Archives for category: Uncategorized

রিতেশ  / Ritesh ( by khoka )

( ২১ বছর বয়সী রিতেশ গ্র্যাজুয়েশন কমপ্লিট করার পর চাকরি জোগাড় করার চেষ্টা করতে লাগল। কিন্তু এই বাজারে একজন সদ্য গ্র্যাজুয়েটের চাকরি কোথায় ?  অথচ তাদের পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভাল না, তার একটা চাকরির খুব দরকার . বাধ্য হয়ে তাদের উত্তরবঙ্গের ছোট্ট বাড়ি ছেড়ে সে এল কোলকাতায় , তার বড়লোক ব্যাবসায়ী পিসির বাড়িতে ।তার পিসি প্রীতি বড়লোক ও খুব প্রভাবশালী মহিলা, ইচ্ছা করলেই তার চাকরির ব্যাবস্থা করে দিতে পারেন । কিন্তু তিনি ততটা দয়ালু না । পিসির বাড়িতে কয়েকদিন থেকে রিতেশ বুঝে গেল পিসির একমাত্র দুর্বলতা তার ১৭ বছর বয়সী মেয়ে প্রিয়াঙ্কা । প্রিয়াঙ্কার কোন অনুরোধই ফেলতে পারেন না পিসি । রিতেশ ঠিক করল যেভাবে হোক পিসতুতো বোন প্রিয়াঙ্কাকে খুশি করে ওকে দিয়ে পিসিকে বলাতে হবে তার একটা চাকরির ব্যাবস্থা করে দিতে । তাহলেই তার চাকরি নিশ্চিত । কিন্তু হায় , রিতেশ জানত না, তাকে নিয়ে অন্য কিছু প্ল্যান আছে তার কাজিন প্রিয়াঙ্কার । প্রিয়াঙ্কাকে খুশি করতে রিতেশ যত ওর বোনের প্রতি সাবমিসিভ হয়ে উঠতে লাগল, তার সুবিধা নিতে লাগল প্রিয়াঙ্কা । দাদা রিতেশকে চাকরের মতো ব্যবহার করতে লাগল প্রিয়াঙ্কা । রিতেশেরও কেন যেন সুন্দরী পিসতুতো বোনের সেবা করতে ক্রমে খুব ভাল লাগতে শুরু করল । কোথায় গিয়ে থামবে তাদের এই সম্পর্ক ?…..)

Priyanka roy is an athletic Indian bengali girl with a beautiful face and always had a bitchy smile on her face…
She is 17 and just passed 12 th grade…Her mother was a successful rich business woman preeti roy..age 40….
Her cousin ritesh was 21 and just graduated….He had come over to their house to ask preeti if she could somehow managed to arrange a job for him…. Preeti could have done it easily if she wanted but she wasn’t that kind..She told him to stay at their house till she finds a suitable job for him..
It was 6 a.m. in the morning.. ”রিতেশ, কোথায় তুই গাধা?.” ( Ritesh , where are you idiot ? ) priyanka shouted from her bed sleepily.

Ritesh was sleeping too..but he woke up hearing her voice….He asked her why she had called him… “ আমার ব্রাশ করা শেষ হওয়ার আগে আমার জন্য এক কাপ কফি করে আন ।…” ( make a cup of coffee before I brush my teeth .)

with that she woke up went to brush her teeth…Ritesh was left puzzled…She was treating him as if he was her servant…But he decided just to make some coffee for her and then get back to sleep again. he made her some coffee and offered her the coffee… She sat down on the sofa and started sipping her coffee…Ritesh turned around and was leaving the room….But he was stopped by priyanka….”এই গাধা , কোথায় যাচ্ছিস ?” (hey fool , where are you going ?” priyanka said a bit sternly.

.“.আমার ঘুম পাচ্ছে । আমি শুতে যাচ্ছি ।”, ( I am feeling sleepy . I need to sleep now .)  Ritesh said in an irritated tone….although he always thought she was  sweet and beautiful , he never really liked her because of her attitude…
“মাথা নিচু করে নরম গলায় জবাব দে, মালকিনের সাথে কিভাবে কথা বলতে হয় শিখিসনি ?”, ( speek with respect you idiot, don’t forget that you are my servant .)  priyanka said a bit angrily and then suddenly slapped him hard on the chick.

Ritesh become totally speechless by the hard slap given by his little cousin sister. Then he recovered himself and replied…”সরি, আমার ঘুম পেয়েছে খুব, তাই ভুল হয়ে গেছে । আমাকে এবারের মতো ক্ষমা করে দাও প্লিজ ।.” (very very sorry . I am feeling sleepy and so make a mistake . please forgive me ) .

Ritesh wanted to avoid quarreling with her. So he lowered his voice.  “ কিন্তু আমি চাইনা তুই এখন শুতে যাস । আর চাকরেরা তাই করে যা তাদের মালকিন বলে ।” (I don’t allow you to sleep now . I want you to serve me , and you should do what I say , because I am your mistress.).  Priyanka said with a smirk and placed her legs on the stool…

“ তুই কবে থেকে আমার মালকিন হলি ?” ( You are my little cousin sister , not my mistress) Ritesh said a bit angrily…

”তুই আমাদের বাড়িতে থাকছিস । আর তোর চাকরি পেতে আমার হেল্প দরকার । কিন্তু তোর নামে আমি যদি মাকে খারাপ কিছু বলি তার ফল কি হবে জানিস?” ( you are dependent on us , staying on our house .  You need a job very badly . But if you don’t behave well with me , and  I complain about you to my mom , do you know what will be the result of that ?)  priyanka said confidently.

“ প্লিজ এরকম করিস না আমার সাথে । আমি তোর দাদা , তোর সামনে হাতজোড় করছি । প্লিজ , একটু দয়া কর আমার উপরে”। ( please don’t do that . I am your brother , and still I am praying to you . please have a little mercy on me ), ritesh requested to his cousin sister by folding his arms.

” Priyanka smiled, “ তুই আমার দাদা না , আমার পোশা গাধা আর চাকর । চাকরি পাওয়ার ইচ্ছা থাকলে আমার পায়ের উপর মাথা রেখে ক্ষমা চা এক্ষুনি”। ( you are nothing more than a servant to me . If you want mercy , touch your forehead to my feet and beg for it. )
RITESH knew that the situation is now totally out of his hand. He may reject  his cousin sister’s request and go back to home, but his family has financial problems. And he needed the job very much.So,  Ritesh kneeled down in front of his younger sister and placed his head on her sandaled feet,  “প্লিজ বোন, ক্ষমা করে দে আমাকে । এখন থেকে আমি তোর চাকর । তুই যা বলবি তাই শুনব আমি । প্লিজ ক্ষমা করে দে আমায়”  (please sis, have mercy on me . from now on, I am nothing but a servant to you . I will do whatever  you say, no matter what you are saying. Please, have mercy on me. ). Ritesh started to rub his face to his beautiful sister’s feet.
Priyanka placed her sandaled right foot over her brother’s head. “আগে প্রমান কর তুই ক্ষমা পাওয়ার যোগ্য । ভাল করে ছোট বোনের পায়ের তলায় শুয়ে বোনের পা টিপতে থাক।” ( You have to prove that you will obey me from now on . lay down under my feet and massage my feet like a good servant.) .

Ritesh don’t even hesitate, he knew that he has to do that. And due to some unknown reason he started to enjoy his humiliation to his younger sister. He just laid on his back and priyanka placed her both blue sandaled feet on his face, right one over his lips and left one over his forehead. Ritesh started to massage her both feet simultaneously while  Priyanka started to play with his face by using her sandaled feet. She started to rub her right sandal sole on her brother’s lips vigorously.  Ritesh felt some strange happiness on his soul.  Priyanka had started to play games on her mobile .” ( actually she was massaging to her best friend Srijita) while her brother massaging her feet like an obedient slave.
Suddenly the doorbell rang. “চুপ করে শুয়ে থাক , একদম নড়বিনা।” ( You fool, don’t moov even an inch ),  Priyanka said to her brother and then stood up on his face with her sandaled feet. Wow…it was painful like hell. But still ritesh enjoyed the feeling of her lil sis standing on his face . she opened the door. Oh god ! this is her best friend Srijita.
“মেসেজটা করার জন্য থ্যাঙ্কস । আমি জানতাম তুই ঠিক তোর দাদাকে গাধা বানিয়ে ছাড়বি ।” ( Thanx for the massage . I knew that you will make your brother a submissive servant for us easily) , srijita told to Priyanka.
“ চল, দুজনে মিলে গাধাটাকে নিয়ে খেলি” ( let’s use him like a slave and have some fun .) , told Priyanka while closing the door. Srijita placed her right sneakered foot on ritesh’s chest, a beautiful smile appeared on her equally beautiful face.
“ তুই কি জানিস আমি কে?” (Do you know who I am?)  Srijita asked ritesh while transferring her right sneakered foot from his chest to his face.”
“হ্যাঁ জানি । তুমি প্রিয়াঙ্কার বন্ধু শ্রীজিতা ।” ( yes , I know . you are Srijita , priyanka’s friend .
Srijita kicked very hard on his face. “ তোর কাছে আমি প্রভু আর প্রিয়াঙ্কা দেবী। তোর নোংরা মুখে আমার নাম উচ্চারন করার জন্য ক্ষমা চা আমার কাছে।” ( I am a mistress to you and Priyanka is your supreme Goddess . Beg for mercy to me for call us by our names )
Ritesh is now started to enjoy his humiliation. He started to kiss Srijita’s sneaker sole, “ আমি একটা অপদার্থ গাধা । প্লিজ এবারের মতো কশমা করে দাও আমায় । আর কখনও এরকম ভুল হবে না”। ( I am a fool, deserve nothing more than to worship beautiful girls like you like a Goddess . please have mercy on me ,. I will never disrespect any girl from now.)
Priyankla sat down on the sofa and placed her sandaled feet on her brother’s  chest. Srijita also sat down beside her friend and placed her both sneakered feet on ritesh’s worthless face and ordered, “ নে , এবার ভালো পোষা কুত্তার মতো প্রভুর জুতোর তলা জিভ দিয়ে চেটে পরিষ্কার করে ফেল । দেবীর পুজো আর সেবা করা এখনও বাকি তোর।” ( now lick the shoe sole of your mistress clean . Then you have to worship your goddess sister truly and sincerely with devotion ).
Ritesh do exactly the same he was asking for. He was licking Srijita’s dirty sneaker sole as if there was no tomorrow. Ritesh knew that thiswas  his new role of the life, as a shoe licker. Or this is his new job? He continued to lick srijita’s Right shoe sole while dreaming that he will become a professional female shoe licker someday. He licked and licked, the shoe sole of his superior girls, what he was worth for . He engulf all the mud and dirts from the sneaker sole of his mistress Srijita . He licked clean her right sneaker sole first , then gave the same treatment to her left sneaker sole . Then Priyanka and Srijita switched their position . Srijita sat down by placing her now clean sneakered feet on ritesh’s chest . Priyanka sat down and placed her sandaled feet on her brother’s face . Her Right sandal sole was over his lips and left sandal sole was over his forehead . She started to rub her sandal sole harshly on his brother’s forehead and lips . In response , Ritesh kissed the Right sandal sole of his little sister with devotion.

Priyanka kicked over his nose a couple of times with her sandaled right foot and ordered , “ নে কুত্তা, তোর ছোট বোন , তোর আরাধ্যা দেবীর চটির তলা চেটে পরিষ্কার করে দে । এরপর আমাকে মন্ত্র পড়ে দেবী রুপে পুজো করবি তুই”। ( hey doggy bro, lick and clean my both sandal sole now . Then you have to worship me like a goddess )

Ritesh did not protest at all . He started to lick clean his sister’s sandal sole just like a dog . Her sandal sole was not much dirty like Srijita;s sneaker sole . He cleaned his sister’s right sandal sole at first, then her left sandal sole , by licking . He engulfed all the dirts from his sister’s sandal sole with devotion . For him, she was not just his beautiful younger cousin sister anymore, but  a true Goddess, who should be worshipped .

Ritesh lick clean his sister’s sandal sole like a new one . He licked her right sandal sole for 10 minutes , then her left sandal sole for another 10 minutes . Then he submissively kissed the right sandal sole of his sister priyanka  for  a few times .

Priyanka smiled in reply . She always want to made her cousin brother Ritesh her personal servant , her slave . She knew that her dream will be fulfilled very soon.  She started to kick his face with her both sandaled feet . He said nothing , just let his younger sister  to kick his face like a football . It was painful, but for him Priyanka was a goddess now . She had the every right to kick his face with her sandaled feet .

“ আজ থেকে আমি তোর আরাধ্যা দেবী । শ্রীজিতা সহ আমার সব বান্ধবী তোর প্রভু । বাবা- মা সহ সবার সামনে তুই আমাকে দেবীর মতো ভক্তিভরে পুজো করবি । আমাদের সেবা করবি ক্রীতদাসের মতো । সবার সামনে আমাদের জুতোর তলা চাটবি, আমরা তোর মুখে লাথি মারলে আমাদের প্রনাম করে ধন্যবাদ দিবি । বুঝেছিস কুত্তা ?” ( From now on, I am your supreme goddess . All my girlfriends are your mistress . You will serve us in front of my parents and all others  like a mere slave . You will do whatever I say, whenever I say . understand ?), Priyanka said while kicking her brother’s face with her sandaled foot like a football.

Ritesh kissed his beautiful younger cousin sister’s right sandal sole in response with devotion .  “ হ্যাঁ দেবী, আজ থেকে তোমার সেবা করা, তোমার পুজো করাই আমার জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য । তোমাকে , তোমার সব বান্ধবীকে প্রভুজ্ঞানে সবার সামনে সেবা করব আমি, তোমরা যা বলবে তাই করব আমি । তোমাকে ধন্যবাদ প্রভু আমার মতো এক ক্ষুদ্র জীবকে তোমার পদতলে ক্রীতদাস হিসাবে স্থান দেওয়ার জন্য”। ( Thank you goddess . From today I will worship you as my supreme goddess . I will serve you and all your girlfriends like a mere slave , in freont of the whole world . )

Priyanka was smiling , so did Srijita . They knew they can use Ritesh as their loyal slave from now on. Priyanka was waiting for her mother preity to wake up . She wanted to use him in front of her mother like a slave very badly . She want to kick his face as hard as she can with her booted feet in front of her mother . Her mother loves her very much . She knew that her mom will love to watch him as her slave . Prianka continued to rub her sandal sole all over her elder brother’s face while he was still kissing her sandal sole like a loyal slave .
( first portion of the story is copied from a story from writing.com )

( ভূমিকা না পরে কেউ ব্লগে ঢুকবেন না । সম্পুর্ন ভূমিকা পড়ে তবেই গল্প, কমেন্ট পড়বেন বা নিজে কমেন্ট করবেন । অন্যথায় , আপনার কোন ভুল ধারনার জন্য আমি/ আমরা দায়ী থাকব না । )

আমার জীবনকথা ( খোকা )

( আমার নিজের জীবনের উপর ভিত্তি করে লেখা । বাস্তব অভিজ্ঞতার সঙ্গে কল্পনার রঙ মিশিয়ে লিখেছি এই উপন্যাস । কতটা কল্পনা কতটা বাস্তব , তা উল্লেখ করে মজা নষ্ট করতে চাই না । তবে এই উপন্যাসের অনেকটাই বাস্তব এবং আমার নিজের জীবনের ঘটনা , যা বেশিরভাগ মানুষই বিশ্বাস করতে পারবেন না । দুঃখ শুধু একটাই , শৈশব ও কৈশোরে এত ফেমডম অভিজ্ঞতা থাকা সত্বেও আমার এখন দিন কাটছে বাস্তব জীবনে ফেমডম ছাড়াই, কোন মেয়েকে সেবা না করেই । )

সূচনা…

অনেকেই আছেন যারা মাঝে মাঝে ফেমডম লেখেন , পড়েন , আবার ফিরে যান নিজেদের স্বাভাবিক জীবনে । আমি পারি না , প্রোফেশনের জন্য যেটুকু সময় দিতে হয় সেটা ছাড়া আমার বাকি সময় কাটে ফেমডম সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে । হয় ফেমডম গল্প পড়ে , ভিডিও দেখে বা ফেমডম গল্প লিখে । আমার ব্যাক্তিগত জীবন , বিনোদন সব শুধুই ফেমডম ।

একজন মানুষের মানসিক গঠন , মানসিক চাহিদা থেকে যৌন চাহিদা কেমন হবে , তার সিংহভাগ রহস্য লুকিয়ে থাকে তার শৈশবে । ৭-৮ বছর থেকে ১৫-১৬ বছর বয়স পর্যন্ত তার অভিজ্ঞতাই ঠিক করে দেয় তার মানসিক ও যৌন চাহিদা কিরকম হবে । আমার তীব্র ফেমডম আকাংখ্যার রহস্যও লুকিয়ে আছে আমার এই বয়সের অভিজ্ঞতাতেই ।

ফ্রয়েডিও মনস্তত্ব অনুযায়ী, সহজে বলতে গেলে একজন মানুষের সাবমিসিভ মানসিকতার বিকাশ হয় তার শৈশবেই । মানসিক চাপ ও যন্ত্রনা থেকে মুক্তি পাওয়ার কোন সোজা রাস্তা না পেলে মানুষের অচেতন মন অনেকসময় সেই চাপ থেকে আনন্দ খুজে নেওয়ার ব্যাবস্থা করে নেয় । এর জন্যে অনেক সময়েই সে অল্প মাত্রায় অবচেতন যৌন সুখকে ব্যাবহার করে , বিশেষ করে দুঃখ ও মানসিক চাপের উৎস বিপরীত লিঙ্গের কেউ হলে । যদিও এটা মুলত মানসিক সুখ যাতে অতি স্বল্পমাত্রায় যৌনতা মিশে থাকে । শৈশবে ভুক্তভোগীর পক্ষে এটা বোঝা একদমই অসম্ভব ।

যার ক্ষেত্রে এই ধরনের অভিজ্ঞতা সামান্য , তার পক্ষে অতি সহজে এই ঘটনা ভুলে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা সম্ভব পরবর্তী কালে । যার জীবনে এর প্রভাব ও মাত্রা যত বেশী তার পক্ষে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসা তত কঠিন । আমার মত অতিমাত্রার প্রভাবের ক্ষেত্রে একদমই অসম্ভব ।

নিজের জীবনের এই গোপন কথা প্রায় কেউই জনসমক্ষে আনে না । আমার ক্ষেত্রেও আমি এতদিন সম্পূর্ণ আনতে চাইনি । কিন্তু অনেক ভেবে দেখলাম, আমি বাস করি সম্পূর্ণ একা , নিজের ফেমডম জগত নিয়ে । আমার কোন সোশাল লাইফ নেই , আর হওয়ার সম্ভাবনাও নেই । তাই কি যায় আসে লোকে জেনে গেলেও ? তাই শুধু অন্যান্য চরিত্র গুলোর নাম বদলে খুব সামান্য পরিবর্তন করে বাকি পুরো জীবনের কথাই লিখছি । তাছাড়া , সবাইকে আমার শৈশবের ফেমডম ঘটনাগুলো জানানোর মধ্যে এক অন্য আনন্দ আছে ।

এক…

আমার জন্ম পশ্চিমবঙ্গের এক বাঙ্গালী মধ্যবিত্ত হিন্দু পরিবারে । আমার বাবা ছিল সাধারন সরকারি চাকুরে ও ধার্মিক । বাবা ছিল স্বামী বিবেকানন্দ , মা কালী ও মা দুর্গার ভক্ত । মা সাধারন গৃহবধূ । আমরা ছিলাম দুই ভাই বোন । আমি আর আমার ৩ বছরের বড় দিদি । আমার দিদি ছিল মায়ের মত ফর্শা ও সুন্দরী । আমার গায়ের রঙ সেখানে আমার ঠাকুরদার মত বেশ কালোর দিকে ।

৭ বছর বয়স পর্যন্ত আমার জীবন ছিল একদম স্বাভাবিক । আমার ৭ বছর বয়সে হঠাত মার এক দুরারোগ্য রোগ ধরা পড়ে । মা আর বেশিদিন বাচেন নি । মা মারা যাওয়ার আগে বাবাকে দিয়ে প্রতিজ্ঞা করায় বাবা আর বিয়ে করবে না , আর খুব যত্ন করে আমাদের বড় করবে । আর আমাকে দিয়ে প্রতিজ্ঞা করায় আমি দিদিকে যেন মায়ের মত শ্রদ্ধা করি আর সবসময় দিদির কথা শুনে চলি ।

মায়ের মৃত্যুর পর স্বভাবতই এক গভীর দুঃখের মধ্যে দিয়ে সময় কাটে আমাদের । বাবা আরও ধার্মিক হয়ে যান । কয়েক মাস পর আমার টাইফয়েড হয়, আমি প্রায় অর্ধমৃত হয়ে যাই । কালো , নরকঙ্কালের মত চেহারা হয় আমার । অনেকেই বাবাকে পরামর্শ দিতে থাকে এই ছেলে বেশিদিন বাচবে না । বাবা যেন দিদিকেই বেশি যত্ন করে বড় করে । আমার হীনমন্যতার সেই শুরু ।

বাবা দিদিকে আমার চেয়ে অনেক বেশি যত্নে বড় করেছিল । তবে সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়েছিল বাবার কিছু কথা ও আচরনে । আমাদের বাড়ির দেওয়ালে দুটো বড় পোস্টার ছিল , মা দুর্গা ও মা কালীর । মা কালী শিবের বুকে দুই পা রেখে জিভ বার করে দাঁড়িয়ে আছেন আর দেবী দুর্গা অসুরের বুকে পা রেখে বুকে ত্রিশুল ঠেকিয়ে । বাবা একটা মন্ত্র প্রায়ই বলত, যার অর্থ , দেবতা সেখানেই থাকেন , যেখানে মেয়েরা দেবী হিসাবে পুজা পায় । স্বামী বিবেকানন্দের কুমারী মেয়েকে পুজো করার গল্পও বলত । আমাকে বলত , দিদি বা অন্য মেয়েদের কথা সব সময় শুনে চলতে , এতে আমার ভাল হবে । বাবার কথায় এটা আমার মাথায় ওই বয়সেই ঢুকে গিয়েছিল । দিদি ওই বয়সেই আমাকে ছোটখাটো হুকুম করত , নিজের টুকটাক কাজ করিয়ে নিত । আমি দিদির সব আদেশই পালন করার চেষ্টা করতাম । তখনও অবশ্য বাবা দিদিকে পুজো করা শুরু করেনি ।

আমার প্রথম ফেমডম অভিজ্ঞতা অবশ্য স্কুলে । আমি যেই প্রাইমারি স্কুলে পড়তাম তাতে আমাদের ক্লাসে ৯ জন ছেলে ও ৩৩ জন মেয়ে পড়ত । ক্লাস ৪ এ ওঠার পর বেশীরভাগ ছেলে মেয়েই স্কুলে কম আসত । সোনালী নামে একটি অপূর্ব সুন্দরী মেয়ে আমাদের সাথে পড়ত । সোনালীর মা ছিলেন আমাদের  স্কুলের ৩ জন টিচারের একজন ।  ক্লাস ৪ এ আমাদের ক্লাস টিচার ছিলেন তিনি । সোনালী ক্লাসে সেকেন্ড হত আর আমি ফার্স্ট , এটা সোনালীর মত ওর মায়েরও পছন্দ ছিল না ।

তিনি নানা তুচ্ছ অজুহাতে ক্লাসে আমাকে শাস্তি দিতেন , আমাকে সোনালীর থেকে ছোট প্রমান করার চেষ্টা করতেন । কি এক অদ্ভুত কারনে প্রথম কিছুদিনের পর আমি আর বাধা দিতাম না । উনি শাস্তিও দিতেন এমন যেন সোনালীর কাছে আমি হিউমিলিয়েটড হই । যেমন প্রায়ই সোনালী যেই বেঞ্চে বসে , তার ঠিক সামনে সোনালীর পায়ের কাছে নীল ডাউন করিয়ে দিতেন । কিছুদিন পর ক্লাসের একটা বেঞ্চ ভেঙ্গে যেতে উনি সিদ্ধান্ত নিলেন এটা ছেলেরা ভেঙ্গেছে । তাই নতুন বেঞ্চ কেনা হবে না , শাস্তি স্বরুপ ছেলেরা মেঝেতে বসবে । ফলে বাকি সব ছেলেই স্কুলে যাওয়া পুরো বন্ধ করে দিল । ক্লাস ৪ এ প্রাইমারি স্কুলের ক্লাস এমনিতেই কোন কাজে লাগত না তখন । ছেলেদের মধ্যে শুধু আমি যেতাম , আর মেয়েদের বেঞ্চ ঘেষে মেঝেতে বসতাম । রোজই সোনালী বসত আমার ঠিক উপরে । মাঝে মাঝে আমার গায়ে ওর জুতো পরা পায়ের খোচা টের পেতাম ।

কিছুদিন পর হঠাত একদিন ক্লাস শুরুর আগেই সোনালী ওর জুতো পরা পা দুটো আমার কাধে তুলে দিল । ক্লাসের অন্য মেয়েরা তাই দেখে মুচকি হাসতে লাগল । আমি কিছু বলার সাহস পেলাম না  সোনালীকে । আসলে আমার ভীষণ ভাল লাগছিল এইভাবে আমার কাধে পা রেখে সোনালীর বসা । ওর মা একটু পড়ে ক্লাস নিতে ঢুকলেন । সোনালীকে ওইভাবে আমার কাধে পা রেখে বসে থাকতে দেখে কিছু তো বললেনই না , বরং মুচকি হেসে পড়াতে লাগলেন । বেশিরভাগ দিন আমাদের ৫ টা ক্লাসের ৩ টেই উনি নিতেন । আর ওনার ক্লাসে সবসময় সোনালী আমার কাধে ওর জুতো পরা পা দুটো তুলে দিত । মাঝে মাঝে একটা পা তুলে দিত আমার মাথার উপর । কখনও বা জুতোর তলা আমার গালে ঘষত । ও কোনদিন কালো মেরি জেন শু পড়ে আসত, কখনও পিঙ্ক বা সাদা স্নিকার পড়ে আসত । ও আমার কাধে পা রাখলে আমি মনে মনে ভাবতাম বাবার মুখে শোনা সেই শ্লোক । নারী মানে তো দেবী । তাই যেখানে নারীর পুজো করা হয় সেখানেই শুধু দেবতারা আসেন । এটা ভাবলে মনে এক অদ্ভুত অজানা আনন্দ হত ।

সোনালী ছিল বড়লোক বাবা মায়ের একমাত্র আদুরে মেয়ে । মায়ের প্রচ্ছন মদতে আমার উপর ডমিনেশন ক্রমাগত বাড়িয়ে চলেছিল ও । একদিন ওর মা ক্লাস নিচ্ছেন , সোনালী যথারীতি আমার কাধে ওর পিঙ্ক স্নিকার পরা পা দুটো রেখে জুতোর তলা দুটো ঘসে চলেছে আমার গালে । হঠাত ও আমার মাথায় আলতো একটা লাথি মেরে বলল, “ এই ছেলে , আমার পায়ে ব্যাথা করছে । পা টিপে দে” ।

আমি অবাক হয়ে ওর দিকে তাকালাম । গোটা ক্লাসের সামনে আমি সোনালীর পা টিপব ?

সোনালী আবার একটা লাথি মারল আমার মাথায় , এটা অনেক জোরে । “ কি রে ছেলে , শুনতে পাসনি ?”

আমি আপত্তি করলাম না একটুও । গোটা ক্লাসের সামনে সোনালীর পা টিপে ওর সেবা করতে পারব ভেবে এক অদ্ভুত আনন্দ হল আমার । আমি গোটা ক্লাসে সামনেই প্রথমে সোনালীর জুতো পরা ডান পা টা দুইহাতে ধরে ওর জুতোর তলায় একটা চুম্বন করলাম । উফ , কোন মেয়ের জুতোর তলায় জীবনের প্রথম চুম্বন তাও সারা ক্লাসের সামনে ! তারপর ,  আমি দুই হাত বাড়িয়ে আসতে আসতে সারা ক্লাসের সামনেই সোনালীর পা টিপতে লাগলাম । সোনালীর মা এমন ভাব করে আমাদের পড়াতে লাগলেন যেন আমাদের দেখতেই পাননি ।

এরপরে দুইদিনও সোনালী আমাকে দিয়ে ক্লাস চলার সময় পা টেপাতে লাগল । আমি ভক্তিভরে সোনালীকে দেবীজ্ঞানে সেবা করতে লাগলাম । সারা ক্লাসের সামনে ওর জুতোর উপর আর তলায়ও চুম্বন করলাম বেশ কয়েকবার । আমার মন চাইছিল, এইভাবেই সারা জীবন সোনালীর সেবা করে যেতে । তখনও কয়েক মাস ক্লাস বাকি ছিল । সোনালীও হয়ত প্ল্যান করেছিল আরো অনেকভাবে আমাকে দিয়ে ওর সেবা করাবে । কিন্তু আমার ভাগ্যে সেই সুখ লেখা ছিল না ।

আমি আবার অসুস্থ হয়ে পরলাম, এবার ম্যালেরিয়া । প্রবল জ্বরে ভুগলাম অনেকদিন । প্রবল দুর্বলতায় ভুগলাম তারপরও বহুদিন । ফলে আমার স্কুলে যাওয়া বন্ধ হয়ে গেল । সেই সঙ্গে বন্ধ হয়ে গেল সোনালীকে সেবা করার সুযোগ । জীবনে আর কখনও আমি আমার আরাধ্যা এই দেবীকে আর দেখিনি ।

দুই…।

আমার এই অসুস্থতার সময়ই একটা ঘটনা ঘটল । সেদিন আমার প্রবল জ্বর হয়েছে , আমি কম্বল মুড়ি দিয়ে খাটে শুয়ে কাপছি । আর দিদি একটা চেয়ারে বসে টিভি দেখছিল । তখন সন্ধ্যা ৮ টা মত বাজে । বাবা বোধহয় আমার মাথা ধুয়ে দেবে বলে বালতিতে করে জল নিয়ে এল  আমার দিকে । তখনই দিদি ডাকল বাবাকে , ‘বাবা , এদিকে এস । আমার পায়ে ব্যাথা করছে । আমার পা টিপে দাও’।

বাবা কোন প্রতিবাদ করল না । প্রবল জ্বরে ভোগা আমাকে ফেলে রেখে দিদির পায়ের কাছে গিয়ে বসল । দিদির পরনে ছিল লাল টপ , সাদা স্কার্ট , পায়ে লাল চটি । দিদি চটি পরা পা দুটো বাবার কোলে তুলে দিল । বাবা ঠিক যেন চাকরের মত দিদির পা দুটো টিপতে লাগল । দিদি নিজের মনে টিভি যেতে লাগল । আমাকে এই প্রবল উপেক্ষা সত্বেও এই ঘটনা প্রবল আনন্দ দিল আমাকে । সত্যি, দিদি তো মেয়ে , মানে দেবী । আমার কষ্টে কি আসে যায় ? দিদির সেবা করা , দিদিকে সুখে রাখাই তো আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য ।

প্রায় ১ ঘন্টা পা টেপার পর দিদি বাবাকে বলল, ‘দেবতারা সেখানেই থাকেন , যেখানে মেয়েদের দেবী হিসাবে পুজো করা হয় । ঠিক কিনা ?’

বাবা দিদির পা টিপতে টিপতে বলল ‘হ্যাঁ ঠিক’।

‘স্বামী বিবেকানন্দ নিজের মেয়ের বয়সী একটা ছোট মেয়েকে দেবীজ্ঞানে পুজো করেছিলেন তো ?’

‘হ্যাঁ মা , করেছিলেন’ । বাবা বলল ।

‘তাহলে তোমার কি উচিৎ না আমাকে দেবীজ্ঞানে পুজো করা ? অন্তত কিছু বিশেষ দিনে?’ বাবার বুকে চটি পরা ডান পা দিয়ে একটা আলতো লাথি মেরে বলল দিদি ।

জবাবে বাবা দিদির পায়ের উপর মাথা রেখে বলল , ‘আমার ভুল হয়ে গেছে দেবী , ক্ষমা করে দাও । এখন থেকে প্রতি অমাবস্যা আর পুর্নিমায় তোমাকে দেবী হিসাবে পুজো করব আমি’ ।

‘ ঠিক আছে , এবারের মত ক্ষমা করে দিলাম । এখন থেকে প্রতি অমাবস্যা আর পুর্নিমায় আমাকে দেবী জ্ঞানে পুজো করবে’ । দিদি বলল ।

আজ তো পুর্নিমা , এখন তাহলে দেবী হিসাবে পুজো করি তোমাকে ?’

“ হ্যাঁ , কর”, দিদি বলল ।

বাবা উঠে গিয়ে একটা গামলায় করে জল আর একটা গামছা নিয়ে এল । তারপর দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে দিদির পা থেকে চটি খুলে দিদির পা দুটো সযত্নে গামলার জলে ডুবিয়ে দিল । অনেকক্ষণ সময় ধরে দুইহাতে নিজের মেয়ের পা ধুয়ে দিল । তারপর সযত্নে দিদির পা গামছা দিয়ে মুছে পায়ে লাল চটিটা পরিয়ে দিল । তারপর দিদিকে বলল, ‘দেবী , এই গামলার জল এখন তোমার চরনামৃত’ ।

এই বলে বাবা গামলা থেকে হাতে করে নিয়ে দিদির পা ধোয়া জল অনেকটা খেয়ে ফেলল । তারপর দিদির লাল চটি পরা পা দুটো নিজের দুইহাতের তালুর উপর তুলে নিয়ে দিদির পায়ের উপর নিজের মাথাটা নামিয়ে দিল । প্রবল জ্বরে আচ্ছন্ন আমার চোখের সামনে বাবা আসতে আসতে নিজের মাথাটা নিজের ১২ বছর বয়সী ক্লাস ৭ এ পরা ফর্শা সুন্দরী মেয়ের চটি পরা পায়ের উপর ঘষতে লাগল ।

বাবা আসতে আসতে দিদির পায়ের পাতায় মাথা ঘষছিল আর মাঝে মাঝে দিদির পায়ের পাতায় চুম্বন করে বলছিল, ‘আমাকে আশীর্বাদ কর দেবী’ । প্রায় ১৫ মিনিট পর দিদি নিজের চটি পরা ডান পা টা তুলে নিজের বাবার মাথার উপর রেখে বলল , ‘ তোকে আশীর্বাদ করলাম আমি’ ।

এরপর প্রায় ৩০ মিনিট বাবা দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে দিদির চটি পরা পা দুটো নিজের হাতের তালুতে রেখে মন্ত্র পড়ে দিদিকে পুজো করতে লাগল আর মাঝে মাঝে দিদির পায়ে মাথা রেখে দিদিকে প্রনাম করতে লাগল । প্রায় ৩০ মিনিট পর বাবা দিদির পায়ের উপর মাথা রেখে সাষ্টাঙ্গে শুয়ে পরল । নিজের মেয়ের চটি পরা পায়ের উপর মাথা রেখে দুই হাত দিয়ে দিদির পা দুটো জড়িয়ে ধরে বারবার বলতে লাগল , ‘ আমাকে আশীর্বাদ কর দেবী” ।

প্রায় ৫ মিনিট পর দিদি চটি পরা ডান পা টা বাবার বাবার মাথার উপর রেখে বলল , ‘ আমার আশীর্বাদ তোর সাথে থাকবে”। বাবার মাথা তখন দিদির চটি পরা বাঁ পায়ের উপর রাখা আর দিদির চটি পরা ডান পা দিদি বাবার মাথার উপর আসতে আসতে বোলাচ্ছে । প্রায় ১০ মিনিট এইভাবে বাবার মাথার উপর দিদি চটির তলা বোলাল । তারপর দিদি পা দিয়ে বাবার মাথা ঠেলে বলল , ‘ এবার উঠে আমার খাবার রেডি কর’ ।

‘করছি দেবী’ বলে বাবা দিদির দুই পায়ের উপর একবার করে চুম্বন করে উঠে গেল । দিদিকে টেবিলে খাবার সার্ভ করে দিদির পায়ের কাছে বসে আবার দিদির পা দুটো টিপে দিতে লাগল বাবা । আমার জ্বর কমেছে কিনা , আমি খাবো কিনা সেই খোজও নিল না কেউ ।

এরপর থেকে রোজই দুইবেলা বাবা দিদির পায়ের কাছে বসে ঘন্টার পর ঘন্টা দিদির পা টিপে দিতে লাগল । ১৫ দিন পর অমাবস্যার রাত এলে আগেরদিনের মত একইরকম ভক্তিভরে আবার নিজের মেয়েকে দেবী হিসাবে পুজো করল বাবা , তার পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করল , তার পা ধুয়ে জল খেল ।

এর কয়েকদিন পর আমার জ্বর কমল । আমি তখনও খুব দুর্বল । কিন্তু দিদি আমাকে বলল , ‘অনেকদিন শুয়ে শুয়ে বাড়ির অন্য ধ্বংস করেছিস । আজ থেকে বাড়ির কাজে বাবাকে হেল্প করবি’ ।

আমি তখনও ভাল করে উঠে দাঁড়াতে পারছিলাম না দুর্বলতার জন্য । দিদিকে সেই কথা বলতে দিদি আমার গালে বেশ জোরে একটা থাপ্পর মেরে বলল , ‘ আমি দেবী । প্রতি অমাবস্যা আর পুর্নিমায় বাবা আমার পুজো করে দেখিসনি ? রোজ সকালে আমার পায়ে মাথা ঠেকিয়ে সাষ্টাঙ্গে প্রনাম করবি আর আমার পা ধুয়ে জল খাবি । আর বাবার মত রোজ দুইবেলা পা টিপে সেবা করবি আমার । তাহলে আর দুর্বল লাগবে না তোর । যা , গামলায় করে জল এনে আমার পা ধুয়ে জল খা আগে ।

প্রবল দুর্বলতা সত্বেও প্রবল এক ভালোলাগায়  মন আচ্ছন্ন হয়ে গিয়েছিল আমার । আমাদের সাথে দিদির দুর্ব্যবহার এক অদম্য আনন্দ দিচ্ছিল আমাকে । দিদি যত অপমান করত আমাকে , ততই দিদিকে স্বর্গের দেবী আর নিজেকে তার ভক্ত ভেবে প্রবল এক আনন্দ পেতাম ।  আমি গামলায় করে জল এনে দিদির পায়ের কাছে বসলাম । সেদিন দিদির পরনে ছিল পিঙ্ক টপ আর কালো স্কার্ট , পায়ে নীল চটি । ঘরে আমরা খালি পায়ে ঘুরলেও দিদির শুধু ঘরে পরার জন্য ৮ জোড়া চটি ছিল । আমি দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে দিদির পায়ের উপর নিজের মাথা ঠেকিয়ে আসতে আসতে নিজের কপালটা দিদির পায়ের উপর ঘষতে লাগলাম । মাঝে মাঝে ভক্তিভরে চুম্বন করতে লাগলাম দিদির পায়ের পাতায় । প্রায় ৫ মিনিট পর দিদি চটি পরা বাঁ পা আমার মাথার উপর রেখে বলল , ‘ দেবীর আশীর্বাদ তোর সাথে রইল । নে , এবার আমার পা ধুয়ে জল খা’ ।

আমি প্রবল ভক্তিভরে আমার পুজনীয় দেবী দিদির পা ধুয়ে দিতে লাগলাম । তারপর দিদির পা মুছিয়ে দিয়ে দিদির পায়ে চটি পরিয়ে দিলাম । তারপর একটা কাপে করে গামলা থেকে এক কাপ দিদির পা ধোয়া জল খেয়ে আবার দিদির পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করলাম । দিদি আবার আমার মাথায় চটি পরা ডান পা রেখে আমাকে আশীর্বাদ করে বলল , ‘যা , আমার জন্য ভাল করে এক কাপ চা করে আন । তারপর আমার পায়ের কাছে বসে আমার পা টিপে দে’ ।

আমি দুর্বল শরীরে রান্না ঘরে গিয়ে অনেককষ্টে দিদির জন্য এক কাপ চা করলাম । তারপর চায়ের কাপ দিদির হাতে দিয়ে দিদির পায়ের কাছে বসে দিদির চটি পরা পা দুটো কোলের উপর তুলে মন দিয়ে দিদির পা দুটো টিপে দিতে লাগলাম । দিদি অসুস্থ আমার সেবা নিতে নিতে আমার করা চা খেতে খেতে টিভি দেখতে লাগল ।

তিন……

এরপর থেকে এইভাবেই আমাদের জীবন কাটতে লাগল । দিদি ছিল আমাদের বাড়ির রাজকন্যা বা দেবী । বাড়ির কোন কাজ বা নিজের কাজও কখনও দিদি করত না । বাড়ির টাকার উপর দিদির অধিকার ছিল সবচেয়ে বেশি । যখন খুশি দিদি যেভাবে খুশি টাকা খরচ করতে পারত । বাবাও দরকার হলে দিদির কাছে টাকা চেয়ে নিত । বাড়ির অন্য কাজের সাথে দিদির ঘর গোছান , ঘর পরিষ্কার , জামা কাচা , জুতো পরিষ্কার সব আমি আর বাবা করে দিতাম । দিদি শুধু তদারকি করত কাজ ঠিক হচ্ছে কিনা । বাবা আমার আর নিজের শোয়ার জন্য তারপর থেকে মেঝেতে বিছানা করত । বাব বলত খাট শুধু মেয়েদের জন্য , ছেলেদের জন্য মেঝেই যথেস্ট । দিদি যেখানে ঘরে যথেষ্ট দামী পোষাক পরত, আমি আর বাবা সেখানে পরতাম শতচ্ছিন্ন পুরন নোংরা জামা । আমাদের বাড়িতে এলে যে কোন লোকেরই মনে হওয়া স্বাভাবিক ছিল আমি আর বাবা এই বাড়ির চাকর আর দিদি এই বাড়ির মালকিন ।

দিদি কখনও নিজের পা থেকে নিজে হাতে জুতো মোজা খুলত না । আমি বা বাবা খুলে দিতাম । তারপর দিদির পা ধুয়ে দিতাম । তখন থেকেই আমরা শুধু দিদির পা ধোয়া সেই জলই খেতাম । আমাদের ঘরে আমরা থাকতাম খালি পায়ে , দিদির ছিল ১০ টারও বেশি ঘরে পরার দামি চটি । দিদির জুতোও ছিল অসংখ্য । জুতো বা চটি পরা পায়ে দিদি ঘরের মেঝে এমনকি আমাদের বিছানাও পায়ের তলায় মাড়িয়ে ঘুরে বেড়াত ।

তবে দিদি বেশি সময় বাড়িতে থাকত না । স্কুল ছাড়াও প্রচুর সময় বাইরে ঘুরে বেড়াত । শুধু সকাল , বিকেল নিয়ম করে আমি আর বাবা দিদির পা টিপে দিতাম । ঘরের কাজ ও দিদির দেওয়া সব কাজ করেও তখন অনেকটাই সময় পেতাম নিজের মত করে ।

দিদি কখনও কোন বান্ধবীকে নিয়ে বাড়িতে এলে আমাকে দিয়ে দিদি তার জুতোও খোলাত , পা টেপাত । আমি কখনও কোন আপত্তি করিনি । পরিবেশের কারনেই মেয়েরা আমাদের থেকে সুপিরিয়র এই চিন্তা আমার মাথায় ঢুকে গিয়েছিল । আর দিদিকে সত্যিই আমি আর বাবা দেবীর মত শ্রদ্ধা করতাম ।

আমি যখন ক্লাস ৬ এ পড়ি তখন থেকে আমাদের পাশের বাড়ির একটা মেয়েও দিদির দেখাদেখি আমাকে দিয়ে মাঝে মাঝে পা টেপাত । ওর নাম ছিল রিমি, দেখতে মোটামুটি ভাল । আমার চেয়ে ২ বছরের ছোট ছিল ও । কখনও আমাদের বাড়িতে এসে , কখনও ওদের বাড়িতে ডেকে নিয়ে গিয়ে আমাকে দিয়ে পা টেপাত , জুতো পরিষ্কার করাত রিমি । এমনকি, ওর মুড খারাপ থাকলে বিনা কারনেই আমাকে মারত । আমি চুপ করে বাধ্য চাকরের মত অর চড়, থাপ্পর , লাথি খেতাম । তবে মেজাজ খারাপ না থাকলে ও কখনও মারত না ।

এইভাবেই আমার দিন কাটছিল । আমার ধারনা ছিল একজন ছেলে একটা মেয়েকে যতটা সেবা করতে পারে আমি ঠিক ততটাই করি দিদিকে । আমার কোন ধারনা ছিল না কয়েক বছর পর দিদি আমাকে চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেবে মেয়েদের সেবা করা কাকে বলে ।

তখন  সবে আমাদের ক্লাস ৭ এর বার্ষিক পরীক্ষা শেষ হয়েছে আর দিদি মাধ্যমিক দিয়েছে । হঠাত বাবার বদলি হয়ে গেল দূরের এক সহরে । অর্থাৎ স্কুল, বন্ধু সব ছেড়ে আমাকে আর দিদিকেও সেখানে যেতে হবে । দুঃখ পেলেও আমি মুখে কিছু বললাম না । কিন্তু দিদি খুব রেগে গেল । বাবা দিদির পা জড়িয়ে ধরে ক্ষমা চাইল দিদির কাছে । শেষে আমরা নতুন জায়গায় যেতে বাধ্য হলাম । তবে এর ফলে দিদির মেজাজ খারাপ হয়ে গেল । মাধ্যমিকের পর ছুটির সময়টা বন্ধুদের সাথে দিদি কাটাতে না পারার ফলটা পেলাম আমি আর বাবা । শুরু হল আমাদের জীবনের প্রকৃত ফেমডম আর দাসত্বের সময় । যে দিদি গত ৪ বছর ধরে আমাদের দিয়ে ওর জামা কাচা , জুতো পরিষ্কার সহ টুকটাক ছোট কাজ , পা টেপানো, জুতো খুলে দেওয়া, পা ধোয়া জল খাওয়ান আর মাসে দুবার বাবাকে দিয়ে পুজো করান ছাড়া অন্য কোন হুকুম করেনি , সেই দিদি এইভাবে আমাদের নিজের ক্রীতদাসে পরিনত করবে তা ছিল আমার কল্পনার বাইরে ।

চার……

নতুন জায়গায় এসে আমরা একটা ভাড়া বাড়িতে উঠলাম । বড়লোক ব্যবসায়ী পরিবার । স্বামী, স্ত্রী আর তাদের ক্লাস ৭ এ পরা ফর্শা , অপরুপা সুন্দরী মেয়ে তিথি , আমার চেয়ে এক বছরের ছোট ।

তখন আমি সদ্য ১৩ বছরে পড়েছি । প্রথম কৈশোরের ছোয়ায় তিথিকে স্বর্গের অপ্সরা বলে মনে হত আমার । বারবার দেখতে ইচ্ছা করত ওর মুখ, ওর সাথে কথা বলতে ইচ্ছা করত । আশ্চর্য ব্যাপার ছিল , ও অত সুন্দরী হয়েও আমার মত একটা সাধারন চেহারার লাজুক ছেলের সঙ্গে খুব সহজেই বন্ধুত্ব করে নিয়েছিল । দিদি ২ সপ্তাহের জন্য মাসির বাড়ি গিয়েছিল । এই ২ সপ্তাহেই এই সুন্দরী মেয়েটির সঙ্গে আমার বেশ বন্ধুত্ব জমে উঠেছিল । আমার দেবী দিদির সেবা করতে না পারা, পা ধোয়া জল খেতে না পারার কথা মাথাতেই আসেনি এই কয়েকদিন । সারাদিন মাথায় ঘুরত তিথির চিন্তা, তিথিকে নিয়ে একটা অদ্ভুত ভাল লাগা ঘিরে ধরেছিল আমাকে । সেটা ঠিক কি সেই বয়েসে বুঝতে পারতাম না । তবে তার মধ্যে ফেমডম ছিল না , ও আমাকে ডমিনেট করত না , আমারও সেই ইচ্ছা মাথায় আসেনি ।  আমি শুধু ওর সঙ্গ চাইতাম , ওর সাথে কথা বলতে বলতে হারিয়ে যেতাম এক অজানা জগতে । আমাদের বন্ধুত্ব খুব ভালভাবে গড়ে উঠেছিল এই অল্প কয়েকদিনে । কে জানে , দিদি ফিরে এসে আমাকে অন্য দিকে না টানলে হয়ত তিথির সাথেই আমার পরে বিশেষ সম্পর্ক তৈরি হত , আমিও আর পাঁচ জন স্বাভাবিক পুরুষের মত ভালবাসা পুর্ন এক  সম্পর্ক গড়ে তুলে এতদিনে সংসারী হয়ে যেতাম !!

দিদি মাসির বাড়ি থেকে ফেরার আগেই বাবা দিদিকে খুশি করার জন্য একটা গাড়ি কিনল আর দিদিকে এলাকার সবচেয়ে দামী টেনিস ক্লাবে ভর্তি করে দিল । সেটা ছিল এপ্রিল মাসের একটা শুক্রবারের বিকেল । আমি আর তিথি বারান্দায় বসে গল্প করছি । এটা আমাদের আর ওদের ঘরে ঢোকার কমন বারান্দা , পাশে বড় একটা মাঠ । কথা বলতে বলতে হঠাতই কি কারনে তিথি কয়েক মুহুর্তের জন্য আমার হাত ধরেছিল । প্রথম কৈশোরের এক অচেনা আনন্দে মন ভরে উঠেছিল আমার । তিথির সাথে কথা বলতে বলতে এক স্বর্গীয় স্বপ্নে ভাসছি , হঠাত দেখি গেট খুলে দিদি বারান্দায় ঢুকল । আজ দিদির ফেরার কথা , বাবা গাড়ি নিয়ে দিদিকে আনতে গেছে মাসির বাড়ি থেকে তা আমি যেন ভুলেই গিয়েছিলাম তিথির বন্ধুত্বের নেশায় ।

‘ এই ছেলে, ঘরে আয় , আমার জুতো খুলে পা টিপে দিবি । আমি খুব টায়ার্ড আজ’ । এই বলে দিদি ঘরে ঢুকে গেল । বাবাও পিছন পিছন ঘরে ঢুকল দিদির ।

দিদির  সেবা করার কথা শুনে জীবনে প্রথমবার ভাল লাগল না আমার ।

‘যাচ্ছি দিদি , এক মিনিট’, মুখে বললেও আমার তিথিকে ছেড়ে যেতে ইচ্ছা করছিল না । দিদিকে এইভাবে আমার সাথে কথা বলতে দেখে তিথিও কিরকম অবাক হয়ে চুপ করে গেল । আমি কি বলব ভেবে পাচ্ছিলাম না তিথিকে ।

মিনিট দুয়েক পর দিদি হঠাত গম্ভীর মুখে ঘর থেকে বেরিয়ে এল । তিথির সামনেই প্রবল জোরে থাপ্পর মারল আমার বাঁ গালে । ‘ কতবার ঘরে আসতে বলতে হবে জানোয়ার, তোর জন্য আমি ওয়েট করব নাকি ?’

আমি ভেবাচেকা খেয়ে গিয়েছিলাম পুরো, তিথির সামনে এইভাবে অপমানিত হওয়ার জন্য আমি প্রস্তুত ছিলাম না । যদিও এটাই স্বাভাবিক ছিল , গত ৪ বছর ধরেই তো আমি দিদির সেবা করছি ।

আমি মাথা নিচু করে দিদিকে বললাম , ‘ সরি দিদি, ভুল হয়ে গেছে’ ।

জবাবে দিদি আমার ডান গালে আবার একটা জোরে থাপ্পর মারল । ‘ঘরে আয়’। তারপর তিথির দিকে তাকিয়ে হাসিমুখে ওরদিকে হাত বাড়িয়ে দিল, ‘হাই, আমি দিশা’ ।

তিথি যেন একটু ঘাবড়ে গিয়েছিল আমার সাথে দিদির ব্যবহারে । হাত বাড়িয়ে ঘাবড়ে যাওয়া গলায় বলল , ‘আমি তিথি’।

‘ভয় পাওয়ার কিছু নেই তিথি । আমাদের ঘরে আয় , একটা দারুন মজা দেখতে পাবি’ । দিদি তিথির চুলে হাত বুলিয়ে দিয়ে বলল ।

পাঁচ……

ঘরে ঢুকে দিদি গদি মোড়া সোফাটায় বসল , তিথি বসল দিদির ডানদিকে । দিদির পরনে আকাশী নীল টপ, জিন্স, পায়ে সাদা মোজা, সাদা স্নিকার । তিথির পরনে ছিল ঘরে পরার নীল সাদা চুড়িদার , পায়ে নীল চটি । ওরা সোফায় বসতে আমি দিদির ঠিক পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসলাম।

দিদি আবার আমার বাঁ গালে ডান হাত দিয়ে প্রবল জোরে একটা থাপ্পর মারল, ‘আমি তোর কে হই?’

দিদির কাছে মার খাওয়ার, দিদির সেবা করার সেই পুরন আনন্দটা আবার অল্প অল্প ফিরে আসছিল, কিন্তু সেই সাথে খারাপ লাগছিল তিথি পাশে থাকায় । তিথি এইসব দেখলে আমরা আর আগের মত বন্ধু থাকব না ভেবে খুব কষ্টও হচ্ছিল ।

আমি মাথা নিচু করে উত্তর দিলাম সুন্দরী দিদির হাতে থাপ্পর খেয়ে, ‘আমার দিদি হও’।

দিদি আরো জোরে একটা থাপ্পর মারল আমাকে , এবার আমার ডান গালে, ‘ শুধু দিদি ? আর কি হই ?’

‘ তিথির সামনে তীব্র অপমান সত্বেও সেই পুরন আনন্দটা মনে ক্রমশ গাঢ় হচ্ছিল আমার । আমি আবার মাথা নিচু করে বললাম , ‘ আমার প্রভু , আমার আরাধ্যা দেবী’।

আমার কথা শুনে তিথির চোখ বড় বড় হয়ে গেল বিষ্ময়ে ।

দিদি আবার একটা থাপ্পর মারল , ‘ তুই কিভাবে সেবা করিস আমার ?’

‘তোমার ঘর গুছিয়ে দিই, জামা কেচে দিই ।’

‘আর?’- আবার থাপ্পর মারল দিদি ।

‘তোমার জুতো পরিষ্কার করে দিই, পা টিপে দিই’।

‘আর?’- আবার গালে দিদির থাপ্পর খেলাম।

‘তোমার পা ধুয়ে জল খাই’ ।

‘বাপ রে , এইভাবে ছোট ভাই কেন , চাকরও তো মালকিনের সেবা করে না’ ! বিস্ময়ের সঙ্গে বলল তিথি ।

দিদি হাসিমুখে বলল এটা তো কিছুই না । ও আজ থেকে আমার ক্রীতদাস হবে । চোখের সামনেই দেখতে পাবি ছেলেদের কিভাবে মেয়েদের সেবা করা উচিত’। এই বলে দিদি ডান পা তুলে জুতো পরা ডান পা দিয়ে সপাটে লাথি মারল আমার মুখে, তিথির সামনেই । আমি উলটে পড়ে গেলাম টাল সামলাতে না পেরে । একটু দূরে মেঝেতে বসে বাবাও আমাদের দেখছে লক্ষ্য করলাম ।

‘ আমার পায়ের তলায় শুয়ে পর কুত্তা’ । আমার অপরুপা সুন্দরী দিদি হুকুম করল আমাকে ।

আমার আর একটুও খারাপ লাগছিল না । দিদির হাতে মার খাওয়ার আনন্দ মনকে এক অদম্য সুখ দিচ্ছিল । তিথির সামনে আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারার জন্য দিদিকে আমি মনে মনে ধন্যবাদ দিলাম । দিদির আদেশ মেনে শুয়ে পরলাম ঠিক দিদির পায়ের কাছে মাথা রেখে ।

আমার সুন্দরী দিদি ওর সাদা স্নিকার পরা পা দুটো আমার মুখের উপর তুলে দিল । দিদির ডান পা টা আমার ঠোঁটের উপর , আর বাঁ পা টা আমার কপালের উপর রাখা । নিজের জুতো পরা পায়ের তলা আমার মুখের উপর ঘষতে ঘষতে দিদি তিথিকে বলল, ‘তুইও ওর বুকের উপর পা তুলে দে । ওর জায়গা আমাদের পায়ের তলাতেই’।

আমার প্রিয় বান্ধবী তিথি একবার আপত্তিও করল না ! দিদির কথায় ওর নীল চটি পরা পা দুটো তুলে দিল আমার বুকের উপর । দিদি আমার মুখের উপর ওর জুতোর তলা ঘষতে লাগল । জুতো পরা ডান পায়ের তলা দিয়ে আমার ঠোঁট একবার বাঁ দিকে , একবার ডান দিকে বেকিয়ে খেলতে লাগল আমার আরাধ্যা দেবী, আমার ফর্শা সুন্দরী দিদি দিশা । যাবতীয় খারাপ লাগা ছাপিয়ে এক অপরুপ আনন্দে ভরে উঠল আমার মন ।

দিদি একটু পরে জুতো পরা বাঁ পা দিয়ে আমার নাকের উপর জোরে একটা লাথি মেরে বলল, ‘ এই কুত্তা , আমার পা টিপে দে’।

প্রবল আনন্দে আমি দুই হাত দিয়ে দিদির বাঁ পা টা টিপতে লাগলাম যত্ন করে । আর দিদি ওর ডান জুতোর তলাটা আমার ঠোটে ঘষে খেলতে লাগল ।

একটু পরে দিদি ডান পা দিয়ে লাথি মারল আমার নাকের উপর । ‘জিভ বার কর, তোর প্রভু জুতোর তলা মুছবে’ ।

আমার জিভের উপর দিদি নিজের জুতোর তলা মুছবে ? আমার জিভ কি দিদির কাছে একটা পাপোশ ? যে জুতো পড়ে এক্ষুনি বাইরে থেকে এল দিদি , যার তলাটা ধুলো ময়লায় কালচে হয়ে আছে , সেই জুতোর তলা দিদি আমার জিভের উপর মুছবে ? প্রবল আনন্দে আমি নিজের জিভটা যতটা সম্ভব বার করে দিলাম । আমার মুখের বাইরে বার করা জিভের উপর দিদি নিজের ডান জুতোর তলাটা নামিয়ে দিল । আসতে আসতে আমার জিভে ঘষতে লাগল নিজের ডান জুতোর তলা । আমি সারা মুখ জুড়ে ধুলো কাদার অস্বস্তিকর স্বাদ পাচ্ছিলাম । কিন্তু এই ধুলোর উৎস আমার প্রভু , আমার আরাধ্যা দেবী দিদির জুতোর তলা থেকে আসছে, এই চিন্তা সেই স্বাদকেই অমৃত করে তুলেছিল । আমি গিলে খাচ্ছিলাম দিদির জুতোর তলার ময়লা , আর মাঝে মাঝে জিভটা মুখে ঢুকিয়ে জিভটা ভিজিয়ে নিয়ে আবার পরিষ্কার জিভটা বার করে দিচ্ছিলাম দিদির জুতোর তলা মোছার জন্য । তিথি আমার বুকের উপর ওর চটি পরা দুই পা রেখে বসে আমাদের কান্ড দেখছিল । দিদি আমার জিভের উপর ওর ডান জুতোর তলা ঘষছিল , আর আমি পরম ভক্তিতে আমার কপালের উপর রাখা দিদির জুতো পরা বাঁ পা টা টিপে দিচ্ছিলাম । দিদি প্রায় ১৫-২০ মিনিট আমার জিভের উপর নিজের ডান জুতোর তলা  ঘষল ।  ততক্ষনে দিদির ডান জুতোর তলা আয়নার মত চকচক করছে,  দিদির জুতোর তলায় আমি আমার মুখের অস্পষ্ট প্রতিবিম্ব দেখতে পাচ্ছি ।

এরপর দিদি ওর জুতো পরা ডান পা টা আমার গলার উপর রাখল । আমি জিভটা মুখের ভিতর ঢুকিয়ে দিদির ডান জুতোর তলার পুরো ময়লাটা ভক্তিভরে গিলে খেয়ে আবার জিভটা যতদূর সম্ভব বার করে দিলাম । দিদি এবার আমার জিভের উপর নিজের জুতো পরা বাঁ পায়ের তলাটা নামিয়ে দিল । আমার জিভের উপর নিজের নোংরা সাদা স্নিকারের তলাটা ঘষতে লাগল দিদি । আমি মাঝে মাঝে জিভটা মুখে ঢুকিয়ে প্রবল ভক্তিভরে আমার দেবী দিদির বাঁ জুতোর তলার ময়লা গিলে খেতে লাগলাম । তারপর আবার পরিষ্কার জিভটা বার করে দিতে লাগলাম যাতে আমার সুন্দরী ৩ বছরের বড় দিদি তার উপর নিজের জুতোর তলা মুছে পরিষ্কার করতে পারে । সেই সাথে আমি ভক্তিভরে দিদির জুতো পরা ডান পা টা টিপতে লাগলাম ।

প্রায় ১৫ মিনিট পর বাঁ জুতোর তলা নতুনের মত পরিষ্কার করে দিদি নিজের বাঁ পা আবার আমার কপালের উপর রাখল । আমি দিদির জুতোর তলার প্রতিটা ময়লার দানাও ভক্তিভরে গিলে খেয়ে নিলাম।

‘ওয়াও , স্লেভারির যুগে আফ্রিকান স্লেভরাও বোধহয় এইভাবে তাদের প্রভুদের সেবা করত না’ ! বিস্ময় চেপে রাখতে না পেরে তিথি বলল ।

দিদি হেসে বলল, ‘এখন থেকে তো ও আমার স্লেভই । এইভাবেই রোজ ও আমার সেবা করাবে । তুই চাইলে তুইও ওকে দিয়ে সেবা করাতে পারিস । দেখ, মজা পাবি’।

দিদির কথা শুনে মুখে হাসি ঝুলিয়ে তিথি উঠে দাড়াল । দিদি একটু সরে বসে আমার বুকের উপর ওর জুতো পরা পা দুটো রাখল । তিথি আমার মুখের সামনে এসে কোমরে হাত দিয়ে দাড়াল , তারপর আমার মুখের উপর ওর নীল চটি পরা ডান পা টা তুলে দিয়ে চটির তলা দিয়ে আমার ঠোঁট দুটো ঘষতে লাগল । ১ ঘন্টা আগে এই তিথি আমাকে বন্ধু ভেবে আমার হাত ধরেছিল ! আর এখন , আমার মুখের উপর নিজের চটির তলা ঘষছে ও ! আমার খারাপ লাগাকে অনেক গুনে ছাড়িয়ে গেল এক তীব্র ভাল লাগা । দুই হাতে ওর চটি পরা ডান পা টা ধরে ওর চটির তলায় একটা গাঢ় চুম্বন করলাম আমি ।

জবাবে হাসিমুখে আমার মুখে আলতো একটা লাথি মারল তিথি । আমি নিজে থেকেই দুই হাতে ওর চটি পরা ডান পা টা ধরে ওর চটির তলাটা জিভ দিয়ে চেটে পরিষ্কার করে দিতে লাগলাম । তিথি হাসিমুখে কোমরে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে আমাকে দিয়ে ওর চটির তলা চাটাতে লাগল । ৫ মিনিট পর ডান পা নামিয়ে আমার ঠোঁটের উপর চটি পরা বাঁ পা রেখে এবার ও নিজেই বল্ল, ‘ নে কুত্তা, চাট’।

এই বলে ও হাসতে লাগল । আমি কুত্তার মতই জিভ বার করে তিথির বাঁ চটির তলা চেটে নতুনের মত চকচকে করে দিলাম । ৫ মিনিট পর আমার মুখে চটি পরা বাঁ পায়ে একটা লাথি মেরে তিথি দিদিকে বলল, ‘ এখন আসি দিদি । পড়ে আবার আসব । তোমার সঙ্গে এই কুত্তাটাকে নিয়ে অনেক মজা করা যাবে । এই বলে ও হাসতে হাসতে ওদের ঘরে চলে গেল ।

দিদি আবার ওর জুতো পরা পা দুটো আমার মুখের উপর তুলে দিল । আমার মুখটা জুতোর তলা দিয়ে ঘষল কিছুক্ষন , তারপর আমার মুখের সর্বত্র একের পর এক জোরে জোরে লাথি মারতে লাগল জুতো পরা পা দিয়ে । আমার নাক, ঠোঁট, কপাল , গাল , সর্বত্র আছড়ে পড়তে লাগল আমার সুন্দরী দিদির পা । আমার ব্যথা লাগা সত্বেও এক প্রবল ভাল লাগায় আমার মন আচ্ছন্ন হয়ে গিয়েছিল । আমার দিদি  আমার প্রভু, আমার আরাধ্যা দেবী। আমাকে যখন খুশি, যত খুশি লাথি মারবে আমার দিদি । ইচ্ছা হলে আমার মুখে লাথি মারতে মারতে আমাকে মেরেও ফেলতে পারে দিদি । আমার বাধা দেওয়ার কোন অধিকার নেই ।

একটু পড়ে লাথি মারা থামিয়ে দিদি বলল, ‘ আমার জুতো খুলে দে এবার । তারপর পা ধুয়ে পা ধোয়া জল খা । তারপর টিফিন বানিয়ে নিয়ে আয় আমার জন্য ।

‘ যথা আজ্ঞা প্রভু’, বলে আমার মুখের উপর রাখা দিদির জুতো পরা পা থেকে জুতো খুলে দিতে লাগলাম আমি ।

ছয়……

দিদির জুতো খুলে দিয়ে প্রথমে আমি দিদির পা ধুয়ে জল খেলাম । দিদির পায়ে ওর ঘরে পরার ছাই রঙের চটিটা পরিয়ে দিয়ে দিদির পায়ে মাথা রেখে সাষ্টাঙ্গে প্রনাম করলাম দিদিকে । তারপর দিদি উঠে ড্রেস চেঞ্জ করতে গেল । আমি গিয়ে দিদির টিফিন তৈরি করতে লাগলাম । বাবা দেখলাম পাশের ঘরে দিদির জামা আয়রন করছে তখন ।

আমি দিদির পছন্দমত টিফিন বানিয়ে একটু পরে টিভি রুমে এলাম । দিদি একটা হাল্কা সবুজ টপ আর কালো পায়জামা পরে বসে বসে টিভি দেখছে । দিদির ছাই রঙের চটি পরা বাঁ পায়ের উপর ডান পা রাখা । আমি টিফিনের প্লেটটা হাতে নিয়ে দিদির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসলাম । দিদি ওর পা দুটো আমার থাইয়ের উপর তুলে দিয়ে আমার হাত থেকে প্লেটটা নিল , ‘ আমার পা টিপে দে’ । দিদি হুকুম করল ।

আমি বিনা প্রতিবাদে দিদির আদেশ পালন করলাম । দিদি টিফিন খেতে লাগল আর মাঝে মাঝে বিনা কারনে আমার দুই গালে সপাটে থাপ্পর মারতে লাগল । আমি অবাক হয়ে প্রথমে দিদির দিকে তাকিয়েছিলাম । দিদি হেসে বলেছিল ,’ এখন থেকে তুই আমার ক্রীতদাস , আমি তোর প্রভু । আমার ইচ্ছা হলে যখন খুশি তোকে বিনা কারনে মারতে পারি’।

জবাবে আমি দিদির চটি পরা দুই পায়ে একবার করে চুম্বন করে বলেছিলাম ‘ নিশ্চয় দিদি । তোমার হাতে মার খাওয়া তো আমার কাছে সৌভাগ্যের ব্যাপার’ ।

‘এই তো সবে শুরু । এইভাবে সারা দুনিয়ার সামনে সারা জীবন আমার সেবা করতে হবে তোকে’ । দিদি নিজের সুন্দর মুখে মিষ্টি হাসি ফুটিয়ে বলেছিল । শুনে খারাপ লাগার বদলে আমার তীব্র আনন্দ হয়েছিল । আমি তো তাই চাই , এইভাবেই সারাজীবন দিদির সেবা করে যেতে চাই , মনে মনে ভেবেছিলাম ।এখন ভাবি,  ইশ , সত্যি যদি ঐ দুই বছরের মত পরের বছরগুলোও দিদির পোষা কুত্তার মত দিদির সেবা করতে পারতাম , কি ভালই না হত !!

সেদিন সারা সন্ধ্যা দিদি টিভির রুমে বসে টিভি দেখল আমার মুখটাকে ফুটস্টুল হিসাবে ব্যবহার করতে করতে । দিদি প্রায় ৩ ঘন্টা টানা আমার মুখের উপর নিজের চটি পরা পা দুটো রেখে টিভি দেখে চলল । আমি পুরো সময়টা পরম ভক্তিতে আমার সুন্দরী দিদির পা দুটো টিপে দিতে লাগলাম । মাঝে মাঝে গভীর আবেগে দিদির চটির তলায় গাঢ় চুম্বন করতে লাগলাম ।

পরদিন সকালে দিদি উঠল অনেক দেরী করে , প্রায় সাড়ে নটায় ।দিদি ফ্রেশ হয়ে ঘরে বসলে আমি প্রথমে দিদিকে ব্রেকফাস্ট দিলাম , তারপর আমি রোজকার মত দিদির পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করলাম । দিদির পা ধুয়ে দিয়ে পা ধোয়া জল খেয়ে আমি স্কুলে যাওয়ার জন্য রেডি হতে যাব , দিদি বলল , ‘ কি রে কুত্তা , স্কুলে যাবি নাকি ?’

আমি বললাম , ‘ হ্যাঁ দিদি’ ।

‘দিদি মাথা নেড়ে বলল , এখন থেকে আমি না বললে স্কুলে যাওয়ার দরকার নেই । তোর জীবনের মূল লক্ষ এখন তোর প্রভুর সেবা করা । আয় , এই চেয়ারটা নিয়ে বাইরে আয়” । বলে দিদি গদি মোড়া রোলিং চেয়ারটা থেকে উঠে দাড়াল ।

আমি বিনা প্রশ্নে দিদির আদেশ পালন করলাম । চেয়ারটা নিয়ে বারান্দায় গিয়ে রাখলাম । দিদি এসে চেয়ারটাতে বসল , তারপর আমাকে আদেশ করল , ‘আমার পায়ের তলায় শুয়ে পর কুত্তা’ ।

সেদিন ছিল শনিবার , সামনের মাঠটাতে আমার বয়সী অনেক ছেলেই খেলছিল তখন । সামনের মাঠ থেকে এই খোলা বারান্দাটা পরিষ্কার দেখা যায় । দিদি কি এদের সবার সামনেই আমার মুখে চটি পরা পা রাখবে নাকি ? কিরকম একটা লজ্জা করতে লাগল , সেই সঙ্গে এত ছেলের চোখের সামনে এইভাবে আমার প্রভুর সেবা করতে পারব ভেবে এক তীব্র আনন্দ জেগে উঠল মনে । আমি আসতে করে দিদির পায়ের ঠিক সামনে মাথা রেখে শুয়ে পরলাম ।

দিদির পরনে ছিল হাল্কা সবুজ টপ আর কালো প্যান্ট , পায়ে আজ নীল চটি । দিদির কোলে একটা গল্পের বই রাখা , নাম Dr. No . আমাকে ঠিক দিদির পায়ের সামনে ওইভাবে শুয়ে পরতে দেখে মাঠভর্তি ছেলে অবাক হয়ে খেলা বন্ধ করে আমাদের দেখতে লাগল । দিদি সঙ্গে সঙ্গে আমার মুখে পা রাখল না । মুখে হাসি ঝুলিয়ে ছেলেগুলোর দিকে দেখতে লাগল, কোলে রাখা বইটা খুলল । তারপর মুখে মুচকি হাসি ঝুলিয়ে এমনভাবে আমার মুখের উপর এতগুলো ছেলের সামনেই নিজের নীল চটি পরা পা দুটো তুলে দিল যেন কোন ফুটরেস্টের উপর পা রাখছে । আমার নাকের উপর বাঁ পা দিয়ে একটা লাথি মেরে ওদের শুনিয়েই বেশ জোরে বলল দিদি , ‘ পা টেপ কুত্তা’ ।

দিদি ইচ্ছা করেই নিজের বাঁ পা টা আমার কপালের উপর এমনভাবে রেখেছে যাতে আমার চোখ ঢাকা না পরে , আমি মাঠের ছেলেগুলোকে দেখতে পাই । ওরা বেশ অবাক হয়ে অনেক কাছে এগিয়ে এসে আমাদের দেখছে । দিদির চটি পরা ডান পা টা আমার ঠোঁটের উপর রাখা , দিদি ওর চটির তলা দিয়ে আমার ঠোঁট দুটো একবার বাঁ দিকে , একবার ডান দিকে বেঁকাতে লাগল । আমি এতগুলো ছেলের সামনে ভক্তিভরে দিদির বাঁ পা টা টিপতে লাগলাম ।

কয়েক মিনিট পর দিদি ডান পা দিয়ে আমার নাকের উপর বেশ জোরে একটা লাথি মেরে বেশ জোরে ওই ছেলেগুলোকে শুনিয়ে বলল, ‘ জিভ বার কর কুত্তা , আমি চটির তলা মুছব’ ।

এতজন ছেলের সামনে এইভাবে দিদির কাছে হিউমিলিয়েটেড হয়ে এক অদ্ভুত আনন্দ পাচ্ছিলাম আমি । আমি চাইছিলাম সবার সামনে আমাকে দিদি যত ইচ্ছা হিউমিলিয়েট করুক , সারা পৃথিবী আমাকে দিদির জুতো চাটা কুত্তা হিসাবে চিনুক । আমি আমার জিভটা যতটা সম্ভব বার করে দিলাম মুখের বাইরে । আমার ৩ বছরের বড় ফর্শা অপরুপা সুন্দরী দিদি দিশা অবাক হয়ে আমাদের দেখতে থাকা ১০-১২ টা ছেলের সামনে আমার বার করা জিভের উপর নিজের নীল রঙের ডান চটির তলাটা নামিয়ে দিল । আমার জিভের উপর চটির তলাটা ঘষতে থাকল । আমি প্রবল ভক্তিতে এতজন ছেলের সামনে দিদির চটির তলার ময়লা গিলে খেতে লাগলাম ।

কৌতুহল দমাতে না পেরে পাশ থেকে একটা আমার বয়সী ছেলে জিজ্ঞাসা করল , ‘ ও তোমার কে হয় দিদি ? ওর জিভের উপর ওইভাবে তুমি চটির তলা মুচছ কেন ?’

দিদি মুখে হাসি ফুটিয়ে বলল , ও আমার ছোট ভাই , আমার চাকর , আমার পোষা কুত্তা । আমি ওর দিদি , প্রভু , মালকিন , আরাধ্যা দেবী । আমি ওর জিভে ঘষেই আমার সব চটি আর জুতো পরিষ্কার করি । ওর জিভটা আমার কাছে পাপোষ , ওর মুখটা আমার ফুটস্টুল ।

দিদি আমার জিভে চটির তলা ঘষা চালিয়ে গেল , একটু পরে ডান চটির তলা পুরো পরিষ্কার হয়ে গেলে বাঁ চটির তলা আমার জিভের উপর নামিয়ে দিল । আমার জিভে ঘষে একইভাবে বাঁ চটির তলা পরিষ্কার করতে লাগল আমার প্রভু দিদি । ছেলেগুলো আর কোন প্রশ্ন করল না , তবে একইভাবে কৌতুহল নিয়ে দেখতে লাগল আমাদের ।

সাত……

এতগুলো সমবয়সী ছেলের সামনে আমার বার করা  জিভের উপর নিজের চটির তলা ঘষে চলেছিল আমার ৩ বছরের বড় সুন্দরী দিদি । আমার একটু লজ্জা লাগলেও সেই লজ্জাকে বহুগুনে ছাপিয়ে হৃদয়ে জেগে উঠছিল এক তীব্র ভাললাগা ।

ঠিক সেই সময় ওদের ঘর থেকে বারান্দা দিয়ে স্কুলে যাওয়ার জন্য বেরল তিথি । ওর পরনে স্কুলের সাদা-নীল চেক শার্ট , নীল স্কার্ট , সাদা মোজা , সাদা স্নিকার ।

ও আমাদের সামনে এসে দাড়াতে দিদি বলল , ‘ স্কুলে যাওয়ার আগে এই কুত্তাটাকে দিয়ে জুতো চাটিয়ে পরিষ্কার করিয়ে নে’।

তিথি হাসি মুখে বলল , সে তো করবই । কুত্তা আছেই তো জুতো চাটার জন্য । তবে তার আগে কুত্তাটাকে আমি একটা কিউট উপহার দেব । এই বলে ব্যাগ থেকে একটা ডগ কলার বার করল তিথি ।

‘ওয়াহ , দারুন জিনিস । সত্যি, কুত্তার গলায় ডগ কলার না থাকলে মানায় নাকি ? তুই ওর গলায় পরিয়ে দে ওটা। এই কুত্তা , হাটুগেড়ে বস তিথির পায়ের সামনে ।’ দিদি আমার কপালের উপর একটা জোরে লাথি মেরে বলল ।

আমি তাই করলাম । কালকে এই মাঠে খেলা ছেলেগুলোর সামনেই তিথি ঘনিষ্ট বন্ধু ভেবে হাত ধরেছিল আমার । আর আজ ? ওদের চোখের সামনেই তিথির পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে আছি আমি , আমার গলায় ওর ডগ কলার পরানোর অপেক্ষায় ।

‘তুই আজ থেকে আমাদের পোষা কিউট কুত্তা’ । এইবলে আমার গলায় ডগ কলারটা পরিয়ে দিল তিথি , মাঠ ভর্তি ছেলের সামনেই ।

‘নে , এবার আমার জুতো দুটো ভালো কুত্তার মত চেটে পরিষ্কার করে দে তো’ । তিথি বলল ।

আমি তিথির পায়ের উপর উপুড় হয়ে শুয়ে ওর জুতোর উপর দুটো চেটে পরিষ্কার করতে লাগলাম । ওর সাদা মসৃণ বাঁ জুতোর উপর আমার জিভ বুলিয়ে কুত্তার মতই চাটতে লাগলাম । আর তিথি ওর ডান জুতোর তলা আমার মাথার উপর রেখে আমার মাথায় জুতোর তলা বোলাতে লাগল । ২-৩ মিনিট পর তিথি ওর ডান পা নিচে নামিয়ে বাঁ পা আমার মাথার উপর বোলাতে লাগল । আমি একইরকম আগ্রহে ওর ডান জুতোর উপর আমার জিভ বোলাতে লাগলাম । কয়েক মিনিট পর তিথি বাঁ পা দিয়ে আমার মাথার উপর লাথি মেরে বলল , ‘ নে কুত্তা , এবার তোর প্রভুর জুতোর তলা চাট’ ।

আমি চিত হয়ে শুয়ে আমার জিভটা যতটা সম্ভব মুখের বাইরে বার করে দিলাম । কোমরে হাত দিয়ে দাঁড়িয়ে আমার বার করা জিভের উপর বাঁ জুতোর তলা ঘষে পরিষ্কার করতে লাগল আমার প্রভু তিথি ।  আমার জিভের উপর এত জোরে জুতোর তলা ঘষছিল ও যে আমার জিভে জ্বালা করছিল । তবু প্রবল ভক্তিতে ওর জুতোর তলার সব ময়লা গিলে খাচ্ছিলাম আমি ।

৪-৫ মিনিট পর বাঁ জুতোর তলা আমার জিভে ঘষে নতুনের মত চকচকে করে আমার জিভের উপর ডান জুতোর তলা নামিয়ে দিল তিথি । আমি ওর বাঁ জুতোর তলার সব ময়লা গিলে খেয়ে একইভাবে ওর ডান জুতোর তলার সব ময়লাও জিভ দিয়ে মুখে টেনে নিতে লাগলাম , তারপর মাঠ ভর্তি অবাক ছেলের সামনে গিলে খেতে লাগলাম তিথির জুতোর তলার ময়লা । আমার গলায় বাঁধা ডগ কলার ডান হাতে ধরে আমার জিভের উপর এমনভাবে তিথি ওর ডান জুতোর তলা ঘষে চলল , যেন ওটা আমার জিভ না , একটা প্রানহীন পাপোশ !!

ডান জুতোর তলাও আমার জিভের উপর ঘষে নতুনের মত চকচকে করে ফেলল তিথি । আমার ঠোঁটের উপর জুতো পরা ডান পা টা রেখে দিদিকে বলল , ‘আমি এখন স্কুলে যাই । বিকেলে কুত্তাটাকে নিয়ে আবার মজা করব’ ।

এই বলে আমার মুখের দিকে নিজের মাথাটা একটু ঝোকাল তিথি , নিচু হয়ে আমার মুখের উপর একদলা থুতু ছেটাল ।থুতুটা আমার চোখ আর কপালের উপর এসে পরল । তারপর আমার ঠোঁটের উপর রাখা সাদা স্নিকার পরা ডান পায়ের উপর ভর দিয়ে উঠে দাড়াল তিথি । আমার মুখের উপর রাখা ডান পায়ের উপর দেহের সম্পুর্ন ভরটা এনে ওর বাঁ পা টা নামিয়ে দিল ওর থুতু লেগে থাকা আমার কপালের উপর । আমাকে জুতো পরা পায়ের তলায় মাড়িয়ে অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকা ১০-১২ টা ছেলের চোখের সামনে দিয়ে তিথি গেট দিয়ে বেড়িয়ে গেল ।

আট……

পরের এক ঘন্টা দিদি ওই খোলা বারান্দায় আমার মুখের উপর চটি পরা পা রেখে বসে গল্পের বই পরে চলল । মাঠ বা মাঠের পাশের রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় যেই  আমাদের দেখছিল , অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকছিল আমাদের দিকে । আমার লজ্জা ভাবটা কেটে গিয়েছিল ততক্ষনে । এত লোকের সামনে আমার সুন্দরী দিদি আমার মুখের উপর চটি পরা পা রেখে বসে আমাকে দিয়ে পা টেপাচ্ছে বলে আমার গর্ব হচ্ছিল বরং । আমি ভক্তিভরে দিদির পা দুটো পালা করে টিপে চলেছিলাম ।

এক ঘন্টা পর দিদি আমার মুখের উপর লাথি মেরে বলল , ‘ এই ছেলে , যা গিয়ে রান্না কর’ । আমি উঠে সবার সামনেই একবার সাষ্টাঙ্গে দিদির চটি পরা পায়ের উপর মাথা রেখে প্রনাম করলাম , তারপর উঠে রান্না করতে চলে গেলাম । দিদির প্রতি প্রবল ভক্তিতে আমার মন তখন আচ্ছন্ন । আমি চাইছিলাম এইভাবে সারা দুনিয়ার সামনে দিদি আমাকে ডমিনেট করুক । আমার প্রভু দিদির জন্য মন দিয়ে একের পর এক আইটেম রান্না করতে লাগলাম আমি ।

বিকেলে দিদির টেনিস প্র্যাক্টিস ছিল । বাবা গাড়িতে করে দিদিকে নিয়ে গেল । তিথি একবার এসে দিদির খোজে ঘুরে গেল বিকেলে । আমি ভেবেছিলাম ও এই সুযোগে আমাকে একটু ডমিনেট করে নেবে । কিন্তু ও সেরকম কিছু করল না । বুঝলাম দিদির মত ডমিনেট কেউ ওকে উদ্বুদ্ধ না করলে নিজে থেকে ও ডমিনেট করার মেয়ে না ।

আমি প্রথমে দিদির জন্য টিফিন রেডি করলাম । তারপর ভাবলাম একটু বাইরে থেকে ঘুরে আসি । আমার গলায় এখনও ডগ কলারটা বাঁধা । আমি সেটা খোলার চেষ্টাও করলাম না । আমি দিদির পোষা কুত্তা , এটা তো আমার গর্ব ! ডগ কলারটা খুলব কেন ? তবে কলার উচু একটা জামা পরে এমনভাবে বেরলাম যাতে বাইরে থেকে কেউ ওটা দেখতে না পারে । তবে লাভ হল না । গোটা এলাকা ততক্ষনে জেনে গেছে আমি আমার দিদি দিশার পোষা কুত্তা । সবাই অবাক হয়ে আমাকে দেখছে , কেউ অন্যদের বলছে , ‘দেখ সেই কুত্তাটা যাচ্ছে’ । আমার একই সঙ্গে খারাপ লাগছিল , আবার ভালও । আমি বেশীক্ষন বাইরে থাকলাম না , বাড়ি ফিরে এলাম ।

আমি ঘরে ফেরার ১০-১৫ মিনিট পর গেট খোলার শব্দ পেলাম । বাবা আর দিদি ফিরে এসেছে । দিদির টেনিস খেলার র‍্যাকেট , পোশাক , জুতো সব একটি ব্যাগে , যেটা বাবা নিয়ে এসে সেলফের উপর রাখল । দিদি এসে গদি মোড়া সোফাটায় বসল । দিদির পরনে এখন সাদা টি-শার্ট , জিন্স , পায়ে কালো মোজা আর নতুন কেনা মোটা শক্ত সোলওয়ালা কালো বুট জুতো । দিদি সোফায় বসতে দিদির পায়ের কাছে বাবা হাটুগেড়ে বসল । আমি দিদির পা ধোয়ার জন্য গামলায় করে জল আনলাম , আর দিদির ঘরে পরার লাল চটিটা নিয়ে এলাম ।

‘দিদি , টিফিন এখনই দেব’ ? আমি বিনীতভাবে জিজ্ঞাসা করলাম ।

‘আমি খেয়ে এসেছি বাইরে’ , দিদি বলল ।

বাবা দিদির পা দুটো কোলে তুলে বুট জুতো দুটো খুলে দিতে যাচ্ছিল । দিদি বাবার বাঁ গালে ডান হাত দিয়ে সজোরে একটা থাপ্পর মেরে বলল , ‘জুতো পরে খুলবি । এখন আমাকে দেবী হিসাবে পুজো কর’ ।

‘ পুর্নিমা কিন্তু কালকে দেবী’ , বাবা বলল ।

এবার বাবার ডান গালে দিদির বাঁ হাতের থাপ্পর আছড়ে পরল , ‘ আমি দেবী , আমি যখন চাইব তখনই আমাকে পুজো করবি তোরা । নে , শুরু কর’।

‘করছি দেবী’ , এই বলে দিদির জুতো পরা দুই পায়ের উপর মাথা রেখে শুয়ে পরল বাবা । নিজের সুন্দরী মেয়ের কালো বুট জুতো পরা দুই পায়ের উপর নিজের কপাল ঘষতে লাগল , আর মাঝে মাঝে জুতোর উপর চুম্বন করতে লাগল বাবা ।

‘টিভির রিমোটটা এনে দে কুত্তা’ , দিদি আমাকে হুকুম করল ।

আমি টিভির রিমোটটা এনে দিদির হাতে দিলাম । দিদি নিজের বুট জুতো পরা ডান পা টা বাবার মাথার উপরে তুলে দিল । নিজের বাবার মাথার উপর জুতোর তলা ঘষতে ঘষতে  নরম সোফায় গা এলিয়ে দিয়ে টিভি দেখতে লাগল দিদি । আর বাবা দিদির বুট জুতো পরা বাঁ পায়ের উপর নিজের মাথা ঘষতে ঘষতে জুতোর উপর চুম্বন করতে লাগল ।

প্রায় ২০ মিনিট পর বাবা দিদির পায়ের সামনে হাটুগেড়ে বসল । দিদির জুতো পরা পা দুটো নিজের দুই হাতের তালুর উপর রেখে মন্ত্র পরে দিদিকে পুজো করতে লাগল , আর মাঝে মাঝে দিদির বুট জুতো পরা দুই পায়ের উপর নিজের মাথাটা নামিয়ে দিয়ে দিদিকে প্রনাম করতে লাগল ।

বাবা দিদিকে ভক্তিভরে পুজো করে চলেছে , হঠাত দিদি বুট জুতো পরা ডান পা তুলে বাবার মুখের উপর খুব জোরে একটা লাথি মারল । বাবা টাল সামলাতে না পেরে উলটে পরে গেল । তারপর আবার উঠে হাটুগেড়ে বসল দিদির সামনে । অবাক হয়ে দিদিকে জিজ্ঞাসা করল , ‘ কি ভূল হল আমার দেবী?’

‘ কিছু না , আমি দেবী, তোদের প্রভু । তোরা হলি আমার ভক্ত , আমার ক্রীতদাস । আমার যখন ইচ্ছা হবে বুট জুতো পরা পায়ে তোদের মুখে লাথি মেরে তোদের নাক , মুখ , দাঁত , সব ভেঙ্গে দিতে পারি’ ।

এবার দিদির বুট জুতো পরা বাঁ পায়ের লাথি আছড়ে পরল ঠিক বাবার নাকের উপর , তুই পুজো চালিয়ে যা’ ।

জবাবে বাবা নিজের সুন্দরী মেয়ের কালো বুট জুতো পরা দুই পায়ের উপরেই বারবার চুম্বন করতে করতে বলল, ‘ নিশ্চয় প্রভু । আমরা আপনার ভক্ত আপনার ক্রীতদাস । আপনার ইচ্ছা হলেই আমাদের মুখে লাথি মারতে মারতে আপনি আমাদের মেরে ফেলতে পারেন । আপনার পবিত্র পায়ের লাথি খেয়ে মারা গেলেও অনেক পুন্য হবে দেবী’ ।

বাবা কয়েক মিনিট টানা দিদির জুতো পরা দুই পায়ের উপর চুম্বন করে গেল । তারপর আবার মাথা তুলে মন্ত্র পরে দিদিকে পুজো করতে লাগল । দিদি নিজের বুট জুতো পরা পা দুটো তুলে বাবার দুই কাধের উপর রাখল । বাবা মন্ত্র পরে দিদিকে পুজো করতে লাগল আর দিদির কালো বুট জুতো পরা দুই পায়ের লাথি বারবার বাবার মুখের সর্বত্র আছড়ে পরতে লাগল ।এইভাবে বুটজুতো পরা পায়ে নিজের বাবার মুখের উপর সুন্দরী দিদির লাথি মারা দেখে দিদির প্রতি ভক্তিতে আমার মনও ভরে উঠল ।

বুম !

বুম !!

বুম !!!

বুম !!!!

বারবার বাবার মুখের উপর সজোরে আছড়ে পরছিল তার নিজের সুন্দরী মেয়ের কালো বুট জুতো পরা দুই পা । আর দিদির লাথি খেয়ে আরো ভক্তিভরে তাকে পুজো করছিল বাবা ।

নয়……

প্রায় ৩০ মিনিট এইভাবে বাবার পূজো নিতে নিতে বাবার মুখের উপর বুট জুতো পরা পায়ে লাথি মারার পর দিদি আমাকে হুকুম করল , ‘ এই কুত্তা , সবগুলো ঘর ঝাট দে, তারপর ঘর মোছ’ ।

আমি ‘যথা আজ্ঞা প্রভু’ বলে উঠে গেলাম । আমি আমাদের ৩ টে ঘর আর রান্নাঘর এক এক করে ঝাট দিতে লাগলাম । আর দিদি বাবার মুখ জুতো পরা পায়ে লাথি মারতে মারতে বাবার পুজো নিতে থাকল ।

সব ঘর ঝাট দেওয়া হলে আমি বালতি আর ন্যাকড়া নিয়ে ঘর মোছার জন্য টিভি রুমে পৌছলাম । দিদি বাবার মুখে আরেকটা লাথি মেরে বলল , ‘ এই বুড়ো, তুইও কুত্তার সাথে ঘর মোছ এবার’ । বাবার বয়স তখন মাত্র ৩৯, যথেস্ট স্বাস্থ্যবান, মাথা ভর্তি কালোচুল । তাও দিদি নিজের বাবাকে বুড়ো বলে ডাকছে !!

বাবা দিদির আদেশ শুনে দিদির জুতো পরা পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করল । দিদির কালো বুট জুতো পরা দুই পায়ের উপর একবার করে চুম্বন করে বাবা বলল , ‘ যাচ্ছি মালকিন’ । তারপর বাবা উঠে গিয়ে ঘর মোছার জন্য আরেকটা ন্যাকড়া নিয়ে এল ।

আমি ঘর মুছতে শুরু করেছিলাম । হঠাত দিদি সোফা থেকে উঠে আমার পাশে দাড়াল । মেঝেতে রাখা আমার বাঁ হাতের পাতার উপর  বুট জুতো পরা ডান পা টা তুলে দাড়াল । দিদির জুতোর তলাটা বেশ শক্ত , আমার ভীষণ ব্যথা লাগছিল । আমি কাতর দৃষ্টিতে দিদির দিকে তাকালাম । জবাবে দিদি এবার আমার ডান হাতের পাতার উপর বুট জুতো পরা বাঁ পা টা তুলে দিয়ে দাড়াল ।

‘কি রে ঘর মুছবে কে ?’ এই বলে দিদি পরপর আমার দুই গালে সপাটে দুটো থাপ্পর মারল ।

প্রবল ব্যথা সত্বেও দিদির ডমিনেটিং আচরন আমাকে নেশাচ্ছন্ন করে তুলেছিল । দিদির জুতো পরা পা দুটো আমার দুই হাতের পাতার উপরে রাখা । আমি মেঝেতে উপুড় হয়ে শুয়ে পরে ঘর মোছার ভেজা ন্যাকড়াটা মুখে ধরে মুখ দিয়ে ঘর মোছার চেষ্টা করতে লাগলাম ।

জবাবে দিদি ওর জুতো পরা ডান পা টা তুলে আমার মাথার উপর বোলাতে লাগল । ‘গুড ডগি, কিপ ইট আপ’ । দিদি আমার মাথার উপর রাখা জুতো পরা ডান পায়ের উপর ভর বাড়াল , তারপর বাঁ পা টা নামিয়ে দিল আমার পিঠের উপর । মেঝেতে উপুড় হয়ে শুয়ে থাকা আমাকে জুতো পরা পায়ের তলায় মাড়িয়ে  দিদি পাশেই ঘর মুছতে থাকা  বাবার দিকে এগিয়ে গেল ।

বাবা উবু হয়ে বসে ঘর মুছছিল । ‘ ভাল করে ঘর মোছ বুড়ো’ , বলে দিদি অকারনে বাবার কানের পাশে জুতো পরা বাঁ পায়ে লাথি মারল । বাবা আবার উলটে পরে গেল টাল সামলাতে না পেরে । বাবা সঙ্গে সঙ্গে উঠে দিদির পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করে বলল , ‘ জ্বী মালকিন’ । তারপর আবার ঘর মোছার জন্য ন্যাতাটা মেঝেতে ঠেকাল ।

দিদির সুন্দর মুখে একটা চওড়া হাসি ফুটে উঠল । পরক্ষনেই দিদি বুট জুতো পরা ডান পা দিয়ে বাবার ঠোঁটের উপর প্রবল জোরে একটা লাথি মারল, ‘আরো ভাল করে মোছ’।

বাবা আবার উলটে পরে গেল । তারপর আবার উঠে দিদির জুতো পরা পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করে দিদির কাছে ক্ষমা চাইল । দিদি আবার একটা লাথি মারল , এবার বাঁ পা দিয়ে বাবার নাকের উপর । আর আমার দিকে তাকিয়ে বলল, ‘এই কুত্তা, তুই দূরে কি করছিস? আমার পায়ের কাছে এসে ঘর মোছ’।

আমি ঠিক দিদির পায়ের সামনে হাটুগেড়ে বসে ঘর মুছতে শুরু করলাম । বাবা তখন আবার উঠে বসে দিদির জুতো পরা বাঁ পায়ের উপর চুম্বন করতে করতে দিদির কাছে ক্ষমা চাইছে । দিদি জুতো পরা ডান পা দিয়ে এবার আমার ঠোঁট আর নাকের উপর একটা লাথি মারল , খুব জোরে । আমি টাল সামলাতে না পেরে উলটে পরে গেলাম ।

‘আরো ভাল করে মোছ , এটা একটা দেবীর মন্দির । তোদের কি সেটা মনে থাকে না?’ এবার দিদির বাঁ জুতো পরা পা বাবার কপালে আছড়ে পরল । আমি ততক্ষনে উঠে দিদির ডান জুতোর উপর  চুম্বন করে দিদির কাছে ক্ষমা চাইছি ।

এইভাবে একবার দিদির জুতো পরা পা বাবার মুখে , তারপর আবার আমার মুখে আছড়ে পরতে লাগল । আর আমরা বারবার দিদির জুতোর উপর চুম্বন করে দিদিকে ধন্যবাদ দিতে লাগলাম আমাদের মুখে লাথি মারার জন্য , ক্ষমা চাইতে লাগলাম কাজ ঠিক মত না করার জন্য । দিদি আমাদের ঘর মোছার জন্য কোন সময় না দিয়ে এইভাবে দুজনের মুখে একের পর এক জুতো পরা পায়ে লাথি মারতে লাগল আমাদের ঘর মুছতে বেশি সময় লাগার জন্য ।

সেই শুরু । এরপর থেকে এটাই আমাদের ঘর মোছার স্বাভাবিক রুটিন হয়ে দাড়াল পরের দুই বছরে ।

এরপর আমরা দুইজনে মিলে রাতের খাবার তৈরি করলাম । রাত ১০ টায় খাবার টেবিলে দিদিকে খাবার সার্ভ করল বাবা । দিদি আমার মুখের উপর চটি পরা পা দুটো রেখে আসতে আসতে খেতে লাগল । আর আমি আমার ৩ বছরের বড় সুন্দরী দিদির পা দুটো দুই হাত দিয়ে ভক্তিভরে টিপতে লাগলাম । দিদির খাওয়া হলে দিদি পরে থাকা খাবারে থুতু ফেলল । তারপর প্লেটটা পায়ের কাছে নামিয়ে নিজের লাল চটি পরা পা দুটো প্লেটের উপর তুলে দিয়ে বলল, ‘ পরে থাকা খাবারটা তোরা মুখ দিয়ে কুত্তার মত খা । এটাই তোদের রাতের খাবার’।

আমি আর বাবা ৪ হাত পায়ে দাঁড়িয়ে কুত্তার মত দিদির চটির তলায় মাড়ানো, দিদির থুতু মেশানো পরে থাকা খাবার খেতে লাগলাম । পরের ২ বছর প্রত্যেক রাতে এরপর আমরা এইভাবেই ডিনার করেছি !

দশ……

এরপর থেকে আমাদের দিনগুলো এইভাবেই কাটতে লাগল । আমার আর বাবার জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য হয়ে গেল দিদির সেবা করা । মাধ্যমিকের পর তখনও দিদিদের ছুটি চলছিল । বাবার অফিস করা বন্ধ না করলেও আমার স্কুলে যাওয়া সম্পুর্ন বন্ধ হয়ে গেল তখন দিদির আদেশে । নতুন জায়গায় দিদির তখনও খুব একটা বন্ধু ছিল না , তাই বাড়িতেই থাকত বেশিরভাগ সময় । আমার ২৪ ঘন্টাই কাটত দিদির সেবা করে । সকালে মাঝে মাঝে দিদি আমাকে নিয়ে পাশের মাঠে মর্নিং ওয়াকে যেত । আমার গলার ডগ কলারটা দিদির হাতে ধরা থাকত, আমাকে দিদির পিছন পিছন কুত্তার মত চার হাত পায়ে দৌড়াতে হত সবার সামনে । সবাই দেখত আর হাসত । দিদির দৌড় শেষ হলে মাঠ ভর্তি ছেলেদের সামনেই আমাকে দিদির পায়ের কাছে মাঠের উপর চিত হয়ে শুয়ে জিভ বার করে দিতে হত । সবার চোখের সামনে খোলা মাঠে আমার জিভের উপর ঘষে জুতোর তলা পরিষ্কার করত দিদি ।

বারান্দায় দিদির পায়ের তলায় শুয়ে পা তো রোজই টিপে দিতে হত । বাবাকে দিয়েও বারান্দায় পা টেপাত দিদি । তবে বাবাকে পায়ের কাছে বসিয়ে বাবার কোলের উপর পা রেখে বাবাকে দিয়ে পা টেপাত দিদি । হয়ত সব লোকের সামনে বাবাকে সম্পুর্ন ক্রীতদাস হিসাবে ব্যবহার করতে চাইত না দিদি । তবে তিথির সামনে আমার মতো বাবাকেও ক্রীতদাস হিসাবে ব্যবহার করত দিদি । তিথিও দিদির মত আমাকে আর বাবাকে দিয়ে সেবা করাত , আমাদের দিয়ে জুতো চাটাত , মুখে লাথি মারত । বাবাকে দিয়ে সেবা করাতে কোন কারনে আরো বেশি ভালবাসত তিথি ।

একমাস পর এক শনিবারের বিকেলে দিদি টেনিস ক্লাবে যাওয়ার আগে বলল, ‘ এই কুত্তা , আমার সাথে চল । ক্লাবে সবার সামনে আমার সেবা করবি তুই’ । এই বলে দিদি আমার গলার ডগ কলার ধরে আমাকে গাড়িতে তুলল । আমি গাড়িতে দিদির পায়ের কাছে বসলাম । বাবা গাড়ি ড্রাইভ করে টেনিস ক্লাবে নিয়ে এল ।

ক্লাবটা বেশ অভিজাত ক্লাব , অনেক টাকা মেম্বারশিপ ফি । অনেকে এখানে খেলা শেখে , আবার অনেকে নিজেদের মত টেনিস খেলে , বা নিজের মত সময় কাটায় । ক্লাবের কেউ তাই নিয়ে মাথা ঘামায় না ।

দিদি গাড়ি থেকে আমার গলার ডগ কলার ধরে নিয়ে চলল । আমি চার হাত পায়ে দিদির সাদা স্নিকার পরা পায়ে চুম্বন করতে করতে দিদির পিছন পিছন চললাম । একটা টেনিস কোর্টের সামনে এসে থামল দিদি । একটা আমার বয়সী ফর্শা , সুন্দরী মেয়ে চেয়ারে বসে ছিল একা একা । ওর পরনে  আকাশী নীল টি-শার্ট , সাদা স্কার্ট , পায়ে নীল মোজা, সাদা স্নিকার । মাথায় একটা সাদা ক্যাপ ।

মেয়েটা দিদিকে দেখে বলল , ‘ওয়াও ! এটাই তোমার সেই ছোট ভাই ! যাকে তুমি পোষা কুত্তা বানিয়েছ ?’

‘হ্যাঁ রে রাই , এটাই আমার ভাই , আমার পোষা কুত্তা’ ।

রাই এগিয়ে এসে ঠিক আমার সামনে দাড়াল , তারপর জুতো পরা ডান পা দিয়ে বেশ জোরে একটা লাথি মারল আমার নাকের উপর । জবাবে আমি রাইয়ের জুতো পরা দুই পায়ের উপর চুম্বন করে ওকে ধন্যবাদ দিলাম আমার মুখের উপর লাথি মারার জন্য ।

কোর্টটা ছিল একটা লাল মাটির ক্লে কোর্ট । ওরা আমাকে নেটের একপাশে হাটুগেড়ে বসাল । ওরা খেলতে শুরু করল । প্রত্যেক পয়েন্টের পর যে পয়েন্টটা হারাচ্ছিল সে এসে আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারছিল । আর প্রত্যেক গেমের শেষে আমি মাঠের উপর চিত হয়ে শুয়ে পড়ছিলাম জিভ বার করে । রাই আর দিদি দুজনেই আমার জিভের উপর জুতোর তলা মুছে পরিষ্কার করছিল । লাল ক্লে কোর্টে খেলার ফলে ওদের সাদা স্নিকারের তলাও লাল হয়ে যাচ্ছিল মাটি লেগে । ওরা সেটা আমার জিভে ঘষে নতুনের মত পরিষ্কার করে ফেলছিল বারবার ।

এক সেটের খেলা একটু পরে শেষ হয়ে গেল । রাই অল্পের জন্য হেরে গেল । রাগ মেটাতে রাই পরপর আমার মুখের উপর অনেকগুলো লাথি মারল । তারপর আমাকে মাটিতে শুইয়ে দিয়ে দিদি আর রাই আমার মুখের উপর জুতো পরা পায়ে উঠে দাঁড়িয়ে লাফাতে লাগল , আর যে যতখুশি লাথি মারতে লাগল আমার মুখে । আমাকে নিয়ে ওদের খেলা দেখে একটু পরে অনেক মেয়ে জড়ো হয়ে গেল আশে পাশে । ১০ থেকে ১৭ বছরের প্রায় ১৫-১৬ জন মেয়ে হবে । ওরাও এসে দিদি আর রাইয়ের সাথে ওদের খেলায় যোগ দিল । সবাই আমার মুখের উপর জুতো পরা পায়ে উঠে দাঁড়িয়ে লাফাতে লাগল । যে যতখুশি লাথি মারতে লাগল আমার মুখে । তারপর সবাই আমার বের করে দেওয়া জিভের উপর জুতোর তলা ঘষে পরিষ্কার করতে লাগল । ১৫-১৬ জন সুন্দরী মেয়ের জুতোর তলার সব ময়লা আমি ভক্তি ভরে গিলে খেয়ে নিলাম । দিদি এরপর আবার আমার কলার ধরে আমাকে গাড়ির সামনে নিয়ে এল । আমরা গাড়িতে করে বাড়ি ফিরে এলাম । এরপর থেকে প্রতি সপ্তাহে ৩ দিন করে দিদির সাথে এইভাবেই টেনিস ক্লাবে এসে মেয়েদের সেবা করতাম আমি ।

এগারো……

দিদির ডমিনেশনের মাত্রা কিছুটা কমল এরপরে । দিদির মাধ্যমিকের রেসাল্ট বেরল । দুর্দান্ত রেসাল্ট করে এলাকার বেস্ট স্কুলে সায়েন্স নিয়ে ভর্তি হল দিদি । দিদি স্কুলে যেতে শুরু করায় সকালে আমারও স্কুলে যেতে কোন বাধা রইল না । দিদি ভাল স্টুডেন্ট ছিল , আবার মন দিয়ে পড়াশোনা শুরু করায় সারাদিন ডমিনেট করতে পারত না আর । তবে দিনে অন্তত এক ঘন্টা আমাদের দুজনকে এক্সট্রিম ডমিনেট করতই । ঘর মোছানোর নামে আমাদের মুখে লাথি মারা , রোজ আমাদের দিয়ে নিজেকে দেবী রুপে পুজো করানো , আর পুজো করার সময় আমাদের মুখে সপাটে চটি পরা পায়ে লাথি মারা , পা ধোয়া জল খাওয়ানো, চটির তলায় খাবার মাড়িয়ে আমাদের দিয়ে খাওয়ানো এসব দিদি বাইরে কলেজে পড়তে চলে যাওয়ার আগে পর্যন্ত প্রতিদিন করেছে ।

একটা নতুন নিয়মও চালু করেছিল দিদি । দিদি একজন দেবী, তাই দিদি যখন পা ঝুলিয়ে সোফা বা চেয়ারে বসবে তখন দিদি পা মেঝের উপর রাখবে না । আমাকে বা বাবাকে সবসময় এসে শুতে হবে দিদির চটি পরা পায়ের তলায় , যাতে দিদি আমাদের মুখের উপর চটি পরা পা রেখে বসতে পারে ।

এইভাবেই দিদির সেবা করে পরের এক বছর কাটল । এই একবছর প্রায়ই তিথি আমাদের ঘরে এসে দিদির সঙ্গে আমাদের ডমিনেট করত । কিন্তু আমার ক্লাস ৯ এর মাঝামাঝি তিথি ঐ বয়সেই একটা ছেলের সঙ্গে এনগেজড হয়ে গেল । পরা আর সম্পর্ক নিয়েই ও বেশি ব্যস্ত থাকত তারপর । কখনও আমাদে ঘরে এলেও আমাদের ডমিনেট করার ব্যাপারে আর কখনও উৎসাহ দেখায় নি । কে জানে , দিদি ওইভাবে ওর সামনে আমার সাথে ক্রীতদাসের মত ব্যবহার না করলে ওর সম্পর্কটা হয়ত আমার সাথেই হত !

এরপর দিদির উচ্চমাধ্যমিক আর জয়েন্ট এন্ট্রান্স এগিয়ে আসায় দিদি পরা নিয়ে আরো ব্যস্ত হল । ফলে আমাদের ডমিনেট করার পিছনে আরো কম সময় দিত । তবে দিদি সবসময় ওর ঘরে পরার চটি পরা পা আমার বা বাবার মুখের উপর রেখে বসে পড়ত , আর আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা দিদির চটি পরা পা মুখের উপর নিয়ে শুয়ে দিদির পা টিপে দিতাম । দিদি মাঝে মাঝে আমাদের মুখ চটির তলা দিয়ে ঘষত , কিছু বুঝতে না পেরে বিরক্ত হলে চটি পরা পা দিয়ে আমাদের মুখে সপাটে লাথি মারত ।

ওই কয়েক মাস প্রতিদিন ঘন্টার পর ঘন্টা দিদির চটি পরা পা মুখে নিয়ে মেঝেতে শুয়ে দিন কাটত আমাদের । দিদির পায়ের ওজনের তলায় ঘন্টার পর ঘন্টা ওইভাবে পরে থাকতে থাকতে মুখে যন্ত্রনা হলে দিদির চটির তলা জিভ দিয়ে চেটে দিদিকে ধন্যবাদ দিতাম । দিদির চটির তলার ঘর্ষনে মুখের চামড়া উঠে এলে চুম্বন করতাম দিদির চটির তলায় । সত্যি , ওই কয়েক মাস যেন পাপোশ হিসাবে জীবন কাটিয়েছিলাম আমরা । আমাদের পুজনীয় দেবী দিশার পাপোষ আর ফুটরেস্ট হিসাবে !

দিদির উচ্চমাধ্যমিক আর জয়েন্ট এন্ট্রান্স হয়ে যাওয়ার পর দিদি আবার পুর্বরুপে ফিরে এল । আমি তখন ক্লাস টেনে উঠেছি । তবু দিদির আদেশে আমার স্কুল যাওয়া বন্ধ হল । আবার শুরু হল সেই পুরন অত্যাচার, মাধ্যমিকের ঠিক পর যেইভাবে অত্যাচার করত দিদি , সেইভাবে । বরং এবার অত্যাচারের মাত্রা আরেকটু বাড়ল । একদিন পিঙ্ক স্নিকার পরা পায়ে লাথি মেরে বাবার একটা দাঁত ভেঙ্গে দিল দিদি । কয়েকদিন পরই কালো বুট জুতো পরা পায়ে লাথি মেরে আমার নাক ভেঙ্গে দিল । তখন বুঝিনি , এই সুখ আর মাত্র দু মাসের জন্য, আমার সুখের দিন শেষ হয়ে আসতে চলেছে ।

দুই মাস পর দিদির উচ্চমাধ্যমিক আর জয়েন্টের রেসাল্ট বেরল । দিদি ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে অ্যাডমিশন নিয়ে অন্য শহরে চলে গেল । এরপর খুব দ্রুত ওই ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজেরই এক সিনিয়ারের সাথে দিদির সম্পর্ক তৈরি হল । দিদি বিয়েও করে নিল । এমনকি কলেজে পড়তে পড়তেই এক বছর পর দিদির একটা মেয়ে হল । দিদি  কলেজে ভর্তি হওয়ার পর আর মাত্র একবার বাড়ি এসেছিল । আমিও ক্লাস ১০ এ ওঠায় পড়াশোনা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পরলাম । বাবা অবশ্য প্রায়ই দিদির ওখানে যেত । সম্ভবত সেবাও করত দিদির ।

পরিশিষ্ট……

আমি কিছুদিনের জন্য পড়াশোনায় ব্যস্ত রইলাম । কয়েক মাস পর মাধ্যমিক দিলাম । তার দুই বছর পর কলেজে উঠে আমিও বাইরে চলে গেলাম । দিদি কলেজ শেষ করে এক বড় মাল্টি ন্যাশনাল কম্পানিতে চাকরি পেল । পোস্টিং নিয়ে প্রথমে দক্ষিন ভারতে চলে গেল । তার এক বছর পর চলে গেল আমেরিকায় , পার্মানেন্টলি ওখানে থাকার ইচ্ছা নিয়ে । আমার সারাজীবন দিদির ক্রীতদাস হয়ে সেবা করার স্বপ্ন ভেঙ্গে গেল সেই সাথে ।

আমার জীবনটা পুরো এলোমেলো হয়ে গেল এরপর । আমার কেরিয়ার যথেষ্ট ভাল ছিল । এমনকি চেহারাও পরবর্তী কালে বেশ ভালই হয়ে গিয়েছিল । আগের মত নরকংকাল ছিলাম না , বেশ অ্যাথলেটিক বিল্ডের সুপুরুশই মনে হত আমাকে । কিন্তু আমার বুকের মধ্যে তৈরি হওয়া নরকংকালটা পার্মানেন্ট হয়ে গিয়েছিল । দিদির কাছে অতগুলো বছর ওইভাবে ডমিনেটেড হওয়ার পর , আমার কৈশোরের প্রথম ভাল লাগা তিথির সামনে ওইভাবে অপমানিত হওয়ার পর আমার পক্ষে আর পাঁচটা সাধারন মানুষের মত নিজেকে মেয়েদের সমান ভাবা  সম্ভব ছিল না। সম্ভব ছিল না একটা মেয়ের সাথে ঘর বাঁধা । আমার কাছে বহুদিন থেকেই মেয়ে মানে আমার প্রভু , পুজনীয় দেবী । আমার স্থান তাদের জুতোর তলায় । এর বাইরে অন্যকিছু ভাবা আমার পক্ষে সম্ভব ছিল না ।

কলেজ জীবনের শেষে চাকরি নিয়ে নতুন শহরে আসতে পুরনো বন্ধুরাও অনেক দূরে চলে গেল । চাকরির সময় টুকু বাদে , বহুদুরের শহরে একলা কাল্পনিক ফেমডম জগতে বিচরন করেই আমার দিন কাটতে লাগল ।

এইভাবেই দিন কাটছিল । হঠাত আগের মাসে খবর পেলাম দিদি দিন পনেরোর জন্য দেশে ফিরছে । তবে আমার ছুটি পেতে বেশ কয়েকটা দিন লেগে গেল । আমি যখন বাড়িতে পৌছলাম তখন দিদি আর দিন পাঁচেক থাকবে এই দেশে ।

আমি ঘরে ঢুকে সেই পরিচিত দৃশ্য দেখলাম বহুদিন বাদে । দেখি , বসার ঘরের সোফায় দিদি বসে আছে, বাবা শুয়ে ঠিক দিদির পায়ের তলায় । দিদির নীল চটি পরা পা দুটো সেই পুরনো দিনের মতো বাবার মুখের উপর রাখা । বাবা জিভটা মুখের বাইরে যতটা সম্ভব বার করে শুয়ে দিদির পা দুটো পালা করে টিপছে । আর দিদি বাবার বার করে রাখা জিভের উপর নিজের ডান চটির তলা বোলাচ্ছে । এক অদ্ভুত ভাল লাগল এই দৃশ্য দেখে । আমি দিদির পায়ে হাত দিয়ে প্রনাম করলাম দিদিকে ।

‘আমাকেও প্রনাম কর কুত্তা’ ।

পাশে তাকিয়ে দেখি দিদির মেয়ে নিশা আঙ্গুল দিয়ে কাছে ডাকছে আমাকে । দিদির বয়স এখন ৩০ । দিদি ১৮ বছরেই বিয়ে করায় ওর মেয়ে ইতিমধ্যেই ১১ বছরের হয়ে গেছে । ঠিক দিদির মতো দেখতে হয়েছে ওকে । একইরকম ফর্শা, একইরকম সুন্দরী । একটা রোলিং চেয়ারে বসে টিভি দেখছে নিশা । ওর পরনে পিঙ্ক টপ, কালো পায়জামা । পায়ে পিঙ্ক চটি । ওর পিঙ্ক চটি পরা পা দুটো রাখা দিদির হাজবেন্ড মানে ওর নিজের বাবার কোলের উপর । জামাইবাবু নিশার পা দুটো মন দিয়ে টিপে দিচ্ছে ওর পায়ের কাছে বসে ।

উফ , কি দৃশ্য ! একই ঘরে বসে দুই বাবা তাদের মেয়েদের পা টিপে দিচ্ছে !!

আমার ছোট্ট ভাগনী নিশা আমাকে কুত্তা বলে ডাকলেও এক্টুও খারাপ লাগল না আমার । সব মেয়েই আমাকে কুত্তা , গাধা , দাস বলে ডাকুক এটাই এখন চাই আমি ।

জামাইবাবু আমাকে দেখে একটু সরে বসল । আমি নিশার চটি পরা পা দুটো দুই হাতে ধরে ওর পায়ের উপর মাথা রেখে সাষ্টাঙ্গে প্রনাম করলাম ওকে ।

আমার ১১ বছর বয়সী সুন্দরী ভাগনী আমার মাথার উপর পিঙ্ক চটি পরা ডান পা রেখে আমাকে আশীর্বাদ করল । তারপর বলল , ‘দাদুর মতো আমার পায়ের তলায় শুয়ে আমার পা টিপে দে কুত্তা’ ।

আমি নিশার পায়ের তলায় শুয়ে পরলাম । নিজে থেকেই জিভটা বার করে দিলাম । উফ , কতদিন পর এইভাবে কোন মেয়ে সেবা করতে চলেছি !

নিশা আমার মুখের উপর ওর চটি পরা পা দুটো তুলে দিল । আমার বার করে দেওয়া জিভের উপর নিজের ডান চটির তলাটা ঘষতে থাকল আমার ১১ বছর বয়সী সুন্দরী ভাগ্নী নিশা । আর আমি ভক্তিভরে পালা করে ওর দুটো পা টিপে চললাম ।

পরের দুটো দিন খুব ভালো কাটলো আমার । উফ , কি যে আনন্দ মেয়েদের দেবী জ্ঞানে সেবা করে ! দিদি আর ওর মেয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা আমার আর বাবার মুখের উপর চটি পরা পা রেখে বসে আমাদের দিয়ে পা টেপাল , আমাদের মুখে যতখুশি লাথি মারল । দিদি নিজের মেয়েকে পুরো নিজের মতই তৈরি করেছে । ১১ বছর বয়সেই কি সহজে জুতো পরা পায়ে নিজের দাদুর মুখেও লাথি মারছে এই মেয়েটা !

আসল খবরটা শুনলাম তার পরের দিন, মানে আমার বাড়ি ফেরার চার দিনের মাথায় । তার পরের দিন বিকেলে দিদিরা ফিরে যাবে আমেরিকা । দিদির পা টিপতে টিপতে দিদির মুখে শুনলাম শুধু দিদিরা না , বাবাও ওদের সাথে যাচ্ছে । ওই দেশে পার্মানেন্টলি থাকা লোকেরা সহজেই বাবা মা কে নিয়ে যেতে পারে । বাবাকে নিয়ে গিয়ে দিদি অবশ্য ক্রীতদাস করে রাখবে । জামাইবাবু চাকরির সুত্রে নাকি আমেরিকারই অন্য শহরে থাকে । শুধু উইকএন্ডে বাড়ি আসতে পারে । তাই একটা চাকরের খুব দরকার দিদির ।

বাবা চাকরি থেকে ভি আর এস নিয়ে নিয়েছে । এখন আমেরিকায় বসেই পেনশনের টাকা তুলবে । শুধু তাই নয় , এই বাড়ি , সংলগ্ন জমি, দাদু দিদার পৈত্রিক বাড়ি ( বাবা একমাত্র উত্তরাধিকারী ছিল ) সবই অলরেডি বিক্রি করে দিয়েছে বাবা । সব মিলিয়ে প্রচুর সম্পত্তি ছিল আমাদের । বিক্রি করে নাকি প্রায় ৩ কোটি টাকা পেয়েছে বাবা । সেই সব টাকাই এখন দিদির একাউন্টে জমা হয়ে গেছে । এইসব সম্পত্তি দিদিকে দিয়ে দেওয়ার বদলে বাবা অবশ্য তার থেকে অনেক বেশি কিছুই পাচ্ছে । এখন থেকে বাবা নিজের সুন্দরী মেয়ে আর নাতনীর ক্রীতদাস । ক্রীতদাসত্বের ইতিহাস থাকা দেশে গিয়ে বাকি জীবনটা নিজের সুন্দরী মেয়ে আর নাতনীর ক্রীতদাস হিসাবেই কাটাবে বাবা ।

দিদি আমার থেকে অনেক বেশি ম্যাচিয়র । আমি বুঝতে পারছিলাম দিদি আমাদের চাকর বানানোর আগে থেকেই জানত আমাদের ঠিক কত টাকার সম্পত্তি আছে । আমাদের চাকর বানান যে খুব সহজ হবে , চাকর বানালে আমরা যে সবকিছু স্বেচ্ছায় দিদির পদতলে অর্পন করব আর এভাবে যে খুব সহজেই একাই এত টাকার মালিক হতে পারবে সেটা দিদি সেই বয়সেই বুঝে গিয়েছিল । এখন ৩ কোটি টাকার সঙ্গে মাসে মাসে বাবার পেনশনের টাকা , অবসরকালীন এককালীন পাওয়া টাকা সবই দিদির নিজের ! সঙ্গে আমেরিকার মতো কস্টলি দেশে সম্পুর্ন ফ্রি তে একটা ক্রীতদাসও পেয়ে যাচ্ছে দিদি !!

আইনত অবশ্য এই সম্পত্তির উপরে আমারও অধিকার থাকে । কিন্তু এত টাকার সম্পত্তি এইভাবে দিদি নিজের নামে করে নেওয়ায় একটুও খারাপ লাগল না আমার । কিসের অধিকার আমার ? আমি তো দিদির পোষা কুত্তা , দিদির ক্রীতদাস । আমাকে কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করায় আমি দিদির পায়ের তলায় শুয়ে পা টিপতে টিপতে দিদির চটির তলায় চুম্বন করে দিদিকে ধন্যবাদ দিতে লাগলাম । জিভ বার করে আবার চাটতে লাগলাম দিদির চটির তলা । উলটো দিকের চেয়ারে বসে নিশা তখন তার পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসা দাদুর মুখে চটি পরা পা দিয়ে লাথি মারছে ।

পরদিন বিকেলে যথাসময়ে দিদিদের সাথে বাবাও এয়ারপোর্টে গেল । প্লেনে উঠে রওনা দিল আমেরিকার উদ্দেশ্যে , নিজের মেয়ে আর নাতনীর ক্রীতদাস হিসাবে ! আমাদের অতবড় বাড়ি , জমি , সবই কাল থেকে নতুন মালিকের হাতে হস্তান্তরিত হবে । আমি সবকিছু আমার প্রভু দিদির চরনে সমর্পন করে ট্রেনে করে ফিরে এলাম আমার চাকরির শহরে ।

কারো কি মনে হয় এরপরও আমার পক্ষে স্বাভাবিক জীবনযাপন করা সম্ভব ? আমার মনে হয় না । আমার দিন এখন কাটে ফেমডমের কাল্পনিক রঙ্গীন জগতে । শুধু একটাই স্বপ্ন দেখি, আমিও একদিন আমেরিকা গিয়ে বাবার মতো আবার দিদি আর ভাগ্নীর ক্রীতদাস হব । অথবা, দিদি আবার ভারতে ফিরে আসবে , আবার সবার সামনে আমাকে ব্যবহার করবে নিজের ক্রীতদাস হিসাবে । সেইদিনের অপেক্ষাতেই দিন কাটছে আমার ।

……

( আমার জীবনে ঘটা সত্যি ঘটনার উপর ভিত্তি করে লেখা এই উপন্যাসে সত্যি ঘটনার সঙ্গে অনেক কল্পনার রঙ মিশিয়েছি, চরিত্রের নাম পরিবর্তন করেছি । তবে এইগল্পের মুল ভিত্তি ও গুরুত্বপুর্ন ঘটনা সবই সত্যি । শুধু সেই সত্যিটুকুই এত রোমাঞ্চকর যা অনেকের বিশ্বাস হতে চাইবে না । শুধু দুঃখ একটাই , এত কিছুর পরও আমি বর্তমানে কোন মেয়ের হাতে ডমিনেটেড হওয়ার সুখ থেকে বঞ্চিত । কোন কোন ঘটনা সম্পুর্ন সত্য, যা আমার জীবন বদলে দিয়েছিল তা উল্লেখ করছি এখানে । আপনাদের বিশ্বাস না হতে চাইলেও এটা সম্পুর্ন সত্যি ।

নিচে বর্ননা করা ঘটনা সমুহ সম্পুর্ন সত্যি , আমার জীবনের ঘটনা । শুধু চরিত্রের নাম পরিবর্তিত ।

গল্পের ব্যাকগ্রাউন্ড পুরোই সত্যি । ফর্শা , অতি সুন্দরী দিদি , আর বেশ কালো অতি সাধারন চেহারার আমি , আর এই নিয়ে বাবা মা সহ লোকের কমেন্ট , যা আমার মনে প্রথম ইনফিরিওরিটি কমপ্লেক্স তৈরি করে তা পুরো সত্যি । আমার ৭ বছর বয়সে মা মারা যাওয়া , তারপরই টাইফয়েডে ভুগে আমার অতি দুর্বল, অর্ধমৃত হয়ে যাওয়ার ফলে আমার হিনমন্যতা বেড়ে যাওয়া এবং ক্রমশ বাবার দিদিকে অতি স্নেহে বড় করা সম্পুর্ন সত্যি । এই স্নেহ অল্প দিনেই ভক্তিতে রুপান্তরিত হয় ।

ক্লাস ফোরে সোনালীর আমাকে ডমিনেট করা আর তাতে আমাদের ক্লাস টিচার ওর মার মদত একদমই সত্যি । এইটাও আমার জীবনে অনেক ভুমিকা রেখেছিল ।

এরপরই আমার ম্যালেরিয়া হয় ও  আমি তীব্র জ্বরে ভুগি । এইসময়ের সেই রাতটা আমার জীবনে বোধহয় সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন । প্রবল জ্বরে ভোগা আমাকে সম্পুর্ন উপেক্ষা করে সারা সন্ধ্যা দিদির পায়ের কাছে বসে দিদির চটি পরা পা দুটো কোলে নিয়ে টিপে দিয়েছিল বাবা । তারপর রাতে দিদির জন্য সুস্বাদু খাবার বানিয়ে দিদিকে সার্ভ করে দিদির খাওয়ার সময় আবার দিদির পা টিপে দিচ্ছিল । তখন আমার জ্বর কমে গিয়েছিল, কিন্তু অতি দুর্বল লাগছিল । আমি খাব কিনা সেটা পর্যন্ত কেউ জিজ্ঞাসা করেনি !

জ্বর সেরে যাওয়ার পর দিদির আমাকে চুপচাপ খাটে শুয়ে বাবার ভাত ধ্বংস করা নিয়ে কথা শোনানো এবং জবাবে আমার দিদির পায়ে মাথা ঠেকিয়ে ক্ষমা চাওয়াও বাস্তব ঘটনা ।

এরপর আমাদের বাড়ি বদল, তিথিকে ভাল লাগতে থাকা… তারপর দিদি মাসির বাড়ি থেকে ফিরেই তিথির সামনে আমার গালে থাপ্পর মারা, আমাকে তীব্র অপমান করা, সবই  সত্যি আমার জীবনে ঘটা ঘটনা । সোফায় বসে সত্যিই তিথির সামনে আমার মুখে জুতো পরা পা দিয়ে লাথি মেরেছিল আমার দিদি । তারপর আমার মুখের উপর জুতো পরা পা দুটো রেখে আমাকে দিয়ে পা টিপিয়েছিল । এমনকি তিথির সামনে আমার বার করা জিভের উপর জুতোর তলা মুছে পরিষ্কার করেছিল আমার দিদি । তবে তিথি কখনও নিজে আমাকে ডমিনেট করেনি , ওটা পুরোই কল্পনা ।

এরপরের দু বছরে আমাকে দিদির সর্বক্ষন ডমিনেট করাও বাস্তব ঘটনা ।  আমাকে কথায় কথায় লাথি মারত দিদি, চটি বা জুতো পরা পায়ে আমার মুখের উপর পা রেখে বসে আমাকে দিয়ে পা টেপাত , বাইরে থেকে ফিরলে আমাকে দিয়ে জুতো চাটিয়ে পরিষ্কার করাত । বাইরের লোক , এমনকি নিজের বান্ধবী বা আমার বন্ধুদের সামনেও আমাকে এইভাবে ডমিনেট করতে ছাড়ত না ।

দিদি শুধু আমাকেই ডমিনেট করত না , বাবাকেও করত । বাড়ির সব টাকা কড়ির মালিক তখন থেকেই ছিল দিদি । আমি আর বাবা চাকরের মতো দিদির সেবা করতাম । দিদি বাবা আর আমার মুখের উপর চটি পরা পা রেখে ঘন্টার পর ঘন্টা পড়ত বা টিভি দেখত । নিজেকে দেবী হিসাবে আমাকে আর বাবাকে দিয়ে নিজের পুজো করাত , আমাদের দিয়ে পা ধোয়া জল খাওয়াত ।

দুই বছর পর দিদি পড়তে বাইরে চলে গিয়েছিল । বাড়িতে খুব একটা আসত না । তবে বাবা প্রায়ই যেত দিদির ওখানে , দিদির সেবাও করত সম্ভবত । তবে দিদির বিয়ে তখন হয়নি, কলেজ কমপ্লিট করার ঠিক পর হয়েছিল ।

আমিও তারপর বাইরে চলে যাই । তবে আমার ভবিষ্যত তখনই ঠিক হয়ে যায় । দিদির সেবা করা ছাড়া আর কোন স্বপ্নই আমার আর কখনও ভাল লাগেনি দেখতে ।

পাশ করার কিছুদিন পর সত্যিই দিদি আমেরিকা চলে যায় । অনেকদিন পর দিদি আমেরিকা থেকে ফেরে আগের মাসে । আমি বাড়ি ফিরে দেখি বাবা আবার আগের মতো দিদির সেবা করছে । আমারও অবশ্য বহুদিন পর দিদির সেবা করার সুযোগ হয় কয়েকদিনের জন্য ।

বাবার পৈত্রিক সম্পত্তি বেচে চাকরি থেকে ভি আর এস নিয়ে দিদির সাথে আমেরিকা চলে যাওয়াও সত্যি, এমনকি ওখানে গিয়ে যে বাবা চাকরের মতো দিদির কাজ করবে , পা টিপে দেবে সেটাও । বদলে উলটে দিদি মাসে মাসে বাবার পেনশনের টাকাটা পাবে । আর সম্পত্তি বেচে পাওয়া কোটির বেশি টাকা পুরোটাই শুধু দিদির একাউন্টে জমা পরে দিদির নির্দেশে । এইটাই হয়ত দিদির বড় উদ্দেশ্য ছিল । আমি আর বাবা শুধু চাকরের মতো দিদির নির্দেশ মানতে জানি । নিজেদের ক্ষতি জেনেও আমরা কেউ এতে বাধা দিইনি । দিদির সেবা করা ছাড়া অন্য কিছুকেই আমাদের আর লাভ বলে মনে হয় না ।

আর হ্যাঁ , আমাদের মতো না হলেও দিদি নিজের হাজবেন্ডকেও অনেকটাই সাবমিসিভ করে তুলেছে । ছোটখাটো নানা ভাবে দিদির সেবা করে জামাইবাবু । পরে হয়ত আরো বেশি করবে ।

তবে দিদির মেয়ে এখনও অনেক ছোট । ওর আমাদের ডমিনেট করার ব্যাপারটা ভবিষ্যত কল্পনা, সত্যি না ।

বাবাকে সত্যিই মাঝে মাঝে হিংসা হয় এখন । ইশ, যদি আমিও বাবার মতো আমেরিকা গিয়ে ক্রীতদাসের মতো দিদির সেবা করতে পারতাম !! )

( অনেকেই আমাদের বিকৃত পারভার্ট ভাবেন । আসলে অনেকের মতো আমিও স্বেচ্ছায় ভেবে-চিনতে এরকম হইনি ।  ছোটবেলায় মাতৃহারা, রোগে ভুগে অর্ধমৃত হয়ে যাওয়া আমি পরিবেশের তীব্র চাপ সহ্য করতে পারিনি । কথায় বলে মেয়েরা অনেক কম বয়সে ম্যাচিয়র হয় । আমার চেয়ে ৩ বছরের বড় সুন্দরী দিদি সেই বয়সেই ওনেক ম্যাচিয়র হয়ে গিয়েছিল । দিদি ভবিষ্যতের আর্থিক ও অন্যান্য সুবিধার কথা ভেবে , এবং সেই বয়সেই ক্ষমতার সুখ ও হাতে অনেক টাকা পাওয়ার জন্য আমাকে (সেই সাথে বাবাকেও)  ডমিনেট করে গেছে ক্রমাগত । আর আমার অবচেতন মন সেই তীব্র চাপ ও অপমান বোধ থেকে বেরনোর কোন স্বাভাবিক পথ না পেয়ে বক্র পথে গমন করেছে , সাহায্য নিয়েছে বিশেষ ডিফেন্স মেকানিসমের । সেই মেকানিসম আমাকে ক্রমে বুঝিয়েছে মেয়েরা অনেক সুপিরিয়র , আমার দিদিকে আমার দেবী , আমার প্রভু হিসাবে দেখা উচিৎ । আমার পরিবেশও আমাকে মেয়েদের সুপিরিয়র ভাবতে সাহায্য করেছে । ক্রমে দিদি আমাকে যত অপমান করেছে , এই ডিফেন্স মেকানিসমের ফলে আমি তা এঞ্জয় করতে শুরু করেছি , দিদিকে দেবী, আমার প্রভু বলে ভেবে পেয়েছি তীব্র সুখ । ফলে, ক্রমশ আমি গড়ে উঠেছি এইরকম ভাবে , যা থেকে বেরনোর পথ , বা এখন ইচ্ছাও আমার নেই।

অনেকেই এই ঘটনা পরে আমাকে অত্যাচারিত শিশু বলে দয়া করবেন হয়ত , দিদির নিষ্ঠুরতার কথা পরে খারাপও লাগতে পারে । আমার কিন্তু একটুও খারাপ লাগে না । আমি সত্যিই আমার দিদিকে দেবী হিসাবে , আমার প্রভু হিসাবে ভাবি । আমার উপর সবরকম নিষ্ঠুর আচরন করার জন্য রোজ অসংখ্য বার মনে মনে ধন্যবাদ দিই দিদিকে । বিশ্বাস করি আমি দিদির সম্পত্তি , আমাকে নিয়ে যা খুশি করার অধিকার দিদির আছে , যেমনটা দিদি করেছিল আমার সাথে ছোটবেলায় , বা বাবার সঙ্গে যেমন এখনও করছে । শুধু একটাই দুঃখ হয় , যদি এখনও দিদির সেবা করতে পারতাম বাবার মতো !!

তবে এখনও আমি স্বপ্ন দেখি, হয়ত আমি একদিন আমেরিকায় যাব বা দিদি পার্মানেন্টলি ফিরে আসবে দেশে । আমি আবার ক্রীতদাসের মতো সেবা করতে পারব আমার পুজনীয় দেবী, আমার প্রভু , আমার ৩ বছরের বড় অপরুপা সুন্দরী দিদির । )

( গল্পের পরবর্তী কিছু আপডেট কমেন্টে যোগ করা হয়েছে । তাই, অবশ্যই এই গল্পের কমেন্টগুলো চেক করুন )

( ভূমিকা না পরে কেউ ব্লগে ঢুকবেন না । সম্পুর্ন ভূমিকা পড়ে তবেই গল্প, কমেন্ট পড়বেন বা নিজে কমেন্ট করবেন । অন্যথায় , আপনার কোন ভুল ধারনার জন্য আমি/ আমরা দায়ী থাকব না । )

আমার জীবনের অভিজ্ঞতা ( লাড্ডু )

(খোকা, তোমার এক্সপেরিয়েন্স টা পড়লাম । Just  awesome !!  যাদের ফেমডমের অভিজ্ঞতা নেই , তাদের এটা মিথ্যা গল্প বলে মনে হতে পারে । যেমন ফেমডম কি যাদের কোন ধারনা নেই , তাদের মনে হয় কোন মেয়ের হাতে মার খেতে , তার কাছে অপমানিত হতে কোন ছেলের কখনই ভাল লাগতে পারে না । আমরা যারা ফেমডম ভালবাসি তারা জানি ভাল লাগতে পারে,  আর এর চেয়ে সুখের অনুভুতি একটা ছেলের জন্য আর কিছু হতে পারে না । তেমনই আমাদের যাদের ফ্যামিলি ফেমডমের এক্সপেরিয়েন্স আছে তারা জানি কিছু সুন্দরী মেয়ে ছোট থেকেই ছেলেদের ডমিনেট করতে ভালবাসে । নিজের পরিবারের পুরুষ , এমনকি ভাই , দাদা , বাবাকেও তারা  ডমিনেট করতে ছাড়ে না । প্রথমে এই ডমিনেশনের মাত্রা থাকে অল্প, কিন্তু যতই পুরুষেরা এইভাবে মেয়েটির হাতে ডমিনেটেড হতে থাকে , ততই তারা মেয়েটির প্রতি মোহগ্রস্ত হতে থাকে । মেয়েটির প্রতি হৃদয়ে এক তীব্র ভক্তি এইভাবেই জেগে উঠতে থাকে ছেলেদের বুকে । ছেলেদের ভক্তি যত বাড়ে , মেয়েদের ডমিনেট করাও বাড়তে থাকে তত । সামান্য ডমিনেশন দিয়ে যেই সম্পর্কের সুচনা, একসময় তা বেড়ে এক্সট্রিম ডমিনেশনে পৌছে যায় । অনেকসময় , একটি ছেলেকে মেয়েটির হাতে ডমিনেটেড হতে দেখে অন্য ছেলেরাও বুঝতে পারে সুন্দরী মেয়েদের হাতে ডমিনিটেড হওয়ার আনন্দ , তাদের হৃদয়েও জেগে ওঠে তীব্র ভক্তি । উদ্দেশ্যহীন জীবনে বেঁচে থাকার এক প্রকৃত উদ্দেশ্য খুজে পায় তারা , তাদের দেবীর সেবা করার, নিজের শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে তাকে আরও খুশি করার । এইভাবেই অনেক পরিবারে সবার সামনেই দিনের পর দিন ঘটে চলে ফেমডম, বাবা, দাদা , ভাইয়ের কাছে দেবী হিসাবে পুজিত হতে থাকে বাড়ির মেয়ে । কখনও বা স্বামী, শ্বশুর, দেওরের কাছে দেবী হিসাবে পুজিত হয় বৌমা ।

আমার অভিজ্ঞতা তোমার তুলনায় অনেক কম , যেটুকু অভিজ্ঞতা তার পুরোটাই আমার চার বছরের ছোট খুড়তুতো বোন রিচার সাথে । সেই সত্যিটুকুর সাথে ফ্যান্টাসি মিলিয়ে গল্পটা লিখছি । কতটুকু সত্যি শেষে লিখে দিয়েছি ।)

আমাদের বাড়ি মেদিনিপুর জেলার এক ছোট শহরে । বাবার ছোট এক দোকান আছে, আধা শহরের বুকে ভাঙ্গাচোরা এক ছোট বাড়িতে থাকতাম আমি আর বাবা মা । কাকু সেখানে কলকাতায় বড় চাকরি করে , কলকাতার বুকে এক বড় অভিজাত ফ্ল্যাটে থাকে স্ত্রী আর একমাত্র মেয়ে রিচাকে নিয়ে । রিচা ফর্শা , অপরুপা সুন্দরী আর সেই সাথে খুব ইন্টেলিজেন্টও । আমি সেখানে ছোট শহরের নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের সাধারন মেধার অতি সাধারন চেহারার এক ছেলে ।

ছোট থেকেই আমার অতি সুন্দরী খুড়তুতো বোনকে দেখে মনে এক অদ্ভুত ইনফিরিওরিটি কমপ্লেক্স জন্ম নিয়েছিল । আমি ছোটবেলায় মাত্র দুইবার কয়েকদিনের জন্য কোলকাতায় কাকুর বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলাম । একবার , আমি যখন ক্লাস ৪ এ পড়ি, আরেকবার ক্লাস ৭ এ । ওদের অত বড় বাড়ি অত আভিজাত্য সাথে রিচার ওই সুন্দর ফর্শা চেহারা, সবই আমার মনে এক তীব্র ইনফিরিওরিটি কমপ্লেক্স গড়ে তুলেছিল ।

রিচা ছিল বড়লোক বাবা মায়ের একমাত্র আদুরে সুন্দরী মেয়ে , সেই সাথে সেই ছোট বয়সেই বেশ ডমিন্যান্ট । কাকুকে চিরদিন দেখতাম ওর পায়ের কাছে বসে জুতো পরিয়ে দিত , জুতো খুলে দিত । রিচার পায়ের কাছে বসে ওর পাও টিপে দিত মাঝে মাঝে । এত বড়লোক কাকু এইভাবে নিজের এত ছোট মেয়ের সেবা করছে , এটা দেখে আমার হিনমন্যতা আরও বেড়ে গিয়েছিল । আমাকে বাবা মার সামনে ছোট খাটো হুকুম করেছিল তখন ও , খুব বেশি কিছু না ।

তবে আমি খারাপ ছাত্র বলে , পরীক্ষায় একবার শুন্য পেয়েছিলাম বলে ও তখনই ( আমি তখন ক্লাস ৭ এ , ও ক্লাস ৩ তে পড়ত ) আমার নাম দিয়েছিল লাড্ডু ( শুন্য ) ! ও আমাকে লাড্ডু বলেই ডাকে তখন থেকে । এই শব্দটার মধ্যে লুকিয়ে আছে আমার একরকমের অক্ষমতা , আমার রিচার তুলনায় অনেক খারাপ ছাত্র হওয়া । কিন্তু রিচার কাছে এই ছোট অপমানটা আমার ভীষণ ভাল লাগত সেই বয়স থেকেই । সেইবার বাড়ি ফেরার পর থেকেই রিচাকে আমার আরাধ্যা দেবী আর নিজেকে ওর ভক্ত ভাবতে ভীষণ ভাল লাগে আমার । আমি মনে মনে দেবী হিসাবে পুজো করি ওকে ।

এরপর আবার ওর সাথে দেখা আমার যখন ক্লাস ১০ তখন । ও তখন ক্লাস ৬ এ পড়ে । আমাদের বাড়িতে ও প্রথমবার আসে , ওর মায়ের সাথে । আমাদের ভাঙ্গাচোরা সাধারন বাড়ি দেখে ওর মুখে ফুটে ওঠা তাচ্ছিল্যভাব আমার হিনমন্যতা আরও বাড়িয়ে দেয় । সেই সাথে বেড়ে ওঠে রিচাকে আমার সুপিরিয়র ভাবার চিন্তাও । একটু বড় হওয়ায় রিচা তখনই অনেক ডমিন্যান্ট হয়ে গেছে লক্ষ্য করি । নিজে থেকেই অর্ডার করে আমাকে দিয়ে ওর পা থেকে জুতো খোলায় , আমাকে দিয়ে পা টেপায় । ও যেদিন আসে তার পরেরদিন সন্ধ্যাবেলার একটা ঘটনা আমার জীবনে খুব গুরুত্বপূর্ণ । সেদিনই প্রকৃতঅর্থে জীবনে প্রথমবার রিচার সেবা করি আমি ।

টিভির ঘরে বসে মা আর কাকিমা টিভি দেখতে দেখতে খাটে বসে গল্প করছিল সেদিন । মেঝেতে রাখা চেয়ারে বসেছিল রিচা । ওর পরনে ছিল একটা মাল্টি-কালারের টপ কালো প্যান্ট , পায়ে লাল চটি । আমি রিচার পায়ের কাছে বসে ওর পা টিপে দিচ্ছিলাম । মা কথায় কথায় কাকিমাকে বলছিল আমার পড়াশোনার অবস্থা কত খারাপ , আমি মাধ্যমিকে কি করব তাই নিয়ে মা কত উদ্বিগ্ন । জবাবে কাকিমা বলে রিচা পড়াশোনায় কত ভাল , কোলকাতার অত বড় স্কুলে ও ফার্স্ট হয় । শুনে মা আমাকে বলে , ‘তোর উচিৎ ছোট বোনের পা ধুয়ে জল খাওয়া । তাতে যদি তোর কোন উপকার হয়’ ।

মায়ের কথা শুনে রিচা মুচকি হেসে বলেছিল, ‘হ্যাঁ লাড্ডু , বাটিতে করে জল নিয়ে এসে আমার পা ধুয়ে জল খা তুই । দেখ, তোর উন্নতি হবে’ ।

তাই শুনে মা আবার বলে , ‘ তাই কর খোকা । তোর ভাল হবে এতে’ । আমার মা আমাকে জোর করছে যাতে আমি আমার ছোট বোনের পা ধুয়ে জল খাই? আর তাতে আমার বোনও সায় দিচ্ছে ? এক অদ্ভুত আনন্দ ঘিরে ধরে আমাকে । আমি উঠে গিয়ে একটা ছোট গামলা, গামছা আর জল নিয়ে আসি । আমার সুন্দরী খুড়তুতো বোন রিচার লাল চটি পরা পা দুটো মেঝেতে রাখা । আমি প্রথমে মা আর কাকিমার সামনেই রিচার চটি পরা পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করি ওকে । তারপর ওর পা থেকে চটি খুলে গামলায় জল নিয়ে ওর পা দুটো ভক্তিভরে ধুয়ে নিই । ওর পা মুছিয়ে দিই গামছা দিয়ে, ওর পায়ে আবার চটি পরিয়ে দিই ।

তারপর আমার ক্লাস ৬ এ পড়া ৪ বছরের ছোট সুন্দরী খুড়তুতো বোন রিচার পা ধোয়া জলটা গামলা থেকে চুমুক দিয়ে খেতে থাকি । মা আর কাকিমার সামনে বোনের পা ধোয়া পুরো জলটা ভক্তিভরে এক চুমুকে খেয়ে নিই আমি । বোন আমার মাথার উপর চটি পরা ডান পা টা রেখে আমাকে আশীর্বাদ করে বলে ‘বোন যেই কয়দিন আছে রোজ সেই কয়দিন ওর পা ধোয়া জল খাবি তুই । তাতে যদি তোর রেসাল্টের কিছু উন্নতি হয়’ ।

বোন সেইবার মোট ৭ দিন ছিল । আমি রোজই একবার করে ওর পা ধুয়ে জল খেতাম আর ওর পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করতাম । প্রনাম করলে এরপর রজই বোন চটি পরা পা আমার মাথার উপর রেখে আশীর্বাদ করত আমাকে । মা , কাকিমা তো বটেই, বাবার সামনেও এইভাবে বোনের পা ধুয়ে জল খেতাম ।

৭ দিন পর ওর ফেরার সময় হল । এই কয়দিন রোজ ওর পা ধুয়ে জল খেয়েছি , ওর পা টিপে দিয়েছি । ওকে দেবীজ্ঞানে ভক্তিভরে প্রনাম করেছি । ও চলে যাবে ভেবে খুব খারাপ লাগছিল । যাওয়ার সময় হলে কাকিমা আর ও রেডি হল , আমি বোনের পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে ওর পায়ে সাদা মোজা আর স্নিকার পড়িয়ে দিলাম । ওর তখন মনে হল চুলে স্টাইল ঠিক হয়নি ওর । ও আবার ড্রেসিং রুমে এল । আমাদের আয়নাটা ছিল একটু উচুতে । ও তখন ক্লাস ৬ এ পরে , উচ্চতা একটু কম হওয়ায় মুখ দেখতে অসুবিধা হচ্ছিল ওর ।

তাই আমাকে রিচা বলল ওর পায়ের কাছে শুয়ে পরতে । আমি তাই করলাম । আমি ওর পায়ের কাছে শুতে ও প্রথমে ওর জুতো পরা বাঁ পা টা আমার বুকের উপর রাখল । তারপর ওর জুতো পরা ডান পা টা তুলে দিল আমার ঠোঁটের উপর । আমার মুখের আর বুকের উপর পা রেখে দাঁড়িয়ে ও চুলের স্টাইল ঠিক করতে লাগল । আমার বাবা , মা , কাকিমা সবাই তখন ওই ঘরে এসে গেছে । আমার বুক আর মুখের উপর জুতো পরা পায়ে বোনকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখে কেউ একবারও বারন করল না ! সবাই এমনভাবে নিল ব্যাপারটা যেন সাধারন চেহারার দাদার মুখের উপর জুতো পরা পা রেখে সুন্দরী বোনের দাঁড়িয়ে থাকা একদমই স্বাভাবিক ব্যাপার !

একটু পরে বোন ওর জুতো পরা দুটো পাই আমার মুখের উপর তুলে দিল । আমার ঠোঁটের উপর ওর জুতো পরা বাঁ পা আর কপালের উপর জুতো পরা ডান পা রেখে দাঁড়িয়ে বোন চুল আচড়াতে লাগল স্টাইল করে । আমার মুখে উপর দাড়াতে যাতে ওর ব্যালেন্স নষ্ট না হয় , তাই আমার মা পাশে এসে আলতো করে ধরে থাকল ওকে । আর আমার ১১ বছর বয়সী সুন্দরী খুড়তুতো বোন আমার মুখের উপর জুতো পরা পায়ে দাঁড়িয়ে চুল আচড়ে চলল !

ও তখন একটু ছোট হলেও জুতো পরা পায়ে দেহের সম্পুর্ন ভর ওইভাবে আমার মুখের উপর দিয়ে ও দাঁড়িয়ে থাকায় ভীষণ ব্যথা লাগছিল আমার । কিন্তু বাবা মা আর কাকিমার সামনে এইভাবে বোনের হাতে ডমিনেটেড হওয়ার জন্য তারচেয়ে অনেকগুন বেশি ভাল লাগছিল আমার । এক তীব্র আনন্দ যেন ঝঙ্কার তুলছিল আমার হৃদয়ে । আমি দুইহাত দিয়ে বোনের জুতো পরা পা দুটো নিজের মুখের সাথে চেপে ধরেছিলাম আমি । আর মাঝে মাঝে ওর জুতোর তলায় চুম্বন করে মনে মনে ওকে ধন্যবাদ দিচ্ছিলাম আমাকে এইভাবে ডমিনেট করার জন্য , আমার মুখটাকে এইভাবে ফুটস্টুল হিসাবে ব্যবহার করার জন্য ।

প্রায় ৩০ মিনিট ধরে আমার মুখের উপর জুতো পরা পায়ে দাঁড়িয়ে চুল আচড়ালো বোন । তারপর একটা দুর্দান্ত স্টাইলিশ লুক এনে আমার মুখের উপর থেকে নেমে দাঁড়ালো ও । আমি ভক্তিভরে ওর দুই জুতোর উপর একবার করে চুম্বন করে বললাম , ‘ থ্যাঙ্ক ইউ বোন’ ।

রিচা আমার মুখের উপর থেকে নেমে দাড়াতে বাবা নিজে থেকেই ওর পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসল। নিজের ভাইঝির সাদা স্নিকার পরা দুই পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে সাষ্টাঙ্গে প্রনাম করল আমার বাবা । জবাবে রিচা খুব স্বাভাবিকভাবে নিজের জেঠুর মাথার উপর জুতো পরা ডান পা রেখে তাকে আশীর্বাদ করল । আমার মা, কাকিমা এই ঘটনাটাও এত স্বাভাবিকভাবে নিল যেন এটা ভীষণ স্বাভাবিক !

সেবারের মতো ওরা চলে গেল । আমি খুব দুঃখ পেলাম । আমি তখন রিচাকে সত্যি আমার পুজনীয় দেবী হিসাবে দেখা শুরু করে দিয়েছি । কয়েকমাস পর আমার মাধ্যমিক এল । পরীক্ষার পরের ছুটিতে আবার কাকুর বাড়ি গেলাম আমি । যেদিন গেলাম , সেদিন ছিল রবিবার । গিয়ে যা দেখলাম সেটা দেখব আমি কল্পনাও করিনি । রিচার তখন ক্লাস ৭ হবে  , তখনও ১২ বছর বয়সও হয়নি । সেই ১১ বছরের রিচা ওদের বিলাসবহুল ফ্ল্যাটের টিভি রুমে নরম গদি মোড়া চেয়ারে বসে টিভি দেখছে । ওর পরনে নীল টপ , সাদা স্কার্ট আর পায়ে নীল চটি । ওর চটি পরা পা দুটো রিচা রেখেছে নিজের বাবার মুখের উপর!! রিচার চটি পরা পা দুটো কাকু ভক্তিভরে টিপে চলেছে । কাকুর জিভটা মুখের বাইরে লম্বা করে বার করা , আর তার উপর কাকুর ১১ বছর বয়সী মেয়ে রিচা নিজের চটি পরা ডান পায়ের তলাটা বোলাচ্ছে !!

কাকুদের ফ্ল্যাটে মোট দুইজন কাজের লোক ছিল । তারা তখন বাড়িতে । কাজের প্রয়োজনে তারা মাঝে মাঝে টিভি রুমেও যাচ্ছে । আর তাদের চোখের সামনেই কাকুর বার করা জিভের উপর এমনভাবে রিচা নিজের চটির তলা বোলাচ্ছে যেন এটা ভীষনই নর্মাল ব্যাপার !! কাজের লোক দুইজনও এমন স্বাভাবিকভাবে নিজের কাজ করে যাচ্ছে যেন বাবার জিভের উপর ১১ বছর বয়সী সুন্দরী মেয়ের চটির তলা বোলানো ভীষণ সাধারন ব্যাপার !!

তখন আমার খুব অবাক লাগলেও এখন আর লাগে না । রিচার মধ্যে এমন একটা চমৎকার আভিজাত্যপুর্ন ডমিনেটিং ভাব সেই ছোট থেকেই আছে যে ছেলেরা খুব সহজেই নিজেকে ওর পায়ের তলায় সঁপে দেয় । এই কারনেই আমার মা নিজে থেকে আমাকে বলেছিল ওর পা ধোয়া জল খেতে , আমার বাবা ওর পায়ে মাথা রেখে প্রনাম করেছিল । আর ও যখন আমার মুখের উপর জুতো পরা পায়ে দাঁড়িয়ে চুল আচড়াচ্ছিল তখন আমার মা , বাবা আর কাকিমা ব্যাপারটাকে খুব স্বাভাবিকভাবে নিয়েছিল । আর এই কয়েকমাসের মধ্যে কাকুও নিজেকে সম্পুর্ন সঁপে দিয়েছে নিজের ১১ বছর বয়সী মেয়ের পায়ের তলায় । আর এখন রিচা নিজের বাবার জিভের উপর সবার সামনেই চটির তলা মোছে !!

রিচা আমার সাথে তখন থেকেই এমন আচরন করত যেন আমি ওর চাকর , অথবা বলা ভাল ক্রীতদাস ! চাকরকে তো কেউ কথায় কথায় মুখের উপর জুতো পরা পা দিয়ে যতখুশি লাথি মারে না বাঁ চাকরের জিভের উপর জুতোর তলা ঘষেও পরিষ্কার করে না । কিন্তু রিচা আমার সাথে এই সবই করত, নিজের বাবার সাথেও করত । আমাকে ওর ব্যক্তিগত সব কাজ করতে হত , ঘর গোছানো, ঘর পরিষ্কার , জামা কাচা, বিছানা করা সবই । পান থেকে চুন খসলে সবার সামনেই আমাকে সজোরে থাপ্পর মারত বাঁ চটি পরা পায়ে আমার মুখে সপাটে লাথি মারত । নিজের ১১ বছর বয়সী সুন্দরী বোনের হাতে এইরকম ব্যবহার পেতে দারুন ভাল লাগত আমার । মনে মনে ভাবতাম , ইশ, যদি ওদের বাড়িতে থেকে গিয়ে সারাজীবন এইভাবে বোনের সেবা করতে পারতাম !!

কয়েকদিন পরই আমার সেই স্বপ্ন সত্যি হল । কাকিমা আমাকে বলল, তুই এখানে থেকে যা । ১১ এ এখানেই স্কুলে ভর্তি হবি । রিচার চাকরের মতো হয়ে ওকে হেল্প করতে পারবি বাড়িতে । কি সহজে কাকিমাও আমাকে বলছে নিজের খুড়তুতো বোনের চাকর হয়ে ওদের বাড়িতে থাকতে । প্রবল ভাল লাগায় আচ্ছন্ন হয়ে গেল আমার মন । সঙ্গে সঙ্গে কাকিমাকে প্রনাম করে ধন্যবাদ দিলাম আমি ।

রেজাল্ট বেরনোর পর আমি কলকাতার স্কুলে ভর্তি হয়ে কাকুর বাড়িতেই থেকে গেলাম । সারাদিন আমি রিচার ক্রীতদাসের মতো ওর সেবা করতাম । ও স্কুলে না গেলে আমিও বাড়িতে থেকে ওর সেবা করতাম । ঘন্টার পর ঘন্টা আমার মুখের উপর চটি পরা পা রেখে বসে টিভি দেখত , গেম খেলত বা পড়ত রিচা । রিচা ওর চটির তলা দুটো আমার সারামুখে ঘষত , আমি রিচার চটির তলায় চুম্বন করতে করতে ওর পা টিপে দিতাম । যখন খুশি আমার মুখে লাথি মারত ও , বাইরে থেকে এসে নোংরা জুতোর তলা আমার জিভের উপর ঘষে পরিষ্কার করত ।

সন্ধ্যাবেলা অফিস থেকে বাড়ি ফিরে কাকু নিজের মেয়ের সেবা করার দায়িত্ব নিত । কাকু নিজের মেয়ের পা ধুয়ে জল খেত প্রথমে , তারপর রিচা নিজের বাবাকে পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসিয়ে চটি পরা পায়ে মুখে লাথি মারত । এরপর সারা সন্ধ্যা রিচা বাবার মুখের উপর চটি পরা পা রেখে বসে টিভি দেখত বাঁ পড়ত । মাঝে মাঝে নিজের বাবার বার করা জিভের উপর চটির তলা ঘষে পরিষ্কার করত রিচা ।

আমি ড্রাইভিং শিখে নিয়েছিলাম রিছার সুবিধার জন্য । মাঝে মাঝে ওদের গাড়িতে রিচাকে ড্রাইভ করে শপিং এ নিয়ে যেতাম । রিচা শপিং করত, আর আমি ওর কেনা জিনিস চাকরের মতো বইতাম । ও জুতো কিনতে গেলে আমাকে সবার সামনে ওর পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে ওর পায়ে জুতো পড়িয়ে দিতে হত । আমি অবশ্য খুব আনন্দের সাথেই এটা করতাম ।

রিচার সব বান্ধবী জানত আমি ওর চাকর । ওর বান্ধবীরা প্রায়ই বাড়িতে আসত । তাদের সামনেই রিচা আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারত , আমার জিভের উপর জুতোর তলা ঘষে পরিষ্কার করত । ওদের সামনেই আমার মুখটা ফুটস্টুল হিসাবে ব্যবহার করত রিচা, আর আমি ভক্তিভরে ওর পা টিপে সেবা করতাম । ওর বান্ধবীরা দেখে হাসত , কেউ কেউ একইভাবে আমাকে ব্যবহার করত । আমার বাবা কোন দরকারে কলকাতায় কাকুর বাড়িতে এলে আমার আর কাকুর মতো একইভাবে রিচার সেবা করত । আমাদের পরিবারের সব পুরুষই তখন থেকে রিচাকে দেবী জ্ঞানে পুজো করি , ওর সেবা করে তীব্র আনন্দ পাই ।

এইভাবেই আমার জীবন কাটতে লাগল রিচার সেবা করে । আর রিচার দিন কাটতে লাগল নিজের বাবা আর জেঠতুতো দাদাকে দিয়ে চাকরের মতো সেবা করিয়ে , সেই ১১ বছর বয়স থেকেই ।

আমি উচ্চমাধ্যমিক পাস করে শহরেরই এক সাধারন কলেজে ভর্তি হয়ে রিচার সেবা করা চালিয়ে গেলাম । আমি যখন কলেজ পাস করলাম তখন রিচার ক্লাস ১২ । কাকু বড় পোস্টে চাকরি করলেও আমাকে তখন ওই কম্পানিতে ঢোকানোর কোন সুযোগ ছিল না । আমি এক অতি ক্ষুদ্র কোম্পানিতে প্রথমে চাকরি নিলাম কলকাতাতেই ।  তার একবছর পর রিচা উচ্চমাধ্যমিক পাস করে এক নামী ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে ভর্তি হল । আমি তখন চাকরের মতো আমার দেবী রিচার সেবা করে চলেছিলাম । কিন্তু একবছর পর , রিচা যখন সেকেন্ড ইয়ারে, তখন একটা ভাল চাকরি পাওয়ায়  বাধ্য হয়ে মুম্বাইয়ে চলে যেতে হল । প্রায় এক বছর কোন সুযোগ হয়নি রিচার সেবা করার । কিন্তু সদ্য অনেকচেষ্টার পর কাকু আমাকে ওদের কোম্পানিতে কলকাতাতেই একটা চাকরি করে দিয়েছে । কয়েকদিন হল আমি আবার ফিরে এসেছি কলকাতায় । আবার দেবীজ্ঞানে পুজো আর সেবা করছি আমার খুড়তুতো বোন , এখন থার্ড ইয়ারে পড়া রিচাকে । কাকুও একইভাবে এখনও সেবা করে চলেছে নিজের সুন্দরী মেয়ের ।

( গল্পটা আমার ফ্যান্টাসির সাথে সত্যি মিশিয়ে লেখা । সত্যিটুকু লিখছি এখানে । তবে , খুড়তুতো বোন রিচার নামটা পরিবর্তিত নাম ।

গল্পে ফ্যান্টাসি মুলত সেবা করার ঘটনা গুলোয় মিশিয়েছি , বাকি যা লিখেছি প্রায় সত্যিই । আমাদের বাড়ি ছিল মেদিনিপুরে, আমরা বেশ গরিব আর আমি দেখতে ও পড়াশোনাতেও অতি সাধারন ছিলাম । রিচারা বড়লোক , আর ও অসাধারন সুন্দরী ও খুব ইন্টেলিজেন্ট । এইরকম কোন মেয়ে যখন ডমিনেটিং ও হয় , সেটা আশেপাশের মানুষ মেনে নেয় বেশিরভাগ সময় । আমাদের পরিবারেও তাই হয়েছিল । শৈশবে দুইবার ওদের বাড়িতে যাওয়া , ওদের অত ভাল অবস্থা , আর সেই বাড়ির মালিক কাকুকেও রিচার পায়ের কাছে বসে ওর পা টিপতে দেখে আমার মন ওকে অনেক সুপিরয়র , প্রায় দেবীর আসনে বসিয়েছিল ওই বয়সেই ।তারপর আমি যখন ক্লাস ১০ , আর রিচা ক্লাস ৬ তখন ও আমাদের বাড়িতে আসলে সত্যিই আমার মা নিজেই আমাকে বলে রিচার পা ধুয়ে জল খেলে আমার উন্নতি হতে পারে । আমি সত্যিই রিচার পা ধুয়ে জল খাই সেদিন মা আর কাকিমার সামনে । তবে , জীবনে ওই একবারই রিচার পা ধুয়ে জল খেয়েছিলাম আমি ।

সেবার ওরা ৭ দিন ছিল, সেই সাতদিন রোজ দুইবেলা রিচা আমাকে দিয়ে ওর পা টেপাত মা, বাবা , কাকিমার সামনেই, আমার কোলের উপর ওর চটি পরা পা রেখে বসে । এমনকি ওরা যাওয়ার দিন… আমি ওর পায়ে জুতো পরিয়ে দেওয়ার পরে … ও সত্যিই চুল ঠিক করবে বলে আয়নার সামনে যায় । আর আয়না উঁচু হওয়ায় ওর অসুবিধা হচ্ছিল বলে আমাকে ওর পায়ের তলায় শুয়ে পরতে বলে । আমার বাবা , মা আর কাকিমার সামনেই আমার মুখের উপর জুতো পরা পায়ে দাঁড়িয়ে প্রায় ১০-১৫ মিনিট ও চুল আঁচড়ে ঠিক করেছিল সেদিন !

এরপর মাধ্যমিকের পর আমি ওদের বাড়িতে ঘুরতে যাই … আর … কাকিমার কথায় ওদের বাড়িতে থেকে পড়তে রাজি হয়ে যাই । আমাকে রিচা তখন থেকেই চাকর হিসাবে ব্যবহার করত । নিজের সামান্য সুবিধার জন্য যেকোন ছেলেকে ব্যবহার করাটা খুবই স্বাভাবিক, এরকমই মনে হত ওর আচরনে । ওর সব কাজই আমাকে করতে হত , ও বাড়িতে থাকত রাজকন্যার মতো । তবে কোন ভুল হলে সাধারনত ও মুখেই বলত । খুব কম কয়েকবার ও আলতো থাপ্পর বা খুব আসতে লাথি মেরেছে শুধু ।

কাকু রিচার পা থেকে জুতো খুলে দিত , রিচার পা কোলের উপর নিয়ে টিপেও দিত । মাঝে মাঝে ওর ঘর পরিষ্কার করত । রিচার সামান্য আবদারও সঙ্গে সঙ্গে যেভাবে হোক মেটাত । তবে এর বেশী কোনভাবে রিচার সেবা কাকুকে করতে দেখিনি । বাকি যা লিখেছি , আমার ফ্যান্টাসি । আমার বাবাকেও রিচা কখনও ডমিনেট করেনি ।

তবে আমাকে রিচা অনেকভাবেই ব্যবহার করত । বড়লোকের একমাত্র আদুরে , ফর্শা, অতি সুন্দরী , অতি ইন্টেলিজেন্ট মেয়েটি আমার মতো অতি সাধারন দেখতে , নিম্ন মেধার এক ছেলেকে ব্যবহার করবে , এতে ওর বা আমার বাবা মা সহ কেউই তেমন অস্বাভাবিকতা দেখেনি । তবে দরকার ছাড়া আমাকে শুধু ডমিনেট করার জন্য কখনও হিউমিলিয়েট করত না ।

যেমন , আমি যদি মেঝেতে শুয়ে থাকি ওর চলার পথে তবে ও চটি বা জুতো পরা পায়… সবার সামনেও… এমন স্বাভাবিকভাবে আমার মুখটাও পাড়িয়ে চলে যেত যেন কোন জড় বস্তুর উপর পা রাখছে । তবে ওর চলার পথে না থাকলে শুধু আমাকে হিউমিলিয়েট করার জন্য কখনও পাড়াতে দেখিনি ।

নিজের বাবাকে দিয়ে যেমন পা টেপাত রিচা তেমন আমাকে দিয়েও টেপাত । ওর মুখের হাবভাব বুঝিয়ে দিত এটা ও আমার বা নিজের বাবার কাছেও এক্সপেক্ট করে । আর ওর আভিজাত্যপুর্ন এই ডমিনেটিং স্বাভাবিক আচরনের জন্যই সবার কাছে ব্যাপারটা খুব স্বাভাবিক মনে হত ।

কাকু আর আমি দুজনেই রিচার পা টিপে দিলেও টেপার পদ্ধতিতে পার্থক্য ছিল । কাকু পা টিপত রিচার পায়ের কাছে মেঝেতে বসে , ওর পা দুটো কোলে নিয়ে । আর রিচা আমাকে দিয়ে পা টেপাত আমাকে মেঝেতে শুইয়ে । আমাকে ঠিক ওর পায়ের কাছে মেঝেতে শোওয়াতো রিচা , তারপর ওর চটি পরা, কখনও বা জুতো পরা পা দুটো আমার মুখের উপর তুলে দিত । এভাবে কাকু , কাকিমার সামনেই রোজ আমাকে দিয়ে পা টেপাত রিচা । ও যখন পড়ত বা টিভি দেখত  আমি ওর চটি পরা পায়ের তলায় শুয়ে ওর পা দুটো টিপে দিতাম ।

ও সবসময় ওর চটির তলা দুটো আমার মুখের উপর ঘষত । আমার ঠোঁট দুটো ওর চটির তলা দিয়ে ঘষতে ও খুব ভালবাসত । আমি জবাবে ভক্তিভরে ওর চটির তলায় চুম্বন করতে করতে ওর পা টিপে যেতাম । মাঝে মাঝে ওর চটির তলা জিভ দিয়ে চাটতাম । তবে রিচা কখনও নিজে থেকে আমাকে দিয়ে ওর চটি বা জুতো চাটায়নি । কাকু, কাকিমা , আমার বাবা,মা , রিচার অনেক বান্ধবী , আমার কিছু বন্ধু , বাড়ির চাকর , সবার সামনেই আমি এইভাবে রিচার সেবা করেছি । সেই ১ পড়ার সময় থেকে রোজ কয়েক ঘন্টা এইভাবে রিচার চটি পরা পায়ের তলায় শুয়ে সারা মুখে ওর চটির তলার ঘষা খেতে খেতে আমি ওর পা টিপি কাকু , কাকিমার সামনে , ওর চটির তলায় ভক্তিভরে চুম্বন করতে করতে । তবে ও কখনও আমার জিভে জুতো বা চটির তলা মোছেনি , আমাকে জোরে লাথি বা থাপ্পরও মারেনি , আমার তীব্র ইচ্ছা সত্বেও ।

আর এইভাবে আমাকে দিয়ে পা টেপানো, আমার মুখটাকে  ওর জুতো বা চটি পরা পায়ের ফুটস্টুল হিসাবে ব্যবহার করা ছাড়া আর যেভাবে বোন আমাকে দিয়ে সেবা করিয়েছে তা পুরোই সাধারন চাকরের মতো । রোজ ওর ঘর ঝাট দেওয়া , মোছা , ঘর গোছানো, জামা কাচা , জুতো পরিষ্কার , বিছানা করা এইসব । আর আমি ড্রাইভিং লাইসেন্স করার পর ওর ড্রাইভার হয়ে শপিঙে নিয়ে যাওয়া গাড়ি করে । অবশ্য চাকরের মতো বোনকে এইসব ছোট খাটো সেবা করেও এক তীব্র আনন্দ পাই আমি ।

অবশ্য সবার সামনে ছোট বোনের চটি পরা পা মুখের উপর নিয়ে তার চটির তলায় চুম্বন করতে করতে রোজ কয়েক ঘন্টা তার পা টিপে সবার সামনে সেবা করা সেটাই বা কম কি ? কতজন ছেলের সৌভাগ্য হয় এইভাবে ছোট বোনের সেবা করার ? এটা যত ভাবি নিজেকে তত সৌভাগ্যবান মনে হয় আমার । গল্পে আমার আর বোনের কেরিয়ার সম্পর্কে ঠিক কথাই লিখেছি ।

চাকরির জন্য বাধ্য হয়ে গত একবছর আমি মুম্বাইয়ে ছিলাম , ফলে আমার কলেজে পড়া খুড়তুতো বোন রিচার সেবা করা থেকে বঞ্চিত হয়েছি । তবে কাকু আমাকে কলকাতায় ওদের কোম্পানিতে সদ্য চাকরি পাইয়ে দিয়েছে । আমি কয়েকদিন হল আবার কলকাতায় কাকুর বাড়িতে ফিরে এসেছি , চাকরিতে জয়েন করব পরের মাসে ।

আবার একইভাবে রোজ চাকরের মতো সেবা করছি রিচার , কাকু – কাকিমার সামনেই । আর রোজ বিকেলে রিচা কলেজ থেকে ফেরার পর ও জুতো পরা পায়েই এসে সাধারনত কম্পিউটার টেবিলে ইন্টারনেট খুলে বসে ঘন্টা খানেক । কাকিমা ওকে টিফিন দেয় , আর আমি শুয়ে পড়ি রিচার জুতো পরা পায়ের তলায় । রিচা সাধারনত স্নিকার পরে কলেজে যায় , কোনদিন সাদা , কোনদিন পিঙ্ক বা নীল স্নিকার । আমি ওর পায়ের তলায় শুতে বোন নিজে থেকেই ওর স্নিকার পরা পা দুটো আমার মুখের উপর তুলে দেয়, সারাদিন রাস্তা আর কলেজে ঘোরার ফলে নোংরা স্নিকারের তলা দুটো ঘষতে থাকে আমার মুখের উপর । আমার ঠোঁট দুটো স্নিকারের তলা দিয়ে ঘষে খেলতে থাকে আমার বোন । আর আমি আমার মুখের উপর রাখা ওর জুতোর তলায় ভক্তিভরে বারবার গাঢ় চুম্বন করতে করতে টিপে দিতে থাকি ওর পা দুটো । আর মাঝে মাঝেই জিভ বার করে চাটতে থাকি ওর জুতোর তলা । ও নিজে থেকে আমাকে দিয়ে জুতোর তলা না চাটালেও আমি নিজে থেকে চাটলে কখনও বাধাও দেয়না ।

এইভাবে আমার ৪ বছরের ছোট সুন্দরী খুড়তুতো বোন রিচার সেবা করে আমার দিন কাটছে । খুব বেশি কিছু সেবা করতে না পারলেও যতটুকু করছি তাই বা কম কি? এইভেবেই নিজেকে খুশি করি । আর স্বপ্ন দেখি একদিন সবার সামনে আমার জিভের উপর নিজে থেকেই নোংরা জুতোর তলা ঘষে পরিষ্কার করবে রিচা । আর কারনে অকারনে প্রচন্ড জোরে থাপ্পর আর লাথি মারবে আমাকে ।)

( mild  edited  by  khoka ).

Khoka:

( Don’t read any story or comment without reading the Introduction .)

( ভূমিকা না পরে কেউ ব্লগে ঢুকবেন না । সম্পুর্ন ভূমিকা পড়ে তবেই গল্প, কমেন্ট পড়বেন বা নিজে কমেন্ট করবেন । অন্যথায় , আপনার কোন ভুল ধারনার জন্য আমি/ আমরা দায়ী থাকব না । )

amar 4 provu / আমার ৪ প্রভু

short english translation, edited version :

My goddess ANANYA….
( sorry for my poor english )

(part 1 )

this story deals with a 18 year old average looking boy rony , her gorgeous 14 year old younger sister Ananya, and 3 of her friends, Rai, Suchetana and Lipi .

Rony was always very shy and submissive to girls .
He always thought that he was worthless and always loved to serve his beautiful little sister . He does all her chores, washed her clothes, clean her shoes etc. He even rubbed her feet whenever she asked. Ananya took advantage of her submissive brother . She made a fake story in an evening, when he was massaging her foot like a real servant .

She told him that she told her 3 girlfriends that she was the only child of her parents and they had a very submissive servant rony, who did everything she ordered. She told it to them as a joke but they took it seriously . Her 3 girl friends now thought that he was the servant of her house, not her brother . They will come to their house next day .
So, if he don’t want to act like a submissive servant of his little sister ananya then they will made fun of her.
That poor boy rony, had no problem to became a servant of 4 beautiful teen girls . For him they were goddesses and he even loved to be their slave if they asked him to be. He told it to his beautiful younger sister while massaging her feet already like a servant . She even kissed her feet to show it . Ananya kicked his brother lightly in the face in response . She knew that she can use his submissiveness and can make him her slave easily.

And in reality, she did it too . She don’t made him just a servant but force him to be their slave .

when those 4 beautiful teen girls came to his house from their school, he bowed down to them and touched his head to all of their feet like a servant . In response, they kicked his face like a football with their school shoes ! They kicked his forehead, his chicks, his lips and even his nose ! They just don’t care about his pain, his bleedy nose, just continue to kick his face as if it was a football. Even his own younger sister Ananya don’t show any sympathy to her elder brother. She kicked his face as hard as she can while her brother rony kissed her sneakered foot for mercy.

Then she made him to laid down on the floor on his back and started to rub her shoe sole all over his face ,as if it was a foot stool ! Then Ananya made his elder brother to stuck his tongue out and clean her both sneaker sole on it . Her friends follow her path and did the same thing with him . They all used his tongue as a shoe shiner one by one .
Ananya then ordered him to arrange the dinner . He served them their food and while they were eating , he massaged all their feet one by one . After the dinner they all spat on remaining foods, placed their shoed feet on the plate and ordered him to eat that with his mouth like a dog . He does as he was told . Then all the girls started to kick his face again with their shoed feet. It was painful to him but for him these 4 beautiful girls were goddess. When they kicked his face as hard as they can, he just thanked them for kicking him .

But he can’t tollerate their torture any more after an hour . He became unconcious . When his conciousness arrives again , he found that only Ananya was there . All her friends were gone . ANANYA told him that from now on he was a slave to her for all his life . He has to serve her and her friends like a slave dog everyday . He even has to serve her infront of their patents . In response, he kissed her sister’s now sandaled feet and thanked her because for him, she was a goddess .

He started to massage her feet again while his sister was watching TV and using his face as her footstool.
after some times their parents came back , but they don’t stop . He massaged her feet infront of their parents before . But today , she was also using his face as the footstool for her sandaled foot . She was playing with his lips with her sandal sole while her brother was massaging her feet like the obedient servant he was in front of both of his parents .

Ananya was sitting on a chair in the TV room . Rony was lying on the floor on his back. Her both blue sandaled feet was resting on his face. Her left foot was on his forehead and her right sandaled foot iver his lips . He was massaging her left foot with slavish devotion while her sister playing with his lips using her sandal sole . It was a home sleeper, but still a few dust particles present in the sole . He was frequently kissing her right sandal sole while massaging her left foot . He was very happy by serrving his goddess sister in this way infront of his parents .

Both of their parents were sitting on the sofa in the same TV room . Their father was little curious, but didn’t say anything . He always loved his beautiful daughter more than his son . He didn’t mind if his son became a servant or even a slave to his daughter . She was so beautiful. Even he will serve her too if she liked, he thinks .

Their mother was always a feminist . She always thought that girls are superior to boys, and boys should try hard to make life easier for girls . In last couple of years, she was a member of a extreme feminist group which made her a strong feminist . She was really enjoyed what her daughter was doing to his son . She loved the idea that from now on her daughter will treat her elder brother as a mere slave, only for her amusement .

(part 2 – in rony’s view )

” from now on you are my servant, my slave . You will do whatever i say , no matter what that is or you like it or not . From now on i am your goddess and you are my slave. You will obey each of my command , bow down to me whenever you see me . You will kiss my feet infront of everyone . Do you understand me slave ?” Ananya kicked over my lips with her right sandaled feet and asked.

“Yes my goddess, i do . I will be your lowly slave from now on . I will do whatever you ordered , lick your shoe sole infront of the whole world if you asked to .”

My goddess younger sister Ananya kicked my nose this time . ” stuck your tongue out slave . I want to to clean my sandal sole on that filthy tongue of yours .”

I kissed her right sandal sole in response with all the devotion i had . Then I stuck out my tongue as far as i could and my goddess sister lowered her right sandal sole over it . She started to use my tongue as a doormat infront of our parents. I collected all the dirts from her sandal sole over my tongue and willingly started to swallow them . She was a goddess, so i should show highest respect to even the dirt under her shoe sole .
after cleaning her right sandal sole she lowered her left sandal sole on my outstretched tongue and started to use it like a doormat .

I started to massage her right foot , while she was cleaning her left sandal sole over my outstretched tongue infront of my parents. She was smilling , so did I . Both of us knew, this will be our new role in life, as a goddess and a slave. We both were very happy, so did our parents . Their smile reflects that they knew i deserve nothing more than to be a lowly slave of my fair, beautiful, intelligent 14 year old little sister Ananya.

Originally posted on Banglafemdom's Blog:

সেটা ছিল একটা শীতের সন্ধ্যা । আমার আদরের বোন অনন্যা ঘরে বসে টিভি দেখছিল । ওর পরনে ছাই রং এর জ্যাকেট আর কালো প্যান্ট, পায়ে নীল চটি । একটু আগে আমার করা টিফিন শেষ করে ও এখন পায়ের ওপর পা তুলে চেয়ার এ বসে টিভি দেখছে। আমি ওর স্কুলের জুতো পরিস্কার করে এখন ওর স্কুল ড্রেস আয়রন করছিলাম। হঠাৎ বোন ডাকলো , “দাদা, শোন।” আমি ওর কাছে গিয়ে বল্লাম, “বলো”। এমন না যে সবসময় আমি ওকে “তুমি “ বলে সম্বোধন করি। তবে ও আমার ৪ বছরের ছোট আদরের বোন, ভালবেসে ওর সব কাজ করে দিই আমি। ওর জন্য টিফিন করি, ওর জামা কাচি,আয়রন করি,ঘর ঝাট দিই,জুতো পরিস্কার করে দিই । অতিরিক্ত ভালবাসাতেই ওকে বেসিরভাগ সময়ে “তুমি” বলে ডেকে ফেলি। বোন কিন্তু সব সময়ে আমাকে তুই বলেই ডাকে।
“দাদা,পায়ে খুব ব্যাথা করছে, একটু টিপে দে না রে ।” মুখে হাসি ঝুলিয়ে বললো বোন। বোন যখন হাসে ওর গালে টোল পরে, ফলে…

View original 2,338 more words

( ভূমিকা না পরে কেউ ব্লগে ঢুকবেন না । সম্পুর্ন ভূমিকা পড়ে তবেই গল্প, কমেন্ট পড়বেন বা নিজে কমেন্ট করবেন । অন্যথায় , আপনার কোন ভুল ধারনার জন্য আমি/ আমরা দায়ী থাকব না । )

মহাপ্রভু সীমা   ( খোকা )

আমার নাম সীমা, আমি ক্লাস ৮ এ পড়ি এখন । ছোট থেকেই আমার দাদাকে একটু অদ্ভুত লাগে । সারাদিনে ওর একমাত্র চিন্তা যেন কিভাবে আমাকে খুশি করবে । দাদা আমার চেয়ে মাত্র ২ বছরের বড়, তবু অন্য পিঠোপিঠি ভাই বোনদের মত আমাদের মধ্যে কখনও ঝগড়া হত না । দাদা নিজে থেকেই ওর পছন্দের সব জিনিস আমাকে দিয়ে দিত । আমি চিরোদিনই একটু সেলফিশ , বাবা মাও ছোট মেয়ে বলে আমাকে একটু বেশিই ভালবাসত । তাই নিয়েও দাদার কোন আপত্তি ছিল না । পুজোর সময় আমার ১০ টা জামা হলে দাদার ১ টা হত , বাবা রোজ আমাকে ৫০ টাকা হাত খরচ দিলে দাদাকে দিত ৫ টাকা । আমি সেটাও বেশিরভাগ দিন দাদার কাছ থেকে চেয়ে নিতাম , দাদা হাসিমুখে দিয়ে দিত আমাকে। আমার ঘর গোছান, হোমটাস্ক , জামা কাচা , জুতো পরিষ্কার সহ বেশিরভাগ কাজ দাদা স্বেচ্ছায় করে দিত । আর রোজ রাতে নিয়ম করে আমার পা টিপে দিত দাদা , একদম ছোটবেলা থেকেই । আমি মাঝে মাঝে রেগে গেলে ওকে থাপ্পর মারতাম , মাঝে মাঝে লাথিও মারতাম । দাদা উলটে আমার পায়ে মাথা ঠেকিয়ে ক্ষমা চেয়ে নিত । বাবা মাও এতে কোন আপত্তি করত না , বাবা বলত আমি এই বাড়ির রাজকন্যা ।

আমাদের খেলার সময় দাদা এমন খেলা খেলতে চাইত যাতে ও আমার সেবা করতে পারে বা আমার হাতে মার খেতে পারে । যেমন , আমি রাজকন্যা আর ও চাকর , বা আমি পুলিশ ও চোর ।

আজ থেকে একমাস আগের এক রাত ছিল সেটা । রাতে খাওয়ার পর আমি বাবা মার সাথে বসে টিভি দেখছিলাম । আমি লাল সাদা রঙের একটা চুড়িদার আর পায়ে লাল চটি পরে একটা চেয়ারে বসেছিলাম । দাদা বসেছিল আমার পায়ের কাছে , আমার চটি পরা পা দুটো কোলে নিয়ে ও মন দিয়ে আমার পা টিপে দিচ্ছিল । ও এমনভাবে আমার পা টেপে যেন ও চাকর আর আমি ওর মনিব । আমি পা তুলে ওর বুকের উপর একটা লাথি মারলাম আমার চটি পরা ডান পা দিয়ে । দাদা একবার আমার মুখের দিকে তাকাল , তারপর আবার পা টেপায় মন দিল । এবার আমি পরপর দুটো লাথি মারলাম দাদার বুকে । আমি হঠাত অনুভব করলাম কিরকম একটা অদ্ভুত ভাল লাগছে দাদাকে লাথি মারতে। ও কি সত্যিই ভালবাসে আমার হাতে মার খেতে ? আমি যতই মারি ও কি কখনই আমাকে বাধা দেবে না ? আমার ভীষন জানতে ইচ্ছা করতে লাগল , ও কতটা মার সহ্য করতে পারে , সেই সঙ্গে ভয়ানক ইচ্ছা করতে লাগল আরো বেশি বেশি করে দাদাকে মারতে ।

আমি মুখে মিষ্টি হাসি ঝুলিয়ে দাদাকে বললাম , ‘ চল, আমরা চোর পুলিশ খেলি” । তুই একটা গয়না চুরি করবি । আমি তোকে মারতে থাকব ধরে এনে যতক্ষন তুই গয়না কোথায় লুকিয়ে রেখেছিস না বলিস” ।

দাদার মুখেও যেন অল্প হাসি ফুটে উঠল , “ আমার পা টিপতে টিপতে বলল , ‘ চল বোন’ ।

আমি মুখে আবার হাসি ফুটিয়ে ওর মুখের উপর চটি পরা ডান পা দিয়ে আলতো করে একটা লাথি মেরে বললাম , “ আজ কিন্তু তোকে ভীষন জোরে জোরে মারব” । জবাবে দাদা আমার ডান পায়ের পাতায় একটা চুম্বন করে বলল , “ পুলিশ তো চোরকে মারবেই”।

“ যা , একটা সিটি গোল্ডের হার নিয়ে আয় আমার ঘর থেকে , যেটা তুই চুরি করে লুকাবি । আর চামড়ার মোটা বেল্টটা নিয়ে আয় , যেটা দিয়ে তোকে মারব” । আমি দাদাকে বললাম ।

“এখুনি নিয়ে আসছি” । বলে দাদা আমার চটি পরা পায়ের উপর মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করে পাশের ঘরে চলে গেল । দাদা ছোট থেকেই রোজ সকালে ঘুম থেকে উঠে আর রাতে আমার পা টেপার পর আমার পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রনাম করে ।

একটু পরে দাদা একটা হার আর চামড়ার বেল্টটা এনে আমার পায়ের কাছে হাটুগেরে বসে বলল , “ কোথায় খেলবে সীমা?” দাদা আমাকে মাঝে মাঝে তুমি বলে , আমি দাদাকে সবসময়ই তুই বলি । আমি বাবা মার সামনেই দাদাকে মারতে চাইছিলাম । দাদার হাত থেকে বেল্টটা নিয়ে আমি অকারনেই ওর বাঁ গালে বেস জোরে একটা থাপ্পর মেরে বললাম , ‘ এই ঘরেই খেলব । আমি চোখ বন্ধ করছি , তুই গয়নাটা চুরি করে লুকিয়ে রাখ’ ।

“ জ্বী , রাখছি” । বলে দাদা অকারনেই আবার আমার চটি পরা পায়ের উপর মাথা রেখে প্রনাম করল । আমি চোখ বন্ধ করার ভান করে দেখলাম দাদা উঠে গিয়ে গয়নাটা বাবা মা যেই খাটে বসে আছে তার গদির তলায় ঢুকিয়ে রাখল । তারপর নিচু গলায় বলল , “ রেখে দিয়েছি” ।

আমি  উঠে দাড়ালাম । বাবা মা খাটে বসে টিভি দেখছিল , এখন টিভি ছেড়ে আমাদের দিকেই দেখছে । খাটের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা দাদার পাশে গিয়ে দাদার চুলের মুঠি ধরলাম ।

‘তুই নাকি কাল রাতে কালী মন্দির থেকে দেবির গলার সোনার হার চুরি করেছিস ?’

বলেই যত জোরে সম্ভব একটা থাপ্পর মারলাম দাদার বাঁ গালে । দাদা উল্টে পরে যাছিল প্রায়, খাটটা ধরে কোনক্রমে সামলাল । আমি তৎক্ষণাৎ ওর ডান গালে একই রকম জোরে আরেকটা থাপ্পর মারলাম  । বাবা মার সামনে এইভাবে আমার ২ বছরের বড় দাদাকে এইভাবে মারতে কেন জানিনা ভীষন ভাল লাগছিল আজ ।

দাদা মাথা নিচু করে বলল , “ না ম্যাডাম ,আমি চোর না । আমি কোন হার চুরি করিনি বিশ্বাস করুন” ।

আমি দাদার গালের উপর আরেকটা থাপ্পর মারলাম । তারপর ওর চুলের মুঠি ধরে টেনে ওর মাথাটা কাছে এনে ওর মুখের উপর একদলা থুতু ছেটালাম,

“ অফিসার সীমাকে ভুল বোঝানর ক্ষমতা কারো নেই । সত্যি কথা না বললে আজ তোকে মারতে মারতে মেরেই ফেলব” । আমি আড়চোখে তাকিয়ে বাবা মার দিকে দেখলাম । ওরা এমনভাবে আমাদের দেখছে যেন আমরা কোন স্বাভাবিক খেলা খেলছি । আমি জানতাম ,আমি দাদাকে মারতে মারতে মেরে ফেললেও বাবা মা বাধা দেবে না ।

থুতুটা দাদার কপালে পরে ওর নাকের দুপাশ দিয়ে নেমে এসে ওর ঠোঁটের সামনে আসতে দাদা জিভ বার করে আমার থুতুটা চাটতে লাগল । আমি ডান হাত দিয়ে দাদার বাঁ গালে আরেকটা জোরে থাপ্পর মেরে ওর চুলের মুঠিটা ছেড়ে দিলাম ।

‘বল। গয়না কোথায় রেখেছিস?’

দাদা সঙ্গে সঙ্গে আমার পায়ের উপর ঝাপিয়ে পরল । আমার পায়ের উপর মাথা ঘষতে ঘষতে আমার চটি পরা পায়ের উপর চুম্বন করতে করতে বলল , “ বিশ্বাস করুন ম্যাডাম , আমি কোন গয়না চুরি করিনি” । উফফ, বাবা মার সামনে আমার ২ বছরের বড় দাদা আমার পায়ের উপর চুম্বন করছে ! আমার দারুন লাগছিল । আমি চটি পরা ডান পা টা দাদার মাথার উপর রেখে দাদার মাথার উপর পা দিয়ে চাপ দিয়ে বললাম , “ সত্যি না বললে আজ তোকে পিটিয়ে মেরেই ফেলব কুত্তা” ।

‘প্লিজ ম্যাডাম, আমি সত্যি বলছি, বিশ্বাস করুন’। দাদা আমার চটি পরা বাঁ পায়ের উপর চুম্বন করতে করতে বলল ।

আমি দাদার মাথার উপর চটি পরা ডান পা দিয়ে একের পর এক লাথি মারতে লাগলাম । দাদা আমার বাঁ পায়ের উপর চুম্বন করতে করতে বলতে লাগল , ‘ প্লিজ ম্যাডাম, আমি চুরি করিনি, বিশ্বাস করুন” ।

একটু পরে আমি লাথি মেরে দাদাকে সোজা করে শুইয়ে দিলাম । তারপর দাদার ঠোঁটের উপর চটি পরা বাঁ পা টা তুলে চটির তলাটা দাদার ঠোটের উপর ঘষতে লাগলাম । দাদা দুহাত বাড়িয়ে আমার চটি পরা বাঁ পা টা ঠোঁটের উপর চেপে ধরে বাবা মার সামনেই আমার চটির তলায় চুমু খেতে খেতে ক্ষমা চাইতে লাগল ।

আমি পা টা দাদার হাত থেকে ছাড়িয়ে নিলাম একটু পরে , তারপর চটি পরা বাঁ পা দিয়ে প্রবল  জোরে একটা লাথি মারলাম দাদার নাকের উপ । উফফ, দাদা কি কখনই আমাকে বাধা দেবে না ? বাবা মার সামনে আমি কি এভাবেই রোজ দাদাকে যতখুশি লাথি মারতে পারব ? এক অদ্ভুত আনন্দে আমার মন ভরে গেল । আমি চটি পরা দুই পা দিয়ে দাদার নাক, কপাল, গাল, ঠোঁট সর্বত্র একের পর এক লাথি মারতে লাগল । দাদা যন্ত্রনায় মাঝে মাঝে গোঙ্গাতে লাগল । উফফ, কি রাশ অফ পাওয়ার ! এক অদ্ভুত আনন্দে আমি দুই পা দিয়ে দাদার মুখের সর্বত্র একের পর এক লাথি মারতে লাগলাম । আর দাদা আমার কাছে ক্ষমা চাইতে লাগল ।

এই সময় প্রথম বাধাটা এল । না দাদার কাছ থেকে না , বাবার কাছ থেকে । বাবা নিচু গলায় আমাকে রিকোয়েস্ট করল “ প্লিজ , ওকে একটু আসতে মার সীমা , ওর লেগে যাবে” ।

রাশ অফ পাওয়ারের আনন্দে আমি তখন মত্ত । এই বাধা আমার মোটেই ভাল লাগল না । দাদার মুখের উপর থেকে পা তুলে আমি এগিয়ে গেলাম বাবার দিকে । তারপর মায়ের সামনেই খাটে বসা বাবার দুইগালে সজোরে দুটো থাপ্পর মারলাম ।

পুলিশকে তদন্তে বাধা দিতে এসেছিস ? এর ফল কি হবে টের পাবি এখুনি”।

মায়ের মুখে হাসি দেখে বুঝলাম মা এঞ্জয় করছে আমার হাতে বাবার মার খাওয়া । মা চিরদিন আমাদের দুই ভাই বোনকে বুঝিয়ে এসেছে ছেলেদের স্থান মেয়েদের অনেক নিচে । আজ মেয়ের হাতে তার বাবার মার খাওয়া দেখেও মার হাসিতে বুঝলাম মা কথাটা সত্যি বিশ্বাস করে ।

আমার হাতে থাপ্পর খেয়ে বাবা থতমত খেয়ে গেল । হাতজোর করে আমাকে বলল , “সরি”।

আমি বাবার কান ধরে জোরে টান দিলাম । “ নেমে আয় জানোয়ার , পুলিশের তদন্তে বাধা দেওয়ার ফল কি আজ টের পাবি তুই” ।

আমি কান ধরে টেনে বাবাকে নিচে নামালাম । তারপর বাবার পেটে খুব জোরে মারলাম আমার ডান পায়ের হাটু দিয়ে । মুখ দিয়ে একটা অস্ফুট শব্দ করে বাবা উলটে পরে গেল ঠিক দাদার পাশেই ।

আমি চটি পরা বাঁ পা দাদার মুখে আর চটি পরা ডান পা বাবার মুখে রেখে উঠে দাড়ালাম । উফফ, কি যে আনন্দ লাগছে আমার । আমি চটি পরা দুটো পা বাবা আর দাদার মুখের উপর রেখে দাঁড়িয়ে আছি ভাবতেই এক অপুর্ব আনন্দে মন ভরে উঠছিল ।  আর তাতে আমার মায়ের সমর্থন আছে এটা সেই আননদকে আরও বহুগুন বাড়িয়ে দিচ্ছিল । আমি মনে মনে ঠিক করে নিলাম বাবা আর দাদাকে আজ থেকে আমার ক্রীতদাস করে রাখব ।

দাদার মুখের উপর রাখা পায়ের উপর ভর দিয়ে দাঁড়িয়ে আমি চটি প্রা ডান পা দিয়ে বাবার মুখের উপর একের পর এক জোরে জোরে লাথি মারতে লাগলাম, আমি । বাবার নাক ,গাল, কপাল , ঠোঁট, যেখানে খুশি আঘাত করতে লাগল আমার চটিপরা পা । মা পাশ থেকে হাসিমুখে বলল , “ ঠিক হচ্ছে , পুলিশকে বাধা দেওয়ার এটাই শাস্তি”।

একটু পরে আমি ওদের মুখ থেকে নেমে দাড়ালাম । পাশে রাখা চেয়ারটায় বসে পড়ে বাবার মুখের উপর চটি পরা পা দুটো রেখে বেল্ট দিয়ে দাদাকে সজোরে একবার মেরে বললাম , “ তুইও ঠিক এই জানোয়ারটার মাথায় মাথা ঠেকিয়ে শুয়ে পর”।

দাদা তাই করল । আমি চটি পরা দুটো পা দাদা আর বাবার মুখের উপর রেখে বললাম, “ কুত্তা আর জানোয়ার, তোদের জিভ বার কর” । বাবা আর দাদা বিন্দুমাত্র আপত্তি না করে ওদের জিভ মুখের বাইরে যতটা সম্ভব বার করে দিল । আমি আমার বাঁ চটির তলা বাবার জিভের উপর আর ডান চটির তলা দাদার জিভের উপর নামিয়ে দিলাম । এমনভাবে বাবা আর দাদার জিভের উপর আমার চটির তলা মুছতে লাগলাম যেন আমি কোন পাপোশে পা মুছছি ।

বিন্দুমাত্র আপত্তি না করে আমার চটির তলার ময়লা গিলে খেতে লাগল আমার বাবা আর দাদা । পাওয়ারের এক অদ্ভুত আনন্দ আমার কোশে কোশে ঢেউ তুলতে লাগল । সেই সাথেই আমি দাদার বুকে একের পর এক বেল্ট দিয়ে মারতে লাগলাম , “ বল কোথায় রেখেছিস গয়না” ।

প্রায় ৩০ মিনিট আমি আমার জুতোর তলা ঘষলাম বাবা আর দার জিভে ।যখন আমি থামলাম তখন আমার জুতোর তলা নতুনের মত চকচক করছিল । আমি পা দুটো ওদের কপালের উপর রাখলাম । আমি তখনও দাদার বুকে বেল্ট দিয়ে জোরে জোরে মেরে চলেছি । দাদার বুক দিয়ে একটু একটু রক্ত বেরচ্ছিল, দাদা আমার চটি পরা ডান পা টা ঠোটের উপর টেনে এনে চটির তলায় বারবার চুম্বন করে বলছিল , “ আমি চুরি করিনি প্রভু, বিশ্বাস করুন” । আমি তবু চাবুক মারা চালিয়ে গেলাম । মাঝে মাঝে চটি পরা পা দিয়ে দাদার মুখে লাথি মারতে লাগলাম ।

১০ মিনিট পর আমি উঠে দাড়ালাম । চাবুক রেখে একের পর এক লাথি মারতে লাগলাম দাদার মুখের সর্বত্র । দাদার উপর এক্টুও দয়া করছিলাম না , যত জোরে খুশি লাথি মারছিলাম দাদার মুখে । দাদা কাতরাচ্ছিল ব্যাথায় , আমার চটির তলায় চুমু খেয়ে ক্ষমা চাইছিল । তবু আমি দাদার মুখে চটি পরা পায়ে লাথি মারার আনন্দে একের পর এক লাথি মারছিলাম দাদার মুখে ।

বুম !

বুম !

বুম !

বুম !!

আমি লাথি মারা চালিয়ে যেতে লাগলাম । আমার মনে হচ্ছিল আমরা বুঝি ২০০ বছর আগের আমেরিকায় ফিরে গেছি । আমি শ্বেতাঙ্গ প্রভু , আর দাদা আমার কৃষ্ণাঙ্গ ক্রীতদাস । আমি জুতো পরা পায়ে দাদার মুখে লাথি মারতে মারতে ওকে মেরে ফেললেও ওর বাধা দেওয়ার কোন অধিকার নেই । উফফ, এই ভাবনাতেই কি আনন্দ ! আমি আরও জোরে দাদার মুখে লাথি মারা চালিয়ে গেলাম । আমি বুঝতে পারছিলাম , আমি সেই যুগের শ্বেতাঙ্গ প্রভুদের মত হতে চাই । আমার বাবা আর দাদাকে আমার ক্রীতদাস করে অত্যাচার করতে চাই সারাজীবন ।

আরও ৩০ মিনিট পর দাদা আমার চটির তলায় চুমু খেতে খেতে বলল, ‘ আমি অপরাধ স্বীকার করছি প্রভু । গয়না ফিরিয়ে দিচ্ছি । প্লিজ আর মারবেন না আমাকে” ।

আমি দাদার নাকের উপর সজোরে একটা লাথি মেরে বললাম, “ যেখানে গয়না লুকিয়ে রেখেছিস সেখানে আমাকে পিঠে করে নিয়ে চল কুত্তা”।

দাদা ৪  পায়ে কুত্তার মত দাড়ালে আমি ওর পিঠে উঠে বসলাম । ওর গলায় বেল্টটা বেধে দিলাম, যেভাবে কুত্তাদের গলায় বেল্ট বাধে । তারপর ওর হাতে লাথি মেরে বললাম , “চল কুত্তা”।

দাদা আমাকে পিঠে করে খাটের সামনে এনে বলল, “ এই গদির তলায় লুকিয়ে রেখেছি প্রভু”। আমি হাত ঢুকিয়ে গয়না বের করে আনলাম ।

তারপর দাদার পিঠ থেকে নেমে দাড়ালাম ।

দাদা বোধহয় আর সহ্য করতে পারছিল না । মাথা নিচু করে ও বলল , “ খেলা শেষ তো সীমা?”

আমি উত্তর দেওয়ার আগেই পাশ থেকে মা হাসিমুখে উত্তর দিল , “ হ্যাঁ , খেলা শেষ । তবে আজ থেকে তুই আর তোর বাবা খেলার বাইরেও সীমার চাকর আর পোশা কুত্তা , সীমা শুধু তোদের প্রভু না , মহাপ্রভু । আজ থেকে সীমা তোদের মালকীন । সীমার যখন ইচ্ছা হবে তোদের এভাবে মারবে । তোদের একমাত্র উদ্দেশ্য হবে সীমাকে খুশি রাখা ।

এই কথা শুনে আনন্দে আমার চোখ দিয়ে জল বেড়িয়ে এল । আমি মাকে জড়িয়ে ধরে বললাম , আই লাভ ইউ মম ।

আর বাবা আর দাদা জবাবে আমার দুটো পা জড়িয়ে ধরে আমার পায়ে মাথা ঘষতে লাগল ।

রাখি… ( খোকা )

আমি তখন  1st  ইয়ারে  পড়ি ।  আমাদের পাশের বাড়িতে একটা মেয়ে থাকত ।  মেয়েটার নাম রাখি । ক্লাস ৯ এ পড়ত , খুব সুন্দরী দেখতে । কিন্তু পড়াশোনায় ভাল না । ওর মা বলল আমি যেন ওকে একটু পড়িয়ে দি ।

আমি রাজি হয়ে গেলাম । সুন্দরী মেয়েকে পড়ানোর সুযোগ কেই বা হাতছাড়া করে ?

তা ও পড়তে এলে ওকে চেয়ারে বসিয়ে আমি ওর পায়ের কাছে বসে পড়াতে লাগলাম। আমার পড়ার ঘরে আর কেউ ঢোকে না, তাই সেদিক থেকে নিশ্চিন্ত । অ একটু অবাক হলেও আমাকে কিছু বলল না।  প্রথম কয়েকদিন আমি বিশেষ কিছু করলাম না। শুধু মাঝে মাঝে ওর পায়ের উপর আলতো করে হাত বলানো ছাড়া ।

একমাস পর ও আমার ওর পায়ের কাছে বসাতে মোটামুটি অভ্যস্ত হয়ে গেল । আমি ঠিক করলাম এবার একটু এগোতে হবে । ও পড়তে এলে ওকে একটু পরালাম । তারপর ওকে বললাম , – আমার ডান হাতটায় জিম করে খুব ব্যাথা হয়েছে । তুই তোর পা দুটো আমার হাতের ওপর একটু রাখবি প্লিজ ? চাপ লাগলে একটু আরাম পাবো । এই বলে আমি ওর পায়ের কাছে ডান হাতটা রেখে শুয়ে পরলাম।

রাখি একবার আমার চোখের দিকে তাকাল, তারপর নিজে থেকেই ওর পা দুটো তুলে আমার ডান হাতের বাইসেপ এর উপরে রাখল ।

পা দিয়ে আমার হাতটা একটু ঘষে দিবি প্লিজ ? রাখিকে অনুরোধ করলাম আমি।

ও আমার হাতের বাইসেপটা ওর দুপায়ের তলায় আসতে আসতে ঘষতে লাগল । ওর মুখে হালকা হাসি ফুটে উঠেছে দেখলাম ।

১০- ১৫ মিনিট পর ওর পাদুটো টেনে আমার হাত আর বুকের সংযোগস্থলে রাখলাম।

-এবার এখানে একটু চাপ দে প্লিজ ।

ওর মুখের হাসি যেন আরেকটু চওড়া হল । মুখে হাসি ঝুলিয়ে আমার কাঁধ আর বুকের সংযোগস্থলে চাপ দিতে লাগল ।

আমি ওর বাঁ পাটা ধরে বললাম – এই পা টা দিয়ে একটু জোরে চাপ দে প্লিজ ।

এই বলে আমি ওর ডান পাটা সরিয়ে ঠিক আমার বুকের মাঝখানে রাখলাম । রাখি বাঁ পা দিয়ে আমার কাধে চাপ দিতে লাগল । আর আমি আমার সুন্দরী ছাত্রীর পায়ের তলায় শুয়ে ওর ডান পাটা দুহাত দিয়ে বুকের সাথে চেপে ধরলাম ।

রাখি কিছু বলল না , মুখে মুচকি হাসি ঝুলিয়ে বাঁ পা দিয়ে আমার হাতটায় চাপ দিতে থাকল । আমি ওর ডান পাটা আমার বুকের মাঝখানে জড়িয়ে ধরলাম । ওর ফর্শা খালি ডান পা টাকে আসতে আসতে টেনে নিজের গলার উপর নিয়ে এলাম ।

রাখি তখন ওর বাঁ পা দিয়ে আমার হাতে চাপ দেওয়া ছেড়ে হঠাত ওর বাঁ পাটা ডান পায়ের উপর তুলে বসল । ফলে ওর খালি বাঁ পাটা আমার মুখের একটু ওপরে দুলতে লাগল । ওর মুখে মুচকি হাসি লেগে । আমি আর পারলাম না । আমার সুন্দরী ছাত্রীর প্রতি ভক্তিতে মন ভরে উঠল আমার । আমি মাথা তুলে ওর বাঁ পায়ের তলায় একটা গাঢ় চুম্বন করলাম ।

রাখি মুখে হাসি ফুটিয়ে বলল – আবার ।

তার মানে আমার সুন্দরী ছাত্রী রাখি আমাকে ডমিনেট করা এঞ্জয় করছে ?

উফফ, প্রবল আনন্দে আমি রাখির বাঁ পায়ের তলায় একের পর এক চুম্বন করতে লাগলাম । একটু পরে রাখি ওর দুটো খালি পাই আমার মুখের উপর নামিয়ে দিল । আমার ঠোঁট আর কপালের উপর ওর ফর্শা নরম পায়ের তলা ঘষতে লাগল। আমি বারবার গাঢ় চুম্বন করতে লাগলাম ওর পায়ের তলায় । আর হাত বাড়িয়ে ওর পা দুটো এমনভাবে টিপতে লাগলাম যেন আমি ওর চাকর আর ও আমার প্রভু ।

হঠাত রাখি ওর খালি ডান পা দিয়ে আমার নাকের উপর একটা লাথি মারল । আমি আর পারলাম না । ওর ডান পায়ের তলায় গভীর আবেগে একটা চুম্বন করে বললাম , – প্রভু, আমাকে তুমি যতখুশি লাথি মারতে পার , আমাকে নিয়ে যা খুশি তাই করতে পার তুমি । আমি তোমার ক্রীতদাস প্রভু ।

আমার কথা শুনে রাখির মুখের হাসি চওড়া হল । রাখি ওর ফর্শা নরম খালি পা দিয়ে আমার মুখের সর্বত্র জোরে জোরে লাথি মারতে লাগল । জবাবে আমি ওর পায়ের তলায় চুম্বন করতে করতে ওকে ধন্যবাদ দিতে লাগলাম ।

একটু পরে রাখি আমার নাকের উপর বাঁ পা দিয়ে একটা লাথি মেরে বলল , – তোর জিভটা লম্বা করে বার করে দে ।

আমি তাই করলাম । রাখি ওর পরিষ্কার ফর্শা দুটো পায়ের তলা পালা করে আমার জিভে ঘষতে লাগল ।

প্রায় ৩০ মিনিট আমার জিভের উপর খালি পা ঘষার পর রাখি আবার আমার মুখে একটা লাথি মেরে বলল – যা, আমার চটি দুটো নিয়ে আয় । তোকে দিয়ে এবার আমার চটির তলা চাটাব । জবাবে আমি রাখির পায়ে আবার চুম্বন করে বললাম, – এক্ষুনি আনছি প্রভু ।

আমি রাখির নীল চটি দুটো মাথায় করে নিয়ে এসে মুখ দিয়ে আমার প্রভু রাখির পায়ে পড়িয়ে দিলাম । রাখি সঙ্গে সঙ্গে বেশ জোরে চটি পরা ডান পা দিয়ে আমার মুখে একটা লাথি মেরে বলল, – আমার পায়ের কাছে হাটুগেড়ে বসে থাক । আমি তোর মুখে চটি পরা পায়ে লাথি মারব এখন ।

আমি প্রবল ভক্তিভরে হাটুগেড়ে আমার প্রভুর পায়ের কাছে বসে রইলাম । আর আমার ক্লাস ৯ এ পড়া সুন্দরী ছাত্রী রাখি আমার মুখে একের পর এক লাথি মারতে লাগল ওর চটি পরা দুই পা দিয়ে। আমার প্রবল ব্যাথা লাগছিল , তা সত্বেও এক প্রচন্ড আনন্দ অনুভব করছিলাম আমার হৃদয়ে  ।

আমাকে প্রায় ১০০ টা লাথি মেরে থামল আমার প্রভু রাখি । তারপর আমাকে আদেশ করল , – আমার পায়ের তলায় শুয়ে পর ।

আমি তখনই প্রভুর আদেশ পালন করলাম ।

  • আবার তোর জিভটা লম্বা করে বার করে দে কুত্তা । আমি এবার আমার চটির তলা মুছব তোর জিভে ।

আমি সঙ্গে সঙ্গে লম্বা করে বার করে দিলাম আমার জিভ । আর আমার প্রভু রাখি আমার বার করা জিভের উপর নিজের চটি পরা ডান পায়ের তলা নামিয়ে দিল । রাখির চটির তলা বেশ ময়লা। আমি প্রবল ভক্তিভরে রাখির চটির তলার ময়লা গিলে খেতে লাগলাম । রাখি প্রথমে ডান চটির তলা তারপর বাঁ চটির তলাও আমার জিভের উপর ঘষে নতুনের মত চকচকে করে ফেলল । আমি তারপর উঠে বসে প্রবল ভক্তিভরে রাখির পায়ের উপর মাথা রেখে ওকে প্রনাম করলাম ।

রাখি আমার মাথার উপর চটি পরা ডান পা রেখে আশীর্বাদ করল আমাকে । তারপর বলল , – আজ থেকে আমি তোর প্রভু , তুই আমার ক্রীতদাস । কাল থেকে আমি আমার বান্ধবীদেরও নিয়ে আসব । তুই আমাদের সবার সেবা করবি এভাবে ।

একথা শুনে আমার আরও আনন্দ হল । আমি রাখির চটি পরা পায়ের উপর চুম্বন করতে করতে ওকে ধন্যবাদ দিতে লাগলাম ।

( ভূমিকা না পরে কেউ ব্লগে ঢুকবেন না । সম্পুর্ন ভূমিকা পড়ে তবেই গল্প, কমেন্ট পড়বেন বা নিজে কমেন্ট করবেন । অন্যথায় , আপনার কোন ভুল ধারনার জন্য আমি/ আমরা দায়ী থাকব না । )

স্কুলে শাস্তি

আমি যখন ক্লাস ৮ এ পড়তাম তখন আমাদের ক্লাস এর ফার্স্ট গার্ল স্বাগতা কেপ্রপোস করেছিলাম।   আমি পড়াশোনায় খারাপ ছিলাম ,দেখতেও ভালো ছিলামনা। স্বাগতা রেগে গিয়ে ম্যাডাম কে রিপোর্ট করে দিয়েছিল। ম্যাডামের  নামমধুমিতা ,  আমাদের  ইংলিশ পড়াতেন,  বয়স আন্দাজ  ২৮. উনি খুব রাগীছিলেন। তবে অদ্ভুত  ব্যাপার হল উনি মেয়েদের অপর সহজে রাগতেন না।কখনো  কোন মেয়ে কে মারেননি । আর ছেলে রা পড়া না  পারলে বা  দুষ্টুমিকরলে উনি বেত দিয়ে মেরে পিঠের চামড়া তুলে নিতেন।  মধুমিতা ম্যাডামটিফিনের পর ক্লাস এ ঢুকলেন।  সেটা ফিফথ পিরিয়ড।  ঢুকেই ডাকলেন আমাকে,  -’সুমন , এদিকে আয়।’

আমি জানতাম স্বাগতা নালিশ করেছে ওনাকে . আমি ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে বেরিয়েএলাম . ঊনি ফার্স্ট বেঞ্চের  ঠিক সামনে আঙ্গুল দিয়ে দেখালেন, ‘এখানে কান ধরে নিলডাউন  হ’।  আমি ভয়ে ভয়ে তখনই  নিল ডাউন হলাম।  আমাদের ক্লাসেরবাঁ  দিকে মেয়েরা বসে, আর ডান দিকে ছেলেরা  । এটা বাঁ দিক , আর আমিযেখানে কান ধরে নিলডাউন হলাম তার ঠিক সামনে ১ ফুট দূরে বসে আছেস্বাগতা। ওর জুতো পরা বাঁ  পা ডান পায়ের উপর রাখা  । আর কালো জুতোপরা বাঁ পাটা ও আসতে আসতে নাচাচ্ছে । ওর মুখে মিষ্টি হাসি।  ম্যাডামচেয়ার  টেনে আমার সামনে বসে  বললেন , আর এগিয়ে নিল ডাউন হ , ঠিকবেঞ্চ টার সামনে।

আমি ভয়ে কাঁপতে কাঁপতে স্বাগতার পায়ের সামনে নিল ডাউন হলাম।  ও ডানপায়ের ওপর বাঁ  পা তুলে নাচাচ্ছে,ওর বাঁ  পাটা আমার মুখ থেকে কয়েক ইঞ্চিদূরে মাত্র।  ফার্স্ট বেঞ্চে স্বাগতার সাথে বসে আছে আফসানা, পায়েল আরঅনামিকা  ।  অরা সবাই আমার দিকে তাকিয়ে হাসছে। মধুমিতা ম্যাডাম আমারপাশে চেয়ার টেনে পায়ের ওপর পা তুলে বসল। ম্যাডাম বাঁ পায়ের ওপর তলা ডানপাটা তুলে নাড়াতে লাগল। পা নাড়ানোর সময় ম্যাডামের স্যান্ডেলের তলার ময়লাআমার জামায় লেগে যেতে লাগলো । আমার ভিশন লজ্জা করছিলো গোটা ক্লাসেরসামনে এভাবে নিল ডাউন  হওয়ার  জন্যে। লজ্জায় আমি মাথা নিচু করলাম, ফলেআমার দৃষ্টি গিয়ে পড়ল আমার ড্রিম গার্ল স্বাগতার কালো স্কুল সু পরা পায়েরদিকে। ও পা নাড়াতে লাগল আর আমি কান ধরে নিল ডাউন হয়ে তাই দেখতেলাগলাম।

“ তোর বাবা মা তোকে স্কুলে কি জন্য পাঠিয়েছে? পড়াশোনা করার জন্য নাকিভালো মেয়েদের ডিস্টার্ব করার জন্য?”  ম্যাডামের কথায় আমি অবাক হয়েম্যাডামের দিকে তাকালাম, আমতা আমতা করে বলতে চেষ্টা করলাম ,”আমিকাউকে ডিস্টার্ব করিনি ম্যাডাম, ওকে আমার খুব ভাল লাগে ,তাই অঁকে শুধুসেটা…….”.

ম্যাডাম আমাকে কথা শেষ করতে দিল না, প্রবল জোরে একটা লাথি মারল আমারপিঠের পাশের দিকে। আমি স্বাগতার বা পাশে বসে থাকা আফসানার পায়ের ওপরউলটে পরে গেলাম। আমার ঠোঁট নাক আর কপাল আফসানার জুতো পরা পা স্পর্শকরল । আমি উঠতে যাচ্ছিলাম, তার আগেই ম্যাডামের বেত আমার পিঠে সজোরেআছড়ে পরলো, “ উঠবিনা  একদম,  যেভাবে আছিস পরে থাক।  এটা স্কুল, প্রেমকরার যায়গা না। আর তুই তো ক্লাসের সব মেয়েকেই এভাবে ডিস্টার্ব করিস।

“আমি বলার চেষ্টা করলাম, “না ম্যাডাম, আর কাউকে কখনো আমি….”,আমার কথা শেষ করার আগেই আফসানা বলে উঠল, “ ও আমাকেও অনেকদিনথেকে ডিস্টার্ব করে ম্যাডাম।”

পায়েল আর অনামিকা ওর সুরে সুর মেলাল, ‘আমাদেরও ডিস্টার্ব করে ও’।

আমি কি বলব বুঝতে পারছিলাম না . আমার মাথা তখন আফসানার জুতো পরাপায়ের ওপর রাখা , আর আমার মাথার বাঁ দিকে স্বাগতা আর ডানদিকে পায়েলওদের জুতো পরা পা তুলে আমার চুলের ওপর ওদের জুতোর তলা বোলাচ্ছে।ম্যাডাম আমার পিঠে বেতের বারি মারতে লাগলেন,  “ছি,কি নির্লজ্জ ছেলে !ক্লাসের সব মেয়েকে ডিস্টার্ব করে বেড়ায়।  এক্সাম ফেল করা ছেলে হয়ে ক্লাসেরফার্স্ট গার্লকে প্রপোস করছে ! লজ্জা শরম কিছুই নেই।” আমি মাথা নিছু করে পরেরইলাম আফসানার জুতো পরা পায়ে মাথা রেখে। স্বাগতা আর পায়েল আমার চুলনিয়ে খেলতে লাগল জুতো পরা পা দিয়ে। আর ম্যাডাম আমার  পিঠে  চটি পরাডান পা তুলে আমার পিঠে বেত মারতে লাগল গোটা ক্লাসের সামনে।

মিনিট পাঁচেক পরে ম্যাডাম থামল । তোর  জন্য চরম শাস্তি অপেক্ষা করে আছে। তবে তার আগে ওদের ৪ জনের পা ধরে ক্ষমা চা  । আমি  ততক্ষনে  ভয়েআর লজ্জায় থরথর করে কাপছি ।  আমি এক এক করে ওদের কাছে ক্ষমা চাইতেলাগলাম।  প্রথমে পায়েল, তাঁরপর আফসানা,  স্বাগতা,  সবশেষে অনামিকারপায়ে মাথা রেখে ক্ষমা চাইলাম, গোটা ক্লাসের সামনে ওদের জুতোয় চুম্বন করলাম।

ম্যাডাম তখনও চেয়ারে বসে আমার সামনেই । ওদের কাচে ক্ষমা চেয়ে ম্যাডামেরপায়ের কাছে  হাটুগেড়ে হাতজোড়  করে বললাম ,  “ম্যাডাম, প্লিজ আমাকে ক্ষমাকরে দিন এবার , এরকম ভুল আর কখনও  করবনা । নিজেকে মেয়েদের পায়েরতলার ধুলোর সমান ভাববো , মেয়েরা আমার থেকে অনেক সুপিরিয়র,  ওদেরপ্রপোস করার কথা স্বপ্নেও  ভাববনা  আর  । প্লিজ  ম্যাডাম, আজ  ক্ষমা করেদিন  আমাকে।”  বলতে বলতে আমার চোখ দিয়ে জল পরতে লাগলো, আমিম্যাডামের পায়ের ওপর মাথা নামিয়ে দিলাম।  ক্লাসের মেয়েরা মুখে হাসি ঝুলিয়েআমার  হিউমিলিয়েশন  দেখতে লাগলো  ।

ম্যাডাম লাথি মেরে আমার মাথা সরিয়ে দিল ওর পায়ের ওপর থেকে। “ তুইযাকরেছিস তাতে টিসি    দেওয়াটা  খুব কম শাস্তি। তবু যাদের কাছে অপরাধকরেছিস তাদের কাছে ক্ষমা চেয়ে যা বাকি ক্লাস টুকু। ওরা ক্ষমা করে দিলে আমারকিছু বলার নেই।  নাহলে তোর টিসির ব্যাবস্থা করতে আমি  বাধ্য  হব।  আজআমি ২ পিরিয়ড  জুড়ে ক্লাস নেব। তোর হাতে সময় আছে  ।   দেখ, ওরা ক্ষমাকরে কিনা।”  আমার চোখ দিয়ে বন্যার মত জল বয়ে চলল।  আমি স্বাগতার জুতো পরা পায়ে মাথা নামিয়ে ওর জুতোয় চুম্বন করতে করতে ওকে বলতেলাগলাম,  “প্লিজ প্রভু, আমাকে ক্ষমা করে দাও। প্লিজ ”.

মধুমিতা ম্যাডাম বাকি ক্লাস কে পরাতে লাগলো । আর আমি ,ক্লাসের লাস্ট বয়সুমন, ক্লাসের ফার্স্ট গার্ল স্বাগতার জুতো পরা পায়ে চুম্বন করতে লাগলাম গোটা ক্লাসের সামনে। একটু পরে স্বাগতা আমাকে চিত হয়ে অর পায়ের তলায় শুয়েপরতে বলল। আমি ওকে খুশি করতে তাই করলাম।  স্বাগতা ওর বাঁ  পা রাখলআমার গলায়, ডান পা আমার ঠোঁটের  ওপর। অনামিকা ওর পা দুটো রাখলআমার নাক আর কপালের ওপর। আফসানা ওর পা রাখল আমার বুকে, আরপায়েল আমার পেটে ।  আমি স্বাগতার ডান জুতোর তলাচাটতে  লাগলাম গোটাক্লাসের সামনে , তারপর ও ডান পা আমার গলায় রেখে ডান পায়ের ওপর বা পারাখল , আমি ওর বা জুতোর তলাও চেটে পরিষ্কার করে দিলাম।

আমি মানসিক ভাবে  ততক্ষণে  পুরোপুরি ভেঙ্গে পরেছিলাম ।  ওদের  জুতো চেটেশুধু  ওদের খুশি করতে চাইছিলাম , যাতে আমার টিসি না হয়।  স্বাগতার  জুতোচেটে পরিষ্কার করে দিলে ও প্রথমে অনামিকা, তারপর পায়েল আর আফসানারসাথে জায়গা বদল করল। আমি ওদের জুতোর তলাও চেটে পরিষ্কার করে দিলাম।আমি ওদের জুতো চাটতে চাটতে আর পা টিপতে টিপতে ওদের কাছে অনুরোধ করেচললাম,  “প্লিজ  প্রভু, আমার ভুল হয়ে গেছে । আমাকে এবারের মত ক্ষমা করেদিন।” ক্লাস শেষ হতে স্বাগতা মুখে হাসি ঝুলিয়ে ম্যাডামকে বলল, “ওকে আমরাএকটা শর্তে ক্ষমা করতে পারি।” ম্যাডাম বলল, “কি শর্ত?”

স্বাগতা বলল রোজ স্কুল শুরু হুয়ার  আগে আর স্কুল শেষের  পর ক্লাসের সবমেয়ের জুতো পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে ওকে প্রণাম করতে হবে, স্কুলের সব মেয়েকেপ্রভু বলে ডাকতে হবে। স্কুলের  যেকোন মেয়ের  যেকোন আদেশ সঙ্গে সঙ্গে পালনকরতে হবে।  আর আপনার পিরিয়ডে  ওকে আমাদের  পায়ের তলায় শুয়েআমাদের জুতোর তলা চাটতে হবে । আমাদের লাথি খেতে হবে । ও রাজি হলে আমরা ওকে ক্ষমা করতে পারি” ।

আমি স্বাগতার পায়ে  চুমু  খেয়ে বললাম,  “আমি রাজি প্রভু । থ্যাঙ্ক ইউ আমাকেক্ষমা করার জন্য ”। এই   বলে স্বাগতাকে   সাষ্টাঙ্গে  প্রণাম করলাম । ম্যাডামআমাকে  বলল “আমি তোকে এবারের মত ক্ষমা করে দিলাম তাহলে । তবে স্কুলেরকোন মেয়ে তোর নামে নালিশ করলে সঙ্গে সঙ্গে তোকে টিসি দিয়ে দেব। আরক্লাসের অন্য ছেলেরা, তোরাও জেনে রাখ , কখনও  কোন মেয়েকে ডিস্টার্ব করলেবা প্রপোস করলে তোদেরও সুমনের মত একি শাস্তি পেতে হবে।”

সেদিন থেকে আমার  ক্লাস ৮ থেকে ১২ অবধি আমি রোজ ক্লাস এর সব মেয়েরজুতো পরা পায়ে মাথা ঠেকিয়ে প্রণাম করতাম। আর মধুমিতা ম্যাডামের ক্লাসেস্বাগতা , অনামিকা, আফসানা,  আর পায়েলের  জুতো পরা পায়ের তলায় শুয়েওদের পা টিপতাম, ওদের জুতো চাটতাম। ওরা ওদের জুতো পরা পায়ে যত খুশি লাথি মারত আমার মুখে । জবাবে আমি ওদের জুতোর তলায় চুম্বন করে ধন্যবাদ দিতাম ওদের ।  আশ্চর্য ব্যাপার হল, কিছুদিন পর থেকে এইকাজটা করতে আমার খারাপ তো লাগতই না , বরং ভিশন ভাল লাগত। এতসুন্দরী  ৪ জন প্রভুর সেবা করতে পেরে আমি গর্বিত ছিলাম।  আর আমাদেরক্লাসের কোন ছেলের কোনদিন কোন মেয়েকে প্রপোস  করার সাহস হয়নি  তারপর ।

স্বাগতা আমার গলায় কলার বেধে ওদের বাড়িতেও নিয়ে যেত । আমাকে দিয়ে ওদের বাড়ির সব কাজ করাত । ওর বাবা মার সামনে আমার মুখে লাথি মারত যত খুশি । স্বাগতার ৩ বছরের ছোট বোন প্রথমাও আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারত, আমাকে দিয়ে ওর জুতোর তলা চাটাত । ওদের পাড়ার সবাই জানত আমি ওদের দুই বোনের পোশা কুত্তা । পাড়ার রাস্তায় ফেলে আমার মুখে জুতো পরা পায়ে লাথি মারত ওরা দুই বোন , আমার জিভে ঘষে ওদের জুতোর তলা পরিষ্কার করত । আমি প্রভুভক্ত ক্রীতদাসের মত আমার দুই সুন্দরী প্রভুর সেবা করতাম ।

( khoka/ খোকা )

Follow

Get every new post delivered to your Inbox.

Join 26 other followers