই রনি, এদিকে আয়”।

দিদি বসার ঘরের সোফায় স্কুলের পোশাক পরে বসে আছে, দিদির পরনে স্কুলের সাদা জামা, সবুজ স্কার্ট, পায়ে সাদা মোজা, সাদা স্নিকার। আমি ঠিক দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসলাম।

দিদি কঠিন দৃষ্টিতে আমার দিকে তাকাল। “সবার সামনে নিজের দোষ স্বীকার করেছিস তুই?”

আমি মাথা নেড়ে বললাম, “ হ্যাঁ দিদি, গুরুর সামনে স্বীকার করেছি”।

দিদির মুখে একটা মুচকি হাসি ফুটে উঠল আমার কথা শুনে। আমার বাঁ গালে ডান হাত দিয়ে সজোরে একটা থাপ্পর মারল আমার দুই বছরের বড় দিদি তিথি, তারপরেই আমার ডান গালে বাঁ হাত দিয়ে আরেকটা।

“ শুনে গুরু কি বলল?”

“ বলল আমাকে অশুভ চিন্তায় ভর করেছে। আমার প্রায়শ্চিত্ত আর চিত্তশুদ্ধি দরকার। সেটা কি করে হবে গুরু সেটা তোমাদের সাথে কথা বলে ঠিক করবে”।

 

আমি আড়চোখে দেখলাম মা ততক্ষনে আবার এই ঘরের দরজার সামনে এসে দাড়িয়েছে, সম্ভবত পাশের ঘর থেকে আমাকে দিদির থাপ্পর মারার আওয়াজ শুনে।

দিদির মুখে আবার একটা চওড়া হাসি ফুটে উঠল। “ কি করলে তোর প্রায়শ্চিত্ত আর চিত্তশুদ্ধি সবচেয়ে ভাল হবে জানিস?”

আমি মাথা নেড়ে বললাম, “ না দিদি, জানি না”।

“ তোকে শোধরানোর দায়িত্ব আমার উপর ছেড়ে দিলে। আর আমি সেই সুযোগ পেলে তোকে কি করে শোধরাবো জানিস?”

“ জানি না দিদি”, আমি বললাম।

দিদি প্রথমে আমার দুই গালে তিনটে করে পরপর থাপ্পর মারল জোরে জোরে। তারপর আমাকে সামলানোর সুযোগ না দিয়েই জুতো পরা ডান পা দিয়ে সকালের মতই বেশ জোরে আমার মুখের উপর একটা লাথি মারল। আমি সামলাতে না পেরে উল্টে পরে গেলাম। তারপর আবার হাটুগেড়ে দিদির পায়ের কাছে বসতেই দিদি মুখে হাসি ফুটিয়ে জিজ্ঞাসা করল, “ এবার বুঝতে পারলি কিভাবে শোধরাবো তোকে?”

জবাবে আমি দিদির জুতো পরা দুই পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে প্রথমে ভক্তিভরে প্রনাম করলাম একবার। তারপর জবাব দিলাম,” হ্যাঁ দিদি, আমাকে মেরে মেরে ঠিক করবে তুমি। শুধু তুমিই চেষ্টা করলে আমাকে শোধরাতে পারবে। প্লিজ দিদি, আমাকে যতখুশি মার, এইভাবে আমার মুখে চড় , লাথি মেরে আমাকে ভাল হওয়ার সুযোগ করে দাও প্লিজ”।

আড়চোখে দেখলাম মা পাশের ঘরের দরজার পাশ থেকে অবিশ্বাসে ভরা চোখ নিয়ে আমাদের দিকে তাকিয়ে তার খারাপ ছেলের ভাল হতে চাওয়ার আকুতি শুনছে।

দিদি একবার চোখ তুলে মায়ের দিকে তাকাল। মায়ের সামনে আমার স্বীকারোক্তি , আর দিদির কাছে আত্মসমর্পনের অসহায় ইচ্ছা যে দিদি খুব উপভোগ করছিল সেটা দিদির ভাবভঙ্গীতে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছিল। দিদি হয়ত এবার বিশ্বাস করতে শুরু করেছে দিদির প্রতি আমার ভক্তি আমার অন্তরের ভাবের প্রকাশ, এরমধ্যে কোন চালাকি লুকিয়ে নেই।

মায়ের দিক থেকে চোখ ফিরিয়ে দিদি আমার দিকে তাকিয়ে বলল, “ চুপ করে বসে থাক তুই, আমি তোর মুখে জুতো পরা পায়ে পরপর লাথি মারব এখন। এটা তোর প্রায়শ্চিত্তের প্রথম ধাপ”।

দিদির কথা সেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই দিদির জুতো পরা বাঁ পায়ের তলা আমার নাকের উপর সজোরে আছড়ে পরল, আর তার সঙ্গে সঙ্গেই দিদির জুতো পরা ডান পায়ের তলা আঘাত করল আমার কপালের উপর। আমি উল্টে পরে গেলাম আবার। উঠে বসতে বসতে তাকিয়ে দেখলাম মা অবিশ্বাস্য দৃষ্টিতে আমাদের দিকে তাকিয়ে আছে।

আমি উঠে বসার সঙ্গে সঙ্গেই দিদির জুতো পরা বাঁ পায়ের তলা আমার ডান গালে আর তারপরই জুতো পরা ডান পায়ের তলা আমার ঠোঁট ও নাকের উপর আছড়ে পরল। দিদির জুতো পরা দুই পায়ের তলাই একের পর এক তীব্র জোরে আঘাত হানতে লাগল আমার মুখের সর্বত্র। আমি ভক্তিভরে হাতজোড় করে বসে মায়ের সামনেই মুখের সর্বত্র আমার সুন্দরী দুই বছরের বড় দিদি তিথির জুতো পরা পায়ের লাথি খেতে লাগলাম। মা তখনও অবিশ্বাস্য দৃষ্টিতে আমাদের দেখতে লাগল, একবারের জন্যও দিদিকে বারন করল না আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারতে!!

 

৫…

ঘড়িতে বিকেল পাঁচটা। বাইরের ঘরের পাশের বিশাল হল ঘরটায় বাড়ির সবাই জড় হয়েছি। উদ্দেশ্য, আমার বিচার। বাবা, মা লম্বা সোফাটায় পাশাপাশি বসে, তার পাশেই একটা চেয়ারে গুরু। দিদি আরেকটা চেয়ারে ঠিক উল্টোদিকে বসে আছে বাব-মায়ের দিকে ফিরে। দিদির পরনে এখন একটা গোলাপী-সাদা চুড়িদার , পায়ে গোলাপী চটি, যেটা কয়েক ঘন্টা আগে মুখে দিদির ৩০-৪০ টা লাথি খেয়ে দিদির পা থেকে জুতো মোজা খুলে দেওয়ার পর নিজে হাতে পরিয়ে দিয়েছি আমি। আমি আজ আসামী, তাই আমি ঘরের ঠিক মাঝখানে মেঝেতে বসে আছি। স্বাভাবিকভাবেই গুরু কথা শুরু করল দুপুরে আমার স্বীকারক্তির কথা সবাইকে বলে। তারপর গুরু বলল আমাকে অশুভ চিন্তায় আচ্ছন্ন করেছে। আমার কঠিন প্রায়শ্চিত্তের মাধ্যমে চিত্তশুদ্ধি দরকার। তারপর বাবা , মা আর দিদির কাছে জানতে চাইল ওদের মতে কিভাবে আমার চিত্তশুদ্ধি সম্ভব”।

প্রথমে বাবা বলল, “ আপনি থাকতে আমি আর কি বলব গুরুদেব।  আপনিই ভাল বুঝবেন কি করে ওর মঙ্গল হয়। আমার তো মনে হয় এসব অসভ্য বাঁদর ছেলেকে মেরে সোজা করা ছাড়া রাস্তা নেই। তবে আমরা আর কি বুঝি? আপনি যা ভাল বুঝবেন সেটাই হবে। তাতেই ওর ভাল হবে”।

“ দিদি সঙ্গে সঙ্গে বলে উঠল, “ ঠিক বলেছ বাবা। এসব ছেলেকে পিটিয়েই সোজা করতে হয়। ওকে ঠিক করার দায়িত্ব আমার উপর দিয়ে দেখ, পিঠিয়ে দশ দিনে ভাল বানিয়ে দেব। কথা না শুনলে লাথি মেরে ওর দাঁত মুখ ভেঙ্গে দেব আমি”।

গুরু এরপর মায়ের মত জানতে চাইল।

মা কিছুক্ষণ চুপ করে রইল। তারপর বলল, “আপনি গুরুদেব,  আপনিই ভাল বুঝবেন কিসে ওর ভাল হবে। কিন্তু আজ আমার মনে হচ্ছে রনিকে যেরকম খারাপ ভাবতাম ও ঠিক সেরকম খারাপ না। ওর মধ্যে শোধরানোর ইচ্ছা আছে।  কিন্তু এমন কিছু আশ্চর্য ব্যাপার ওর মধ্যে আছে যা আমি ঠিক বুঝতে পারছি না”।

এই বলে মা সকালে দিদির আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারার ঘটনা থেকে শুরু করে বিকালের আমাকে থাপ্পর আর লাথি মারার ঘটনা আর তার জবাবে আমার দিদির পায়ে মাথা রেখে প্রনাম করে  মেরে মেরে আমাকে ভাল করার আকুতির কথা সম্পুর্ন বলল। তারপর মা বলল, “ ও এরকম ব্যবহার করতে পারে আমি কখন ভাবিইনি। ওর দেবী সরস্বতীর প্রতি ভক্তি আসেনা, পড়াশোনা করেনা, খারাপ ছেলেদের সাথে মেশে ভেবে ওকে খারাপ ভাবতাম। অথচ আজ মুখে দিদির জুতো পরা পায়ের লাথি খেয়ে উল্টে নিজের দিদিকে ও যেরকম ভক্তিভরে প্রনাম করল সেরকম ভক্তি আমরাও জীবনে কোন দেব-দেবীকে দেখাতে পারিনি। ওর মধ্যে ঠিক কি চলছে, কিসে ওর ভাল হবে এবার আপনিই ঠিক করুন গুরুদেব”।

গুরু এতক্ষন অবাক হয়ে মায়ের কথা শুনছিল। মায়ের কথা শেষ হলে গুরু বলল, “ তিথির প্রতি ওর ভক্তি আমি নিজে চোখে দেখতে চাই। রনি, দিদির পায়ের কাছে গিয়ে দুপুরের মতো হাটুগেড়ে বস”।

সবার সামনে আমার সুন্দরী দিদির পদতলে আত্মসমর্পন করতে পারব ভেবে এক তীব্র উত্তেজনা আমার দেহের কোষ থেকে কোষে ছড়িয়ে পরতে শুরু করেছিল ততক্ষনে। আমি বাবা, মা আর গুরুর সামনেই দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসলাম। কাউকে কিছু বলতে হল না, সাথে সাথেই দিদির গোলাপী চটি পরা দুই পা আমার মুখের উপর পরপর দুইবার সজোরে আছড়ে পরল সবার চোখের সামনে। আমার মুখের উপর পরপর দুটো লাথি মেরে দিদি বলল, “ এইভাবে এসব ছেলেকে লাথি মেরে মেরে সোজা করতে হয়”।

সবার সামনে মুখের উপর সুন্দরী দিদির চটি পরা পায়ের লাথি খেয়ে দিদির প্রতি ভক্তি যেন উথলে উঠছিল আমার। আমি সবার সামনেই দিদির চটি পরা পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে সুন্দরী দুই বছরে বড় দিদিকে প্রনাম করে বললাম, “ নিশ্চয়ই দিদি। আমাকে যতখুশি তত মার তুমি। তোমার কাছে মার না খেলে , তোমার দয়া না পেলে আমি যে কোনদিন ভাল হতে পারব না দিদি। প্লিজ দিদি, আমাকে এখন থেকে রোজ এইভাবে যতখুশি লাথি মের তুমি”।

এইবলে বাবা-মা আর গুরুর সামনেই আমি দিদির চটি পরা দুই পায়ের উপর নিজের মাথা ঘসতে লাগলাম ভক্তিভরে। আর আমার ক্লাস ১১ এ পড়া সুন্দরী দিদি তিথি আমার মাথার উপর চটি পরা ডান পা টা তুলে দিয়ে আমার মাথার উপর চটির তলা ঘসতে ঘসতে আমাকে আদর করতে লাগল।

প্রায় পাঁচ মিনিট ধরে দিদির প্রতি আমার ভক্তি অবাক চোখে দেখতে লাগল বাবা মা আর গুরু। যে ছেলের দেবী সরস্বতীর মুর্তি দেখেও প্রানে ভক্তি জাগে না, নিজের মাত্র দুই বছরের বড় দিদির প্রতি তার এই ভক্তি বোধুহয় কিছুতেই বিশ্বাস হচ্ছিল না ওদের।

পাঁচ মিনিট পর গুরু জিজ্ঞাসা করল, “ তিথিকে দেখে ঠিক কি মনে হয় তোর রনি?”

আমি মেঝেতে বসে আছি মেঝের উপর রাখা দিদির চটি পরা বাঁ পায়ের উপর  মাথা ঠেকিয়ে। আমার মাথার উপর দিদি তখনও নিজের চটি পরা ডান পায়ের তলা বুলিয়ে চলেছে। আমি সেই অবস্থাতেই উত্তর দিলাম, “ আমি খারাপ ছেলে হয়ত খুব। এমনকি দেবী সরস্বতীর মুর্তি দেখেও আমার মনে ভক্তি জাগেনি কোনদিন। কিন্তু আমার সুন্দরী, মেধাবী দিদিকে দেখলেই চিরদিন আমার মনে প্রবল ভক্তি জেগে ওঠে, মনে হয় দিদি আসলে দেবী। মনে হয় দিদিকে প্রভু বলে, দেবী বলে ডেকে এইভাবে দিদির পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে ভক্তিভরে প্রনাম করি, দিদির সেবা করি যেভাবে দিদি চায়। কিন্তু এরকম তো কেউ করে না। তাই আমি উদ্ভট চিন্তা করছি ভেবে যত এইচিন্তা দমিয়ে রাখতে চাই তত অশুভ খারাপ চিন্তা মনকে আচ্ছন্ন করতে থাকে। এই কয়দিনে কত খারাপ চিন্তা এসেছে মনে। অথচ আজ দিদি আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারার পর থেকে একবারও আর এরকম হয়নি। এখন আমি যে দিদির পায়ে মাথা রেখে শুয়ে আছি, তাতে আমার মনে হচ্ছে আমি সাধু, আমার আত্মা অতি পবিত্র। জানি না, এই চিন্তা ঠিক কিনা, তবে আমার মনে হয় দিদিকে যদি এইভাবে দেবীর মতো ভক্তি দেখাতে পারি, আমি তাহলে সৎ পথে চলতে পারব, পড়াশোনাতেও ভাল হতে পারব। আর নাহলে ভয় হয়, আগের চেয়েও খারাপ হয়ে যাব হয়ত”।

দিদি আমার মাথার উপর থেকে চটি পরা ডান পা সরাতে আমি দিদির বাঁ পায়ের উপর থেকে মাথা তুলে গুরুর দিকে তাকালাম।

গুরু বলল, “ এরকম কোন কথা নেই ভক্তি সরস্বতী মুর্তিকেই করতে হবে। দেবী তো সর্বত্র বিরাজমান ,আমাদের সুবিধা হবে বলে আমরা মুর্তির মধ্যে তার উপস্থিতি ধরে নিই মাত্র। তোমার যদি দিদির প্রতি সেই স্বাভাবিক ভক্তি আসে তাহলে তুমি দিদিকেই মুর্তির বদলে একইরকম ভক্তিভরে পুজো করলেও েকই ফল হওয়ার কথা”। আপাতত তুমি এক সপ্তাহের জন্য দিদিকে দেবী হিসাবে গ্রহন কর। এই এক সপ্তাহের জন্য দিদি তোমার প্রভু, ভগবান, দেবী সরস্বতী। এই এক সপ্তাহে দিদি তোমাকে যা খুশি হুকুম করতে পারে, তোমাকে যত খুশি মারতে পারে, তোমাকে নিয়ে যা খুশি করতে পারে। বদলে তুমি দিদিকে দেবীজ্ঞানে সেবা করবে ভক্তিভরে। এর ফলে তোমার চরিত্রের কি পরিবর্তন হয় দেখা যাক আগে। দরকার হলে আরও কয়েক সপ্তাহ এরকম চলুক । এরফলে যদি তোমার চরিত্রের উন্নতি ঘটের, পড়ায় মনযোগ আসে তাহলে তো হয়েই গেল। এক বিশেষ যজ্ঞের মাধ্যমে তিথিকে পুজো করে তোমার দেবী রুপে সারাজীবনের জন্য প্রতিষ্ঠা করে দেব তাহলে, সারজীবন দিদিকে দেবীজ্ঞানে পুজো করবে তুমি। আর নাহলে তখন অন্যপথ ভাবতে হবে। আপাতত এক সপ্তাহের জন্য তিথি তোমার প্রভু, দেবী। তুমি ওর ভক্ত, ক্রীতদাস। এখন আবার তিথির পায়ে মাথা ঠেকিয়ে ওকে ভক্তিভরে প্রনাম কর তুমি”।

নিজের সৌভাগ্যকে নিজেরই যেন বিশ্বাস হচ্ছিল না আমার! সবার সামনে এখন থেকে সত্যিই আমার সুন্দরী দিদি তিথিকে দেবীজ্ঞানে সেবা করতে পারব!! প্রবল ভক্তিভরে দিদির গোলাপী চটি পরা পা দুটো নিজের দুই হাতের তালুতে তুলে নিলাম আমি। তারপর দিদির পায়ের উপর নিজের মাথাটা নামিয়ে দিলাম। দিদির চটি পরা পায়ের উপর ভক্তিভরে নিজের মাথাটা আসতে আসতে ঘসতে ঘসতে বললাম, “ আমাকে ক্রীতদাস হিসাবে গ্রহন কর প্রভু। কিভাবে তোমার সেবা করতে পারি আদেশ কর”।

দিদি এবার আমার মাথার উপর কিছুক্ষণ নিজের চটি পরা বাঁ পায়ের তলাটা ঘসল। তারপর আদেশ করল, “ আমার পায়ের কাছে মাথা রেখে সোজা হয়ে শুয়ে পর”।

আমি দিদির দুই পায়ের পাতায় একবার করে চুম্বন করে বললাম, “ যথা আজ্ঞা প্রভু”। তারপর দিদির ঠিক পায়ের কাছে মাথা রেখে শুয়ে পরলাম প্রভু দিদির আদেশ মতো।

দিদি একবার বাবা-মা আর গুরুর দিকে তাকিয়ে দেখল। তারপর হাসিমুখে ওদের সবার সামনেই আমার মুখের উপর নিজের চটি পরা পা দুটো তুলে দিল। আমার কপালের উপর বাঁ চটির তলা আর ঠোঁটের উপর ডান চটির তলা ঘসল কিছুক্ষণ দিদি। তারপর আমার নাকের উপর চটি পরা ডান পা দিয়ে একটা লাথি মেরে আদেশ দিল, “ জিভটা বার করে দে। তোর পুজনীয় দেবী তোর জিভে চটির তলা মুছবে”।

আমি প্রবল ভক্তিভরে আমার জিভটা বার করে দিলাম। আমার দুই বছরের বড় সুন্দরী দিদি তিথি বাবা মা আর গুরুর সামনেই আমার বার  করা জিভের উপর নিজের চটি পরা ডান পায়ের তলা ঘষে চটির তলা পরিষ্কার করতে লাগল।

 

দিদি থেকে দেবী

৬……
দিদি আমার বার করা জিভের উপরে নিজের ডান চটির তলা মুছে যাওয়া চালিয়ে যেতে লাগল। আমি দিদির চটির তলার ময়লা প্রবল ভক্তিতে গিলে খেতে লাগলাম। আমি আড়চোখে একবার দিদির মুখের দিকে আর আরেকবার ঘরের অন্যপ্রান্তে বসা বাবা মা আর আমাদের গুরুর মুখের দিকে তাকাতে লাগলাম। দিদির মুখজোড়া হাসি বুঝিয়ে দিচ্ছিল ছোট ভাইকে এইভাবে বাবা মায়ের সামনে ডমিনেট করাটা সে কত এঞ্জয় করছে।
মা, বাবা অবাক চোখে দেখছিল আমাদের। তাদের অবাধ্য , দেব- দেবীর মূর্তিকেও ভক্তি না করা ছেলে যে এইভাবে নিজের দুই বছরের বড় সুন্দরী দিদিকে দেবীজ্ঞানে পুজো করতে পারে সেটা বোধহয় তাদের বিশ্বাস হচ্ছিল না এখনো।
“রনির তিথির প্রতি ভক্তি কিন্তু একটা জিনিস প্রমান করে দেয়, তিথি আর পাঁচটা মেয়ের মতো সাধারন মেয়ে নয়। ওর মধ্যে দেবীর অংশ মিশে আছে। মানে তিথির মধ্যের একটা অংশ স্বয়ং দেবী। দেবী হয়ত চান এইভাবে তার অংশ তিথির মাধ্যমে সরাসরি রনি তাকে পুজা নিবেদন করুক”, গুরু বাবা মা কে বলল। দিদি তখনো আমার বার করা জিভের উপরে নিজের গোলাপি চটির তলা ঘষে চলেছে।
কিন্তু তিথি দেবীর অংশ হলে তো আমাদের সবারই উচিত ওকে ভক্তি দেখানো। ও আমাদের মেয়ে হয়ে জন্মালেও যদি ওর মধ্যে স্বয়ং দেবীর একটা অংশ থাকে, তাহলে আমাদেরও কি উচিত না রনির মতো ওকে ভক্তিভরে পুজো করা?”
গুরুকে করা বাবার প্রশ্ন শুনে দিদির মুখে হাসি চওড়া হল। দিদি আমার জিভের উপরে ঘষে পরিষ্কার করে ফেলা ওর ডান চটির তলা আমার গলার উপরে রেখে আমার বার করা জিভের উপরে নিজের বাঁ চটির তলা নামিয়ে দিল।
বাবার প্রশ্ন শুনে গুরু একটু ভেবে জবাব দিল, “ ঠিকই বলেছ। তিথি যা আদেশ করবে আমাদের সবারই তা পালন করা উচিত। তার আগে শুধু এক সপ্তাহ দেখে নেওয়া যাক তিথির সেবা করে রনির পড়াশোনায় ও চরিত্রে কি উন্নতি ঘটে। উন্নতি ঘটলে ওকে পুজার মাধ্যমে দেবীর অংশ হিসাবে বরন করে নেব। তারপর আমরা সবাই তাই করব যা ও আদেশ করবে। আমার সব ভক্তও আমার কথায় তিথিকে দেবী সরস্বতী হিসাবে বরন করে নেবে”।
বাবা আর গুরুর এই কথপকথন আমার ভয়ানক ভাল লাগছিল। আমার সুন্দরী দিদি তিথি আমার বার করা জিভে নিজের বাঁ চটির তলা ঘষে চলেছিল ওর সুন্দর মুখে হাসি ফুটিয়ে। মাত্র এক সপ্তাহ পরে এই গুরু, আমার বাবা সহ গুরুর অজস্র শিষ্য আমার মতই ভক্তিভরে দিদির পুজো করবে ভাবতেও প্রবল আনন্দে হৃদয় ভরে উঠছিল আমার।
আমার জিভের উপরে ঘষে দিদি নিজের বাঁ চটির তলাও নতুনের মতো পরিষ্কার করে ফেলল। তারপর আমার মুখের সর্বত্র চটি পরা দুই পা দিয়ে একের পর এক্লাথি মারতে লাগল আমার পরম শ্রদ্ধেয় সুন্দরী দিদি। বাবা , মা আর গুরু অবাক চোখে দেখে চলল আমার উপর ‘দেবী দিদি’র অত্যাচার।
আমার মুখে চটি পরা দুই পা দিয়ে অন্তত ৫০ টা লাথি মেরে থামল দিদি। তারপর আমার মুখে একটা সেষ লাথি মেরে বলল, “ বসার ঘরের সোফার সামনে হাটুগেড়ে বসে থাক। আমি রেডি হয়ে বেরবো। আমি ড্রেস পরে এলে তুই আমার পায়ে জুতো পরিয়ে দিবি”।
আমি ভক্তিভরে দিদির চটি পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে দিদিকে প্রনাম করে বললাম, “ যথা আজ্ঞা প্রভু”।
তারপর উঠে গিয়ে বসার ঘরের সোফার সামনে হাটুগেড়ে বসলাম আমার প্রভু দিদির অপেক্ষায়। যেতে যেতে শুনলাম মা বলছে, “ আমার বিশ্বাস তিথির মধ্যে অল্প হলেও দেবীত্ব আছে। নাহলে তিথির কাছে ওইভাবে মার খেয়েও রনি কখনোই ওর প্রতি এত ভক্তি দেখাতে পারত না। একজন মানুষ যতই মহান হোক তার প্রতি কেউ এত ভক্তি দেখাতে পারে না সে দেবী নাহলে”।
দিদি প্রায় ১০ মিনিট পর রেডি হয়ে ফিরে এল। এখন দিদির পরনে সাদা টপ, কালো স্কার্ট, পায়ে নীল চটি। দিদি চটি পরা পায়ে আবার আমার মুখের উপরে বেশ জোরে একটা লাথি মেরে বলল, “ যা, জুতোর র্যাচক থেকে আমার কালো স্নিকার আর মোজা নিয়ে আয়”।
আমার যে কি আনন্দ হচ্ছিল সেটা ভাষায় প্রকাশ করা সম্ভব না। এভাবে বাবা মায়ের সামনে আমার দুই বছরের বড় সুন্দরী দিদি তিথি আমার সাথে ক্রীতদাসের মতো ব্যবহার করছে সেটা যেন তখনো বিশ্বাস হচ্ছিল না আমার! আমি আবার ভক্তিভরে দিদির পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করে ৪ হাত পায়ে কুকুরের মতো গিয়ে দিদির মোজা আর জুতো মুখে করে নিয়ে আসার সময় দেখলাম এই ঘরের একপাশে মা, বাবা আর গুরু পাশাপাশি দাঁড়িয়ে আমার ‘দেবী দিদি’কে সেবা করা দেখছে! তারপর দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে দ্দির পায়ে প্রথমে কালো মোজা আর তারপর কালো স্নিকার পরিয়ে দিয়ে দিদির জুতো পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে আবার ভক্তিভরে প্রনাম করলাম আমার প্রভু দিদিকে।
জবাবে দিদি জুতো পরা ডান পা দিয়ে ভিশন জোরে একটা লাথি মারল আমার মুখের উপরে। “ আমার জুতোয় ময়লা লেগে আছে কেন? ক্রীতদাস হয়ে প্রভুর জুতো পরিষ্কার করার কথা তোর মনে থাকে না জানোয়ার?”]
আমার বিশ্বাসই হছিল না আমার দিদি সত্যিই এইভাবে আমার সাথে ক্রীতদাসের মতো ব্যবহার করছে।আমি সাথে সাথে দিদির পায়ে পরে দিদির জুতোর উপর বারবার চুম্বন করতে করতে ক্ষমা চাইতে লাগলাম দিদির কাছে। তারপর দিদির পায়ের উপরে মাথা রেখে উপুড় হয়ে শুয়ে জিভ দিয়ে চেটে পরিষ্কার করতে লাগলাম দিদির জুতোর উপরটা।
দিদির জুতোর উপরটা জিভ দিয়ে পালিশ করে নতুনের মতো চকচকে করে দিয়ে আমি দিদির মুখের দিকে তাকালাম। জবাবে দিদি জুতো পয়া বাঁ পা দিয়ে সজোরে একটা লাথি মারল আমার মাথায় । আমার কপালটা ভিশন জোরে ঠুকে গেল মেঝেতে।
“ জুতোর তলাটা কে পরিষ্কার করবে কুত্তা”?
আমি সাথে সাথে দিদির জুতো পরা পায়ের উপরে মাথা ঠেকিয়ে ক্ষমা চাইলাম। তারপর আবার দিদির জুতো পরা পায়ের কাছে মাথা রেখে চিত হয়ে শুয়ে পরলাম। দিদি নিজে থেকেই ওর জুতো পরা পা দুটো তুলে দিল আমার মুখের উপরে। এটা দিদির বাইরে পরার জুতো, ফলে জুতোর তলাটা ধুলো কাদায় ভর্তি। দিদি ওর জুতো পরা ডান পা টা আমার কপালের উপরে আর বাঁ পা টা আমার ঠোঁটের উপরে রেখে আমার মুখের উপরে নিজের জুতোর তলা দুটো একটু ঘসল। তারপর আমি নিজে থেকেই আমার জিভটা লম্বা করে বার করে দিলাম যাতে আমার প্রভু দিদি আমার বার করা জিভের উপরে ঘষে নিজের নোংরা স্নিকারের তলা পরিষ্কার করতে পারে।
দিদি হাসিমুখে আমার বার করা জিভের উপরে নিজের নোংরা বাঁ জুতোর তলাটা নামিয়ে দিল। একবার আমার মুখের দিকে, একবার বাবা মা আর গুরুর মুখের দিকে তাকাতে তাকাতে আমার বার করা জিভের উপরে নিজের বা জুতোর তলাটা ঘষে পরিষ্কার করতে লাগল আমার পরম আরাধ্যা দেবী দিদি।
আমি প্রবল ভক্তিভরে দিদির জুতোর তলার সব ময়লা গিলে খেতে লাগলাম। দিদি প্রথমে বাঁ জুতোর তলা, তারপর ডান জুতোর তলা আমার জিভের উপরে ঘষে মুছে নতুনের মতো চকচকে করে ফেলল। তারপর আমার মুখে জুতো পরা দুই পা দিয়ে একটা করে লাথি মেরে বলল, “ যা, এবার ভাল ছেলের মতো পড়তে বস। আমি না বলা পর্যন্ত উঠবি না। এই দেবীর আশির্বাদ তোর সাথে আছে। আজ যা পড়বি তা আর কোনদিন ভুলবি না তুই”। এইবলে আমার মাথার উপরে জুতো পরা ডান পা টা রেখে আমাকে আশীর্বাদ করে বেরিয়ে গেল আমার প্রভু দিদি।
আমার বিশ্বাসই হচ্ছিল না নিজের ভাগ্যকে । আমার ইচ্ছা করছিল চুপ করে শুয়ে এতক্ষনের সুখের স্মৃতিগুলো রোমন্থন করতে। কিন্তু আমি জানতাম বাবা মাকে বিশ্বাস করাতে হবে যে দিদির সেবা করে আমার দারুন উন্নতি হচ্ছে। তাহলেই আমি সুযোগ পাব সারাজীবন দিদিকে দেবীজ্ঞানে সেবা করার। হয়ত দিদিকে দেবী ভাবে বাবাও নিজের মাথা নামিয়ে দিতে পারে নিজের মেয়ের পায়ের তলায়! ভাবতেই প্রবল আনন্দে ভাসতে লাগলাম আমি।
আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দেখি আমার মুখ দিদির জুতোর তলার ময়লায় ভর্তি, আমার জিভটা দিদির জুতোর তলার ময়লায় কুচকুচে কালো হয়ে আছে। আমি মুখ ধুলাম না, আমার প্রভুর জুতোর তলার ময়লা আমার সারা মুখে লেগে আছে এর চেয়ে বেশি গর্বের আর কি হতে পারে আমার কাছে? আমি মুখে জল নিয়ে আমার জিভে লেগে থাকা দিদির জুতোর তলার পবিত্র ময়লা গিলে খেয়ে ফেললাম। তারপর তাড়াতাড়ি সামান্য টিফিন খেয়ে পড়তে বসলাম। ঘড়িতে তখন সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টা।
আমি ঠিক ৪ ঘন্টা পড়ে সাড়ে ১০টায় উঠলাম। বাকিদের তখন রাতের খাওয়া হয়ে গেছে। দিদি তখন চেয়ারে বসে টিভি দেখছিল খাওয়ার ঘরে। আমি খাওয়ার থালা নিয়ে দিদির পায়ের কাছে বসলাম। দিদি ওর নীল চটি পরা পা আমার খাওয়ার থালার উপরে রাখল আর আমি দিদির চটির তলায় মাড়ানো খাবার বাবা মায়ের সামনেই ভক্তিভরে খেতে লাগলাম।
রাতের খাওয়া হলে আমি এসে দিদির চটি পরা পায়ের কাছে মাথা রেখে শুলাম। প্রথমে খাবার লেগে থাকা দিদির চটির তলা দুটো জিভ দিয়ে চেটে পরিষ্কার করে দিলাম ভক্তিভরে। তারপর দিদি আমার মুখের উপরে চটড়ি পরা পা রেখে বসে টিভি দেখতে লাগল আর আমি ভক্তিভরে আমার মুখের উপরে রাখা আমার প্রভু সুন্দরী দিদির চটি পরা পা দুটো ভক্তিভরে টিপে দিতে লাগলাম। দিদি মাঝে মাঝেই চটি পরা পা দিয়ে আমার মুখের সর্বত্র জোরে জোরে লাথি মারতে লাগল। আর আমি আমার সুন্দরী দিদির লাথি খেতে খেতে ভক্তিভরে তার পা টিপে দিতে লাগলাম বাবা মায়ের সামনেই।
প্রায় এক ঘন্টা পরে দিদি আমার মুখে লাথি মেরে আদেশ করল টিভিটা অফ করে একটা দড়ি এনে ওর ঘরে যেতে। আমি টিভি অফ করে একটা লম্বা দড়ি নিয়ে দিদির ঘরে যেতে দেখি দিদি নিজের ঘরে এসি চালিয়ে হাতে একটা চামড়ার বেল্ট নিয়ে বসে আছে। আমি যেতেই দিদি আমাকে ওর পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসতে বলল। আমি বসতে দিদি আমার মুখে চটি পরা প[আয়ে দুটো লাথি মারল প্রথমে। তারপর ব্রল্টটা আমার গলায় ডগ কলারের মতো পরিয়ে দিয়ে বলল, “ আজ থেকে তুই আমার পোষা কুত্তা”।
আমার প্রভু দিদি আমাকে নিজের পোষা কুত্তা বলে ঘোষনা করায় গর্বে আমার বুক ভরে উঠল। আমি দিদির চটি পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে দিদিকে ভক্তিভরে প্রনাম করে ধন্যবাদ দিলাম।
এরপর দিদি আদেশ করল , ‘ দড়িটা দিয়ে এবার নিজের পা দুটো শক্ত করে বেধে ফেল”।
আমি বিনা প্রশ্নে আমার সুন্দরী প্রভু দিদির আদেশ পালন করলাম।
পা বাধা হয়ে গেলে দিদি দঁড়ির অন্য প্রান্ত দিয়ে আমার হাতদুটোও শক্ত করে বেঁধে দিল। বাঁধন এত শক্ত হয়েছিল যে আমি এক ইঞ্চিও হাত পা নাড়াতে পারছিলাম না আর।
বাধা শেষ হলে দিদি একবার কয়েক সেকেন্ডের জন্য চটি পরা পায়ে আমার মুখের উপরে উঠে দাঁড়াল আমার গলায় বাধা ডগ কলারটা ধরে। “ গুড নাইট কুত্তা” বলে দিদি নেমে দাঁড়াল তারপর, আর আমার মুখের ভিতরে নিজের স্কুলে পরার একজোড়া সাদা মোজা গুঁজে দিল। তারপরে আমার মুখে চটি পরা পায়ে লাথি মারতে মারতে আর আমার গলার ডগ কলারটা ধরে টানতে টানতে দিদি আমাকে ঠিক ওর ঘরের দরজার বাইরে ফেলে দিল।
আমার মুখের উপর চটি পরা ডান পা টা রেখে একবার হাসিমুখে আমার দিকে তাকালো আমার প্রভু দিদি, তারপর আবার গুড নাইট কুত্তা বলে ঘরের দরজা বন্ধ করে লাইট অফ করে এসি ঘরে আরাম করে শুয়ে পরল দিদি।
আর আমি তখন দিদির এসি ঘরের ঠিক দরজার বাইরে অসম্ভব গরমে হাত পা বাঁধা অবস্থায় শুয়ে। সেই বাঁধন এত শক্ত যে এক ইঞ্চিও নাড়াতে পারছি না হাত পায়ের বাঁধন। গায়ের ঘামে ভিজে সপ্সপে হয়ে উঠছে শরীর, হাত তুলে ঘাম মুছব তার উপায় নেই। হাত যে বাঁধা। প্রবল গরমে গলা শুকিয়ে কাঠ হয়ে যেতে লাগল। জলের অভাবে আমি আমার মুখে গোঁজা দিদির মোজা জোড়া চুষতে লাগলাম অন্তত একফোঁটা দিদির পায়ের ঘামের আশায়! পিছমোড়া করে হাত বাধা থাকায় ভয়ানক কষ্ট হচ্ছিল আমার। গরমে ও জলের অভাবে কিরকম হ্যালুসিনেশন হতে লাগল আমার। তবু সেই অবস্থাতেও মনে ভাসতে লাগল সারাদিনের অবিস্মরণীয় ঘটনাগুলো। এখন থেকে দিদি সবার সামনেই আমাকে এইভাবে যত খুশি অত্যাচার করবে ক্রীতদাসের মতো, একথা ভাবতেই মন প্রান ভরে উঠছিল প্রবল উত্তেজনাতে। সত্যি, কষ্ট হতে পারে, তবু সুন্দরী দিদির হাতে এইভাবে অত্যাচারিত হওয়ার মতো সুখ আর কিছুতে নেই। আমার দিদি এখন থেকে আমার আরাধ্যা দেবীই। আমি নিজের জীবন উতসর্গ করেছি দিদির পায়ের তলায় । দিদির জুতো পরা পায়ের লাথি খেয়ে মারা গেলে তার মতো সৌভাগ্য আর কিছু হতে পারে না আমার কাছে!

 

 

 

 

 

 

দিদির সাথে ফেমডম
– SLAVE
দিদির সাথে আমার ফেমডম জীবনের সুচনা সেই কৈশোরে পা রাখার পর থেকেই।দিদি আমার ৫
বছরের বড়।যে ঘটনা গুলো এখন
বলবো তা কোন বানানো ঘটনা নয়,আমার জীবনের সত্য ঘটনা
হটাত করেই আমি আবিস্কার করি যে আমি
দিদির সুন্দর পা জোড়ার প্রতি আকর্ষণ ফিল করছি। ইচ্ছা করতো দিদির পা দুটোর নিচে
আমার নাক মুখ ঘষি,কিবা একটা চুমু
দেই। কিন্তু কিভাবে কি করবো বুজছিলাম না। জিনিষটা দিদির কাছে বিব্রতকর হতে
পারে,তাই আর আগ বাড়িনি সে পথে
একদিন হটাত করেই সব কিছু বদলে গেলো। দিদি ওর বিছানায় আধ শোয়া হয়ে গল্পের বই
পড়ছিলো। পা দুটি ভাজ করে রাখা।
আমি ঠিক দিদির পা দুটোর সামনে মাথা রেখে আড়াআড়ি ভাবে শুয়ে পড়লাম মোবাইল টিপতে
টিপতে
দিদির পায়ের বুড়ো আঙুল আমার গালে ঘষা খাচ্ছিলো। দিদি একমনে গল্পের বই পড়ছে।
এদিকে ওর খেয়ালই নেই। হটাত খেয়াল
করলাম দিদি তাঁর ২ পায়ের বুড়ো আঙুল দুটো আমার গালে ঘসছে। আমার বুকের ধুকপুকানি
বেড়ে গেলো। স্বর্গ সুখে পাগল হয়ে
গেলাম। আস্তে আস্তে দিদি তাঁর পায়ের অন্যান্য আঙুলগুলোও আমার গালে তুলে দিয়ে
ঘসতে লাগলো।আমার হার্ট মনে হলো ফেটে
বাইরে বেড়িয়ে আসবে।
একটু পর দিদি মুখের সামনে থেকে বই সরিয়ে আমাকে বললো ‘অন্তু,আমি পা সটান করে
বসবো,তুই তোর বিছানায় যা’
– না যাবোনা
– যা বলছি
– প্লিজ দিদি একটু থাকি
– যা,নাহলে মুখের উপর পা তুলে দিবো
কিছু বুঝে উঠার আগেই আমার মুখের উপর দিদি তাঁর ডান পা তুলে দিলো!দিদির ফর্সা
নরম পায়ের তলা আমার পুরা মুখ ঢেকে
ফেললো। খিলখিলিয়ে হাসতে লাগলো দিদি। আমার মনে হলো স্বর্গে আছি। সে এক অনন্য
অনুভুতি। কোন কিছুর সাথেই তাঁর
তুলনা চলেনা। একটু পরে দিদি আমার মুখের উপর ২-৩ বার তাঁর পায়ের তলা ঘষে পা
সরিয়ে নিয়ে আবার বই পড়তে লাগলো।
আমি সরলাম না। খুব আশা করছিলাম দিদি আবার আমার মুখে পা তুলে রাখবে। কিন্তু আর
রাখলোনা
সেদিনই বুঝতে পারলাম,ফেমডম শুধু আমার রক্তে না,দিদির রক্তেও আছে। নাহলে দিদি
এমন করতোনা আজ।তারপর থেকেই সুযোগ
খুজতে লাগলাম কিভাবে দিদির পায়ের কাছে কাছে থাকা যায়। সেদিন রাতে দিদি সোফায়
একইভাবে আধ শোয়া হয়ে বসে টিভি
দেখতে লাগলো। আমিও দিদির পায়ের কাছে এসে বসলাম। দিদি কিছুই বললোনা। আমি মনে
প্রানে প্রার্থনা করতে লাগলাম যেন
দিদি পা দিয়ে কিছু একটা করে আমার সাথে।
ঈশ্বর আমার প্রার্থনা শুনলেন। দিদি হটাত করেই তাঁর ডান পা আমার মুখের একদম
সামনে নিয়ে এসে আঙুল গুলো নাড়াতে
লাগলো। আমি নিজেকে ধরে রাখতে পারলাম না। দিদির পাটা হাত দিয়ে ধরে আমার গাল
পায়ের নিচে লাগিয়ে ঘষে দিলাম।
এই জিনিসের জন্যে সম্ভবত দিদিও প্রস্তুত ছিলোনা। সে পা সরিয়ে নিলো। আমিও লজ্জা
পেয়ে গেলাম
তারপর এক মাস আমি দিদির পায়ের কাছে বসিনি লজ্জায়। মনে মনে নিজেকে দুষতে
লাগলাম। আগ বাড়িয়ে পায়ে নাক মুখ
ঘসতে না গেলে হয়তো এখনো দিদি তাঁর পবিত্র পা দুটো দিয়ে আমার সাথে খেলা করতো
প্রতিনিয়ত। খুব আফসোস করতে
লাগলাম আমি। আর প্রতিদিন প্রার্থনা করতাম যেন আবার দিদি তাঁর পায়ের নিচে আমাকে
স্থান দেয়
ঈশ্বর আবারো আমার কথা শুনলেন। শীতকাল এসে গেছে তখন। একদিন সন্ধ্যা বেলা
কারেন্ট নাই। দিদির ঘরে মোমবাতি জ্বালানো।
একইভাবে আধ শোয়া হয়ে বসে আছে দিদি। দিদির পরনে নিল সোয়েটার,হাতে কালো
হাতমোজা,পায়ে কালো প্যান্ট,আর সাদা
একজোড়া মোজা। দিদির পেট থেকে পা পর্যন্ত কম্বল দিয়ে ঢাকা ছিলো। আমি দিদির ঘরে
আসতেই দিদি বললো ‘অন্তু এখানে আয়।
গল্প করি’।
আমি বিছানায় উঠতেই দিদি কম্বলের ভিতর থেকে তাঁর সাদা মোজা পরা একটি পা বের করে
ঠিক আমার মুখের সামনে এনে
বললো ‘এই দেখ ভুত’। আমার হার্টবিট বেড়ে গেলো। কিন্তু একইসাথে নিজেকে কন্ট্রোলে
রাখলাম। নিজেকে বুঝালাম যে দিদি
যেভাবে আমার সাথে খেলা করছে,আমাকেও সেভাবে খেলতে হবে,সিরিয়াস ফেমডমে চলে গেলে
এখানে হবেনা। তাই আমি ভুত
দেখার ভান করে হেসে বলে উঠলাম ‘ওরে বাবা!’
দিদি খিলখিলিয়ে হেসে উঠে মোজা পরা পায়ের তলা আমার মুখে ভালোভাবে ঘষে দিলো। আমি
বললাম ‘প্লিজ ভুত আমাকে মেরোনা।’
দিদি আবারো হেসে উঠে মোজা পরা পা দিয়ে আমার মুখে আস্তে আস্তে লাথি মারতে
লাগ্লো।আমি দিদির দুই মোজা পরা পা হাত দিয়ে
ধরে আমার মাথা নামিয়ে দিলাম,বললাম ‘প্লিজ ভুত,ক্ষমা চাচ্ছি তোমার কাছে,এইবারের
মত মাফ করে দাও’,বলে আমার কপাল
নিয়ে লাগালাম দিদির পায়ের উপর
দিদি মুচকি হেসে তাঁর মোজা পরা ডান পা টা আমার মাথার উপর নিয়ে রাখলো। ঘষতে
ঘসতে বললো ‘ঠিকাছে যা,এবারের মত
মাফ করে দিলাম’। আমি ‘ধন্যবাদ ভুত’ বলে দিদির মোজা পরা পায়ের আদর খেতে লাগলাম।
হটাত কারেন্ট চলে আসলো। কাজেই
আমি উঠে পড়তে চলে গেলাম।
পরের দিন সকালে দেখলাম দিদি তাঁর পায়ে আকাশী নীল রঙের এক জোড়া মোজা পরে আছে।
আমি বারবার দিদির রুমে যেতে
লাগলাম এই আশায় যে হয়তো কালকের মত আমাকে ডেকে বসতে বলে পা দিয়ে খেলা করবে।
কিন্তু দিদি একবারো ডাকলোনা
আমাকে। মন খারাপ হয়ে গেলো আমার।
সন্ধার পরই আমার ভাগ্য খুলে গেলো। আমার রুমে আমি ফ্লোরিং করে শুতাম।এভাবে
ঘুমাতেই আমার ভালো লাগ্লতো।সন্ধার পর
আমি আমার রুমে বিছানায় শুয়ে মোবাইল টিপছিলাম। হটাত কারেন্ট চলে গেলো। আমি
উঠলাম না। শুয়ে শুয়ে মোবাইল টিপতে
লাগলাম। হটাত দিদির গলার আওয়াজ পেলাম। দিদি তাঁর রুম থেকে আমাকে বললো
‘অন্তু,কি করছিস রে?’
– কিছুনা দিদি,শুয়ে আছি। দরকার কিছু?
– না,কাজ না থাকলে আয় গল্প করি
– এখনি আসছি দিদি
– না তুই থাক,আমি আসি। একটু সরে বস। নাহলে অন্ধকারের মধ্যে আবার তোর মুখের উপর
পারা দিয়ে দিবো আমি
আনন্দের জোয়ারে আমার মন ভেসে গেলো। বুঝলাম দিদি এখন ফেমডম মুডে আছে।আমি চুপচাপ
শুয়ে থাকলাম। দিদি আমার
রুমে এসে ঢুকলো। এমন না যে রুম ঘুটঘুটে অন্ধকার। সামান্য দেখা যাচ্ছে সবই। সেই
আলোয় আমি দেখলাম দিদি আকাশী
নীল মোজা পরে আছে। দিদি কিন্তু আবছা ভাবে দেখছে আমি কোথায় শুয়ে আছি।কিন্তু এমন
ভান করতে লাগলো যেনো কিছুই
দেখছেনা। ঠিক আমার মাথার সামনে এসে দুই পা আমার মাথার দুই পাশে রেখে দাড়ালো
দিদি।
– অন্তু, কোথায় গেলি? কিছুই দেখছিনা তো। দেখিস আবার পারা দিয়ে দেই নাকি তোর উপর
এটা বলেই দিদি তাঁর নীল মোজা পরা বাম পাটা আমার ঠিক মুখের উপর তুলে দিলো। আমি
স্বর্গে চলে গেলাম। দিদির মোজা
পরা পা আমার পুরো মুখ ঢেকে ফেললো। প্রায় ১২ ঘন্টা ধরে এই মোজা জোড়া পরে আছে
দিদি। তাই মোজায় গন্ধ হয়ে গেছে।
আনন্দে আমি তখন পাগল প্রায়
-কি হলো? কথা বলছিস না কেনো? কোথায় তুই?… আরে,আমার পায়ের নিচে এটা কি রে?
দেখিতো
মুচকি হাসতে হাসতে দিদি তাঁর নীল মোজা পরা পা আমার মুখের উপর ঘসতে লাগলো।

(পার্ট ২)

আমার মুখের উপর নীল মোজা পরা ডান পা রেখে দাড়িয়ে আছে আমার সুন্দরী দিদি। পায়ের
গোড়ালিটা আমার ঠোটের উপর রেখে ঘষতে ঘসতে আমার কপাল পর্যন্ত
নিয়ে আসছে। দিদির আঙুলের অংশটা এসে স্থির হচ্ছে আমার নাকের উপর। দিদির মোজার
মোহনীয় গন্ধ প্রান ভরে শুকছি আমি,আর ভাবছি আমার মত ভাগ্যবান
ভাই পৃথিবীতে কয়জন আছে যে নিজের দিদির মোজা পরা পায়ের আদর খেতে পারছে!
কিছুক্ষণ ঘসার পর দিদি তার মোজা পরা ২পা আমার মাথার ২ পাশে রেখে দাড়িয়ে নিচের
দিকে তাকালো। ‘আরে,এটা তোর মাথা ছিলো? একদমই খেয়াল করিনি রে।
ব্যাথা পেয়েছিস?’। ঠোটের কোনে মুচকি হাসি রেখে জিগ্যেস করলো আমাকে দিদি। আমি
বললাম ‘কি যে বলো। ব্যাথা কেনো পাবো হু? তুমি মাত্র ৪৫ কেজি। তুমি
আমার মুখের উপর উঠে দাড়িয়ে গেলেও আমার কিছু হবেনা’। দিদি খিলখিলিয়ে হেসে বললো
‘আচ্ছা তাই বুঝি? এতো শক্তি হয়েছে তোর? দাড়াবো তোর মুখের
উপর?’। আমার মনে হলো আমার হার্ট বাইরে বেড়িয়ে আসবে। উত্তেজনায় কান দিয়ে গরম
ধোয়া বেরোতে লাগলো। বললাম ‘হ্যা হয়েছেই তো। দাড়াও। কিছুই
হবেনা আমার’। বলতেই দিদি আমার মুখের উপর তার নীল মোজা পরা ডান পাটা রেখে
শরীরের সমস্ত ভর দিয়ে দাড়িয়ে গেলো। আমার মনে হলো আমার
নাক ভেঙ্গে যাবে,কিন্তু এই ব্যাথার মধ্যেও এক অদ্ভুত সুখ পেতে লাগলাম। মনে হলো
আমার দিদির পায়ের নিচে আমার জীবন চলে গেলেও আমার কিছু
যায় আসেনা। আমি শক্ত হয়ে শুয়ে রইলাম। দিদি মুখ থেকে এবার আমার বুকের উপর এসে
দাড়ালো। উপর থেকে আমার দিকে তাকিয়ে বললো ‘কি রে? কেমন
লাগলো?’। আমি বললাম ‘খুব আরাম লেগেছে। কি নরম তোমার পা’। দিদি হাহাহা করে
হাসতে লাগলো। মোজা পরা বাম পা টা আমার মুখের উপর রেখে
দুই তিনবার ঘষে বললো ‘এবার লাগছে আরাম? হা?’ তারপর হাসতে হাসতে আমার উপর থেকে
নেমে গেলো। বললো ‘আমার বিছানায় আয়। গল্প করবো’।
আমি আর দিদি ওর বিছানায় গিয়ে বসলাম।
বিছানায় সেই একই ভাবে দিদি আধশোয়া হয়ে হাটু ভাজ করে বসলো। আমি বসলাম দিদির
পায়ের কাছে। দিদি মোজা পরা ডান পাটা আমার কাধের উপর রেখে
আমার কাধ ঝাকাতে লাগলো। বুঝলাম দিদি আজ ১০০% ফেমডম মুডে আছে। এই সুযোগ মিস করা
যাবেনা। আমি দিদির বাম পাটা আমার কোলের উপর নিয়ে
টিপে দিতে লাগলাম। দিদি ভ্রু কুচকে বললো ‘কি হলো?’। বললাম ‘দিদির সেবা করছি।
শুনেছি দিদির সেবা করলে স্বর্গে যাওয়া যায়’। দিদি মুচকি হেসে তার নীল
মোজা পরা ডান পা আমার গালে লাগিয়ে আস্তে করে একটা ধাক্কা দিয়ে বললো ‘খুব
লক্ষ্মী হয়েছিস না? কবে তুই আমার সেবা করলি বলতো?’। আমি দিদির বাম
পা আমার বুকের উপর চেপে ধরে টিপে দিতে দিতে বললাম ‘বাহ,আগেতো ছোট ছিলাম। অনেক
কিছু বুঝতাম না। এখন বড় হয়েছি। এখন বুঝি যে দিদি আর
মায়ের সেবা করলে আমি স্বর্গে যেতে পারবো। আর তাদের কস্ট দিলে নরকে যেতে হবে।
তাই এখন থেকে শুধু দিদি আর মায়ের সেবা করতে থাকবো’। দিদি
মিস্টি হেসে ওর মোজা পরা ডান পায়ের তলা আমার মুখে একটু ঘষে দিয়ে বললো ‘খুব
লক্ষ্মী হয়েছিস তুই।’।
ঐদিন থেকে দিদি আর ইতস্ততবোধ করতোনা। আমি দিদির পায়ের কাছে বসলেই কথাচ্ছলে
আমার মুখে কাধে পা লাগাতো। আমিও দিদির পা টিপে দিতাম
ইচ্ছামতো। কোন অনুমতি লাগতোনা। দিদি স্কুল থেকে আসার পর ওর জুতা মোজা খুলে
বাথরুমে গোসলে ঢুকতো আর আমি চুপি চুপি ওর রুমে এসে
ওর নোংরা মোজা আমার নাকে চেপে ধরে গন্ধ শুকতাম। ওর জুতোজোড়ায় চুমু দিতাম। আমার
গালে ঘষতাম। দিদি বিছানায় আধশোয়া হয়ে গল্পের বই
পড়ার সময় আমি দিদির পা টিপে দিতে দিতে মাঝে মধ্যে আমার গালে এনে লাগাতাম।
বলতাম ‘কি নরম। একটু গালে ঘষি দিদি?’। দিদি মুচকি হেসে গালে আস্তে
করে একটা লাথি মেরে গল্পের বইয়ে মনোনিবেশ করতো। আমি দিদির পায়ের নিচে নাক মুখ
পাগলের মত ঘষতে থাকতাম। দিদি বাধা দিতোনা।
কয়েক বছর হলো দিদির বিয়ে হয়েছে। শ্বশুরবাড়ি আমাদের শহরেই। দিদি আর আমার ফেমডম
লাইফ বন্ধ বললেই চলে। শ্বশুরবাড়িতে সবার সামনে
এসব করা সম্ভব না। খুব মিস করি দিদির পায়ের স্পর্শ,দিদির মোজার ঘ্রান। তবু
সবসময় ঈশ্বরকে ধন্যবাদ জানাই আমাকে আমার সুন্দরী দিদির
সেবা করার সুযোগ দেওয়ার জন্যে।

 

অনুষ্কা…

 

১……

 

আমার,আর মুড বহুবছর ধরেই ভাল নেই,বিশেষ করে গত মাস দেড়েক, আর উতসবের দিন এলে আরও খারাপ হয়ে যায়। বোধহয় যেকোন একাকিত্বে ভোগা লোকেরই তাই হয়। দিনটা ছিল কালীপুজার, সব লোকে হয় বন্ধু-বান্ধবীর সাথে প্যান্ডেলে ঘুরছে বা বাজি ফাটিয়ে দিওয়ালি পালন করছে। উতসবের দিনগুলোয় আমার সেরকম কিছুই করার থাকে না, আমি সারাদুপুর কিন্ডলে কেনা ফেমডম উপন্যাস শেষ করে কখন যেন ঘুমিয়ে পরেছিলাম। ঘুম ভাঙল বেলের শব্দে। ঘড়ির দিকে তাকিয়ে দেখি সন্ধ্যা ৬ টা ১০। “এখন আবার কে এল?” ভাবতে ভাবতে আমি একটু বিরক্তি নিয়েই দরজা খুলতে উঠলাম। দরজা খুলে একটু অবাকই হলাম। দরজার সামনে দাঁড়িয়ে অনুষ্কা আর তনুষ্কা ।

“ তাড়াতাড়ি দরজা খোল”, অনুষ্কা আমাকে তাড়া দিল।

আমি তাড়াতাড়ি দরজা খুলে দিলাম, তবু অনুষ্কা মুখে হাসি ঝুলিয়ে আমাকে মৃদু ধমক দিল,” দরজা খুলতে এত সময় লাগে?”

“ সরি,” বলে আমি ওদের পিছন পিছন ঘরে ঢুকলাম।

ওরা দুইবোনই আমাদের পাশের বাড়িতে থাকে অনুষ্কা সবে ১৫ পূর্ন করেছে, ক্লাস ১০ এ পড়ে ও। আর তনুষ্কা ওর থেকে সাড়ে চার বছরের ছোট, এখন ওর বয়স সাড়ে ১০, ওর এখন ক্লাস ৫। অনুষ্কার ডাক নাম অনু আর তনুষ্কার তনু। তনুষ্কার গায়ের রঙ খুব ফর্শা , আর এই বয়সেই অপরুপ সুন্দরী হবে ও সেটা বেশ বোঝা যায়। অনুষ্কা ওর ছোট বোনের মতো অত ফর্শা না, ওর গায়ের রঙ অল্প ফর্শা বলা যায়। তবে ওর মুখ অসাধারন সুন্দর, যেন সৌন্দর্যের দেবী নিজে হাতে অনেক পরিশ্রম করে ওর মুখ সৃষ্টি করেছে। ওর উচ্চতা প্রায় ৫’৩”, গড়ন রোগার দিকে। ওকে দেখে ওর সৌন্দর্যে মোহিত হয়ে যায় না এমন ছেলে খুব কম আছে।

ছোটথেকেই ও প্রায় রোজ আমাদের বাড়িতে আসে। ওর প্রতি চিরকালই আমি ভিশন সাবমিসিভ ব্যবহার করে এসেছি।  ও কখনও কিছু আবদার করলে চেষ্টা করেছি সঙ্গে সঙ্গে সেটা কিনে দেওয়ার। সেই সাথে মাঝে মাঝেই ওকে প্রনাম করে বা অন্য কোন ভাবে ওর প্রতি আমার ভক্তি প্রকাশ করার চেষ্টা করেছি কিছুটা।  কখনও ও সেটা স্বাভাবিক ভাবে নিত, কখনও অল্প বাধাও দিত। তবে শেষ ১-২ বছর ও সেটাকে অনেক স্বাভাবিকভাবে নিত। তবে মন যতই চাক, ওর পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করা বা ওর পা টিপে দেওয়ার চেয়ে বেশি সেবা করতে চাওয়ার অনুরোধ করারও সাহস হয়নি কখনও। ফলে ওকে এর বেশি সেবা করার সৌভাগ্যও হয়নি কখনও। তবে স্বপ্নে বহুবছর ধরেই ওর চাকর, ওর ক্রীতদাস হয়ে ওকে সেবা করে আসছি আমি।

ওদের বাবা একটা প্রাইভেট কম্পানিতে অফিসার র‍্যাংকে চাকরি করত। মাস দেড়েক আগে হঠাত একদিন ভোরে ওর বাবা হার্ট এটাকে মারা যান।  ওদের পরিবারের সদস্য বলতে ছিল ওদের বাবা, মা সীমা আর ওরা দুই বোন। হঠাত ওদের বাবার মৃত্যুতে স্বভাবতই মা আর ওরা দুইবোন বেশ ভেঙ্গে পড়ে। ফলে আগে ওরা , বিশেষ করে অনুষ্কা রোজ কয়েক ঘন্টা আমাদের বাড়িতে কাটালেও এই দেড় মাসে একবারও আসেনি। আমি অনুষ্কাকে অল্প যেটুকু সেবা করার সুযোগ পেতাম, যেটুকু সাবমিসিভনেস দেখাতে পারতাম আমার প্রায় অর্ধেক বয়সী এই মেয়েটাকে, সেটা স্বভাবতই খুব এঞ্জয় করতাম। এই মাস দেড়েক সেটা জীবন থেকে চলে যাওয়ায় স্বভাবতই আমি খুব ডিপ্রেসড হয়ে পরেছিলাম। ডিপ্রেশন কমানোর জন্য আমি অফিসের সময় বাদে বাকি বেশিরভাগটা ফেমডম গল্প লিখে বা পড়ে কাটাতে শুরু করেছিলাম।  আমার জীবনে করার মতো আর বিশেষ কিছু ছিলও না অবশ্য। আমার বন্ধু বান্ধব চিরকালই কম, আর এখন তাদের কেউই এই শহরে থাকে না। আমার পরিবারেও কাছের বলতে কেউ ছিল না। বড় বাড়িতে আমি আর আমার সৎ মা , শুধু দুজন বাস করতাম। তার সাথে আমার প্রায় কোনই কথা হত না বহুদিন, বাড়ির দুজনের অংশও আলাদা করা ছিল। আমার নিজের মা আমার ছোটবেলাতেই মারা যান, আর আমার বাবা বছর দুয়েক আগে। আমার একমাত্র দাদা বিয়ের পর জার্মানিতে পার্মানেন্টলি সেটল্ড। ফলে সাবমিসিভনেসের অতলে তলিয়ে যাওয়া ছাড়া আমার আর বিশেষ কোন অপশন ছিল না।আমার বয়স এখন ২৯, আমার চাকরিতে স্যালারি খুবই ভাল, কিন্তু দিনে মাত্র চার সাড়ে চার ঘন্টা ডিউটি করতে হত রোজ। ফলে বাড়ি থেকে রোজ ১১ টায় বেড়িয়ে ৪ টের মধ্যেই বাড়ি ফিরে আসতাম। একা বন্ধুহীন জীবনে অনুষ্কার অনুপস্থিতিতে এই দেড়মাস ওই সময়টাকে সুদীর্ঘ মনে হত। একাকিত্ব কাটাতে যত আমি ফেমডমের রঙ্গীন নেশার জগতে ডুবে যেতাম তত মন আরও সাবমিসিভ হয়ে পরত সুন্দরী মেয়েদের প্রতি।

তারমধ্যেই এই দেড় মাস মাঝে মাঝেই মনে হত অনুষ্কা আর ওদের ৩ জনের পরিবারে কথা। ওর মা সীমার বয়স এখন ৩৬-৩৭ হবে । এখনও যথেষ্ট সুন্দরী, দেখলে আরও কম বয়স মনে হয়। কিন্তু সাধারন একজন গ্রেজুয়েট মহিলার পক্ষে এতদিন পর চাকরি যোগাড় করা খুব কঠিন। ওদের বাবার মৃত্যু ছাড়াও ওরা যে গভীর আর্থিক সমস্যায় পড়তে চলেছে সেটা বুঝে ভিশন খারাপ লাগত। বিশেষ করে বহু বছর যেই মেয়েকে অল্প সেবা করেছি, মনে মনে প্রভুর স্থানে বসিয়ে তাদের কষ্ট দিনদিন মেয়েদের প্রতি আরও সাবমিসিভ হয়ে ওঠা আমি একদমই মেনে নিতে পারতাম না। ঈশ, জীবনটা যদি ফেমডম গল্পের মতো হত, আর আমি যদি নিজের মাইনের সব টাকা ওদের হাতে তুলে দিয়ে পরিবর্তে ওদের বিনা মাইনের চকরের মতো ওদের ফাই ফরমাশ খাটতে পারতাম কি ভালই না হত !

অনুষ্কার পরনে একটা সাদা টপ, পায়ে নীল; লেগিন্স, পায়ে সাদা মোজা আর স্নিকার। ওর বোন তনুষ্কার পরনে গোলাপী-সাদা ফ্রক, পায়ে ছাই রঙের কিটো। দুই বোনকেই অপুর্ব সুন্দরী লাগছে দেখতে।

“  কি করছিলে রনিদা?”, অনু সোফায় বসে জিজ্ঞাসা করল আমাকে। তনুও ওর পাশে বসল।

“ ঘুমাচ্ছিলাম”, আমি ওদের পায়ের থেকে ফুট দুয়েক দূরে মেঝেতে বসে বললাম। বহুদিন বাদে অনুকে দেখে ভিশন ভাল লাগছিল আমার। ইচ্ছা করছিল একবার ওর জুতো পরা পায়ের উপর মাথা রেখে প্রনাম করতে। তনুষ্কার সামনে কয়েকবার ওর দিদির পায়ে হাত দিয়ে প্রনাম করেছি আমি, কিন্তু অনেকদিন পরে দেখা হওয়ায় সাহস পেলাম না।

“ কালীপুজার দিন ঘরে শুয়ে ঘুমাচ্ছ? রেডি হও, চলো একটু ঘুরে আসি আর বাজি কিনে নিয়ে আসি”।

“ চল, আমি এক্ষুনি আসছি”, বলে আমি রেডি হতে গেলাম। বাবার মৃত্যু কাটিয়ে দুইবোন স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করছে দেখে ভাল লাগল।

প্রায় ঘন্টা দেড়েক পরে কিছুটা ঘুরে, বাইরে খেয়ে , অনেক বাজি আর মোমবাতি কিনে ফিরলাম। ওদের জন্য চকোলেট , আইস্ক্রীম, কোল্ড ড্রিংক্স সহ আরও অনেককিছুও কেনা হল। প্রায় হাজার খানেক টাকার বাজি, বাকি খরচও হল প্রায় কাছাকাছি। আমি খুশি মনে খরচ করলাম, মনে মনে যাকে প্রভু বলে ডাকি তার জন্য খরচ করব না তো কার জন্য করব?

 

 

২……

 

বাড়ি ঢুকতেই অনু বলল, “রনিদা, আইস্ক্রীম দাও আমাদের”।

ওরা দুই বোন সোফাতে বসল। আমি “ এক্ষুনি দিচ্ছি” বলে ব্যাগ থেকে ওদের হাতে আইস্ক্রীম দিয়ে জুতো খুলে ভিতরে ঘরে গিয়ে ওদের বাকি খাওয়ার জিনিস ফ্রিজে রেখে ফিরে এলাম বাইরের ঘরে। আবার আগের মতো ওদের পায়ের থেকে ফুট দুয়েক দূরে মেঝেতে বসলাম আমি।

অনুষ্কা আইসক্রীম খেতে খেতে কিরকম এক দুষ্টুমিতে ভরা চোখে আমার দিকে তাকিয়ে রইল কিছুক্ষণ। তারপর আমার চোখের দিকে তাকিয়ে প্রশ্ন করল, “ রনিদা, প্রনাম করবে না আমাকে?”

অনুষ্কার কথায় আমি ঘাবড়ে গেলাম কিছুটা। আমি কি ঠিক শুনলাম। অনু একা থাকলে আমি ওর পায়ে মাথা রেখে আগে প্রায়ই প্রনাম করতাম, শেষ বছর দুয়েক ও তাতে বাধাও দিত না ঠিকই। এমনকি , তনুর সামনেও ওর পায়ে হাত দিয়ে প্রয়াম করেছি কয়েকবার। কিন্তু আজ অব্দি কখনও অনু নিজে থেকে ওকে প্রনাম করতে বলেনি। আর আজ কি ও সত্যিই নিজে থেকে আমার প্রনাম নিতে চাইছে? তাও ওর ছোট বোন তনুর সামনেই? আমার মুখ থেকে বেরিয়ে গেল, “ কি?”

অনু আইসক্রীমটা শেষ করে ফাঁকা বাটিটা টেবিলের উপরে রেখে মুখে যেন একটু রাগ ফুটিয়ে  বলল,

“ আমাকে প্রনাম করে বললাম । থাক, ইচ্ছা না করলে করতে হবে না। চল বোন বাড়ি যাই”।

আমার যেন নিজের কানকে এখনও বিশ্বাস হচ্ছিল না । সত্যি কি অনু নিজে থেকে আমাকে বলছে ওকে প্রনাম করতে? তাও ওর ছোট বোন তনুর সামনেই? আমি দেরী করলাম না, তনুর সামনেই ওর দিদি অনুর জুতো পরা পায়ের উপর মাথা রেখে ওকে শাষ্টাঙ্গে প্রনাম করলাম। ওর জুতো পরা পায়ের উপর মাথা রেখে ভক্তিভরে ওকে প্রনামরত অবস্থায় শুয়ে রইলাম আমি। প্রায় পাঁচ মিনিট এইভাবে অনুর জুতো পরা পায়ের উপর নিজের মাথা রেখে পরে রইলাম আমি। আমার হৃৎপিণ্ড উত্তেজনায় যেন ফেটে দেহ থেকে বেড়িয়ে আসতে চাইছে! উফ, কি যে আনন্দ হচ্ছে আমার! এভাবে অনু ওর ছোট বোনের সামনে আমার টাকায় কেনা দামী আইসক্রীম খেতে খেতে নিজে থেকে আমাকে দিয়ে ওর জুতো পরা পায়ের উপর মাথা রাখিয়ে আমার প্রনাম নেবে , আমি সেটা স্বপ্নেও ভাবতে পারিনি কোনদিন।

পাঁচমিনিট ধরে আমি অনুর জুতো পরা দুই পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করলাম। অনু আমাকে এরমধ্যে একবারও ওর পা থেকে মাথা সরাতে তো বলেওনি বরং মাঝে মাঝেই জুতো পরা একটা পা তুলে ওর সাদা স্নিকারের তলাটা আমার মাথার উপরে বোলাচ্ছিল আর  কালীপুজোর কোন ঠাকুর আর কোন মূর্তিটা ভাল হয়েছে তাই নিয়ে কথা বলছিল ওর বোন তনুর সাথে । আর আমি শুয়ে ছিলাম আমার থেকে সাড়ে চোদ্দ বছরের ছোট পরমা সুন্দরী অনুষ্কার জুতো পরা পায়ের উপরে মাথা রেখে! আমার মনে হচ্ছিল আমি বুঝি স্বর্গ্বে আছি!! আমি ভক্তিভরে আমার প্রভু অনুষ্কার জুতো পরা পায়ের উপর মাথা রেখে ওকে প্রনামরত অবস্থায় শুয়ে ছিলাম। উপর থেকে দুই বোনের কথার ফাঁকে ফাঁকে মাঝে মাঝেই খুক খুক হাসির আওয়াজে বুঝতে পারছিলাম অনুষ্কার কাছে আমার হিউমিলিএশন ওরা দুই বোনই খুব এঞ্জয় করছে।

প্রায় ৫ মিনিট পর তনু পাশ থেকে ওর কিটো পরা পা দিয়ে আমার মাথায় একটা খোঁচা দিয়ে বলল, “ এবার আমাকে প্রনাম কর”।

আমি অনুষ্কার জুতোর উপর থেকে মুখ তুলে ওর মুখের দিকে তাকালাম ওরে উত্তরের আশায়। অনু মুখে কিছু বলল না, জুতো পরা ডান পায়ের তলা দিয়ে আমার মাথাটা ঠেলে দিল ওর বোনের পায়ের দিকে। বুঝলাম, আমার ‘ প্রভু’ চায় আমি ওর বোনকেও প্রনাম করি। আমি অনুর পা থেকে মাথা তুলে তনুর কিটো পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে ওকে প্রনাম করে মেঝেতে হাটুগেড়ে বসলাম ওদের পায়ের কাছে।

“ আমার ডান গালে আলতো একটা চড় মেরে অনুষ্কা বলল, “ রনিদা, চল ছাদে গিয়ে মোমবাতি লাগিয়ে তারপর বাজি ফাটাই।

আমি নিজে থেকেই অনুষ্কার জুতো পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে আরেকবার ওকে প্রনাম করে বললাম, “ চল”। অনুষ্কা সত্যিই নিজের বোনের সামনে এইভাবে আমাকে দিয়ে ওর জুতো পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করাল আমাকে দিয়ে? তারপর সত্যিই নিজের বাইরে পরার স্নিকারের তলা আমার চুলের উপর ঘষল ইচ্ছামতো? হঠাত করে এসব কি করে হচ্ছে? আমার বিষ্ময় যেন তখনও কাটছিল না।

 

৩……

 

অনুষ্কা আমার দিকে তাকিয়ে দুষ্টুমিতে ভরা চোখে তাকাল, “ কিন্তু রনিদা, আমরা তোপ এখনই বাইরে থেকে এলাম। জুতোর তলায় নোংরা লেগে আছে। তোমাদের সিঁড়ি আর ঘর তো নোংরা হয়ে যাবে”।

এতক্ষন এই জুতোর তলাই হাসিমুখে আমার মাথার উপরে ঘষছিল অনুষ্কা আর এখন ভাবছে এই জুতো পরে উপরে গেলে ঘর নোংরা হয়ে যাবে? আমি বুঝতে পারছিলাম অনুষ্কা আসলে অন্য কিছু চাইছে।

কিছু হবে না ম্যাডাম, আর তুমি তো তোমার জুতোর তলা আমার মাথায় ঘষে পরিষ্কার করে নিয়েছ”। অনুষ্কার প্রতি অত্যধিক শ্রদ্ধায় ওর পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে থাকা অবস্থায় আমার হাতজোড় হয়ে গেল।

“ না রনিদা, তুমি বরং এক কাজ কর। আমার পায়ের তলায় হাত পেতে দাও। আমি যেখানে পা দেব সেখানে তার আগেই তুমি হাত পেতে দেবে, আমি তার উপরে আবার আবার পা রাখব। তাহলে আর তোমার ঘর নোংরা হবে না”, মুচকি হাসি দিয়ে বলল অনুষ্কা। আর অনুষ্কার এমন সহজ সমাধান শুনে ওর বোন তনুষ্কা হো হো করে হাসতে লাগল।

“নিশ্চয়ই ম্যাডাম, তুমি যা বলবে”, বলে আমি অনুষ্কার পায়ের সামনে ডান হাতের পাতে পেতে দিলাম। অনু তার উপরে জুতো পরা বাঁ পা রাখল। আমি আর একটু সামনে আমার বাঁ হাতের পাতাপেতে দিলে অনু তার উপরে নিজের জুতো পরা ডান পা টা রাখল। আমি ভক্তিভরে অনুর দুই জুতো পরা পায়ের উপরেই মাথা রেখে প্রনাম করলাম একবার করে, শ্রদ্ধা ভরে চুম্বন করলাম ওর জুতোর উপরে। তারপর ডান হাতের পাতা একটু সামনে পেতে দিলাম, অনু তার উপরে বাঁ পা রাখতে ওর বাঁ জুতোর উপর চুম্বন করে বাঁ হাত তুলে পাতাটা পেতে দিলাম ওর ডান পা রাখার জন্য। তারপর একইভাবে ওর ডান জুতোর উপরে ভক্তিভরে চুম্বন করে ডান হাতের পাতাটা সামনে পেতে দিলাম অনুর বাঁ পা রাখার জন্য।  এইভাবে আমার হাতের পাতায় জুতো পরা পা রেখে অনু সিঁড়ি দিয়ে উপরে উঠতে লাগল। অনুকে এইভাবে আমাকে ডমিনেট করতে দেখে খুক খুক করে হাসতে হাসতে বাজির প্যাকেট হাতে নিয়ে আমাদের একটু সামনে দিয়ে উঠতে লাগল অনুর ছোট বোন তনু। আমার হাতে বেশ যন্ত্রনা করছিল বারবার অনুর জুতোর তলা আর শক্ত সিমেন্টের মাঝে পিষ্ট হওয়ার জন্য। তবু সেই যন্ত্রনাও ভিশন ভাল লাগছিল তার উৎস আমার চিরকালীন কল্পনার প্রভু অনুষ্কার হওয়ায়।  সত্যি তো, অনুর মতো সুন্দরী মেয়ের কাছ থেকে যন্ত্রনা নেওয়া, তাকে এইভাবে সেবা করতে পারাও গর্বের বিষয়। অনু আমার হাতের উপর পা রেখে উপরে উঠতে লাগল আর আমি বারবার ওর জুতো পরা পায়ের উপরে ভক্তিভরে চুম্বন এঁকে দিতে লাগলাম তনুর সামনেই। তিনতলার ছাদে পৌঁছে অনু আমার হাতের উপর থেকে নামল। আমি প্রবল ভক্তিভরে খোলা ছাদেই অনুর জুতো পরা পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করলাম ওকে, ওর জুতোর উপর আবার ভক্তিভরে চুম্বন এঁকে দিলাম।

ছাদে পৌছে আমি কিছু মোমবাতি পরপর ছাদের পাঁচিলে লাগালাম আর ওরা দুই বোন বাজির প্যাকেট খুলে একের পর এক বাজি ফাটাতে ফাটাতে নিজেদের মধ্যে গল্প করতে লাগল। ওদের হাবভাব দেখে মনে হচ্ছিল যেন ছাদে ওরা দুজনেই আছে, আমি নেই। আমাকে অনুর এইভাবে ডমিনেট করার পর আনন্দের মুহুর্তে এইভাবে আমাকে উপেক্ষা করা ওর প্রতি আমার সাবমিসিভনেস, আমার ভক্তি আরও বাড়িয়ে তুলছিল। ইচ্ছা করছিল আবার ওর জুতো পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করতে । কিন্তু অনেক মোমবাতির আলোয় ছাদ আলোকিত অনেক, আশেপাশের বাড়ির ছাদেও অনেকেই আছে। তারা দেখলে কি ভাববে আর অনুও সবার সামনে আমাকে এতটা হিউমিলিয়েট করতে রাজি হবে কিনা বুঝতে না পেরে আমি চুপ করে ওদের পায়ের কাছে ছাদের মেঝেতে বসে রইলাম। ওরা বাজি ফাটানো শেষ করতে অনু আর আগের মতো আমার হাতের পাতার উপর পা রেখে নামতে উতসাহ দেখাল না। দুই বোনই জুতো পরা পায়ে সিঁড়ি দিয়ে নিচে নেমে গেল। ওরা বাড়ি যাওয়ার আগে অনু হাসিমুখে বলল, “ কাল সন্ধ্যায় আবার আসব কিন্তু রনিদা, রেডি থাকিস”। “ নিশ্চয়ই ম্যাডাম বলে আমি প্রায় আমার অর্ধেক বয়সী অনুষ্কার জুতো পরা পায়ের উপর মাথা রেখে প্রনাম করলাম। অনু জীবনে প্রথমবার আমাকে ‘তুই’ করে বলায় ভিশন ভাল লাগল আমার।

“ আর আমার প্রনাম?” , পাশ থেকে তনুষ্কা বলল। অনুষ্কা ওর জুতো পরা ডান পা দিয়ে আমার গালে আলতো একটা লাথি মেরে বলল বোনকেও প্রনাম কর।

“ নিশ্চয়ই ম্যাডাম”, বলে আমি তনুষ্কার কিটো পরা পায়ে মাথা রেখে প্রায় একইরকম ভক্তিভরে ওকেও প্রনাম করলাম। তারপর ওদের সাথে বেরোলাম ঘর থেকে। আমাদের ঠিক পাশের বাড়িটাই ওদের , মাঝের পাঁচিলে মাত্র ৪-৫ টা ইঁট গাথা হওয়ায় সহজেই যে কেউ টপকে যেতে পারে। অনু- তনু পাঁচিল টপকে ওদের বাড়িতে ঢুকে গেলো। আর আমি ঘরে ঢুকে খাটে শুয়ে পরলাম সোজা হয়ে। আমি কি স্বপ্ন দেখলাম এতক্ষন?   নাকি সত্যিই অনু ছোট বোন তনুর সামনেই এইভাবে আমাকে ডমিনেট করল এতক্ষন? হঠাত করে অনু এত ডমিনেটিং হয়ে গেল কেন? কোন বিশেষ কারনের জন্য কি অনু আজকের জন্য ডমিনেটিং হয়ে গিয়েছিল? কাল থেকে কি আবার আগের মতো আচরন করতে শুরু করবে? নাকি অনু বুঝতে পেরেছে আমাকে ডমিনেট করে নিয়ন্ত্রন করলে আমি ওদের এই জটিল আর্থিক পরিস্থিতিতে অনেক কাজে আসতে পারি? নাকি তার বিকল্প ব্যবস্থা ওরা করে ফেলেছে , অনু শুধুই ডোমিনেশন এঞ্জয় করতে চায় এখন থেকে? আমি পুরও নিশ্চিত হতে পারছিলাম না, কিন্তু মন বলছিল অনু বুঝতে পেরেছে ওদের এই আর্থিক শোচনীয়তা থেকে বেরনোর অস্ত্র হতে পারি আমি , আর সেই জন্যই ও আমাকে এইভাবে ডমিনেট করে নিয়ন্ত্রন করতে চাইছে। এবং সেটা হয়ত ওর বোন তনুর মতো ওর মা সীমাও জানে!! তাহলে কি খুব তাড়াতাড়ি ওর মায়ের সামনেও এইভাবে আমাকে ডমিনেট করবে অনু? উফ, ভাবতেই কি আনন্দ!!

পরের দুইদিনও অনেকটা একইরকম স্বপ্নের ঘোরেই কাটল। এই দুইদিনও অনু আর তনু সন্ধ্যাবেলায় আমার বাড়িতে উপস্থিত হয়েছিল। এই দুই দিনও অনু আর তনু প্রথমে আমার পয়াসায় ভাল রেস্টুরেন্টে খেল, তারপর অনেক বাজি কিনল। পরের দিন তো শপিং মলে ঢুকে অনেক শপিংও করল ওরা। তারপর বাড়ি ফিরে সেই একভাবে আমাকে দিয়ে প্রনাম করাল ওরা। অনু যথারীতি আমার মাথার উপর জুতো পরা পায়ের তলাও ঘষল কিছুক্ষণ। সাথে আমার জন্য ওদের অনেক হাঁটতে হয়েছে আর তার ফলে ওদের পায়ে ব্যাথা হয়েছে এই অজুহাত দিয়ে আমাকে দিয়ে পাও টেপাল ওরা দুই বোন। আমি ভক্তিভরেই ওদের দুই বোনের পা টিপে দিলাম দুই দিনই। তারপর সেই একইভাবে আমার হাতের উপর জুতো পরা পা রেখে তিনতলার ছাদে বাজি ফাটাতে উঠল অনুষ্কা। আর ওরা বাড়ি ফেরার আগে একইরকম ভক্তিভরে ওদের পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করলাম আমি। শেষদিন বাড়ি যাওয়ার আগে অনু বলল, “ কাল সকালে দামী চকোলেট আর গিফট নিয়ে আমাদের বাড়িতে ভাইফোঁটা নিতে যাবি রনিদা। মনে রাখিস, গিফট খারাপ হলে মুখে লাথি খাবি”। এইবলে ওরা দুইবোন বাড়ি চলে গেল। আর আমি বেরলাম ওদের জন্য দামী গিফট আর চকোলেট কিনতে। কাল কি ভাইফোঁটার পর ওর মার সামনেও অনু আমাকে বলবে ওর পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করতে? উফ, ভাবতেই যা সুখ! আমি গিফট কিনতে মার্কেটে ঢুকলাম আর আমার মন স্বপ্ন দেখতে লাগল একদিন পাড়ার সবার চোখের সামনে অনুর জুতো পরা পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে ভক্তিভরে প্রনাম করব আমি , আর তার জবাবে অনু আমার মাথার উপর জুতো পরা পা রেখে হাসিমুখে আমাকে আশীর্বাদ করবে!!

( চলবে)…

 

 

রিয়া……

 

এক…

 

রিয়ার মনটা খুব ভাল এখন। নিজের ভাগ্যকে সে কিছুদিন থেকেই বিশ্বাস করতে পারছে না। ছোট থেকেই সে দেখে এসেছে বাবা মা তার চেয়ে দাদাকেই বেশি ভালবাসে। অবশ্য তার দাদা পড়াশোনায় এত ভাল যে সেটা অস্বাভাবিক কিছু না। রিয়ার চেহারা খুবই মিষ্টি, সুন্দরী, কিন্তু পড়াশোনায় সে চিরদিনই ফাঁকিবাজ। সে কারণে বাবা মা তার চেয়ে তার চার বছরের বড় দাদাকে একটু বেশিই ভালবাসে।
অবশ্য ওর দাদা রাজা যে এই অতিরিক্ত ভালবাসার সুযোগ নিয়েছে কখনও এমন না। নিজের ছোট বোন রিয়াকে সে চিরদিনই খুব ভালবাসে। হয়ত নিজের থেকেও একটু বেশি। বাবা মা চিরদিন রাজাকে রিয়ার চেয়ে বেশি হাতখরচ দিত, রিয়া চাইলেই তা থেকে ভাগ দিত রাজা। কেউ কোন উপহার দিলেও ছোট বোনের সংগে ভাগ করে নিত। এমনকি বোন কোন কিছু চাইলে যেভাবেই হোক সেটা পূর্ন করত রাজা।
তবু, বাবা মায়ের দাদার প্রতি পক্ষপাতিত্বপূর্ন আচরন এর পরও খুব ব্যথা দিত রিয়াকে। ক্রমশ রিয়া যখন বুঝল, দাদা তাকে খুব ভালবাসে, এবং সে যা চাইবে তাই তাকে দেবে দাদা, সে তখন এর প্রতিশোধ নিতে শুরু করল দাদার উপর। বাবা মার সামনে সে আসতে আসতে দাদার উপর ছোটখাট হুকুম করতে শুরু করল। রাজা হাসিমুখে চার বছরের ছোট সুন্দরী মিষ্টি বোন রিয়ার সব হুকুম পালন করত। রিয়া তখন ক্লাস ৭ এ উঠেছে সবে। “দাদা, টিভির রিমোট এনে দে, দাদা জল নিয়ে আয়, দাদা স্কুল থেকে ফেরার সময় আমার জন্য চকোলেট আনবি, নাহলে মার খাবি”, এইভাবেই দাদার উপর হুকুম করত রিয়া। তার বাধ্য দাদা বিনা প্রশ্নে হাসিমুখে তার সব আদেশ পালন করত। আর বাবা মা কে দেখিয়ে তাদের সামনে দাদাকে হুকুম করতে দারুন লাগত রিয়ার। বাবা মা যে দাদাকে বেশি ভালবাসে, তাকে কম, এর দারুন প্রতিশোধ সে নিচ্ছে এই ভেবে দারুন খুশি হত তার মন।
তবে তার বাবা মা স্বাভাবিকভাবেই দাদার সাথে তার এই আচরন পছন্দ করত না। তাকে বকতো দাদার সাথে এই আচরনের জন্য। অথচ, দাদাই বলত কি হয়েছে মা এতে, দাদা কি বোনের জন্য এটুকু করতে পারে না?

তার দাদা তখন সদ্য মাধ্যমিক পাশ করে ১১ এ উঠেছে। বাবা মার বাধ্য ভাল ছেলে রাজা দারুন রেজাল্ট করেছিল, রাজ্যের মধ্যে প্রথম ২০ র মধ্যে স্থান পেয়েছিল সে। তার বাবা মা ভয়ানক খুশি হয়েছিল রেজাল্ট বেরনোর দিন। বাবা মার সব মনযোগ দাদার দিকে যাওয়া রিয়ার মনে হিংসার উদ্রেক করছিল। সে মনমরা হয়ে বসেছিল পাশের ঘরে। দাদা রেজাল্ট নিয়ে সবে ঘরে ফিরেছে। বাবা তাকে জড়িয়ে ধরে বলল,” আমি আজ দারুন খুশি রে রাজা। আমাদের মুখ উজ্জ্বল করেছিস তুই। কি চাস বল তুই।”
রাজা বলল, ” প্রমিস কর আমি যা চাই তাই দেবে। না করবে না।”
ওদের বাবা খুশি গলায় বলল, ” নিশ্চয়ই দেব। প্রমিস।”
রাজা দু:খ মিশ্রিত স্বরে বলল, ” আমি পড়াশোনায় ভাল আর রিয়া একটু খারাপ বলে তোমরা রিয়াকে অবহেলা কর এটা কি ঠিক? তোমরা আমাকে নিয়ে আনন্দ করছ আর আমার বোনটা পাশের ঘরে মন খারাপ করে বসে আছে। তোমাদের কি একটুও খারাপ লাগে না। আমার আর কিছু চাই না। শুধু কথা দাও ওকে তোমরা আর বকবে না। ওর দায়িত্ব আমার, ওর খারাপ কিছু হলে আমাকে বল। আর ও আমাকে হুকুম করুক, যা খুশি বলুক, তোমরা বাধা দেবে না। আর আমাকে তোমরা এখন থেকে যা উপহার বা হাতখরচ দেবে, রিয়াকে অন্তত তার দ্বিগুণ দেবে। প্রমিস করেছিলে কিন্তু আমি যা চাইব দেবে বাবা।”
দাদার কথা শুনে অবাক হয়ে গিয়েছিল রিয়া। এ কি চাইছে তার দাদা? এরকম কেউ চাইতে পারে? পাশের ঘরের পর্দার ফাঁক দিয়ে সে উঁকি মেরে তাকিয়েছিল বাবা আর দাদার দিকে। বাবার চোখের চাউনি অদ্ভুত হয়ে গিয়েছিল ওর দাদার কথায়। ” এটা আবার কি অদ্ভুত কথা। কোথায় নিজের জন্য ভাল কিছু চাইবি, একটা ল্যাপটপ, বাইক বা অন্তত ভাল মোবাইল। তার বদলে তুই নিজের চেয়ে বোনকে বেশি জিনিস দেওয়ার জন্য রিকোয়েস্ট করছিস? পাগলামি ছাড়, ওকেও নাহয় তোর সমান হাতখরচ দেব। এখন তুই কি নিবি বল।”
রাজার গলার স্বর শক্ত হল” তুমি প্রমিস করেছিলে বাবা, আমি যা চাই তাই দেবে। আর আমি রিয়াকে কতটা ভালবাসি, তোমরা কল্পনাও করতে পারবে না। আমার গালে একটা থাপ্পর মারার পর যদি রিয়ার মুখে হাসি ফুটে ওঠে, তাহলে সেই হাসির দাম আমার কাছে কোটি টাকার চেয়েও বেশি।”
” ঠিক আছে, তাই হবে যা তুই চাইছিস। এখন থেকে তোকে ১০ টাকা দিলে রিয়াকে ২০ টাকা দেব। ওর ভবিষ্যতের চিন্তাও তোর উপর ছেড়ে দিলাম।” ওদের বাবার গলার স্বর একটু ভারি শোনাল।

” আরও একটা কথা দেওয়া বাকি রইল কিন্তু। ও যদি আমাকে হুকুম করে কখনও, বা তোমাদের মনে হয় ও আমার সংগে খারাপ ব্যবহার করছে, তাও তোমরা কিছু বলবে না। ওকে তোমরা আর কখনও শাসন করবে না। ওর ভবিষ্যত খারাপ হবে না কথা দিলাম।”
” ঠিক আছে, কথা দিলাম। তুই যা চাস তাই হবে। আর তুই দায়িত্ব নিয়ে বলছিস যখন তখন তুই দেখলে   রিয়ার ভবিষ্যত খারাপ হবে না সেই বিশ্বাস তোর উপর আছে আমার। কিন্তু ছোট বোন হয়ে ও কিছুদিন হল মাঝে মাঝেই বড় দাদার উপর হুকুম করছে দেখছি। এটা কি ঠিক? তুইই বল।”
” বাবা, সবচেয়ে বড় বেঠিক হল তোমরা ওর সাথে যা করেছ। একটা ছোট মেয়েকে পটাশোনার কারনে বাধ্য করেছ বড় দাদাকে হিংসা করতে। ওর মনের উপর কত বড় আঘাত তুমি দিয়েছ তোমার কোন ধারনা নেই। ও আমাকে হুকুম করে তাতে খারাপ কি আছে? ও খুশি হয় এতে। আর আমিও খুশি হই তাতে। ও আমার ছোট বোন, ওকে আমি নিজের চেয়ে অনেক বেশি ভালবাসি। আর যেই আচরনে কারও কোন ক্ষতি হয় না, বরং সবাই খুশি হয় তা কখনই খারাপ না। বরং সেটাই হওয়া উচিত।”
” ঠিক আছে, তুই যা বলছিস তাই হবে। আমরা আর কিছু বলব না তোদের। তোর উপর আমার ভরসা আছে।”
রিয়ার অবাক লাগছিল ভিশন। বাবা মা কেউই যেখানে তাকে ভালবাসে না, সেখানে দাদা এত ভাল হয় কি করে? এত এত বেশি ভাল? কি করে নিজের চেয়েও এত বেশি ভালবাসে তাকে যে সে হুকুম করলেও হাসিমুখে সহ্য করে? তার মুখে হাসি ফোটানোর জন্য নিজের গাল পেতে দিতে পারে থাপ্পর খাওয়ার জন্য? এক অদ্ভুত আনন্দে রিয়ার ভিতরটা গুমড়ে উঠছিল। সে আর পারল না। দরজার পর্দাটা আঁকড়ে তার মধ্যে মুখটা অর্ধেক গুঁজে ফুঁপিয়ে কাদতে লাগল আনন্দে। ঠিক সেই সময় ওর দাদা রাজা ওর পাশে এসে দাঁড়াল্ল। তারপর ওর পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে ওরদিকে হাতজোড় করে বলল, ” জানি রে রিয়া, আমার জন্য অনেক কষ্ট পেয়েছিস তুই জীবনে। বিশ্বাস কর, আমি জীবনে কখনও চাইনি বাবা মা আমাকে বেশি ভালবাসুক। কখনও চাইনি তোর চেয়ে আমাকে বেশি গিফট দিক। তোকে খুব ভালবাসি রে বোন, আমি শুধু চেয়েছি তুই খুশি থাক। তোর মুখে হাসি দেখলে আমার যত ভাল লাগে, ততটা আর কিছুতেই লাগে না। তবু, আমাকে বেশি ভালবেসে আর তোকে উপেক্ষা করে বাবা মা তোকে যে কষ্ট দিয়েছে তার জন্য আমিও দায়ী। প্লিজ, এবারের মত ক্ষমা করে দে রিয়া, দেখ আর কোনদিন কেউ তোর সঙ্গে কেউ এরকম করবে না। আর আমি এখন থেকে তাই করব, যা আমার ছোট্ট বোনটা হুকুম করবে।”
এই বলে রাজা যা করল রিয়া তার জন্য প্রস্তুত ছিল না। তার পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসা দাদা রাজা তার নীল চটি পরা পা দুটোর উপর নিজের মাথাটা নামিয়ে দিল। ছোট্ট বোনের পায়ের উপর নিজের মাথাটা রেখে রাজা বলল,” প্লিজ বোন। আজ পর্যন্ত আমার ভুলে অনেক কষ্ট পেয়েছিস তুই। আজও পেয়েছিস। আর কখনও এরকম হবে না। প্লিজ, এবারের মত ক্ষমা করে দে আমাকে, প্লিজ।”
বাবা আর মা অবাক চোখে দেখছে তাকে আর দাদাকে। আর তার দাদা তার চটি পরা পায়ের উপর মাথা রেখে তার কাছে ক্ষমা চাইছে! এক অদ্ভুত আনন্দ রিয়ার দেহে ঝড় তুলল যেন। সে নিজে যা করল এরপর তার জন্য যেন সে নিজেও প্রস্তুত ছিল না। চটি পরা ডান পা টা তুলে সে দাদার মাথার উপর রাখল। চটির তলাটা কয়েক সেকেন্ড ঘসল নিজের দাদার মাথার উপর। তারপর চটি পরা ডান পা টা দাদার মাথার উপর স্থির করে রেখে সে বলল,” ঠিক আছে দাদা। তোকে ক্ষমা করে দিলাম যা। তবে এখন থেকে আমার সব কথা শুনে চলবি কিন্তু।”
রাজা রিয়ার বাঁ পায়ের পাতায় আলতো একটা চুম্বন করে বলল, ” নিশ্চয়ই বোন। এখন থেকে তোর প্রত্যেকটা হুকুম মানবো আমি।”
রিয়া তাকিয়ে দেখল বাবা মা হতবাক হয়ে তাদের দিকে তাকিয়ে দেখছে। আর সে চটি পরা ডান পা দাদার মাথার উপর রেখে দাঁড়িয়ে আছে বাবা মার সামনে। রিয়ার মন এক অদ্ভুত খুশিতে ভরে উঠেছিল। সে সংগে সংগে দাদার মাথার উপর থেকে পা সরাল না, চটি পরা ডান পা টা দাদার মাথার উপর রেখে দাঁড়িয়ে রইল। দাদা মাথার দুই পাশে হাত ছড়িয়ে তার চটি পরা বাঁ পায়ের উপর মাথা রেখে যেন নিজের ছোট বোনকে ভক্তিভরে শাষ্টাংগে প্রনাম করছিল বাবা মায়ের সামনেই। রিয়া প্রায় ২ মিনিট দাদার মাথার উপর চটি পরা ডান পা রেখে দাঁড়িয়ে রইল। তারপর দাদার মাথার উপর থেকে পা নামিয়ে বলল,” দাদা আমার ঘরে আয়। তোর সাথে কথা আছে।” এইবলে রিয়া একবার বাবা মায়ের দিকে তাকিয়ে দেখে নিজের ঘরে চলে এল। রাজাও বোনের পায়ের তলা থেকে উঠে বোনের আদেশ মত বোনের পিছু পিছু বোনের ঘরে ঢুকল।

 

 

দুই……

 

 

নিজের ঘরে ঢুকে রিয়া নিজের খাটে পা ঝুলিয়ে বসল। আর রাজা আবার বোনের ঠিক পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসল। হাতজোড় করে বোনের সুন্দর মুখের দিকে তাকাল রাজা।

রিয়া রাজার দিকে চেয়ে মুচকি হাসল, তারপর দাদার দুই গালে হঠাতই পরপর দুটো থাপ্পর মারল বেশ জোরে । রাজা অবাক হয়ে তাকাল নিজের বোনের দিকে, কিন্তু একবারও বাধা দিল না। বোন দুটো থাপ্পর মেরে থামতেই রাজা ওর চার বছরের ছোট বোন রিয়ার নীল চটি পড়া দুই পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে বোনকে প্রনাম করল একবার, তারপর আবার বোনের সামনে হাটুগেড়ে হাতজোড় করে বসে বোনের সুন্দর মুখের দিকে তাকাল।

রিয়া কয়েক সেকেন্ডের জন্য গম্ভীর ভাব আনার চেষ্টা করল মুখে, তারপর হাসিতে ফেটে পরল। প্রায় এক মিনিট পর হাসি থামিয়ে রিয়া দাদার দিকে তাকিয়ে বলল, “ তুই এরকম কেন রে দাদা। আমাকে ভালবাসিস বলে আমি তোর গালে জোরে থাপ্পর মারলেও বাধা দিবি না আমাকে? উল্টে আমার পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করবি? তুই কি পাগল রে দাদা?”

জবাবে মাথা নিচু করে ফেলল রাজা। প্রায় বোনের পায়ের দিকে তাকিয়ে উত্তর দিল, “ তোকে আমি খুব ভালবাসি রে রিয়া। বাবা মা যখন তোর থেকে আমাকে বেশি ভালবাসা দেয় তখন আমার খারাপ লাগে খুব, চিরদিনই। আমি চাই সব আদর, ভালবাসা, উপহার তুই পাস। আমি তোকে খুশি দেখে আর তোর সেবা করেই খুশি থাকব রে বোন”।

রিয়া অবাক অয়ে দাদার দিকে তাকাল। ডান হাতের পাতা দিয়ে দাদার মুখটা তুলে দাদার চোখের দিকে চাইল। “ আমি তোর চেয়ে ছোট। আমি তোকে হুকুম করলে , মারলে, তোর কি একটুও খারাপ লাগে না? তুই বড় হয়ে আমার পায়ে মাথা রেখে প্রনাম করলি, তাতেও খারাপ লাগল না তোর?”

“ না রে বোন। আমি তোকে শুধু ভালই বাসি না, তোকে ভক্তিও করি। তোকে দেখলেই কেন জানি না দেবী বা আমার প্রভু বলে ভাবতে ইচ্ছা করে। তোর পায়ের উপর মাথা রাখলে মনে হয় স্বয়ং ঈশ্বরের চরনে নিজেকে সমর্পন করেছি। তুই হুকুম করলে বা আমাকে মারলে কি যে আনন্দ পাই তোকে আমি বলে বোঝাতে পারব না রে বোন। আমি এরকমই রে বোন , প্লিজ আমার উপর রাগ করিস না, প্লিজ”। এই বলে রাজা আবার নিজের মাথাটা বোনের চটি পড়া পায়ের উপর নামিয়ে দিল। চার বছরের ছোট সুন্দরী বোন রিয়ার নীল চটি পরা পায়ের উপর মাথা রেখে ভক্তিভরে প্রনামরত অবস্থায় শুয়ে রইল রাজা।

প্রায় ২ মিনিট রিয়ার পায়ের উপর মাথা রেখে পরে রইল রাজা। তার পায়ের উপর মাথা রেখে শুয়ে থাকা দাদার দিকে একদৃষ্টে তাকিয়ে রয়েছিল রিয়া। তার খারাপ তো লাগছিলই না, এক অদ্ভুত শান্তিতে মন ভরে গিয়েছিল। এত ভাল একটা দাদা পাওয়ার জন্য নিজেকে তার সত্যিই ভাগ্যবান বলে মনে হচ্ছিল।

প্রায় দুই মিনিট পর রিয়া নিচু হয়ে ঝুকে দাদার কাঁধ দুটো ধরে দাদাকে উঠিয়ে বসাল, তারপর মাথাটা নামিয়ে দাদার কপালে একটা চুমু একে দিল। “ তোকেও আমি খুব ভালবাসি রে দাদা, এবার খাটে উঠে বস তুই”।

রাজা হাতজোড় করে বোনের দিকে চেয়ে বলল “ প্লিজ বোন, আমাকে তোর পায়ের কাছে বসতে দে”।

হাসিমুখে দাদার গালে ডান হাত দিয়ে একটা থাপ্পর মারল রিয়া, “ আমার আদেশ অমান্য করছিস তুই?”

“ না প্রভু, আমি সরি। তোমার কোন আদেশ আমি কখনও অমান্য করব না”। এই বলে আবার রিয়ার চটি পড়া পায়ের উপর মাথা রেখে প্রনাম করল রাজা, তারপর খাটে উঠে বোনের পাশে বসল।

রাজার ডান হাতটা নিজের হাতের মুঠোয় টেনে নিল রিইয়া, “ দাদা , আমি সরি। তুই এত্ত ভাল রেজাল্ট করলি আর আমি তোর খুশিতে খুশি না হয়ে হিংশুটে বোনের মতো মনে হিংসা নিয়ে পাশের ঘরে বসে ছিলাম। আর কনগ্র্যাটস এত্ত ভাল রেজাল্ট করার জন্য। আশির্বাদ কর আমিও যেন তোর মতো ভাল রেজাল্ট করতে পারি”।

“ না রে বোন, তোত কোন দোষ নেই। দোষ আমার আর বাবা মার, তোর মতো এত্ত ভাল একটা মেয়েকে ছোট থেকে এত্ত দুঃখ দেওয়ার জন্য। তবে প্রমিস করছি, আর কখনও আমি তোকে হিংসা করার সুযোগই দেব না। আর আশির্বাদ তো তুই আমাকে করবি এখন থেকে রোজ, আমার মাথার উপর পা রেখে”।

রিয়ার মুখ হাসিতে উজ্জ্বল হয়ে উঠল দাদার কথায়। “ একদম, লাভ ইউ দাদা”, বলে দাদার হাতটা নিজের হাতের মুঠোয় চেপে ধরল রিয়া । আর রাজা বোনের দিকে ঝুকে বোনের কপালে একটা চুম্বন করল।

“ চল দাদা, দুজনে মিলে কম্পিউটারে গেম খেলি”, রিয়া বলল খাট থেকে নিচে নামতে নামতে।

“চল”, রাজাও খাট থেকে নেমে বলল, তারপর দুজনে পাশের ঘরে গিয়ে কম্পিউটার খুলে গ্রেম খেলতে লাগল।

 

ওদের বাড়িতে সবাই খুশি আজ। পাড়ার অনেক লোকেই এসে অভিনন্দন জানিয়ে গেছে রাজাকে। ওদের বাবা মা  ভিশন খুশি রাজার রেজাল্টে। রাজাও খুশি ভাল রেজাল্ট করতে পেরে, আর তার চেয়েও অনেক বেশি খুশি বোনের মুখে হাসি ফোটাতে পেরে, আর বোনকে তার উপর যা খুশি হুকুম করার অধিকার দিতে পেরে। আর রিয়াও খুব খুশি বহুদিন পর, তার সুন্দর মুখ খুশিতে ঝলমল করছে আজ। সত্যি, রাজার মতো ভাল দাদা যেই বোনের থাকে সে কি খুশি না থেকে পারে?

ঘড়ির কাটা ১০ টা ছুলে ওদের মা খেত্যে ডাকল ওদের। রাজার দুর্দান্ত রেজাল্টের খুশিতে ওর মা আজ মটন বিরিয়ানি আর চিলি চিকেন বানিয়েছেন, সঙ্গে মিষ্টি, কোল্ড ড্রিংক্স আর আইস ক্রিম তো আছেই। ৪ জনে ডাইনিং টেবিলে বসে খেতে থাকল। রান্নাটা সত্যিই ভাল করে ওদের মা তনয়া। ওরা সবাই তৃপ্তি করে বিরিয়ানি খাচ্ছিল। ওদের বাবা তরুনবাবু রাজাকে ওর ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে জিজ্ঞেস করছিল। রিয়া দাদার কথাকে ভেঙ্গিয়ে ছোট বোন সুলভ ব্যাঙ্গ করছিল মাঝে মাঝে। তরুনবাবু খুব সিরিয়াস মানুষ, আর ক্লাস ৭ এ পরা রিয়া একটু ফাজিল। রিয়ার এত ফাজলামি করার প্রবনতা কোনদিনই সহ্য করতে পারে না ওদের বাবা। আশ্চর্য হয়ে রিয়া লক্ষ্য করছিল ওর বাবা আজ মোটেই রেগে যাচ্ছে না ।

পেটভরে ডিনার শেষ করে একসাথেই উঠল দুই ভাই বোন। রিয়া লক্ষ্য করল দাদার খাওয়া আগে শেষ হয়ে গেলেও তার আগে দাদা উঠল না। ও খাওয়া সেরে উঠলে তবেই দাদা চেয়ার ছেড়ে উঠল।

হাত ধুয়ে রিয়া চেয়ারটা ঘরের মাঝখানে টেনে বসল। একবার বাবা মায়ের দিকে আড়চোখে চেয়ে দেখল, তার চোখে মুখে এখন দুষ্টুমি ভরা হাসি।

“ দাদা, টিভিটা অন করে রিমোট টা আমায় দে তো”, বাবা মায়ের সামনেই দাদাকে দিয়ে আবার কাজ করান শুরু করল রিয়া।

“ এক্ষুনি দিচ্ছি বোন”, বলে রাজা সঙ্গে সঙ্গে টিভি অন করে রিমোট বোনের হাতে তুলে দিল।

“ এবার আমার জন্য এক গ্লাস থামস আপ নিয়ে আয়”, দাদাকে আবার হুকুম করল রিয়া।

“দিচ্ছি বোন”, বলে সুন্দর কাঁচের গ্লাসে এক গ্লাস থামস আপ এনে বোনের হাতে দিল রাজা।

“ আর কিছু করতে হবে রে বোন?”

দাদার প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার আগে হাসিমুখে একবার বাবা মায়ের দিকে আড়চোখে তাকিয়ে নিল রিয়া। তারপর বলল, “হবেই তো। চুপচাপ আমার পায়ের কাছে বস আগে”।

“ নিশ্চয়ই বোন”, এই বলে রাজা ঠিক রিয়ার পায়ের কাছে বসে পরল।

দাদার কোলের উপর নীল চটি পড়া পা দুটো তুলে দিল রিয়া। “ আমার পা দুটো খুব ব্যাথা করছে। এবার ভাল দাদার মতো ছোট বোনের পা টিপতে থাক।

“ অবশ্যই বোন। যখনই তোর পায়ে ব্যাথা করবে আমাকে বলিস, আমি তোর পা টিপে দেব”, রিয়ার পা টিপতে টিপতে উত্তর দিল রাজা।

রিয়া অবাক হয়ে দেখল ওদের বাবা মা কেউই ওকে বারন করল না আজ। বোধহয় দাদাকে বাবা কথা দিয়েছে বলেই কিভহু বলল না। এর মানে এখন থেকে সে সত্যিই বাবা মার সামনেই দাদাকে যা খুশি হুকুম করতে পারবে! ভাবতেই দারুন আনন্দে ভেসে যেতে লাগল রিয়া।

রিয়ার পরনে ছিল একটা কাল টপ আর ধুসর লেগিন্স, পায়ে নীল চটি। ওর নীল চটি পরা পা দুটো রাখা ওর দাদা রাজার কোলে। আর দাদা যত্ন করে ওর পা দুটো পালা করে টিপে দিচ্ছিল। একবার বাঁ পায়ের পাতা থেকে শুরু করে পায়ের কাফ অবধি টিপছিল, তারপর আবার নেমে আসছিল পায়ের পাতায়। তারপর পা বদলে একইভাবে ছোট বোন রিয়ার ডান পা টা টিপছিল রাজা। তারপর আবার অন্য পা টিপছিল। এইভাবে বাবা মার সামনে ভক্তিভরে ছোট বোন রিয়ার পা টিপে যাচ্ছিল রাজা। আর সিনেমা দেখতে দেখতে দাদাকে দিয়ে পা টেপাচ্ছিল রিয়া আর কোল্ড ড্রিংক্সের গ্লাসে ছোট ছোট চুমুক দিচ্ছিল । পা টেপানোয় সত্যিই আরাম বোধ করছিল সে, তবে তার চেয়েও ভাল লাগছিল বাবা মায়ের সামনে এইভাবে দাদাকে দিয়ে পা টেপানোর ক্ষমতা পেয়ে। ওর বাবা মা চিরদিন দাদাকে তার চেয়ে অনেক বেশি ভালবাসা দিয়ে এসেছে, দাদা পড়াশোনায় বেশি ভাল বলে। আর সেই দাদা যেদিন মাধ্যমিকে এত ভাল রেজাল্ট করল সেইদিনই সে বাবা মায়ের সামনে সেই দাদাকে দিয়ে পা টেপাতে পারছে! এটা ঠিক এই ক্ষমতা সে দাদার জন্যই পেয়েছে, তবু এইভাবে বাবা মার সামনে দাদাকে দিয়ে পা টেপাতে পেরে এক অদ্ভুত আনন্দ পাচ্ছিল রিয়া। সে মনে মনে ভাবল, সিনেমাটা শেষ হতে আরও প্রায় দুই ঘন্টা বাকি। এই পুরো সময় সে দাদাকে দিয়ে পা টেপাবে। আর এরপর থেকে রোজই রাতে খাওয়ার পর এভাবেই বাবা মার সামনে দাদাকে দিয়ে পা টেপাবে সে। বাবা মা দাদাকে মাথায় তুলে তাকে অবহেলা করতে চেয়েছিল, এখন দেখুক সেই দাদা তার পায়ের কাছে বসে চাকরের মতো তার পা টিপে দেয় রোজ। রিয়া আড়চোখে দেখল বাবা মা খাওয়া শেষ করে ঘরের কোনে পাতা সোফায় বসে এক দৃষ্টে ওদের দেখছে। কিন্তু দাদাকে কথা দেওয়ায় ওকে আর বাধা দিতে পারছে না।